সুসান ওয়েবার (ইতিহাসবিদ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সুসান ওয়েবার
জন্ম১৯৫৪ (বয়স ৬৬–৬৭)
শিক্ষাকলাম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয় (স্নাতক)
পার্সন্স স্কুল অভ ডিজাইন (স্নাতকোত্তর)
রয়েল কলেজ অভ আর্ট (পিএইচডি)
দাম্পত্য সঙ্গীজর্জ সোরোস (বি. ১৯৮৩; বিচ্ছেদ. ২০০৫)
সন্তান২, তাদের একজন আলেকজান্ডার সোরোস

সুসান ওয়েবার [১][২][৩][৪] (জন্ম ১৯৫৪) একজন আমেরিকান ইতিহাসবেত্তা। তিনি নিউ ইয়র্কের ড্যাচেস কাউন্টিতে বার্ড কলেজের আলংকারিক কলা, নকশা ইতিহাস এবং উপাদান সংস্কৃতি বিষয়ক পড়াশোনার শাখা বার্ড গ্র্যাজুয়েট সেন্টারের (বিজিসি) প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক। এর আগে তিনি জর্জ সোরোসের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

সুসান ওয়েবারের জন্ম নিউ ইয়র্ক সিটির ব্রুকলিনে। তিনি আইরিস এবং মারে ওয়েবার দম্পতির কন্যা। [৫] তার বাবা ছিলো একজন জুতো আনুষঙ্গিক বিভিন্ন সরঞ্জাম প্রস্তুতকারী এবং তার মা ছিলো একজন গৃহিণী। তার দাদা-দাদী রাশিয়া থেকে নিউ ইয়র্ক সিটিতে চলে এসেছিলেন। তার মা আলঙ্কারিক শিল্পের প্রতি তার আগ্রহকে মেনে নিয়েছিলো। তিনি নিউ ইয়র্ক সিটি অঞ্চলে একটি অ-আচারনিষ্ঠ ইহুদি পরিবারে বেড়ে ওঠেন; তার লালন-পালনের সংক্ষিপ্তসার হিসাবে ওয়েবার বলেছিলেন: "আমরা সাংস্কৃতিকভাবে ইহুদি ছিলাম।"

তিনি ব্রুকলিনের একটি এপিস্কোপালিয়ান উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়েন [৫] এবং কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্নার্ড কলেজ থেকে শিল্প ইতিহাসে একটি ডিগ্রি নিয়ে স্নাতক হন। [৬] ১৯৯০ সালে, তিনি কুপার-হুইট/পার্সনস থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন।

তিনি লন্ডনের রয়্যাল কলেজ অফ আর্টেও পড়াশোনা করেছেন, সেখান থেকেই তিনি পিএইচডি (১৯৯৮) অর্জন করেছেন ই.ডাব্লিউ গডউইনের আসবাবের উপর একটি থিসিস সহ।[৭]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ওয়েবার ওপেন সোসাইটি ইনস্টিটিউটের (ওএসআই) নির্বাহী পরিচালক ছিলেন, প্রায় ২৪টি বিভিন্ন স্বাধীন ফাউন্ডেশনে একটি সংঘবদ্ধ নাম যা বিশ্বজুড়ে মত প্রকাশের স্বাধীনতার অগ্রগতির জন্য কাজ করে। ওএসআই ব্যক্তি এবং সমিতিগুলিকে অনুদানের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক বিনিময়কেও সমর্থন করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] [ উদ্ধৃতি প্রয়োজন ] ১৯৯১ সালে, সোরোসকে পার্সন্স স্কুল অফ ডিজাইনের স্নাতক শিক্ষার পরিচালক পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়। এরপর তিনি তার স্বামীর ২০ মিলিয়ন ডলার অর্থ দিয়ে ১৯৯০ সালে নিজেই একটি স্কুল শুরু করেছিলেন,[৬] প্রতিষ্ঠা করেন বার্ড স্নাতক কেন্দ্র যেখানে তিনি আলঙ্কারিক কলা-ইতিহাসের অধ্যাপক। বিজিসি (বার্ড গ্র্যাজুয়েশন সেন্টার) আলঙ্কারিক এবং ফলিত কলা, সাংস্কৃতিক এবং নকশার ইতিহাস, উদ্যানের ইতিহাস এবং ভূদৃশ্য (ল্যান্ডস্কেপ) অধ্যয়নের ইতিহাসে স্নাতক ডিগ্রি দিয়ে থাকে। বার্ড সেন্টার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কেবলমাত্র চারটি জায়গার মধ্যে একটি যেখানে একজন ছাত্র আলঙ্কারিক কলায় উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করতে পারে। অন্যান্যগুলো হলো উইন্টারথার জাদুঘর প্রোগ্রাম যা ডেলাওয়্যার বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সম্পর্কিত, পার্সসন প্রোগ্রাম এবং স্মিথসোনিয়ানের সাথে যৌথভাবে জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯৮৩ সালে ওয়েবার কোটিপতি জর্জ সোরোসকে বিয়ে করেছিলেন। জর্জ ছিলো তার চেয়ে চব্বিশ বছরের বড়[৬] এবং ওপেন সোসাইটি ইনস্টিটিউটে (ওএসআই) এর প্রাথমিক অবদানকারীদেরও একজন। তাদের দুটি সন্তান রয়েছে, একজন আলেকজান্ডার (জন্ম ১৯৮৫) এবং অপরজন গ্রেগরি (জন্ম ১৯৮৮)।[৮][৯] ২০০৫ সালে তাদের (সোরোস দম্পতির) বিবাহবিচ্ছেদ হয়েছিল।

