স্ট্রেঞ্জার থিংস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
স্ট্রেঞ্জার থিংস
স্ট্রেঞ্জার থিংস
Stranger Things logo.png
ধরণ
নির্মাতাডাফার ভ্রাতৃদ্বয়
অভিনয়ে
রচয়িতা
  • কাইল ডিক্সন
  • মাইকেল স্টাইন
প্রস্তুতকারক দেশমার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
মূল ভাষা(ইংরেজি)
মৌসুম সংখ্যা
পর্বসংখ্যা১৭ (পর্বের সংখ্যা)
নির্মাণ
নির্বাহী প্রযোজক
  • কার্ল গায়ডুশেক
  • সিন্ডি হল্যান্ড
  • ব্রায়ান রাইট
  • ম্যাট থানেল
  • শন লেভি
  • ড্যান কোহেন
  • ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়
  • ইয়াইন প্যাটারসন
  • শ্যানন সাঙ
অবস্থানজ্যাকসন, জর্জিয়া
চলচ্চিত্রকার
  • টিম আইভস
  • টড ক্যাম্পবেল
ব্যাপ্তিকাল৪২-৬২ মিনিট
প্রোডাকশন কোম্পানি
পরিবেশকনেটফ্লিক্স
সম্প্রচার
মূল চ্যানেলনেটফ্লিক্স
ছবির ফরম্যাট
অডিও ফরম্যাটডলবি ডিজিটাল ৫.১
মূল প্রদর্শনী– বর্তমান
বহিঃসংযোগ
ওয়েবসাইট

স্ট্রেঞ্জার থিংস হল ডাফার ভ্রাতৃদ্বয় দ্বারা নির্মিত, লিখিত এবং পরিচালিত একটি মার্কিন কল্পবিজ্ঞান-ভৌতিক ওয়েব টেলিভিশন ধারাবাহিক। ডাফ ভ্রাতৃদ্বয়, শন লেভি এবং ড্যান কোহেন হল এই ধারাবাহিকের নির্বাহী প্রযোজক। এই ধারাবাহিকের প্রথম মরশুম ২০১৬ সালে মুক্তি পায়, এবং এটির প্রধান অভিনেতারা হলেন উইনোনা রাইডার, ডেভিড হারবার, ফিন উল্ফহার্ড, মিলি ববি ব্রাউন, গেটন ম্যাটার‍্যাজো, কেলেব ম্যাকলখলিন, ন্যাটালিয়া ডায়ার, চার্লি হিটন, কারা বুয়োনো, ম্যথিউ মোডাইন, নোয়া শ্ন্যাপ এবং জো কিরি। দ্বিতীয় মরশুমে শ্ন্যাপ এবং কিরিকে ধারাবাহিকে নিয়মিত করে দেওয়া হয়, এবং স্যাডি সিঙ্ক, ডেকার মন্টগোমেরি, শন অ্যাস্টিন এবং পল রেইজার নতুন চরিত্রে যোগ দেন। তৃতীয় মরশুমে মায়া হক এই ধারাবাহিকে যোগ দেন।

ধারাবাহিকটির প্রেক্ষাপট হল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের একটি কাল্পনিক শহর হকিন্স। প্রথম মরশুমটি হকিন্স শহরে বিভিন্ন অতিপ্রাকৃতিক ঘটনার মধ্যে এক অল্প বয়স্ক ছেলের অন্তর্ধান রহস্যের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে। দ্বিতীয় মরশুমটি প্রথমটির এক বছর পরের ঘটনা, এবং এর বিষয়বস্তু হল প্রথম মরশুমের ঘটনাগুলি কীভাবে চরিত্রগুলির উপর প্রভাব ফেলে এবং তারা কীভাবে সেগুলি থেকে সামলে ওঠে। তৃতীয় মরশুমটির সময়কাল হলো ১৯৮৫ সালের মাঝামাঝি সময়।

ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়রা ধারাবাহিকটি অনুসন্ধানমূলক নাটকের পাশাপাশি শিশুসুলভ ভাবপ্রবণতার সঙ্গে অতিপ্রাকৃতিক উপাদানগুলির একটি সংমিশ্রণে তৈরি করেছেন, এবং ১৯৮০-র দশকের একটি সময়সীমা প্রতিষ্ঠা করে সেই দশকের পপ সংস্কৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। ধারাবাহিকটির বেশকিছু বিষয় এবং নির্দেশনামূলক দিক স্টিভেন স্পিলবার্গ, জন কারপেন্টার, স্টিভেন কিং সহ অন্যান্যদের কাজ এবং বিভিন্ন চলচ্চিত্র, অ্যানিমে এবং ভিডিও গেমের দ্বারা অনুপ্রাণিত এবং নান্দনিকভাবে প্রভাবিত হয়েছে।

