হনুমা বিহারী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হনুমা বিহারী
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামগদে হনুমা বিহারী
জন্ম (1993-10-13) ১৩ অক্টোবর ১৯৯৩ (বয়স ২৮)
কাকিনাদা, অন্ধ্রপ্রদেশ, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি অফ ব্রেক
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ২৯২)
৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ বনাম নিউজিল্যান্ড
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
২০১০ - ২০১৬হায়দ্রাবাদ
২০১৩; ২০১৫সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ (জার্সি নং ৩৬)
২০১৭ - বর্তমানঅন্ধ্র
২০১৯দিল্লি ক্যাপিটালস (জার্সি নং ১৯)
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি এলএ টি২০
ম্যাচ সংখ্যা ৮৫ ৭৪ ৭৪
রানের সংখ্যা ৫৫২ ৬,৮৬০ ২,৯২৭ ১,৩৮৫
ব্যাটিং গড় ৩৬.৮০ ৫৮.১৩ ৪৫.৭৩ ২০.৮৪
১০০/৫০ ১/৪ ২০/৩৬ ৪/১৯ ০/৪
সর্বোচ্চ রান ১১১ ৩০২* ১৬৯ ৮১
বল করেছে ৩৪৫ ২,১৩৮ ৯৯২ ৪০৮
উইকেট ২৬ ২০ ২২
বোলিং গড় ৩৬.০০ ৪৩.২৩ ৩৯.৮০ ২২.৭২
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৩/৩৭ ৩/১৭ ৩/৩১ ৩/২১
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/০ ৮৫/১ ২৬/০ ২৯/২
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৮ নভেম্বর, ২০২০

গদে হনুমা বিহারী (তেলুগু: హనుమ విహారి; জন্ম: ১৩ অক্টোবর, ১৯৯৩) অন্ধ্রপ্রদেশের কাকিনাদা এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য তিনি। ২০১০-এর দশকের শেষদিক থেকে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ভারতীয় ক্রিকেটে হায়দ্রাবাদ, দিল্লি ক্যাপিটালস, দিল্লি ডেয়ারডেভিলস, দক্ষিণ অঞ্চল ও সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলছেন হনুমা বিহারী। এছাড়াও, ডানহাতে অফ-ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শী তিনি।

শৈশবকাল[সম্পাদনা]

ধ্রুপদী ক্রীড়াশৈলীর সঠিকমানের মাঝারিসারির ব্যাটসম্যান হনুমা বিহারী’র কাছে ঘরোয়া ক্রিকেটে রান সংগ্রহ করা অত্যন্ত স্বাভাবিক হিসেবে ধরে নিয়েছেন। এক পর্যায়ে ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশ ভালো করা কয়েকজন প্রতিভাধর ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের অন্যতম হিসেবে তাকে দেখা হতো। অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত ২০১২ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপের সাথে ভারত দলের সাথে যুক্ত উন্মুক্ত চাঁদের সাথে তাকে পরবর্তী কয়েক বছরেই দলের ভবিষ্যৎ সঙ্গী হিসেবে পরিগণিত করা হয়। ২০১২ সালে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে ভারত দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন।[১]

২০১৩ সালে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের ষষ্ঠ আসরে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের পক্ষে খেলেন। হায়দ্রাবাদে লীগের একটি খেলায় প্রতিপক্ষ রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের ক্রিস গেইলকে অফ স্পিনে মাত্র ১ রানে বিদেয় করেন। ঐ খেলায় তিনি দলের জয়ের লক্ষ্যমাত্রায় নেমে ৪৬ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন। সুপার ওভারে তার দল জয়লাভ করেছিল।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

২০১০ সাল থেকে হনুমা বিহারী’র প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান রয়েছে। ঐ বছর হায়দ্রাবাদের পক্ষে খেলোয়াড়ী জীবনের সূত্রপাত ঘটান হনুমা বিহারী। তবে, ২০১৬ সালে প্রতিবেশী রাজ্য অন্ধ্রের সাথে যুক্ত হন। প্রত্যেক মৌসুমেই নিয়মিত রান সংগ্রহের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো ভারত এ দলের পক্ষে খেলার সুযোগ লাভ করেন।

