হাইফা মহিলা মোর্চা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

'হাইফা উইমেন্স কোয়ালিশন বা হাইফা মহিলা মোর্চা' হল ইসরায়েলি শহর হাইফায় চারটি নারী সংগঠনের জোট: এরা হলো ইশা লিশা - হাইফা , নারীবাদী কেন্দ্র, কায়ান - নারীবাদী সংগঠন, হাইফা ,ধর্ষণ সংকট কেন্দ্র আসওয়াত । এ জোট নারীদের অধিকার সচেতনতা এবং গার্হস্থ্য ও যৌন সহিংসতার শিকার নারীদের সমর্থন করে। ইসরায়েলের ইহুদিআরব নারীরা এক ছাদের নিচে কাজ করে। সমস্ত পটভূমি উত্তর ইসরাইলি নারীদের জন্য একটি যোগাযোগের জায়গা তৈরি করে।

সংক্ষিপ্ত পরিচয়[সম্পাদনা]

ইশা লিশা , আসওয়াত, কায়ান এবং হাইফা ধর্ষণ সংকট কেন্দ্র আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করে। ২০০৮ সালে, অসওয়াত অস্ট্রিয়ান গ্রিন পার্টির উদ্যোগে ভিয়েনা শহরের গো দৃশ্যমান পুরস্কারে ভূষিত হয়। রাউদা মরকোসকে "আসওয়াত" এর প্রধান করা হয় । ২০০৬ সালে “আউট রাইট এ্যাকশন ইন্টারন্যাশনারে ফিলিফা ডি সুজা পুরস্কার পায়।[১] "আসওয়াত" মধ্যপ্রাচ্যে আরব লেসবিয়ানদের জন্য প্রথম পাবলিক সংগঠন ছিল। রাউদা মরকোস একটি দীর্ঘ সময় ধরে "আসওয়াত" এর মুক্ত সমকামী সদস্য ছিল। ইসরাইল, পশ্চিম তীর এবং গাজায় এই গোষ্ঠীর সমর্থক রয়েছে। বেশিরভাগ আরব লেসবিয়ানরা প্রতিশোধের ভয়ে তাদের যৌনতা পছন্দ লুকিয়ে রাখে। ২০০৮ সালের মার্চ মাসে আসওয়াতের প্রথম সম্মেলনে সমর্থকদের কাছ থেকে উচ্চতর স্তরের সাড়া পেয়েছিল। এমনকি সমকামীদের অধিকারের বিরোধীদের কাছ থেকেও সাড়া পেয়েছিল। ইসরাইলের ইসলামী আন্দোলন সম্মেলনটি বাতিলের অনুরোধ করে। আয়োজকরা তা প্রত্যাখ্যান করে। ইসলামী আন্দোলনের সদস্যরা সম্মেলন ভবনের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।[২] আসওয়াতের লক্ষ্য হচ্ছে অধিকৃত ফিলিস্তিনি অঞ্চলে নারীবাদী সংগঠনগুলোর সঙ্গে সহযোগিতা জোরদার করা। ফিলিস্তিনিদের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে সংগ্রামের সাথে সাথে সমকামী অধিকারের জন্য নারীরা তাদের সংগ্রাম করে। ওপিটি-তে ফিলিস্তিনি সমকামীদের সাথে একাত্মতা দেখায় যা ইসরায়েলে ফিলিস্তিনি সমকামীদের চেয়েও কঠিন।[৩] কায়ান উত্তর ইসরায়েলের আরব গ্রাম ও শহরে নারীদের মধ্যে চলাফেরার বিষয়ে গবেষণার সাথে সাথে জনসাধারণ ও গণমাধ্যমের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। ইসরায়েলের আরব এলাকায় গণপরিবহনের সম্পূর্ণ অভাব ছিল। সাখিনিন, আরারা, উম্মে এল ফাহম এবং অন্যান্যরা আরব শহর ও গ্রামে বাস লাইন স্থাপনের জন্য পরিবহন মন্ত্রণালয়কে রাজি করায়। প্রকল্প "উইমেন ডিমান্ড মোবিলিটি" ছাড়াও জনসাধারণের পরিবহন ছাড়াই মঘার এবং অন্যান্য গ্রামে নারী সম্প্রদায়ের সক্রিয়তা জড়িত আছে, যেখানে নারীরা তাদের নিজস্ব উদ্যোগে বাস লাইন স্থাপন করে।[৪] ইসরাইলি গণমাধ্যম পরিবেশগত প্রকল্প সম্পর্কে ব্যাপকভাবে রিপোর্ট করে যেখানে মগহারের নারীরা শিশু ও যুবকদের মধ্যে পরিবেশ সচেতনতা বৃদ্ধি করে। আরব সমাজে নারীদের দ্বারা পরিবেশগত কাজ করা একটি অভিনব বিষয়। নারীর ক্ষমতায়ন এবং একই সাথে সম্প্রদায়কে সাহায্য করাও তদ্রূপ ছিল।[৫] নারী পাচার রোধে ইশা লিশার অর্জন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সমস্যাটির জন্য জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে সংগঠনটি সফল হয়। যার মধ্যে রয়েছে একটি সংসদীয় কমিটি সমস্যাটি নিয়ে কাজ করে। ইশা লিশার উদ্যোগের জন্য নারী পাচারকারীরা আজকে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হয়েছে। ইশা লিশা ইসরায়েলে এই বিষয়ে একটি কেন্দ্রীয় রেফারেন্স ও বিশেষজ্ঞ হিসাবে বিবেচিত হয়। [৬] ২০০০ সালের জুলাই মাসে, হাইফা ধর্ষণ সংকট কেন্দ্র, অন্যান্য নয়টি জাতীয় ধর্ষণ সংকট কেন্দ্রের সাথে "ইসরায়েলি সমাজ থেকে যৌন সহিংসতার মহামারী উপড়ে ফেলার অবদান এবং বেঁচে থাকা ব্যক্তিদের প্রদত্ত সহায়তার স্বীকৃতিস্বরূপ"[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ইসরাইলের রাষ্ট্রপতি প্রদত্ত স্বেচ্ছাসেবক পুরস্কার পায়। এই পুরস্কারটি ইসরাইলি সমাজে কেন্দ্রগুলির "গুরুত্বপূর্ণ অগ্রণী অবদান" রাখে।

