সোয়াত (দেশীয় রাজ্য)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সোয়াত ইউসুফজাই রাজ্য

১৮৪৯; ১৭১ বছর আগে (1849)–{{{year_end}}}
সোয়াতের জাতীয় পতাকা
পতাকা
Swat map.gif
রাজধানীসাইদু শরীফ
ধর্ম
ইসলাম
সরকারপ্রিন্সিপ্যালিটি (১৮৫৮-১৯৬৯)
সোয়াতের ওয়ালি 
ইতিহাস 
• প্রতিষ্ঠা
১৮৪৯; ১৭১ বছর আগে (1849)
১৪ অক্টোবর
মুদ্রারুপী, পাকিস্তান রুপী (১৯৪৭ সালের পরে)
উত্তরসূরী
West Pakistan
বর্তমানে যার অংশখাইবার পাখতুনখোয়া, পাকিস্তান
সোয়াত ইউসুফজাই রাজ্য
সোয়াত
পাকিস্থান উপবিভাগ
১৮৪৯–২৮ জুলাই ১৯৬৯
সোয়াতের পতাকা
পতাকা
Swat map.gif
পাকিস্তানের মানচিত্র সোয়াত হাইলাইট করা হয়েছে
রাজধানীসাইদু শরীফ
আয়তন 
• 
৮,২৫০ বর্গকিলোমিটার (৩,১৯০ বর্গমাইল)
ইতিহাস 
• প্রতিষ্ঠিত
১৮৪৯
• বিলুপ্ত
২৮ জুলাই ১৯৬৯
বর্তমানে যার অংশখাইবার পাখতুনখোয়া, পাকিস্তান
Government of Khyber Pakhtunkhwa

সোয়াত রাজ্য ( পশ্তু : د يوسفزو رياست سوات ) (স্থানীয়ভাবে ডেরা ইউসুফজাই নামে পরিচিত) একটি আঞ্চলিক শাসক রাজ্য যা আখুন্দুরা শাসন করে। এটি ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত ব্রিটিশ ভারতীয় সাম্রাজ্যের একটি দেশীয় রাজ্য ছিল। একই বছর আখুন্দুরা পাকিস্থানকে স্বীকৃতি দেয়। এই রাজ্যটি আধুনিক খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের উত্তরে অবস্থিত (পূর্বে উত্তর-পূর্ব সীমান্ত অঞ্চল নামে পরিচিত) এবং ১৯৬৯ সাল পর্যন্ত তার ১৯৪৭ সালের সীমান্ত অব্যাহত ছিল, যখন তার পর এটি সোয়াত, দির, বুনার এবং শ্যাংলার জেলাগুলির মধ্যে বিলীন হয়ে যায়।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সোয়াত অঞ্চলটিতে প্রায় দুই হাজার বছরেরও বেশি সময় ধরে মানুষ বসবাস করে এবং প্রাচীন যুগে ওড্ডিয়ান নামে পরিচিত ছিল। সোয়াতের অবস্থান এটিকে অনেক আক্রমণকারীদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পরিণত করেছিল, যাদের মাঝে আছেন গ্রেট আলেকজান্ডার এবং গজনির সুলতান মাহমুদ । খ্রিস্টপূর্ব দ্বিতীয় শতাব্দীতে সোয়াত গান্ধার বৌদ্ধ সভ্যতার অংশ গঠন করে।

সোয়াত হিনায়না বৌদ্ধ ধর্ম এবং এটি থেকে গড়ে ওঠা মহাযান বিদ্যালয়ের একটি কেন্দ্র ছিল। চীনা তীর্থযাত্রী ফা-হিয়েন, যিনি খ্রিস্টীয় ৪০৩ খ্রিস্টাব্দের দিকে উপত্যকাটি পরিদর্শন করেন এবং তিনি ৫০০ টি মঠের কথা উল্লেখ করেন। তাঁর পরে, সান ইউন (৫১৯ খ্রিস্টাব্দ), জুয়ানজাং (৬৩০ খ্রিস্টাব্দ) এবং উ-কুং (৭৫২ খ্রিস্টাব্দ) সোয়াত সফর করেন এবং এই অঞ্চলের ঐশ্বর্য, এর অনুকূল জলবায়ু, বন, ফুল এবং ফল-গাছের প্রাচুর্যের প্রশংসা করেছেন।

কুশন রাজবংশ চার শতাব্দী ধরে শাসন করে। খ্রিস্টীয় ৫ম শতাব্দীতে হোয়াইট হানরা তাদের অপসারণ করেন এবং গান্ধার যুগের গৌরব অবসান ঘটে। জুয়ানজাং বৌদ্ধধর্মের পতন রেকর্ড করেছিলো। তাঁর মতে, অনুমান করা হয় যে ১৪০০ টি মঠগুলির মধ্যে বেশিরভাগ ধ্বংস বা পরিত্যক্ত হয়েছিল। সন্ন্যাসীরা এখনও ধর্মগ্রন্থ থেকে উদ্ধৃত করেন কিন্তু তারা আর বুঝতে পারে না। প্রচুর পরিমাণে আঙ্গুর ছিল তবে জমিতে আবাদ কম ছিল।

তাজিকরা কয়েক শতাব্দী ধরে সোয়াতে বসবাস ও শাসন করে আসছিল। ১৫১৯ খ্রিস্টাব্দে মালাক আহমদ খানের নেতৃত্বে ইউসফজাই পশতুন উপজাতিরা তাদের শাসনের অবসান ঘটায়।