২৪ বছর বয়সে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে খেলার সুযোগ পান। এ পর্যায়ে তিনি প্রায় ৬০-এর কাছাকাছি প্রথম-শ্রেণীর রান সংগ্রহ করেছিলেন। বড় ধরনের রান সংগ্রহের কারণে অল্প কয়েক মাসের ব্যবধানে ভারতের টেস্ট ক্রিকেট দলের প্রথম পছন্দের খেলোয়াড়ে পরিণত হন।

২০১৩-১৪ মৌসুমের রঞ্জী ট্রফি প্রতিযোগিতায় অন্ধ্রের বিপক্ষে দূর্দান্ত খেলেন। রাজীব গান্ধী আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত খেলায় হায়দ্রাবাদের প্রথম ইনিংসে এক-তৃতীয়াংশ রানই তিনি করেন। প্রথম ইনিংসে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে ৭৫ রান তুলে সিভি স্টিফেনের বলে বিদেয় নেন। এরপর, দ্বিতীয় ইনিংসে ৬৮ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন।

স্বর্ণালী সময়[সম্পাদনা]

অক্টোবর, ২০১৭ সালে তিনি তার নিজস্ব প্রথম ত্রি-শতরানের ইনিংস খেলেন। ২০১৭-১৮ মৌসুমের রঞ্জী ট্রফি প্রতিযোগিতায় ওড়িশার বিপক্ষে অন্ধ্রের সদস্যরূপে তিনি ৩০২ রানে অপরাজিত ছিলেন।[২] ঐ মৌসুমের রঞ্জী ট্রফিতে ছয় খেলায় ৭৫২ রান তুলে অন্ধ্রের পক্ষে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকে পরিণত হয়েছিলেন তিনি।[৩]

অক্টোবর, ২০১৮ সালে দেওধর ট্রফিতে ভারত বি দলের সদস্যরূপে খেলার জন্যে মনোনীত হন।[৪] ডিসেম্বর, ২০১৮ সালে দিল্লি ক্যাপিটালস কর্তৃপক্ষ ২০১৯ সালের ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের আসরে খেলার জন্যে তাকে কিনে নেয়।[৫][৬] অক্টোবর, ২০১৯ সালে ২০১৯-২০ মৌসুমের দেওধর ট্রফিতে ভারত এ দলের অধিনায়ক হিসেবে তাকে মনোনীত করা হয়।[৭] ২০২০ সালে আইপিএল নিলামের জন্যে দিল্লি ক্যাপিটালস তাকে অবমুক্তি প্রদান করে।[৮]

ভারত এ দলের সাথে তাৎক্ষণিক সফলতার স্বাক্ষর রাখতে না পারলেও প্রধান দল নির্বাচক এম. এস. কে প্রসাদের বদান্যতায় তার ভাগ্য খুলে যায়। সাবেক ভারতীয় ও অন্ধ্রের উইকেট-রক্ষক হিসেবে তিনি তাকে বেশ কাছে থেকে পর্যবেক্ষণ করেছিলেন ও তার খেলার মান সম্পর্কে অবগত ছিলেন। আর, হনুমা বিহারীও তার বিশ্বাসের মর্যাদা দিতে দক্ষিণ আফ্রিকা এ দল ও নিউজিল্যান্ড এ দলের বিপক্ষে দূর্দান্ত খেলা প্রদর্শন করেন। পরবর্তীতে ভারতের জাতীয় দলের পক্ষে খেলেও সফলতা পেতে থাকেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে নয়টিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন হনুমা বিহারী। ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ তারিখে ওভালে স্বাগতিক ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ২৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ তারিখে ক্রাইস্টচার্চে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি। তাকে এখনো কোন ওডিআইয়ে অংশগ্রহণ করার সুযোগ দেয়া হয়নি।

