সূরা যিলযাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সূরা যিলযাল
سورة الزلزلة‎‎
Sura99.pdf
শ্রেণীমাদানী সূরা
পরিসংখ্যান
সূরার ক্রম৯৯
আয়াতের সংখ্যা
রুকুর সংখ্যা
← পূর্ববর্তী সূরাসূরা বাইয়্যিনাহ
পরবর্তী সূরা →সূরা আল-আদিয়াত
আরবি পাঠ্য · বাংলা অনুবাদ

সূরা যিল্‌যাল(আরবি: سورة الزلزلة‎‎) মুসলমানদের ধর্মীয় গ্রন্থ কুরআনের ৯৯ তম সূরা, এর আয়াত সংখ্যা ৮ টি এবং এর রূকুর সংখ্যা ১। যিলযাল সূরাটি মদিনায় অবতীর্ণ হয়েছে।

এই সূরার বিষবস্তু হচ্ছে, মৃত্যুর পর মানুষের পরকালের জীবনের সূত্রপাত কিভাবে হবে এবং মানুষের জন্য তা হবে কেমন বিস্ময়কর ও সেখানে দুনিয়ায় করা সমস্ত কাজের হিসাব মানুষের সামনে এসে যাওয়া। হযরত আবী হাতেম হযরত আবু সাঈদ খুদরী থেকে যে রেওয়ায়েতটি উদ্ধৃত করা হয়েছে তাতে বলা হয়েছেঃ যখন আয়াতটি নাযিল হয় তখন আমি রসূলুল্লাহ্‌-কে বললাম, হে আল্লাহর রসূল! আমি কি আমার আমল দেখবো? তিনি জবাব দিলেন, হাঁ। আমি বললাম, এই বড় বড় গুণাহগুলিও দেখবো? জবাব দিলেন, হাঁ। বললাম, আর এই ছোট ছোট গুণাহগুলিও? জবাব দিলেন, হাঁ। একথা শুনে আমি বললাম, তাহলে তো আমি মারা পড়েছি। তিনি বললেন, আনন্দিত হও, হে আবু সাঈদ কারণ প্রত্যেক নেকী তার নিজের মতো দশটি নেকীর সমান হবে।[১]

আয়াতসমূহ[সম্পাদনা]

بِسْمِ اللّهِ الرَّحْمـَنِ الرَّحِيمِ শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু।
ক্রমিক আয়াত বাংলা উচ্চারণ অর্থ
إِذَا زُلْزِلَتِ الْأَرْضُ زِلْزَالَهَا ইযা-ঝুলঝিলাতিল আরদুঝিলঝা-লাহা-। যখন পৃথিবী তার কম্পনে প্রকম্পিত হবে,
وَأَخْرَجَتِ الْأَرْضُ أَثْقَالَهَا ওয়া আখরাজাতিল আরদুআছকা-লাহা-। যখন সে তার বোঝা বের করে দেবে।
وَقَالَ الْإِنسَانُ مَا لَهَا ওয়া কা-লাল ইনছা-নুমা-লাহা-। এবং মানুষ বলবে, এর কি হল ?
يَوْمَئِذٍ تُحَدِّثُ أَخْبَارَهَا ইয়াওমাইযিন তুহাদ্দিছু আখবা-রাহা-। সেদিন সে তার বৃত্তান্ত বর্ণনা করবে,
بِأَنَّ رَبَّكَ أَوْحَى لَهَا বিআন্না রাব্বাকা আওহা-লাহা-। কারণ, আপনার পালনকর্তা তাকে আদেশ করবেন।
يَوْمَئِذٍ يَصْدُرُ النَّاسُ أَشْتَاتًا لِّيُرَوْا أَعْمَالَهُمْ ইয়াওমাইযিইঁ ইয়াসদুরুন্না-ছুআশতা-তাল লিউউরাও আ‘মা-লাহুম। সেদিন মানুষ বিভিন্ন দলে প্রকাশ পাবে, যাতে তাদেরকে তাদের কৃতকর্ম দেখানো হয়।
فَمَن يَعْمَلْ مِثْقَالَ ذَرَّةٍ خَيْرًا يَرَهُ ফামাইঁ ইয়া‘মাল মিছকা-লা যাররাতিন খাইরাইঁ ইয়ারাহ। অতঃপর কেউ অণু পরিমাণ সৎকর্ম করলে তা দেখতে পাবে
وَمَن يَعْمَلْ مِثْقَالَ ذَرَّةٍ شَرًّا يَرَهُ ওয়া মাইঁ ইয়া‘মাল মিছকা-লা যাররাতিন শাররাইঁ ইয়ারাহ। এবং কেউ অণু পরিমাণ অসৎকর্ম করলে তাও দেখতে পাবে।