প্রথম মরশুমটি নেটফ্লিক্সে ১৫ই জুলাই ২০১৬ সালে মুক্তি পায়। ধারাবাহিকটির চরিত্রায়ন, গতি, পরিবেশায়ন, অভিনয়, আবহ সঙ্গীত, নির্দেশনা, লিখন এবং ১৯৮০-র চলচ্চিত্রের রীতিকে শ্রদ্ধা নিবেদন করার জন্য সমালোচকদের প্রশংসা অর্জন করে। ৩১ শে আগস্ট, ২০১৩ তারিখে নেটফ্লিক্স ৯টি পর্বের একটি দ্বিতীয় মরশুমের জন্য ধারাবাহিকটি পুনর্নবীকরণ করে এবং ২৭শে অক্টোবর, ২০১৭ তারিখে সেটা মুক্তি পায়। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে নেটফ্লিক্স তৃতীয় মরশুমের অনুমোদন দেয়, এবং ৮টি পর্বের এই মরশুমের কাজ শুরু হয় ২০১৮ সালের এপ্রিল মাস থেকে,এবং এর প্রথম পর্বটি মুক্তি পাবে ৪ঠা জুলাই, ২০১৯। ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়েরা জানিয়েছেন যে ধারাবাহিকটি চতুর্থ অথবা পঞ্চম মরশুমে সমাপ্তি পাবে। ধারাবাহিকটি এখন অবধি অনন্য নাট্য ধারাবাহিক সহ ৩১টি এমি পুরস্কার, ৪টি গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার মনোনয়ন এবং ২০১৬ সালে নাট্যধর্মী ধারাবাহিকের অভিনেতামন্ডলি দ্বারা অনন্য অবদান-এর জন্য স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার পেয়েছে।

কাহিনী সংক্ষেপ[সম্পাদনা]

স্ট্রেঞ্জার থিংস-এর প্রেক্ষাপট হল ১৯৮০-র দশকের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের কাল্পনিক শহর হকিন্স। নিকটবর্তী হকিন্স জাতীয় গবেষণাগার আপাতদৃষ্টিতে ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অব এনার্জির হয়ে বৈজ্ঞানিক গবেষণা করে, কিন্তু গোপনে প্যারানরমাল এবং অতিপ্রাকৃতি বিষয়ক গবেষণা করে থাকে, এমনকি এমন গবেষণা করে যেখানে মানুষের উপর বিভিন্ন পরিক্ষা করা হয়। অজান্তেই তারা বিকল্প আয়ামের যাওয়ার দ্বার সৃষ্টি করে ফেলেছেন, যার নাম দেওয়া হয়েছে "দি আপসাইড ডাউন"। এই "আপসাইড ডাউন" হকিন্সের অনবগত বাসিন্দাদের জীবনে উপর দুর্ঘটনাপ্রবন প্রভাব ফেলতে থাকে।[১][২]

প্রথম মরশুমের গল্প শুরু হয় নভেম্বর ১৯৮৩-তে, যখন উইল বায়ার্সকে আপসাইড ডাউনের এক জীব অপহরণ করে, এবং তার মা, জয়েস বায়ার্স, এবং হকিন্সের পুলিশ প্রধান জিম হপার উইলের খোঁজ করা শুরু করে। একই সময় ইলেভেন (এগারো) নামে এক সাইকোকাইনেটিক ক্ষমতা সম্পন্ন এক যুবতী সেই গবেষণাগার থেকে পালিয়ে যায় এবং উইলকে খুঁজে পাওয়ার জন্য উইলের বন্ধু মাইক, ডাস্টিন এবং লুকাসকে সহায়তা করে।[৩]

দ্বিতীয় মরশুমের ঘটনা শুরু হয় এক বছর পরে, ১৯৮৪ সালের অক্টোবর মাস থেকে। উইলকে উদ্ধার করা হয়েছে, তবে তার হারিয়ে যাওয়ার ঘটনাগুলির বিস্তারিত কম লোক জানেন। যখন এটি আবিষ্কৃত হয় যে উইল এখনও আপসাইড ডাউনের বিভিন্ন সত্তা দ্বারা প্রভাবিত হচ্ছে, তার বন্ধুরা এবং পরিবার জানতে পারে যে তাদের এই বিশ্বের জন্য আরও বড়ো বিপদ আপসাইড ডাউনে বিদ্যমান।[৪]

তৃতীয় মরশুমের ঘটনা আরও কয়েক মাস পরে, ১৯৮৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে, চলচ্চিত্রে ব্যাক টু দ্য ফিউচারের জনপ্রিয়তার প্রেক্ষাপটে। মাইক আর ইলেভেনের মধ্যে এবং লুকাস আর বিলির সৎ-বোন ম্যাক্সের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে উঠেছে।[৫][৬]

অভিনেতা এবং চরিত্রসমূহ[সম্পাদনা]