সোয়াতের আধুনিক অঞ্চলটি বিক্ষিপ্তভাবে ধর্মীয় নেতাদের দ্বারা শাসিত হয়েছিল, যারা বিভিন্নভাবে আখন্ড উপাধি নিতো। ১৮৭৮ সালে সোয়াতের আখুন্দ মারা যায়। বিশেষত এটি অ্যাডওয়ার্ড লিয়ারের, দ্য আখন্ড অব সোয়াত নামে একটি বিখ্যাত রম্য কবিতার বিষয় হিসাবে বিখ্যাত ছিলেন।

ইসলামিক স্টেট সোয়াত ১৮৯৪ সালে সাইয়িদ আকবর শাহের অধীনে শরিয়া আইন বহাল থাকায় প্রতিষ্ঠিত হয়, তবে ১৮৭৮ থেকে ১৯১৫ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রটি অবহেলায় ছিল। এরপরে সাইয়িদ আবদুল-জব্বার খান, সৈয়দ আকবর শাহের ভাতিজা, স্থানীয় একটি জিরগা দ্বারা শাসক করা হয়েছিল এবং ক্ষমতা প্রয়োগে সমস্যায় পড়েন। ১৯১৭ সালে নতুন জিরগা মিয়ারুল গোলশাহজাদা আবদুল-ওদুদকে সোয়াত বংশের প্রতিষ্ঠাতা নিযুক্ত করে। ব্রিটিশরা ১৯২৬ সালে এই শাসক এবং রাজ্যকে দেশীয় রাজ্য হিসাবে স্বীকৃতি দেয়। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের স্বাধীনতার পরে, শাসক যথেষ্ট স্বায়ত্তশাসন বজায় রেখে পাকিস্তানকে স্বীকার করেছিলেন। ১৯৬৬ সালে সোয়াতের শাসককে বংশগত ১৫-তোপ সেলামি দেওয়া হয়। এর পরে ১৯৬৯ সালে রাজ্য বিলুপ্তি ঘটে।[২] এর ফলে সোয়াত মুক্তি আন্দোলন (এসএলএম) স্বৈরতান্ত্রিক শাসনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে। ফলস্বরূপ, রাজ্যটিকে বর্তমান পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

সোয়াতের লোকেরা হলেন মূলত আকোজাই ইউসুফজাই পশতুন, কোহিস্তানিজ ও গুজ্জার ।[৩]

সরকার[সম্পাদনা]

সোয়াতের শাসকরা আমির -শরীয়ত উপাধি ধারণ করতেন এবং ১৯১৮ সাল থেকে বাদশা নামে পরিচিত ছিলেন; ১৯২৬ সালে যখন এটি ব্রিটিশ রাজ্যের দেশীয় রাজ্যে পরিণত হয় তখন উপাধি ওয়ালিতে পরিবর্তিত হয়। ১৯৬৯ সাল থেকে প্রাক্তন রাজ্যটি খাইবার পাখতুনখোয়াখানের অংশ হিসাবে একটি নাগরিক প্রশাসনের অধীনে ছিল।[১] মিয়াঙ্গুল পরিবার এখনও পাকিস্তানে বিশিষ্ট এবং বিভিন্ন নিয়োগ ও নির্বাচনী পদে রয়েছেন।

রাজত্ব সোয়াতের শাসকগণ [৪]
১৮৪৯ - ১১ মে ১৮৭৫ সাইয়্যেদ আকবর শাহ
১১ মে ১৮৫৭- ১৮৭৮ আখন্দ আবদুল গাফুর (সাইদু বাবা)
১৮৭৮-১৯১৫ নিষ্ক্রিয় অবস্থায় রাষ্ট্র, কোনও উপযুক্ত গৃহীত শাসক নেই
১৯১৫ - সেপ্টেম্বর ১৯১৭ সৈয়দ আবদুল- সৈয়দ আবদুল জব্বার শাহ শাহ
সেপ্টেম্বর ১৯১৭ - ১২ ডিসেম্বর ১৯৪৯ মিয়াঙ্গুল আবদুল ওদুদ (বাদশা সাহেব)
১২ ডিসেম্বর ১৯৪৯ - ২৮ জুলাই ১৯৬৯ মিয়াঙ্গুল আবদুল-হক জাহান জেব

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Claus, Peter J.; Diamond, Sarah (২০০৩)। South Asian Folklore: An Encyclopedia : Afghanistan, Bangladesh, India, Nepal, Pakistan, Sri Lanka। Taylor & Francis। পৃষ্ঠা 447। আইএসবিএন 9780415939195 
  2. Sultan-i-Rome (২০০৮)। Swat State (1915-1969) from Genesis to Merger: An Analysis of Political, Administrative, Socio-political, and Economic Development (ইংরেজি ভাষায়)। Oxford University Press। আইএসবিএন 978-0-19-547113-7 
  3. Ahmed, Akbar (২০১২-০৭-২৬)। Millennium and Charisma Among Pathans (Routledge Revivals): A Critical Essay in Social Anthropology (ইংরেজি ভাষায়)। Routledge। পৃষ্ঠা ২১। আইএসবিএন 978-1-136-81074-9 
  4. Ben Cahoon, WorldStatesmen.org। "Pakistan Princely States"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১০-০৩ 

আরও পড়া[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]