সেস বার্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সেস বার্ক
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসেসিল বার্ক
জন্ম(১৯১৪-০৩-২৭)২৭ মার্চ ১৯১৪
এলারস্লাই, নিউজিল্যান্ড
মৃত্যু৪ আগস্ট ১৯৯৭(1997-08-04) (বয়স ৮৩)
অকল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগ ব্রেক গুগলি
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ৩৫)
২৯ মার্চ ১৯৪৬ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৬০
রানের সংখ্যা ৯৫৯
ব্যাটিং গড় ২.০০ ১৭.৪৩
১০০/৫০ ০/০ ০/২
সর্বোচ্চ রান ৫১*
বল করেছে ৬৬ ১২৭৫৭
উইকেট ২০০
বোলিং গড় ১৫.০০ ২৫.৯৯
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/৩০ ৬/২৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/- ৩১/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১২ জুলাই ২০১৯

সেসিল সেস বার্ক (ইংরেজি: Ces Burke; জন্ম: ২৭ মার্চ, ১৯১৪ - মৃত্যু: ৪ আগস্ট, ১৯৯৭) এলারস্লাই এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১][২][৩] নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৪৬ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে অকল্যান্ড দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ লেগ ব্রেক গুগলি বোলিং করতেন। এছাড়াও, নিচেরসারিতে ডানহাতে কার্যকরী ব্যাটিংশৈলী উপস্থাপন করেছেন সেস বার্ক

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৩৭-৩৮ মৌসুম থেকে ১৯৫৩-৫৪ মৌসুম পর্যন্ত সেস বার্কের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। নিচেরসারির ডানহাতি ব্যাটসম্যান এবং লেগ-ব্রেক ও গুগলি বোলার সেস বার্কের প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলোয়াড়ী জীবন ১৯৩৭-৩৮ মৌসুমে শুরু হয়। ঐ মৌসুমে অকল্যান্ডের পক্ষে অভিষেক ঘটে তার। এরপর থেকে ১৯৫৩-৫৪ মৌসুম পর্যন্ত নিয়মিতভাবে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলতে থাকেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন সেস বার্ক। ২৯ মার্চ, ১৯৪৬ তারিখে ওয়েলিংটনে বিল ব্রাউনের নেতৃত্বাধীন সফরকারী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে স্বাগতিক দলের ম্যাক অ্যান্ডারসন, ভার্ডান স্কট, গর্ডন রো, লেন বাটারফিল্ড, সেস বার্ক, ডন ম্যাকরে এবং অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে কেন মিউলম্যান, কিথ মিলার, কলিন ম্যাককুল, ইয়ান জনসন, ডন টলন, রে লিন্ডওয়ালআর্নি তোশ্যাকের একযোগে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে।[৪] এটিই তার সর্বশেষ টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তীকালে ১৯৪৫-৪৬ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে বোলিং অভিজ্ঞ হিসেবে নিউজিল্যান্ডে দলের পক্ষে খেলার জন্যে মনোনীত হন। ঐ টেস্টে অস্ট্রেলিয়া দল বেশ স্বাচ্ছন্দ্যে জয়লাভ করেছিল। নিউজিল্যান্ড দল দুই ইনিংস মিলিয়েও ১০০ রান তুলতে ব্যর্থ হয়। সেস বার্ক দুই অস্ট্রেলীয় ব্যাটসম্যান - বিল ব্রাউনকিথ মিলারের উইকেট লাভ করেছিলেন।

ইংল্যান্ড গমন, ১৯৪৬-৪৭[সম্পাদনা]

পরবর্তী মৌসুমে একমাত্র টেস্টে দ্বাদশ খেলোয়াড়ের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন তিনি। ১৯৪৬-৪৭ মৌসুমে এমসিসি দল অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড গমন করলেও খেলার সুযোগ পাননি। ১৯৪৯ সালে নিউজিল্যান্ড দলের সদস্যরূপে ইংল্যান্ড গমন করেন। এ সফরে মিশ্র সফলতা পান। ১৮ খেলায় অংশ নিয়ে ২৯.৮৩ গড়ে ৫৪ উইকেট তুলে নেন। তন্মধ্যে ডার্বিশায়ারের বিপক্ষে ৬/২৩ বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন। কিন্তু ব্যাট হাতে মাত্র ১৭১ রান তুলতে পেরেছিলেন। সফর চলাকালীন হাতে গুরুতর জখমপ্রাপ্ত হন। ফলশ্রুতিতে কোন টেস্টে আর অংশগ্রহণ করতে পারেননি।[৫]

৪ আগস্ট, ১৯৯৭ তারিখে ৮৩ বছর বয়সে অকল্যান্ডে সেস বার্কের দেহাবসান ঘটে।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of New Zealand Test Cricketers
  2. "New Zealand Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৯ 
  3. "New Zealand Test Bowling Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৯ 
  4. "Australia in New Zealand (1945 – 1946): Scorecard of only one Test"। Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১২, ২০১৯ 
  5. McConnell, L., and Smith, I., (1993) The Shell New Zealand Cricket Encyclopedia, Auckland: Moa Beckett. p. 30. আইএসবিএন ১-৮৬৯৫৮-০৩৪-৬
  6. Ces Burke at cricinfo.com

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]