২০১৭ সান ডিয়েগো কমিক-কন ইন্টারন্যাশানালে ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়, শন লেভি এবং স্ট্রেঞ্জার থিংসের প্রধান অভিনেতামন্ডলি
  • জয়েস বায়ার্সের ভূমিকায় উইনোনা রাইডার[৭]: জয়েস বায়ার্স হলেন উইল এবং জোনাথান বায়ার্সের মা। লনি বায়ার্সের সঙ্গে তাঁর বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে। দ্বিতীয় মরশুমে তিনি তাঁর উচ্চ-বিদ্যালয়ের সহপাঠি ববের সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পরেছেন, মরশুমের শেষের দিকে ববের মৃত্যুর আগে অবধি। তাঁর এবং হপারের একে অপরের প্রতি অনুভূতি আছে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।
  • জিম হপারের ভূমিকায় ডেভিড হারবার[৭]: জিম হপার হলেন হকিন্স পুলিশ বিভাগের কর্তা। ক্যান্সারে তার অল্প বয়স্কা কন্যা মারা যাওয়ার পর তিনি নিজের বিবাহবিচ্ছেদ ঘটান এবং মদ্যাশক্ত হয়ে পড়েন। অবশেষে উইলকে বাঁচিয়ে এবং ইলেভেনকে দত্তক নিয়ে আরও দায়ীত্বশীল হয়ে ওঠেন। তাঁর এবং জয়েসের একে অপরের প্রতি অনুভূতি আছে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।
  • মাইক হুইলারের ভূমিকায় ফিন উল্ফহার্ড[৮]: মাইক ক্যারেন এবং টড হুইলারের পুত্র, ন্যান্সি হুইলারের ছোট ভাই, এবং উইল বায়ার্সের তিন বন্ধুর মধ্যে একজন। সে একজন বুদ্ধিমান এবং বিবেকবান ছাত্র এবং তার বন্ধুদের জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তার ইলেভেনের প্রতি প্রেমানুভূতি গড়ে ওঠে।
  • ইলেভেনের (ডাকনাম “এল”) ভূমিকায় মিলি ববি ব্রাউন[৮]: সে একজন সাইকোকাইনেটিক ক্ষমতা সম্পন্ন কম বয়সি এবং স্বল্পবক্তা মেয়ে। তার আসল নাম জেন এবং তার জন্মদাত্রী হলেন টেরি আইভস। হকিন্স গবেষণাগারে তার উপর গবেষণা করা হচ্ছিল এবং সেখান থেকে পালিয়ে সে উইল, ডাস্টিন এবং লুকাসের সঙ্গে বন্ধুত্ব করে। তার মাইকের প্রতি প্রেমানুভূতি গড়ে ওঠে।
  • ডাস্টিন হেন্ডার্সনের ভূমিকায় গেটন ম্যাটার‍্যাজো[৮]: ডাস্টিন উইল বায়ার্সের তিন বন্ধুর মধ্যে একজন। তার ক্লাইডোক্রেনিয়াল ডিসপ্লেসিয়ার জন্য সে আধো আধো উচ্চারণে কথা বলে। দ্বিতীয় মরশুমে সে তার সামনের নতুন দাঁতের জন্য গর্বিত এবং ম্যাক্সের প্রতি আকৃষ্ট।
  • লুকাস সিনক্লেয়ারের ভূমিকায় ক্যালেব ম্যাকলখলিন[৮]: লুকাস উইল বায়ার্সের তিন বন্ধুর মধ্যে একজন। প্রথমদিকে ইলেভেনের প্রতি সতর্ক থাকলেও পরে সে তার সঙ্গে বন্ধুত্ব করে নেয়। দ্বিতীয় মরশুমে সে ম্যাক্সের ভালবাসার পাত্র হয়ে ওঠে।
  • ন্যান্সি হুইলারের ভূমিকায় ন্যাটালিয়া ডায়ার[৮]: ন্যান্সি ক্যারেন এবং টড হুইলারের মেয়ে, মাইক হুইলারের দিদি। প্রথম মরশুমে সে স্টিভ হ্যারিংটনের প্রেমিকা। দ্বিতীয় মরশুমে ন্যান্সি জোনাথান বায়ার্সের প্রেমিকা হয়ে যায়।