শানে নুযুল[সম্পাদনা]

নামকরণ :

প্রথম আয়াতে যিলযালাহা (আবরী) শব্দ থেকে এই নামকরণ করা হয়েছে।

নাযিলের সময়কাল:

এর মক্কী বা মাদানী হবার ব্যাপারে মতবিরোধ রয়েছে। ইবনে মাসউদ (রা) , আতা , জাবের ও মুজাহিদ বলেন , এটি মক্কী সূরা। ইবনে আব্বাসের (রা) একটি উক্তিও এর সমর্থন করে । অন্যদিকে কাতাদাহ ও মুকাতিল বলেন , এটি মাদানী সূরা । এর মাদানী হবার সমর্থনে ইবনে আব্বাসেরও (রা) আর একটি উক্তি পাওয়া যায়। ইবনে আবী হাতেম হযরত আবু সাঈদ খুদরী (রা) থেকে যে রেওয়ায়াতটি উদ্ধৃত করেছেন তার থেকেও এর মাদানী হবার সমর্থনে প্রমাণ পেশ করা হয়। তাতে বলা হয়েছে : যখন আয়াতটি নাযিল হয় তখন আমি রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলালাম : হে আল্লাহর রসূল! আমি কি আমার আমল দেখবো? তিনি জবাব দিলেন, "হ্যাঁ" আমি বললাম,এই বড় বড় গোনাহগুলোও দেখবো? জবাব দিলেন "হ্যাঁ"। বললাম আর এই ছোট ছোট গোনাহগুলোও? জবাব দিলেন "হ্যাঁ"। একথা শুনে আমি বললাম,তাহলে তো আমি মারা পড়েছি। তিনি বললেন,"আনন্দিত হও, হে আবু সাঈদ।কারণ প্রত্যেক নেকী তার নিজের মতো দশটি নেকীর সমান হবে।" এই হাদীস থেকে এই সূরাটির মাদানী হবার ভিত্তিমূলক প্রমাণ পাওয়া যায়। সেটি হচ্ছে হযরত আবু সাঈদ খুদরী (রা) মদীনার অধিবাসী ছিলেন । ওহোদ যুদ্ধের পরে তিনি বালেগ হন। তাই যদি তাঁর উপস্থিতিতে নাযিল হয়ে থাকে তাহলে এর মাদানী হওয়া উচিত। কিন্তু আয়াত ও সূরার শানেনুযুল বর্ণনা সম্পর্কে সাহাবী ও তাবেঈগণের যে পদ্ধতি ছিল তা ইতিপূর্বে সূরা দাহর এর ভূমিকায় আমি বর্ণনা করে এসেছি। তা থেকে জানা যায়, কোন আয়াত সম্পর্কে সাহাবীর একথা বলা যে, এ আয়াতটি উমুক ঘটনা প্রসংগে নাযিল হয়েছিল, সংশ্লিষ্ট আয়াতটির ঐ সময় নাযল হওয়ার চূড়ান্ত প্রমাণ নয়। হতে পারে হযরত আবু সাঈদ জ্ঞান হবার পর যখন সর্বপ্রথম আয়াতটি রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামরে মুখ থেকে শুনেন তখন তার শেষ অংশ তাঁর মনে ভীতির সঞ্চার করে থাকবে এবং তিনি রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে ওপরে বর্ণিত প্রশ্নগুলো করে থাকবেন। আর এই ঘটনাটিকে তিনি এমন ভাবে বর্ণনা করে থাকবেন যাতে মনে হবে এই আয়াতটি যখন নাযিল হয় তখন তিনি রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে এই প্রশ্নগুলো করেন। যদি এই হাদীসটি সামনে না থাকে তাহলে কুরআনকে বুঝে অধ্যয়নকারী প্রত্যেক ব্যক্তিই অনুভব করবেন এটি একটি মক্কী সূরা। বরং এর বক্তব্য বিষয় ও বর্ণনাভংগী থেকে অনুভূত হবে, এটি মক্কায় প্রাথমিক যুগে এমন সময় নাযিল হয় যখন অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত ও হৃদয়গ্রাহী পদ্ধতিতে ইসলামের বুনিয়াদি আকিদা – বিশ্বাস মানুষের সামনে পেশ করা হচ্ছিল।

