স্যান্ডফোর্ড শ্যুলজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
স্যান্ডফোর্ড শ্যুলজ
Sandford Schultz c1878.jpg
আনুমানিক ১৮৭৮ সালের সংগৃহীত স্থিরচিত্রে স্যান্ডফোর্ড শ্যুলজ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামস্যান্ডফোর্ড স্পেন্স শ্যুলজ
জন্ম(১৮৫৭-০৮-২৯)২৯ আগস্ট ১৮৫৭
বার্কেনহেড, চেশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু১৮ ডিসেম্বর ১৯৩৭(1937-12-18) (বয়স ৮০)
ব্রম্পটন, কেনসিংটন, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনরাউন্ড আর্ম ডানহাতি ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ১৯)
২ জানুয়ারি ১৮৭৯ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৪২
রানের সংখ্যা ২০ ১,০৪৬
ব্যাটিং গড় ২০.০০ ১৭.১৪
১০০/৫০ ০/০ ০/৫
সর্বোচ্চ রান ২০ ৯০
বল করেছে ৩৪ ২,২৩৬
উইকেট ২৮
বোলিং গড় ২৬.০০ ৪০.৮২
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/১৬ ৪/৩৭
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/০ ২৯/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯

স্যান্ডফোর্ড স্পেন্স শ্যুলজ (ইংরেজি: Sandford Schultz; জন্ম: ২৯ আগস্ট, ১৮৫৭ - মৃত্যু: ১৮ ডিসেম্বর, ১৯৩৭) চেশায়ারের বার্কেনহেড এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৮৭৯ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে ল্যাঙ্কাশায়ারকেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ রাউন্ড আর্ম ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিংয়ে নামতেন স্যান্ডফোর্ড শ্যুলজ। জীবনের শেষদিকে স্যান্ডফোর্ড স্পেন্স স্টোরি নামে পরিচিত ছিলেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৮৭৬ সাল থেকে ১৮৮৫ সাল পর্যন্ত স্যান্ডফোর্ড শ্যুলজের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ১৮৭৩ সালে আপিংহাম একাদশের পক্ষে খেলেছিলেন। এর চার বছর পর ডব্লিউ. এস. প্যাটারসন কর্তৃক কেমব্রিজের ব্লু লাভ করেন। ১৮৭৭ থেকে ১৮৮২ সময়কালে ল্যাঙ্কাশায়ারের পক্ষে মাঝে-মধ্যে খেলতেন।

চেশায়ারের বার্কেনহেড এলাকায় জর্জ এডওয়ার্ড শ্যুলজ ও এমা দম্পতির পুত্র হিসেবে জন্মগ্রহণ করেন। আপিংহাম স্কুল ও কেমব্রিজের জেসাস কলেজে পড়াশুনো করেন তিনি।[১] ১৮৮২ সালে অর্লিয়েন্স ক্লাবের সদস্যরূপে বেক্সলি’র বিপক্ষে নয় উইকেট পান। বাদ-বাকী এক উইকেট রান আউটের মাধ্যমে পতন ঘটেছিল। ১৮৮৭ সালে পোর্টসমাউথে আপিংহাম রোভার্সের সদস্যরূপে ইউনাইটেড সার্ভিসেসের বিপক্ষে ২৮৬ রান তুলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন স্যান্ডফোর্ড শ্যুলজ। ২ জানুয়ারি, ১৮৭৯ তারিখে মেলবোর্নে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। এরপর আর তিনি কোন টেস্টে অংশ নেননি।

১৮৭৮-৭৯ মৌসুমে মেলবোর্ন ক্লাবের পক্ষ থেকে ইংল্যান্ড জেন্টলম্যান দলকে আমন্ত্রণের প্রেক্ষিতে লর্ড হ্যারিসের নেতৃত্বে শৌখিন দলের সাথে অস্ট্রেলিয়া গমনের সুযোগ পান। ঐ সফরে দলটির সদস্যরূপে একটি টেস্টে অংশ নিয়েছিলেন তিনি।

খেলার ধরন[সম্পাদনা]

শ্যুলজ ফাস্ট রাউন্ড আর্ম বোলার ছিলেন। এছাড়াও ক্লাব ক্রিকেটে অনেক রান সংগ্রহ করেছিলেন। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ধারাবাহিকভাবে না খেললেও ক্লাব ক্রিকেটে নিয়মিতভাবে খেলতেন। ফাস্ট রাউন্ড আর্ম বোলার, চমৎকার ব্যাটিং ও স্লিপ অঞ্চলে দূর্দান্ত ফিল্ডারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন তিনি। ক্লাব ক্রিকেটে বেশ ভালো খেলা উপহার দিয়েছিলেন।

১৯৩৮ সালে উইজডেনে তার স্মরণে তুলনামূলকভাবে কম ব্যাটিং অভিজ্ঞতাসম্পন্নরূপে উল্লেখ করা হয়। ১৮৮১ সালে অক্সফোর্ডের ক্রাইস্টচার্চে গ্রাউন্ডে এসএস শ্যুলজ প্রত্যেকবারই প্রথম বলে আউট হন। দুবারই ইনিংসের প্রথম বলে আউট হন ও রেকর্ডের সাথে স্বীয় নামকে যুক্ত করেন।[১]

একমাত্র ইংরেজ টেস্ট ক্রিকেটার হিসেবে পারিবারিক নামে এক শতাব্দীরও অধিক সময় ধরে ইংরেজি জেড অক্ষর ধারন করেছিলেন। পরবর্তীতে ২০০১ সালে উসমান আফজাল এ অক্ষরের সাথে স্বীয় নামকে যুক্ত করেন।[২]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

তিনি স্টকব্রোকার ছিলেন ও মেসার্স হেডারউইক এন্ড শ্যুলজ নামীয় প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। ১৯১৪ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে তিনি জার্মান নাম পরিবর্তন করে স্যান্ডফোর্ড স্পেন্স স্টোরি নাম রাখেন।[৩]

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ছিলেন তিনি। ১৮৮৫ সালে শ্যুলজ মাবেল ডুরান্ট নাম্নী এক রমণীর পাণিগ্রহণ করেন।[৩] ১৮ ডিসেম্বর, ১৯৩৭ তারিখে কেনসিংটনের ব্রম্পটন এলাকায় ৮০ বছর বয়সে স্যান্ডফোর্ড শ্যুলজের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Schultz (post Storey), Sandford Spence (SCLS875SS)"A Cambridge Alumni Databaseকেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় 
  2. Frindall, Bill (২০০৯)। Ask BeardersBBC Books। পৃষ্ঠা 199। আইএসবিএন 978-1-84607-880-4 
  3. Philip Paine, "Sandford Schultz, England Cricketer", The Cricket Statistician, Autumn 2018, pp. 30–33.

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]