  • জোনাথান বায়ার্সের ভূমিকায় চার্লি হিটন[৮]: চার্লি জয়েস বায়ার্সের বড় ছেলে এবং উইল বায়ার্সের দাদা। সে স্বল্পবক্তা কিশোর, বিদ্যালয়ে একজন বহিরাগত হিসাবে গন্য হয়, এবং একজন উচ্চাকাঙ্ক্ষী চিত্রগ্রাহক। তার মায়ের এবং ভাইয়ের সঙ্গে তার খুব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক এবং দ্বিতীয় মরশুমে সে ন্যান্সির প্রেমিক হয়ে যায়।
  • ক্যারেন হুইলারের ভূমিকায় কারা বুয়োনো[৯]: ইনি ন্যান্সি, মাইক এবং ছোট্ট হলির মা এবং টড হুইলারের স্ত্রী।
  • মার্টিন ব্রেনারের ভূমিকায় ম্যথিউ মোডাইন[১০]: ইনি হলেন হকিন্স গবেষণাগারের বৈজ্ঞানিক। তিনি ধান্দাবাজ এবং উদাসীন। তিনি এবং তাঁর দল ইলেভেনকে খুঁজছে। দ্বিতীয় মরশুমে তাঁকে পুনরায় অল্প সময়ের জন্য দেখা যায়।
  • উইল বায়ার্সের ভূমিকায় নোয়া শ্ন্যাপ[৮]: উইল হল জয়েস বায়ার্সের ছোট ছেলে এবং জোনাথান বায়ার্সের ভাই। হকিন্স গবেষণাগারের বৈজ্ঞানিক দ্বারা আবিষ্কৃত বিকল্প আ্য়াম "আপসাইড ডাউন"-এর দানব তাকে অপহরণ করে।[১১] প্রথম মরশুমে অল্প সময়ের জন্য দেখা গেলেও দ্বিতীয় মরশুমে তাকে নিয়মিতভাবে দেখতে পাওয়া যায়।[১২]
  • ম্যাক্সাইন "ম্যাক্স" মেফিল্ডের ভূমিকায় স্যাডি সিঙ্ক: ম্যাক্স বা "ম্যডম্যাক্স" হল বিলির ছোট সৎবোন, এবং লুকাস এবং ডাস্টিন উভয়েরই নজরে আসে। ম্যাক্সকে আমরা দ্বিতীয় মরশুমে দেখতে পাই।[১২]
  • স্টিভ হ্যারিংটনের ভূমিকায় জো কিরি: স্টিভ উচ্চ-বিদ্যালয়ের এক জনপ্রিয় ছাত্র এবং ন্যান্সি হুইলারের প্রেমিক। প্রথমদিকে জোনাথান বায়ার্সকে বিরক্ত করে, পরে সে তার সঙ্গে বন্ধুত্ব করে নেয়। প্রথম মরশুমে ন্যন্সির প্রেমিক থাকলেও দ্বিতীয় মরশুমে তাদের বিচ্ছেদ ঘটে।[১৩] প্রথম মরশুমে অল্প সময়ের জন্য দেখা গেলেও দ্বিতীয় মরশুমে তাকে নিয়মিতভাবে দেখতে পাওয়া যায়।[১২]
  • বিলি হারগ্রোভের ভূমিকায় ডেকার মন্টগোমেরি: বিলি হল ম্যাক্সের হিংসাত্মক এবং মেজাজী দাদা। তাকে দ্বিতীয় মরশুমে দেখতে পাওয়া যায়।[১২] সে স্টিভের জনপ্রিয়তাকে চ্যালেঞ্জ জানায়।
  • ববি নিউবির ভূমিকায় শন অ্যাস্টিন: বব জয়েস বায়ার্স এবং জিম হপারের প্রাক্তন সতীর্থ। আমরা তাঁকে দ্বিতীয় মরশুমে দেখতে পাই। সে হকিন্স রেডিওশ্যাক চালায়[১৪]। তিনি জয়েসের প্রেমিক হওয়ার ফলে হপারের সঙ্গে তাঁর দ্বন্দ বাজে।[১৫]
  • স্যাম ওয়েনসের ভূমিকায় পল রেইজার: ইনি ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট অব এনার্জির আধিকারিক। তিনি মার্টিন ব্রেনারের পরিবর্ত হিসাবে হকিন্স গবেষণাগারে অধিকর্তা হিসাবে এসেছেন। তিনি একগুঁয়ে এবং বৈজ্ঞানিক গবেষণার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। কিন্তু হকিন্সের বাসিন্দাদের প্রতি সহানুভূতিশীল। তাঁকে আমরা দ্বিতীয় মরশুমে দেখতে পাই।[১৪]