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

▪ সোরোস, সুসান ওয়েবার (সম্পাদনা) (২০০৬)। জেমস 'অ্যাথেনিয়ান' স্টুয়ার্ট: দ্য রিডিসকোভারি অভ এন্টিভিটি (বার্ড গ্র্যাজুয়েট সেন্টার ফর স্টাডিজ ইন স্ট্রোডিয়েন্ট আর্টস, ডিজাইন অ্যান্ড কালচার)। নিউ হ্যাভেন, সিটি এবং লন্ডন: ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস আইএসবিএন ৯৭৮-০-৩০০-১১৭১৩-৪

▪ সোরোস, সুসান ওয়েবার এবং স্টেফানি ওয়াকার (সংস্করণ) (২০০৪)। ক্যাসেটেলা এবং ইতালীয় প্রত্নতাত্ত্বিক গহনা (সজ্জা শিল্প, নকশা ও সংস্কৃতিতে স্টাডিজের জন্য বার্ড স্নাতক কেন্দ্র) নিউ হ্যাভেন, সিটি এবং লন্ডন: ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস আইএসবিএন ৯৭৮-০৩০০-১০৪৬১-৫

▪ সোরোস, সুসান ওয়েবার এবং ক্যাথেরিন আরবুথনট (২০০৩)। টমাস জেকিল: আর্কিটেক্ট এবং ডিজাইনার, 182781881 । নিউ হ্যাভেন, সিটি এবং লন্ডন: ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস আইএসবিএন ৯৭৮-০-৩০০-০৯৯২২-৫ (আমেরিকার ভিক্টোরিয়ান সোসাইটি দ্বারা স্পনসরকৃত ২০০৪ হেনরি রাসেল হিচকক পুরস্কার এবং আর্কিটেকচারাল ঐতিহাসিকদের সোসাইটি প্রদত্ত ২০০৫ সালের ফিলিপ জনসন পুরস্কার বিজয়ী)

▪ সোরোস, সুসান ওয়েবার (সম্পাদনা) (১৯৯৯)। ইডাব্লু গডউইন: নান্দনিক আন্দোলনের স্থপতি এবং ডিজাইনার । নিউ হ্যাভেন, সিটি এবং লন্ডন: ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস আইএসবিএন ৯৭৮-০-৩০০-০৮০০৮-৭

▪ সোরোস, সুসান ওয়েবার (সম্পাদনা) (১৯৯৯)। ইডাব্লু গডউইনের ধর্মনিরপেক্ষ আসবাব: ক্যাটালগ রাইসনো নিউ হ্যাভেন, সিটি এবং লন্ডন সহ: ইয়েল ইউনিভার্সিটি প্রেস আইএসবিএন ৯৭৮-০-৩০০-০৮১৫৯-৬

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Degree Programs - Faculty - Susan Weber"। bard.edu। ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  2. "Museum Gift Shops"The New York Times। ২২ জুলাই ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  3. "George Soros ex-wife, Susan Weber Sells Her Legendary Design Collection to Benefit Scholarship Fund"। jewishbusinessnews.com। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  4. "The Duke of Bard"newyorker.com। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  5. Kaufman, Michael T. (২৯ সেপ্টেম্বর ২০১০)। Soros: The Life and Times of a Messianic Billionaire। Knopf Doubleday Publishing Group। পৃষ্ঠা 152। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৭, ২০১৭ – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  6. Smith, Dinitia (মার্চ ৭, ১৯৯৬)। "At Home With: Susan Soros; A Private Life, A Public Passion"The New York Times 
  7. Soros, Susan Weber (১৯৯৮)। "E.W. Godwin : secular furniture and interior design."। Royal College of Art। সংগ্রহের তারিখ ৪ আগস্ট ২০২০ 
  8. Williams, Alex (জুলাই ১৮, ২০১২)। "Making Good on the Family Name"। New York Times। ১ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ জুন ২০১৮ 
  9. "George Soros Fast Facts"CNN.com। ২২ জুলাই ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