হংকং–ঝুহাই–মাকাও সেতু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হংকং–ঝুহাই–মাকাও সেতু
West section of Hong Kong-Zhuhai-Macau Bridge (20180902174105).jpg
স্থানাঙ্ক ২২°১৭′ উত্তর ১১৩°৪৭′ পূর্ব / ২২.২৮° উত্তর ১১৩.৭৮° পূর্ব / 22.28; 113.78স্থানাঙ্ক: ২২°১৭′ উত্তর ১১৩°৪৭′ পূর্ব / ২২.২৮° উত্তর ১১৩.৭৮° পূর্ব / 22.28; 113.78
বহন করেমোটর যানবাহন
অতিক্রম করে
স্থানপার্ল নদীর বদ্বীপ
ওয়েবসাইটhzmb.org (চীনা সাইট)
hzmb.hk (হংকং সাইট)
www.dsat.gov.mo/hzmb/index.aspx (মাকাও সাইট)
বৈশিষ্ট্য
নকশাসমুদ্রগর্ভস্থ সুড়ঙ্গ
মোট দৈর্ঘ্য৩৯ কিলোমিটার (২৪ মা)
লেনের সংখ্যা6
চালু হবেঅক্টোবর ২০১৮(পরীক্ষামূলক)
হংকং–ঝুহাই–মাকাও সেতু
HZMB route.svg
হংকং এবং ম্যাকাওকে যুক্তকারী হংকং–ঝুহাই-মাকাও ব্রিজের সেতু মহাসড়ক এবং সমুদ্রগর্ভস্থ সুড়ঙ্গের (বিন্দু) পথ মানচিত্র।
চীনা নাম
ঐতিহ্যবাহী চীনা 港珠澳大橋
সরলীকৃত চীনা 港珠澳大桥
ক্যান্টনীয় উপভাষা ইয়েলGóngjyūou Daaihkìuh
হানইয়ু পিনয়িনGǎngzhū'ào Dàqiáo
পর্তুগীজ নাম
পর্তুগীজপোন্ট হংকং-জুহাই-মাকাউ

হংকং-ঝুহাই-মাকাউ সেতু বা হংকং-ঝুহাই-ম্যাকাও ব্রিজ (HKZMB বা HZMB) একটি সেতু-সুড়ঙ্গ ব্যবস্থা, যা তিনটি ঝুলন্ত সেতু ও একটি সমুদ্রগর্ভস্থ সুড়ঙ্গের সারি (সিরিজ) এবং পাশাপাশি ৩ টি কৃত্রিম দ্বীপ নিয়ে গঠিত । এটি লিংডইনজিয়াং চ্যানেল অতিক্রম করেছে এবং পার্ল নদী-বদ্বীপের তিন প্রধান শহর ম্যাকাও এবং ঝুহাই হংকং-এর মধ্যে সংযোগ ঘটায়। তিনটি স্থান (হংকং, মেইনল্যান্ড এবং ম্যাকাও) জুড়ে হংকং-ঝুহাই-ম্যাকাও সেতু নির্মাণে মোট খরচ ¥১৫.৭৩ বিলিয়ন, যার মধ্যে হংকং এসএআর সরকার ¥৬.৭৫ বিলিয়ন আর্থ প্রদান করেছে।[১] এটি বিশ্বের দীর্ঘতম সেতু (জলভাগের উপরে নির্মিত) এবং এই এলাকার একটি প্রধান আকর্ষণ।

মূলত অক্টোবর ২০১৬ সালে যানচলাচলের জন্য খোলা রাখা হয়,[২][৩][৪] সেতুর কাঠামো ১৪ নভেম্বর ২০১৭ সালে[৫] সম্পন্ন করা হয়েছিল এবং ২০১৮ সালের অক্টোবরে সেতুটি খোলার পরিকল্পনা ছিল, ইতিমধ্যে সেতুটিতে সাংবাদিকদের পরিদর্শন ঘটেছিল।[১][৫][৬]

পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

হোপেয়েল হোল্ডিংস প্রতিষ্ঠাতা ও তৎকালীন ব্যবস্থাপনা পরিচালক গর্ডন উউ চীনের, হংকং এবং ম্যাকাওকে যুক্ত করার একটি সেতু-সুড়ঙ্গের ধারণা প্রস্তাব করেছিলেন। গর্ডন উউ বলেছিলেন যে ১৯৮৩ সালে চেসিপেক বে সেতু-সুড়ঙ্গের থেকে তিনি ধারণাটি পান। ১৯৮৮ সালে, উউ গুয়াংডং এবং বেইজিং কর্মকর্তাদের কাছে ধারণাটি তুলে ধরেন। তিনি বর্তমান নকশাটির তুলনায় উত্তরের একটি সংযোগের পরিকল্পনা করেন, এটি হিউং কংয়ের তুইন মুনের কাছে ব্ল্যাক পয়েন্টে এবং পার্ল নদীর বদ্বীপের নীলিংডিং আইল্যান্ড এবং কুইও আইল্যান্ডের অতিক্রম করে। উয়ের প্রস্তাবিত সেতুটি চীনের তানজিয়ার গ্রামে শেষ হবে এবং ম্যাকাওতে শেষ হওয়ার আগে ঝুহাইয়ের মধ্য দিয়ে একটি নতুন রাস্তা দক্ষিণে থাকবে।[৭] ১৯৮৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে তিয়ানানমেন স্কয়ার গণহত্যার পর আলোচনায় স্থগিত হচ্ছিল "উচ্ছিন্ন" উ এবং অন্যান্য বিদেশি বিনিয়োগকারীরা এবং যা হোপওয়েল সংস্থার হংকংয়ের শেয়ারের দাম হ্রাসের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল।[৮]

