স্বয়ম্ভুব মনু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
স্বয়ম্ভুব মনু
ব্যক্তিগত তথ্য
সঙ্গীশতরূপা
সন্তানপ্রিয়ব্রত
উত্তানপদ
আকুতি
দেবহুতি
প্রসূতি

স্বয়ম্ভুব মনু (সংস্কৃত: स्वयम्भुव मनु) হল চৌদ্দ মনুর মধ্যে প্রথম।[১][২][৩][৪][৫][৬] তিনি ছিলেন ব্রহ্মার মানসপুত্র এবং শতরূপার স্বামী।[৭][৮] তিনি বেদকে চারটি ভাগে বিভক্ত করেছেন।[৯] তিনি ব্রহ্মবর্ত নামক গ্রহে বাস করতেন যার রাজধানী ছিল বরহিস্মতী।[১০]

জন্ম ও পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

হিন্দুধর্মে ব্রহ্মা সৃষ্টির দেবতা। ব্রহ্মার দেহ হতে স্বয়ম্ভুব মনু ও শতরূপার সৃষ্টি।।[১১][১২] শিব পুরাণে উল্লেখ করা হয়েছে,

[...] আমি [ব্রহ্মা] দুটি রূপ ধারণ করে নিজেকে দুটি ভাগে বিভক্ত করেছি। এক অর্ধেক নারীর রূপ এবং অন্য অর্ধেক পুরুষ।[টীকা ১] তারপর তিনি তার মধ্যে এক দম্পতি সৃষ্টি করলেন, চমৎকার প্রকৃতির উপায়। মানুষটি ছিলেন স্বয়ম্ভুব মনু, সর্বশ্রেষ্ঠ উপায় (সৃষ্টির)। মহিলাটি ছিলেন শতরূপা, যোগিনী, তপস্বী মহিলা।

— শিব পুরাণ, বিভাগ ২.১, অধ্যায় ১৬ শ্লোক ১০-১২[১১]

ভাগবত পুরাণ অনুসারে,

যখন তিনি এইভাবে চিন্তায় নিমগ্ন ছিলেন এবং অলৌকিক শক্তি পর্যবেক্ষণ করছিলেন, তখন তার শরীর থেকে আরও দুটি রূপ উৎপন্ন হয়েছিল। তারা এখনও ব্রহ্মার দেহ হিসাবে পালিত হয়। তাদের মধ্যে যে পুরুষ রূপ ধারণ করেছিল সে স্বয়ম্ভুব নামক মনু নামে পরিচিতি লাভ করেছিল, এবং মহিলাটি শতরূপা, মহান আত্মার মনুর রাণী নামে পরিচিত হয়েছিল।

স্বয়ম্ভুব মনু শতরূপাকে বিয়ে করেছিলেন। তাদের প্রিয়ব্রত ও উত্তানপদ নামে দুটি পুত্র এবং আকুতি, দেবহুতি ও প্রসূতি নামে তিন কন্যা ছিল।[১৩] মনু তার প্রথম কন্যা আকুতিকে ঋষি রুচির কাছে, মধ্যম কন্যা দেবহুতিকে ঋষি কর্দমার হাতে এবং কনিষ্ঠ কন্যা প্রসূতিকে প্রজাপতি দক্ষের হাতে তুলে দেন।[১৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. Śiva-purāṇa speaks of Brahmā splitting his body into two parts, the male and female, identified as Manu and Śatarūpā. Cp. Matsya-purāṇa (‘A Study’ by V. S. Agrawal) 3.31.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. His Divine Grace A. C. Bhaktivedanta Swami Prabhupada। Teachings of Lord Caitanya (Third Edition): The Golden Avatara। The Bhaktivedanta Book Trust। পৃষ্ঠা 109\u2013। আইএসবিএন 978-91-7149-730-7 
  2. Motilal Banarsidass (১৯৫৫-০১-০১)। Brahma Purana - Parts I - IV। পৃষ্ঠা 29 (3.4-7)। 
  3. J.L.Shastri (১৯৫১)। Linga Purana - English Translation - Part 1 of 2। পৃষ্ঠা 24 (7.22-28)। 
  4. N.A (১৯৫০)। THE SKANDA-PURANA PART. 2। MOTILAL BANARSIDASS PUBLISHERS PVT. LTD, DELHI। পৃষ্ঠা 45 (5.71-25)। 
  5. N.A (১৯৫১)। THE SKANDA-PURANA PART. 7। MOTILAL BANARSIDASS PUBLISHERS PVT. LTD, DELHI। পৃষ্ঠা 317 (25.22-24)। 
  6. Swayambhuva Manu - The First Manu, Indian Mythology (by ApamNapat), www.apamnapat.com
  7. Devi Bhagavata Purana by Swami Vijñanananda [Book 10], Chapter 1 - On the story of Svāyambhuva Manu, www.wisdomlib.org
  8. The Agni Purana by N. Gangadharan, Chapter 18 - Genealogy of Svāyambhuva Manu, www.wisdomlib.org
  9. Cologne Digital Sanskrit Dictionaries: The Purana Index, www.sanskrit-lexicon.uni-koeln.de
  10. SWAYAMBHUVA MANU – HISTORY AS A MAHAJANA – DIARY!
  11. The Shiva Purana by J. L. Shastri, Section 2.1, Chapter 16 - Description of the Creation (10-12)
  12. "Bhagavata Purana, Book 3: Chapter 12"। Vedabase। 
  13. Dipavali Debroy, Bibek Debroy (1992). The Garuda Purana. p. 136. ″Manu and Shatarupa had two sons named Priyavrata and Uttanapada and three daughters named Prasuti, Akuti and Devahuti."
  14. Śrīmad-Bhāgavatam (Bhāgavata Purāṇa), Canto 4: The Creation of the Fourth Order, Chapter One, Genealogical Table of the Daughters of Manu

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]