পর্বসমূহ[সম্পাদনা]

মরশুম মোট পর্ব মুক্তি
১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)
২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
[১৬] ৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)[১৭]

মরশুম ১ (২০১৬)[সম্পাদনা]

সামগ্রিক
নং.
মরশুমে
নং.
শিরোনামপরিচালকলেখকমূল মুক্তির তারিখ
"চ্যাপ্টার ওয়ান: দ্য ভ্যানিশিং অফ উইল বায়ার্স"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)
"চ্যাপ্টার টু: দি উইয়ের্ডো অন মেপেল স্ট্রীট"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)
"চ্যাপ্টার থ্রি: হলি, জলি"শন লেভিজেসিকা মেক্লেনবার্গ১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)
"চ্যাপ্টার ফোর: দ্য বডি"শন লেভিজাস্টিন ডবেল১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)
"চ্যাপ্টার ফাইভ: দ্য ফ্লী অ্যান্ড দ্য অ্যাক্রোব্যাট"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়অ্যালিসন ট্যাট্লক১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)
"চ্যাপ্টার সিক্স: দ্য মন্স্টার"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়জেসিকা নিকসন-লোপেজ১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)
"চ্যাপ্টার সেভেন: দ্য বাথটাব"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়জাস্টিন ডবেল১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)
"চ্যাপ্টার এইট: দি আপসাইড ডাউন"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়কাহিনী: পল ডিখটার
টেলিনাট্যকার: ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়
১৫ জুলাই ২০১৬ (2016-07-15)

মরশুম ২ (২০১৭)[সম্পাদনা]

সামগ্রিক
নং.
মরশুমে
নং.
শিরোনামপরিচালকলেখকমূল মুক্তির তারিখ
"চ্যাপ্টার ওয়ান: ম্যাডম্যাক্স"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
১০"চ্যাপ্টার টু: ট্রিক অর ট্রিট, ফ্রিক"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
১১"চ্যাপ্টার থ্রি: দ্য পলিওয়গ"শন লেভিজাস্টিন ডবেল২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
১২"চ্যাপ্টার ফোর: উইল দি ওয়াইজ"শন লেভিপল ডিখটার২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
১৩"চ্যাপ্টার ফাইভ: ডিগ ডাগ"অ্যান্ড্রু স্ট্যান্টনজেসিকা নিকসন-লোপেজ২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
১৪"চ্যাপ্টার সিক্স: দ্য স্পাই"অ্যান্ড্রু স্ট্যান্টনকেট ট্রেফ্রি২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
১৫"চ্যাপ্টার সেভেন: দ্য লস্ট সিস্টার"রেবেকা থমাসজাস্টিন ডবেল২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
১৬"চ্যাপ্টার এইট: দ্য মাইন্ড ফ্লেয়ার"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)
১৭"চ্যাপ্টার নাইন: দ্য গেট"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়২৭ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-27)

মরশুম ৩ (২০১৯)[সম্পাদনা]

সামগ্রিক
নং.
মরশুমে
নং.
শিরোনামপরিচালকলেখকমূল মুক্তির তারিখ
১৮"চ্যাপ্টার ওয়ান: সুজি, ডু ইউ কপি?"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়[১৬]ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়[১৮]৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)
১৯"চ্যাপ্টার টু: দ্য মল র‌্যাটস"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়[১৬]TBA৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)
২০"চ্যাপ্টার থ্রী: দ্য কেস অফ দ্য মিসিং লাইফগার্ড"শন লেভি[১৬]TBA৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)
২১"চ্যাপ্টার ফোর: দ্য সনা টেস্ট"শন লেভি[১৬]TBA৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)
২২"চ্যাপ্টার ফাইভ: দ্য সোর্স"উটা ব্রিসউইটজ[১৯]TBA৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)
২৩"চ্যাপ্টার সিক্স: দ্য বার্থডে"উটা ব্রিসউইটজ[১৯]TBA৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)
২৪"চ্যাপ্টার সেভেন: দ্য বাইট"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়TBA৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)
২৫"চ্যাপ্টার এইট: দ্য ব্যাটেল অফ স্টারকোর্ট"ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়TBA৪ জুলাই ২০১৯ (2019-07-04)


প্রযোজনা[সম্পাদনা]

সম্প্রসার[সম্পাদনা]

রস (বাঁঁদিকে) এবং ম্যাট ডাফার, ধারাবাহিকের সৃষ্টিকর্তা

স্ট্রেঞ্জার থিংসের সৃষ্টিকর্তা হচ্ছেন ম্যাট এবং রস ডাফার, যাদের পেশাদারী নাম হচ্ছে "দ্য ডাফার ব্রাদার্স" বা ডাফার্স ভ্রাতৃদ্বয়[২০] দুজনে ২০১৫ সালে তাদের হিডেন নামক চলচ্চিত্রের লেখার এবং প্রযোজনার কাজ শেষ করেন। এই চলচ্চিত্রে তারা এম নাইট শ্যামালানের শৈলী অনুকরণ করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু সেই সময়ে চলচ্চিত্রটির পরিবেশক ওয়ার্নার ব্রাদার্সের অভ্যন্তরীন পরিবর্তনের ফলে চলচ্চিত্রটি তেমনভাবে প্রচার এবং মুক্তি পায়নি, এবং ভ্রাতৃদ্বয়েরা তাদের ভবিষ্যতের ব্যাপারে অনিশ্চিত হয়ে পরেন।[২১] তবে তাদেরকে অবাক করে দিয়ে হিডেনের চিত্রনাট্য টেলিভিশন প্রযোজক ডোনাল্ড ডি লাইনের মনে প্রভাব ফেলে এবং তিনি তাদের ওয়েওয়ার্ড পাইন্সে শ্যামালানের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ করে দেন। এই ধারাবাহিকের প্রযোজনার কাজের সময়ে শ্যামালান তাদের পরামর্শদাতা হিসাবে কাজ করেন, এবং এই কাজ শেষে হওয়ার পরে ভ্রাতৃদ্বয়েরা মনে করেন যে তারা তাদের নিজস্ব টেলিভিশন ধারাবাহিকে কাজের জন্য তৈরি করতে প্রস্তুত।[২২]

ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়রা ধারাবাহিকটিকে কোন নেটওয়ার্কে বিপনন করার জন্য একটি ২০ পাতার বই এবং এমন একটি চিত্রনাট্য তৈরি করলেন যা ধারাবাহিকের পাইলট পর্বের অনুরূপ হবে।[২৩] ডাফাররা পনেরটির বেশি কেবল নেটওয়ার্কে তাদের কাজটিকে দেখিয়েছিলেন, কিন্তু সব জায়গা থেকেই প্রত্যাখাত হয়ছিলেন।[২৪] কারণ হিসাবে বলা হয়েছিল যে দর্শকরা প্রধান চরিত্র হিসাবে শিশুদের মেনে নেবে না, এবং তাদের বলা হলো হয় এটিকে শিশুদের জন্য ধারাবাহিক করা হোক অথবা শিশুচরিত্র সরিয়ে দিয়ে হপারের অতিপ্রাকৃতিক ঘটনার তদন্তকে ধারাবাহিকের কেন্দ্রবিন্দু করতে।[২২] ২০১৫-এর শুরুর দিকে ২১ ল্যাপ্স এন্টার্টেইনমেন্টের সহসভাপতি ড্যান কোহেন চিত্রনাট্যটিকে তার সহকর্মি শন লেভির কাছে নিয়ে আসে। পরবর্তীকালে তারা ডাফার ভ্রাতৃদ্বয়েকে তাদের অফিসে ডাকেন এবং চিত্রনাট্যের সম্পুর্ণ কাহিনীকর্তৃত্ব ভাইয়েদের দিয়ে ধারাবাহিকের স্বত্ত কিনে নেন। পাইলট পর্বের চিত্রনাট্য পড়ার পর নেটফ্লিক্স সম্পুর্ণ মরশুমটি অপ্রকাশিত মূল্যে কিনে নেন।[২৫] ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে নেটফ্লিক্স ধারাবাহিকটির ২০১৬ সালের মুক্তির পরিকল্পনার ব্যপারে ঘোষণা করে।[২৬] ডাফার ভাইরা জানান যে যখন তারা ধারাবাহিকটি নেটফ্লিক্সে দেখান তখন নেটফ্লিক্স হাউজ অফ কার্ডস এবং অরেঞ্জ ইজ দ্য নিউ ব্ল্যাক এর মত মৌলিক ধারাবাহিকের জন্য স্বিকৃতি অর্জন করেছে, এবং নবাগত প্রযোজকদের সুযোগ দেওয়ার জন্য তৈরি হচ্ছে।[২৩] ডাফার ভাইরা ধারাবাহিকটি লিখতে শুরু করেন এবং চরিত্রায়ন এবং চিত্রগ্রহণের কাজ শুরু করার জন্য লেভি এবং কোহেনকে নির্বাহী প্রযোজক হিসাবে নিয়ে আসেন।[২৭]

"Montauk is an eight-hour sci-fi horror epic. Set in Long Island in 1980 and inspired by the supernatural classics of that era, we explore the crossroads where the ordinary meet the extraordinary...emotional, cinematic and rooted in character, Montauk is a love letter to the golden age of Steven Spielberg and Stephen King – a marriage of human drama and supernatural fear."

 — মানটক সম্বন্ধে ডাফার ভাইদের মূল বক্তব্য[২৮]

মানটক বিপননের জন্য ডাফার ভাইদের তৈরি বইয়ের প্রচ্ছদ; স্টিফেন কিং-এর ফায়ারস্টার্টার-এর মতো বিভিন্ন বইয়ের প্রচ্ছদ হচ্ছে এর অনুপ্রেরণা