বিষয়বস্তুর বিবরণ[সম্পাদনা]

(১) এখানে বলা হয়েছে, ধাক্কার পর ধাক্কা দিয়ে এবং ভূমিকম্পের পর ভূমিকম্পের মাধ্যমে পৃথিবীকে ভীষণভবে কাঁপিয়ে দেওয়া। আর যেহেতু পৃথিবীকে নাড়া দেবার কথা বলা হয়েছে তাই এথেকে আপনা-আপনিই এই অর্থ বের হয়ে আসে যে, পৃথিবীর কোনো একটি অংশ কোনো একটি স্থান ব অঞ্চল নয় বরং সমগ্র পৃথিবীকে কম্পিত করে দেওয়া হবে। তারপর এই নাড়া দেবার এই ভূ-কম্পনের ভয়াবহতা আরো বেশি করে প্রকাশ করার জন্য তার সাথে বাড়তি "زلزالها" শব্দটিও বসিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ শব্দটির শাব্দিক মানে হচ্ছে, "কম্পিত হওয়া" অর্থাৎ তার মতো বিশাল ভূ-গোলককে যেভাবে ঝাঁকানি দিলে কাঁপে অথবা যেভাবে ঝাঁকানি দিলে তা চূড়ান্ত পর্যায়ে ভীষণভাবে কাঁপে ঠিক সেভাবে তাকে ঝাঁকানি দেওয়া হবে। অর্থাৎ যে কম্পনের পর পৃথিবীর সব সৃষ্টি ধ্বংস হয়ে যাবে এবং তার সমগ্র ব্যবস্থাপনা ওলট-পালট হয়ে যাবে।

(২) এই বিষয়টি সূরা ইনশিকাকের এভাবে বলা হয়েছেঃ

এর কয়েকটি অর্থ হতে পারে। মরা মানুষ মাটির বুকে যেখানে যে অবস্থায় যে আকৃতিতে আছে তাদের সবাইকে বের করে এনে সে বাইরে ফেলে দেবে। আর পরবর্তী বাক্য থেকে একথা প্রকাশ হচ্ছে যে, সে সময় তাদের শরীরের সমস্ত চারদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অংশগুলো এক জায়গায় জমা হয়ে নতুন করে আবার সেই একই আকৃতি সহকারে জীবিত হয়ে উঠবে যেমন তার প্রথম জীবনের অবস্থায় ছিল। দুই, এর দ্বিতীয় অর্থ হচ্ছে, কেবলমাত্র মরা মানুষদেরকে সে বাইরে নিহ্মেপ করে হ্ম্যান্ত হবে না বরং