আগস্ট, ২০১৮ সালে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের শেষ দুই টেস্টে অংশ নেয়ার উদ্দেশ্যে পৃথ্বি শয়ের সাথে তাকেও ভারত দলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।[৯] ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ তারিখে সিরিজের পঞ্চম টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তার অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হয়। ওভালে অনুষ্ঠিত অভিষেক টেস্টে তাকে বেশ হিমশিম খেতে হয়। শূন্য রানেই স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে বিদেয় নিতে হয়েছিল; কিন্তু, ডিআরএসের বদৌলতে তিনি রক্ষা পান।

নিজেকে সামলে নিয়ে প্রথম টেস্ট ইনিংসে অর্ধ-শতরানের ইনিংস খেলতে সমর্থ হন। প্রথম ইনিংসেই তিনি ১২৪ বল ৫৬ রানের ইনিংস উপহার দেন। একই খেলায় তিনি দলের শেষ বোলার হিসেবে ইংল্যান্ডের সর্বাধিক টেস্ট রান সংগ্রাহক অ্যালাস্টেয়ার কুককে আউট করেন।[১০][১১]

ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন[সম্পাদনা]

এরপর, মেলবোর্নে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ইনিংস উদ্বোধনে নামেন। তিনি বড় ধরনের রান সংগ্রহ করতে না পারলেও উইকেটে টিকে থাকার কৌশল রপ্ত করেন। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি ব্যর্থতার পরিচয় দিলেও ভারতের পরবর্তী টেস্ট সফর হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাঝারিসারির ব্যাটসম্যান হিসেবে আবির্ভূত হন। রোহিত শর্মাকে পাশ কাটিয়ে প্রথম একাদশে স্থান নিশ্চিত করেন। এ সময়ে এ সিদ্ধান্তটি বিস্ময়ের কারণ হয়ে দাঁড়ালেও এক পর্যায়ে তা স্বার্থক হয়। ভারত দল সিরিজ জয় করতে সমর্থ হয়।

২৫ আগস্ট, ২০১৯ তারিখে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে ১২৮ বল মোকাবেলা করে ৯৩ রান তুলেন। এরফলে, একদিন বাকী থাকতেই তার দল ৪১৯ রানের বিশাল লক্ষ্যমাত্রা দাঁড় করায়। কিংস্টনে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় টেস্টে হনুমা বিহার তার প্রথম শতরানের ইনিংস খেলেন।[১২] ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২-০ ব্যবধানে সিরিজ বিজয়ে তিনি উভয় দলের সেরা ব্যাটসম্যান ছিলেন। চার ইনিংসে তিনি ২৮৯ রান তুলেন। এ সিরিজ শেষে ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলি মন্তব্য করেন যে, সাজঘরে ফিরে তিনি মাঝারিসারিতে বিহারী’র ব্যাটিংয়ে সর্বদাই সন্তুষ্ট চিত্তে অবস্থান করতেন। তিনি এ স্থানের জন্যে ভীষণ উপযোগী।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "India Under-19s Squad"Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  2. "Vihari's triple-hundred propels Andhra"। ESPN Cricinfo। ১৫ অক্টোবর ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৭ 
  3. "Ranji Trophy, 2017/18: Andhra batting and bowling averages"। ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০১৮ 
  4. "Rahane, Ashwin and Karthik to play Deodhar Trophy"ESPN Cricinfo। ১৮ অক্টোবর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৯ অক্টোবর ২০১৮ 
  5. "IPL 2019 auction: The list of sold and unsold players"ESPN Cricinfo। ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  6. "IPL 2019 Auction: Who got whom"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  7. "Deodhar Trophy 2019: Hanuma Vihari, Parthiv, Shubman to lead; Yashasvi earns call-up"SportStar। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৯ 
  8. "Where do the eight franchises stand before the 2020 auction?"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০১৯ 
  9. "India call up Prithvi Shaw, Hanuma Vihari for last two Tests in England"ESPN Cricinfo। ২২ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২২ আগস্ট ২০১৮ 
  10. "5th Test, India tour of Ireland and England at London, Sep 7-11 2018"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  11. "India vs England: Hanuma Vihari scores fifty on debut to keep visitors afloat"hindustan times। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮। 
  12. "Hanuma Vihari scores maiden Test hundred at Kingston"Sport Star। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]