সমালোচনা[সম্পাদনা]

বিশেষ করে ইসরায়েলি নারীবাদী আন্দোলনের চার ভাগের একভাগনীতি হাইফা উইমেন্স কোয়ালিশনে বাস্তবায়িত ও সমালোচনার শিকার হয়। চার ভাগের একভা গ নীতির লক্ষ্য ইসরায়েলের বৃহৎ জনসংখ্যার সমান প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা। তারা হলো- মিজরাহি নারী (মধ্যপ্রাচ্য, উত্তর আফ্রিকা, মধ্য এশিয়া এবং ককেশাস থেকে আসা ইহুদি), আশকেনাজী মহিলা (ইউরোপীয় দেশ থেকে আসা ইহুদি), লেসবিয়ান এবং ফিলিস্তিনি নারী । একদিকে, এই নীতির বাস্তবায়ন এবং উপযোগিতা সম্পর্কে মৌলিক আলোচনা হয়। অন্যদিকে, জিজ্ঞাসা করা হয় কেন আজ ইসরায়েলের একটি বড় সংখ্যালঘু রাশিয়ান নারীদের প্রতিনিধিত্ব করা হয় না।[৭] এই সমালোচনার প্রতিক্রিয়ায়, চার ভাগের একভাগ নীতিটি ইসরায়েলি সমাজকে এমনভাবে তৈরি করে যা অতিরিক্ত গোষ্ঠীর সমন্বয়ে সম্প্রসারিত করা হয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] নারীদের বিভিন্ন পরিচয় একটি চলমান আলোচনার বিষয়। সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর নারীরা প্রায়শই আশকেনাজি নারীদের দ্বারা আধিপত্য অনুভব করে এবং অসমভাবে প্রতিনিধিত্ব করে। তারা জোট গঠন ও সম্পদ ভাগ করা বিষয়ে প্রশ্নের উত্তর দেয়। [৮]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

  • ইসরায়েলে মানবাধিকার
  • মহিলাদের আত্মা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Felipa de Souza Award"OutRight Action International 
  2. Haaretz: First Israeli Arab conference of lesbians convened in Haifa ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৯ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে
  3. The Guardian: Coming Out in Arabic ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৯ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে
  4. Report: Government should subsidize public transport in Arab communities / No buses means Arab women can't work
  5. Women bring green revolution to Arab sector
  6. Rita Chaikin: Fighting against Trafficking in Women in the North of Israel
  7. Dalia Sachs/ Hannah Safran: Equal Representation in a Divided Society: The Feminist Experience in Israel
  8. Kalpana Misra/ Melanie S. Rich: Jewish Feminism in Israel. Some Contemporary Perspectives