তাদের প্রথম জীবনের সমস্ত কথা ও কাজ এবং যাবতীয় আচার-আচরণের রেকর্ড ও সাহ্ম প্রমাণের যে বিশাল স্তুপ তার গর্ভে চাপা পড়ে আছে সেগুলিকেও বের করে বাইরে ফেলে দেবে। পরবর্তী বাক্যটিতে একথাই প্রকাশ ঘটেছে। তাতে বলা হয়েছে, যমীন তার ওপর যা কিছু ঘটেছে তা বর্ণনা করবে।

(৩) গাঢ় লেখা মানূষ অর্থ প্রত্যেকটি মানুষ হতে পারে। কারণ পুনরায় জীবন লাভ করে চেতনা ফিরে পাবার সাথে সাথেই প্রত্যেক ব্যক্তির প্রথম প্রতিক্রিয়া এটিই হবে যে, এসব কি হচ্ছে? এটা যে হাশরের দিন একথা সে পরে বুঝতে পারবে। আবার মানুষ অর্থ আখেরাত অস্বীকারকারী মানুষও হতে পারে। কারণ যে বিষয়কে অসম্ভব মনে করতো তা তার সামনে ঘটে যেতে থাকবে এবং সে এসব দেখে অবাক ও পেরেশান হবে। তবে ঈমানদারদের মনে এ ধরনের বিস্ময় ও পেরেশানি থাকবে না। সূরা ইয়াসীনের এই দ্বিতীয় অর্থটি সমর্থন করে। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে যে,

(৪) হযরত আবু হুরাইরা রেওয়ায়েত করেছেন, রসূলুল্লাহ্‌ এ আয়াটি পড়ে প্রশ্ন করলেনঃ "জানো তা সেই অবস্থা কি?" লোকেরা জবাব দেয়, আল্লাহ্‌ ও তার রসূল ভালো জানেন। রসূলুল্লাহ্‌ বলেনঃ

হযরত রাবাআহ আল খাশীর রেওয়ায়েত করেছেন, রসূলুল্লাহ্‌ বলেন,

হযরত আনাস বর্ণনা করেন, রসূলুল্লাহ্‌ বলেছেনঃ

তারপর তিনি এই আয়াতটি তেলাওয়াত করেন।[৪] যমীনের ওপর যা কিছু ঘটে গেছে তা সবকিছু সে কিয়ামতের দিন বলে দেবে, যমীন সম্পর্কে এ কথাটি প্রাচীন যূগে মানুষকে অবাক করে দিয়ে থাকবে, এতে সন্দেহ নেই। কিন্তু আজ পদার্থবিদ্যা সংক্রান্ত নতুন নতুন জ্ঞান-গবেষণা, আবিস্কার-উদ্ভাবন, টেপরেকর্ডার ও ইলেকট্রনিক্স ইত্যাদির আবিস্কারের এ যুগে যমীন তা নিজের অবস্থা ও নিজের ওপর ঘটে যাওয়া ঘটনাবলী কিভাবে বর্ণনা করবে একথা অনুধাবন করা মোটেই কঠিন নয়। মানুষ যা কথা বলে তা সব ইথারে ভাসতেছে। আল্লাহ্‌ যখনি চাইবেন এই কথাগুলো যমীনের মাধ্যেমে মানুষকে শুনাবে তার কি কি বলে ছিল। আখেরাতে যখন আল্লহ্‌ আদালতে কায়েম করবেন তখন সেখানে যাকেই শাস্তি দেবেন ইনসাফ ও ন্যায়নীতির দাবী পুরোপুরি পালন করেই শাস্তি দেবেন। তার আদালতে প্রত্যেকটি অপরধী মানুষের বিরুদ্ধে যে মামলা দায়ের করা হবে তার সপহ্মে এমন সব অকুটিল সাহ্ম প্রমাণ পেশ করা হবে যার ফলে তার অপরাধী হবার ব্যাপারে কারো কোন কথা বলার অবকাশ থাকবে না। সূরা বনী-ইসরাঈলের বলা হয়েছে,

