সীমা আঁতিল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সীমা আঁতিল
Seema Antil
ব্যক্তিগত তথ্য
জাতীয়তাভারতীয়
জন্ম (1983-07-27) ২৭ জুলাই ১৯৮৩ (বয়স ৩৬)
সনিপাত, হরিয়ানা, ভারত
উচ্চতা১.৮২ মি (৬ ফু ০ ইঞ্চি) [১]
ওজন৯৪ কেজি (২০৭ পা) (২০১৪)[১]
ক্রীড়া
দেশ ভারত
ক্রীড়াঅ্যাথলেটিক্‌স
ঘটনাসমূহডিসকাস
6 October 2014তে হালনাগাদ

সীমা আঁতিল (জন্ম ২৭ জুলাই ১৯৮৩) হলেন একজন ভারতীয় প্রমীলা ক্রীড়াবিদ। তিনি ডিসকাস নিক্ষেপ বিষয়ে ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেন।

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

হরিয়াণার সোনিপাত জেলায় খেওদা গ্রামে সীমা আঁতিলের জন্ম হয়।[২] ১১ বছর বয়সে হার্ডলার এবং লং জাম্পার হিসাবে তার ক্রীড়াজীবন শুরু হয়, কিন্তু পরবর্তীকালে তিনি ডিসকাস থ্রোর প্রতি আকৃষ্ট হন।[৩] ২০০০ সালে স্যান্টিয়াগো বিশ্ব জুনিয়ার চ্যাম্পিয়ানশিপে স্বর্ণপদক লাভ করার পর সীমা মিলেনিয়াম চাইল্ড (সহস্রাব্দের শিশু) এই নামে বিখ্যাত হন।[৪] সোনিপতের সককারী কলেজে তিনি পড়াশোনা করেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

২০০০ সালের বিশ্ব জুনিয়র চ্যাম্পিয়নশিপে সীমা স্বর্ণপদক জেতেন, কিন্তু সিউডোএফিড্রিন ড্রাগ নেওয়ার কারনে ডোপ টেস্টে তার পজিটিভ নমুনা পাওয়া যায় এবং তার স্বর্ণপদক কেড়ে নেওয়া হয়। সেই সময় এই জাতীয় অপরাধের ক্ষেত্রে চালু আইন অনুসারে, জাতীয় ফেডারেশন তার পদক কেড়ে নেওয়ার পাশাপাশি তার উপর জন সতর্কীকরন জারি করে।[৫] ২০০২ এ পরবর্তী বিশ্ব জুনিয়ার চ্যাম্পিয়ানশিপে তিনি ব্রোঞ্জ পদক লাভ করেন।

২০০৬ কমনওয়েলথ গেমসে সীমা রৌপ্যপদক জেতেন এবং ২৬শে জুন ২০০৬ এ হরিয়ানা সরকার তাকে ভীম পুরস্কার দিয়ে সন্মানিত করেন। ২০০৬ এশিয়ান গেমসে তার অনুপস্থিতি নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে প্রচুর কথা উঠে আসে। [৬] এশিয়ান গেমস শুরুর আগেই ডোপ টেস্টে তার স্টেরয়েড (স্ট্যানোজোলোল) রিপোর্ট পজিটিভ হয়। যদিও জাতীয় ফেডারেশন তাকে কলঙ্ক মুক্ত ঘোষনা করে গেমসে অংশগ্রহনের সুযোগ দেয়। কিন্তু কোনো কারনে তিনি দল থেকে সরে যান এবং গেমস থেকে দূরে থাকেন।[৭] ২০১০ কমনওয়েলথ গেমসে তিনি ব্রোঞ্জ পদক লাভ করেন। ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকে ব্যক্তিগত ইভেন্টে তিনি ১৩তম স্থান গ্রহন করেন। ২০১৪ সালে কমনওয়েলথ গেমসে রৌপ্য এবং এশিয়ান গেমসে তিনি স্বর্ণ পদক জেতেন।[৮]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

সীমা আঁতিল তার প্রশিক্ষক ও প্রাক্তন ডিসকাস থ্রোয়ার অংকুশ পুনিয়াকে বিবাহ করেন। অংকুশ এথেন্সে ২০০৪ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেন।[৯]

অলিম্পিকে পারফরমেন্স[সম্পাদনা]

বছর প্রতিযোগিতা ঘটনাস্থল স্থান নোট
 ভারত-এর প্রতিনিধিত্বকারী
২০০৪ অলিম্পিক গেমস এথেন্স, গ্রীস ১৪তম ৬০.৬৪ মি
২০১২ অলিম্পিক গেমস লন্ডন, ইংল্যান্ড ১৩তম ৬১.৯১ মি

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. 2014 CWG profile
  2. "Seema Antil"Athletes (ইংরেজি ভাষায়)। Sports Reference। সংগ্রহের তারিখ ১১ অক্টোবর ২০১০ 
  3. "Seema Antil profile" (ইংরেজি ভাষায়)। The Times of India 
  4. "Asian Games 2014: Two no-shows and two doping charges later, Seema Punia spins gold" (ইংরেজি ভাষায়)। The Indian Express। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪। 
  5. "The Hindu : Seema Antil loses gold medal on ephedrine violation" (ইংরেজি ভাষায়)। Hinduonnet.com। ২০০১-১০-০২। ২০০৮-০৩-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৮-২৫ 
  6. "Seema Antil not to take part in Doha" (ইংরেজি ভাষায়)। Ia.rediff.com। ২০০৪-১২-৩১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৮-২৫ 
  7. "Seema cleared, opts out" (ইংরেজি ভাষায়)। The Hindu। ২০০৬-১২-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০৮-২৫ 
  8. "India's discus thrower Seema Punia clinches gold at Asian Games" (ইংরেজি ভাষায়)। India Today। ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১৪ 
  9. "CWG medallist ties the knot" (ইংরেজি ভাষায়)। tribuneindia.com। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১১। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]