প্রথমে ধারাবাহিকটির ঘটনাস্থল ছিল নিউ ইয়র্কের মানটক এবং পার্শ্ববর্তী লং আইল্যান্ড, এবং সেই কারণে এর নাম রাখা হয়েছিল মানটক[২৬][২৯] মানটককে বেছে নেওয়ার কারণ ছিল স্টিভেন স্পিলবার্গের জস চলচ্চিত্রটির শুটিং এইখানেই হয়েছিল।[৩০] পরে ঘটনাস্থলকে হকিন্স নামক কাল্পনিক শহরে পরিবর্তন করার ফলে ভ্রাতৃদ্বয়েরা মনে করেছিলেন যে তারা এটির সদব্যবহার করতে পারবেন এবং এই শহরে কোয়ারেন্টাইনের মতো এমন কিছু পরিস্থিতি গল্পে আনতে পারবেন যা বাস্তবের শহরে চলচ্চিত্রায়ন করা সম্ভব হতো না।[৩০] গল্পের অবস্থান পরিবর্তনের ফলে নেটফিক্সের টেড সারান্দোসের নির্দেশে জনসাধারণের কাছে এটি প্রচার করার জন্য তাদের ধারাবাহিকের নতুন শিরোনাম ভাবতে হয়ছিলো। ডাফাররা প্রথমে শিরোনামের ফন্ট এবং রূপ বিবেচনা করার জন্য স্টিভেন কিঙের ফায়ারস্টার্টার উপন্যাসটির প্রচ্ছদ বেছে নিয়েছিলেন এবং সম্ভাব্য বিকল্প নামের দীর্ঘ তালিকা তৈরি করেছিলেন। স্টিভেন কিঙের অন্য একটি উপন্যাস নীডফুল থিংসের অনুরূপ হওয়ায় স্ট্রেঞ্জার থিংস নামটা বাছাই করা হয়েছিলো, তবে ম্যাট ডাফারের জানিয়েছিলন যে এই নামটা চূড়ান্ত করতে অনেক বাকবিতন্ডা করতে হয়েছিলো।[৩১] ধারাবাহিকটির চরিত্র বোঝানোর জন্য এবং বিপননের জন্য ডাফার ভাইরা ১৯৮০-র দশকের বিভিন্ন চলচ্চিত্র, যেমন ইটি দি এক্সট্রা-টেরেস্ট্রিয়াল, ক্লোজ এনকাউন্টারস অফ দ্য থার্ড কাইন্ড, পোল্টারগাইস্ট, হেলরেইজার (চলচ্চিত্র), স্ট্যান্ড বাই মি, ফায়ারস্টার্টার, এ নাইটমেয়ার অন এল্ম স্ট্রিট, এবং জসের মতো চলচ্চিত্র থেকে চিত্র, ফুটেজ এবং সঙ্গীত প্রদর্শন করেছিলেন।[২৮]

মুক্তি[সম্পাদনা]

দর্শকদের দ্বারা স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

অন্যান্য মিডিয়ায় স্ট্রেঞ্জার থিংস[সম্পাদনা]