কারণ ছোট বড় এমন কোন বিষয় নেই য তাতে যথাযথভাবে সংযোজিত হয়নি। নিজের পহ্ম থেকে কোন ওজর পেশ করার কোন সুযোগই তার থাকবে না।

(৫) এর দুটো অর্থ হতে পারে। এক, প্রত্যেক ব্যক্তি একাকী তার ব্যক্তিগত অবস্থায় অবস্থান করবে। পরিবার, গোষ্ঠী, জোট, দল, সম্প্রদায় ও জাতি সব ভেঙে চুরমার হয়ে যাবে। কোরআন মাজ়ীদের অন্যান্য স্থানেও একথা বলা হয়েছে। সূরা আন'আমে বলা হয়েছে,

আর সূরা মরিয়মে বলা হয়েছে,

দুই, এর দ্বিতীয় অর্থ হতে পারে, বিগত হাজার হাজার বছরে সমস্ত মানুষ যে যেখানে মরেছিল সেখান থেকে অর্থাৎ পৃথিবীর বিভিন্ন স্থান থেকে দলে দলে চলে আসতে থাকবে। সূরা নাবায় বলা হয়েছে,

এ ছাড়া বিভিন্ন তাফসীরকার এর যে অর্থ বর্ণনা করেছেন তার অবকাশ এখানে উল্লেখিত "আশতাতান" শব্দের মধ্যে নেই। তাই আমার মতে সেগুলি শব্দটির অর্থগত সীমাচৌহদ্দীর বাইরে অবস্থান করছে।

(৬) এর দুটি অর্থ হতে পারে। এক, তাদের আমল তাদেরকে দেখানো হবে। অর্থাৎ প্রত্যেকে দুনিয়ায় কি কাজ করে এসেছে তা তাকে বলা হবে। দুই, তাদেরকে তাদের কাজের প্রতিফল দেখানো হবে। বিশেষ করে যখন কোরআন মাজ়ীদের বিভিন্ন স্থানে একথা সুস্পষ্টভাবে বলা হয়েছে যে, কাফের ও মুমিন, সৎকর্মশীল ও কাফের, আল্লাহ্‌র হুকুমের অনুগত ও নাফরমান সবাইকে আবশ্যি তাদের আমলনামা দেয়া হবে। একথা সুস্পষ্ট, কাউকে তার কার্যবলী দেখিয়ে দেওয়া এবং তার আমলনামা তার নিজের হাতে সোপর্দ করার মধ্যে কোন তফাৎ নেই। তাছাড়া যমীন যখন তার ওপর অনুষ্ঠিত ঘটনাবলী পেশ করবে তখন হক ও বাতিলের যে দ্বন্দ্ব ও বিরোধ শুরু থেকে চলে আসছিল এবং কিয়ামত পর্যন্ত চলতে থাকবে, তার সম্পূর্ণ চিত্রও সবার সামনে এসে যাবে। সেখানে সবাই দেখবে, সত্যের জন্য যারা কাজ করেছিল তারা কি কি কাজ করেছে এবং মিথ্যার সমর্থকরা তাদের মোকাবেলায় কি কি কাজ করেছে।

(৭) এটি হচ্ছে এর একটি সহজ সরল অর্থ। আবার একথা সম্পূর্ণ সত্য যে, মানুষের অণূ পরিমাণ নেকী বা পাপ এমন হবে না যা আমলনামায় লিখিত হবে না।

(৮)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. তাফহীমুল কোরআন।
  2. মুসনাদে আহমদ, তিরমিযী, নাসাঈ, ইবনে জারীর, আবদ ইবনে হুমাইদ, ইবনুল মুনযির, হাকেম, ইবনে মারদুইয়া এবং বায়হাকী ফিশ্‌ শু'আব।
  3. মু'জামুত তাবরানী
  4. ইবনে মারদুইয়া, বায়হাকী

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]