উ-এর প্রস্তাবিত রুট ঝুহাই সরকার দ্বারা লিংডইনজিয়াং ব্রিজ নামে অধ্যাপিত হয়। ১৯৯০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়ে, মূল ভূখন্ড ঝুহাই এবং কুইও আইল্যান্ডের মধ্যে একটি সেতু নির্মাণ করেছিলেন যা এই রুটের প্রথম পর্যায় হিসাবে অভিহিত ছিল, যদিও সম্পূর্ণ প্রকল্পটি তখন চীন বা হংকং সরকারের দ্বারা অনুমোদিত হয় নি।[৯] চীনের কেন্দ্রীয় সরকার ৩০ শে ডিসেম্বর ১৯৯৭ সালে এই প্রকল্পের জন্য সমর্থন প্রদর্শন করেছিল।[১০] নতুন হংকং সরকার হতাশাজনক ছিল, সেই সময় সীমান্তের ট্র্যাফিক অধ্যয়নের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছিল না এবং বায়ু দূষণ এবং সামুদ্রিক জীবন সম্পর্কে হংকং মিডিয়া প্রকল্পটির পরিবেশগত প্রভাব সম্পর্কে প্রশ্ন করেছিল।[১১]

নভেম্বর ২০০২ সালে, চীনের প্রিমিয়ার প্রিন্সিপাল ঝু রাংজি, উ-এর ধারণাটির সমর্থনে প্রকাশ করেন। ২০০৩ সালে, চীন সরকার এই ধারণাটির জন্য সমর্থন প্রকাশ করেছিল। জুলাই ২০০৩ সালে হংকং প্রশাসনের প্রধান সম্পাদক ডোনাল্ড সাং, সেতু সম্পর্কে চীনা সরকারের সাথে দেখা করার জন্য বেইজিং গিয়েছিলেন। ২০০২ সালের ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত মেজর ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রজেক্টস (সম্মেলন) সমন্বয় নিয়ে চীন/হংকং সম্মেলনের তৃতীয় বৈঠকে হংকংপার্ল নদী সম্পর্কিত পরিবহন সংযোগে যৌথ গবেষণায় সম্মত হয়। ২০০৩ সালের আগস্টে হংকং-জুহাই-ম্যাকও ব্রিজ অ্যাডভান্স ওয়ার্ক কোঅর্ডিনেশন গ্রুপ প্রতিষ্ঠিত হয়।

হংকং এবং পার্ল নদী বদ্বীপের পশ্চিম তীরে অবস্থিত পরিবহন সংযোগে জন্য জাতীয় উন্নয়ন ও সংস্কার কমিশন এবং হংকং সরকার একটি গবেষণা সম্পন্ন করেছিল। গবেষণায় বলা হয়েছে যে হংকং, ঝুহাই এবং ম্যাকাও যুক্তকারী সেতু হংকং সহ বৃহত্তর পার্ল নদী বদ্বীপ অঞ্চলের উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃহৎ আর্থ-সামাজিক সুবিধা প্রদান করবে। গবেষণায় পার্ল নদী দুটি তীরে সংযুক্তকারী তিনটি সারিবদ্ধতা বিবেচনা করা হয়েছে। গবেষণার ফল হল হংকং (লান্টাউ) -ঝুহাই-ম্যাকও ব্রিজটি হংকস সরকার কর্তৃক প্রস্তাবিত, "এক দেশ, দুটি ব্যবস্থা" এর অধীনে দুটি অঞ্চলের সাথে সংযোগকারী সেতুকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Hong Kong-Zhuhai-Macau Bridge construction set to finish this year"Nikkei Asian Review। ১৮ মে ২০১৭। ৮ জুন ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০১৭ZHUHAI, China -- A bridge connecting this city in the southern Chinese province of Guangdong with Hong Kong and Macau will be completed by year-end and fully open to vehicular traffic in 2018, authorities told foreign media Wednesday. 
  2. "Contractors say 2017 deadline for Hong Kong-Zhuhai-Macao Bridge is unconvincing"Hong Kong Free Press। ২৩ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৬ 
  3. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; chinadaily7july2017 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  4. The Standard। "Bridge to open in one go despite HK delays"। ২২ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৬ 
  5. 好消息!港珠澳大桥七一前正式通车_大粤网_腾讯网gd.qq.com (চীনা ভাষায়)। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  6. CNN, Sarah Lazarus,। "China unveils world's longest sea-crossing bridge"CNN। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-১৬ 
  7. Stoner, Tad (৩ নভেম্বর ১৯৮৮)। "$6b bridge to China plan"। South China Morning Post। পৃষ্ঠা 1। 
  8. Hunt, Christopher (২৯ ডিসেম্বর ১৯৮৯)। "Entrepreneur Becomes a Weather Vane For Resuming Business in China Now"। The Wall Street Journal, Eastern edition। পৃষ্ঠা 1। 
  9. Cheung, Agnes (২৯ মার্চ ১৯৯৫)। "First Lingdingyang link nearly ready"। South China Morning Post। পৃষ্ঠা 11। 
  10. Szeto, Wanda; Ng, Kang-chung (৩১ ডিসেম্বর ১৯৯৭)। "Beijing approves Zhuhai-HK bridge"। South China Morning Post। পৃষ্ঠা 1। 
  11. "A bridge too far"। South China Morning Post। ২ জানুয়ারি ১৯৯৮। পৃষ্ঠা 12। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]