মামলা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. হো, রডনি (জুলাই ১৯, ২০১৬)। "New Netflix drama series Stranger Things to shoot in Atlanta"দি আটলান্টা জার্নাল-কনস্টিটিউশন। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ২৭, ২০১৬ 
  2. "Netflix to premiere original series Montauk in 2016"রয়েটার্স। এপ্রিল ২, ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৩, ২০১৫ 
  3. গ্যালাঘার, কেইটলিন (জুলাই ১৫, ২০১৬)। "Is Hawkins A Real Town? 'Stranger Things' Will Make You Nostalgic For These Other '80s Classics"বাস্টেল। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৫, ২০১৬ 
  4. স্ট্যাক, টিম (ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১৭)। "Stranger Things season 2: Who's in danger? Who's new? The plot revealed!"এন্টার্টেনমেন্ট উইকলি। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১৭ 
  5. কিলকেনি, কেটি (মার্চ ২৫, ২০১৮)। "'Stranger Things': First Season 3 Details Revealed"দ্য হলিউড রিপোর্টার। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ২৬, ২০১৮ 
  6. ম্যাকভে, ক্লারা (জুন ৫, ২০১৮)। "Noah Schnapp Teases 'Stranger Things' Season 3: "It's Very Different""দ্য হলিউড রিপোর্টার। সংগ্রহের তারিখ জুন ৫, ২০১৮ 
  7. অসিয়েল্লো, মাইকেল (জুন ১৫, ২০১৫)। "Scoop: Winona Ryder to Headline Untitled Netflix Supernatural Thriller"টিভিলাইন। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৪, ২০১৫ 
  8. আন্দ্রিভা, নেলি (আগস্ট ২০, ২০১৫)। "Duffer Bros. Netflix Supernatural Drama Series Sets Young Cast, Gets Title"ডেডলাইন হলিউড। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২৪, ২০১৫ 
  9. পেটস্কি, ডেনিস (সেপ্টেম্বর ১, ২০১৫)। "Cara Buono Joins Netflix's 'Stranger Things'; Dean Cain In 'Lady Dynamite'"ডেডলাইন হলিউড। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৭, ২০১৬ 
  10. "Netflix's 'Stranger Things' Adds Matthew Modine to Cast (Exclusive)"দ্য র‌্যাপ। অক্টোবর ২৭, ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৭, ২০১৬ 
  11. পেডেরসেন, এরিক (জুন ৯, ২০১৬)। "'Stranger Things' Trailer: First Look At Netflix's Supernatural Drama Starring Winona Ryder & Matthew Modine"ডেডলাইন হলিউড। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৪, ২০১৬ 
  12. পেটস্কি, ডেনিস (অক্টোবর ১৪, ২০১৬)। "'Stranger Things' Netflix Series Adds Two New Regulars, Promotes Two For Season 2"ডেডলাইন হলিউড। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১৪, ২০১৬ 
  13. ক্রোসান, অ্যাশলি (আগস্ট ৩১, ২০১৬)। "EXCLUSIVE: 'Stranger Things' Actor Joe Keery on Season 2, Steve's Hair and Justice for Barb"এন্টার্টেনমেন্ট টুনাইট। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ২, ২০১৭ 
  14. শুইন্ড, ওরিয়ানা (নভেম্বর ৭, ২০১৬)। "'Stranger Things' Season 2 Casts Sean Astin, Paul Reiser, Linnea Berthelsen"ভ্যারাইটি। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  15. লঙ্গেরেটা, এমিলি (জানুয়ারি ২১, ২০১৭)। "'Stranger Things' Season 2 Scoop: Sean Astin Playing Winona Ryder's 'Boyfriend' & More"হলিউড লাইফ। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ২৫, ২০১৭ 
  16. Foutch, Haleigh (এপ্রিল ২১, ২০১৮)। "Exclusive: 'Stranger Things' Season 3 Starts Filming Monday; Andrew Stanton Not Returning"Collider। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২২, ২০১৮ 
  17. উইগলার, জশ (ডিসেম্বর ৩১, ২০১৮)। "Netflix Reveals 'Stranger Things' Season 3 Premiere Date"দ্য হলিউড রিপোর্টার। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১, ২০১৯ 
  18. "Stranger Things 3 | Now In Production"। Netflix Official Youtube Channel। এপ্রিল ২৭, ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ মে ৩, ২০১৮ 
  19. Bui, Hoai-Tran (ফেব্রুয়ারি ২১, ২০১৯)। "'Stranger Things' Director Uta Briesewitz to Spin 'The Wheel of Time' for Amazon"Slash Film। সংগ্রহের তারিখ মে ২৩, ২০১৯ 
  20. মেল্লর, লুইসা (জুলাই ১৫, ২০১৬)। "Netflix's Stranger Things spoiler-free review"ডেন অফ গীক। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১৯ 
  21. স্টার্নবার্গ, অ্যাডাম (আগস্ট ২০, ২০১৭)। "Turned Upside Down"ভালচার। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১৯ 
  22. গ্রো, কোরি (আগস্ট ৩, ২০১৬)। "'Stranger Things': How Two Brothers Created Summer's Biggest TV Hit"রোলিং স্টোন। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১৯ 
  23. কোহেন, ফিন (আগস্ট ১৪, ২০১৬)। "Matt and Ross Duffer Discuss 'Stranger Things,' a Nightmare on '80s Street"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১৯ 
  24. মিচেল, নাইজেল (নভেম্বর ১২, ২০১৭)। "16 Things You NEVER Knew About Stranger Things"সিবিআর। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১৯ 
  25. বার্কশায়ার, জোফ (জুলাই ২২, ২০১৬)। "'Stranger Things': Shawn Levy on Directing Winona Ryder, Netflix's Viral Model"ভ্যারাইটি। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১৯ 
  26. স্প্যাঙ্গলার, টড (এপ্রিল ২, ২০১৫)। "Netflix Orders 'Montauk' Supernatural Drama Series from 'Wayward Pines' Duffer Twins"ভ্যারাইটি। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১৯ 
  27. আন্দ্রীভা, নেলি (এপ্রিল ২, ২০১৫)। "Netflix Orders Supernatural Drama Series From Matt & Ross Duffer, Shawn Levy"ডেডলাইন হলিউড। সংগ্রহের তারিখ জুন ৩০, ২০১৯ 
  28. মিয়ামোতো, কেন (অক্টোবর ২৬, ২০১৭)। "How to Sell Your TV Series the Stranger Things Way"স্ক্রিনক্রাফট। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৮ 
  29. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; deadlineNellie নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  30. ফিনবার্গ, ড্যানিয়েল (আগস্ট ১, ২০১৬)। "The Duffer Brothers Talk 'Stranger Things' Influences, 'It' Dreams and Netflix Phase 2"দ্য হলিউড রিপোর্টার। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৭ 
  31. লেওন, মেলিসা (আগস্ট ৬, ২০১৬)। "Inside 'Stranger Things': The Duffer Bros. on How They Made the TV Hit of the Summer"দ্য ডেইলি বিস্ট। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]