সিলেট অঞ্চলে উপাসিত লৌকিক দেব-দেবী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সিলেট অঞ্চলে উপাসিত লৌকিক দেব-দেবী বলতে বুঝানো হয় সিলেটের স্থানীয় পর্যায়ে ধর্ম ও অন্যান্য ভেদাভেদ নির্বিশেষে একই পেশাজীবিদের মধ্যে পূজিত কিছু নির্ধারিত দেব-দেবীগণকে। সিলেট, উত্তর পূর্ব বাংলাদেশের একটি প্রধান শহর এবং আটটি বিভাগের মধ্যে একটি।বৃহত্তর সিলেটি সমাজভুক্ত অঞ্চল যেমন ভারতের বরাক উপত্যকার অন্তর্গত করিমগঞ্জ জেলা, হাইলাকান্দি জেলা ও কাছাড় জেলাতেও এই লৌকিক দেব-দেবীরা পূজিত হন।

দেব-দেবীগণের তালিকা[সম্পাদনা]

সিলেট অঞ্চলের লৌকিক দেব-দেবীর মধ্যে ৭ জন প্রধান;[১] যারা নিম্নরূপে বর্ণিত:

  1. রূপসী দেবী;
  2. বাদশা;
  3. কালাচাঁদ;
  4. সন্ন্যাসি বাবা;
  5. রাখাল;
  6. ডহর বিষহরী;
  7. কুলা দেবী

সংক্ষিপ্ত বিবরণ[সম্পাদনা]

রূপসী দেবী

শাস্ত্রীয় ষষ্টি দেবী এবং সুবচনী দেবীর সাথে প্রচুর সাদৃশ্যযুক্ত। এই দেবী শুভকর্ম যেমন- বিবাহ, নারীর উর্বরতা, শিশু জন্ম ও শিশুর রক্ষণাবেক্ষণের সাথে সংযুক্ত। শেওড়া গাছ(যাকে স্থানীয় সিলেটি বাংলায় রুপসী গাছ বলা হয়) হল দেবীর আবাস এবং কারো বিবাহের পূর্বে কিংবা কোনও শিশু জন্মের এক মাস অতিবাহিত হবার পরের ব্রত দিবসে কিংবা শিশুর অন্নপ্রাশনের আগে পূজারিনী স্বয়ং বেজোড় সংখ্যার ব্রতী সহ গাছের গোড়ায় কিংবা কলা গাছের কান্ড দিয়ে তৈরি ভেলায় রুপসী গাছের ডাল স্থাপন করে এই পূজা সম্পন্ন করেন। সাধারণত সধবা নারীরাই রুপসী পূজার ব্রতী হয়ে থাকেন এবং ফল, নৈবদ্য ইত্যাদি নিরামিষ দ্রব্যর ভোগ নিবেদন করা হয়। ইদানীং ব্রাহ্মণ পুরোহিত দ্বারাও এই পূজা করানো হয়ে থাকে। পশ্চিমবঙ্গে পূজিত বুড়ি মা/বুড়ি ঠাকুরানী/বুড়ি-গোসাঈনীর সাথেও এনার সাদৃশ্য বিদ্যমান।

বাদশা

এই মহা শক্তিশালী পুরুষ দেবতা বন, জঙ্গল, টিলা-পাহাড়, জলাভূমি ইত্যাদির রক্ষাকর্তা হিসেবে সন্মানিত এবং তাঁর আরাধনা নিম্নবর্গীও হিন্দু সমাজ এবং গ্রাম্য মুসলিম সমাজে বহুল প্রচলিত। বিশেষত নতুন রাস্তা তৈরির সময়, বনজঙ্গল কেটে কাঠ, বাঁশ, লাল মাটি, বালু ইত্যাদি সংগ্রহর আগে, মাছ ধরবার মরশুমের পূর্বে কিংবা বাড়ী তৈরি আরম্ভ করবার আগে উভয় সম্প্রদায় কর্তৃক বাদশাকে সিন্নি চড়ানো হয়ে থাকে। সময় বিশেষে গাঞ্জা এবং শোল অথবা গজার মাছ পুড়িয়েও ভোগ হিসেবে নিবেদন করা হয়। অমিত শক্তিশালী এই দেবতার দয়া হলে অপরিসীম ধন ও শক্তিলাভ সম্ভব বলে কথিত। এই দেবের কোনও মন্দির স্থাপন করা হয় না এবং বনাঞ্চলের কোনও প্রাচীন বনস্পতিতে(বট/ অশথ্ব/ চাম কাঁঠাল)ওনার আবির্ভাব উপলব্ধি করে তার তলায় বাদশার থান/পীঠ/মোকাম স্থাপন করে ভোগ নৈবদ্য নিবেদন করা হয়। কোনো ব্রাহ্মন পুরোহিত দ্বারা তাঁর পূজা নিষ্পন্ন করা হয় না এবং পূজকরা নিজেরাই কাঁচা গরুর দুধ, ফল ইত্যাদি মোকামে ঢেলে দিয়ে যান।হিন্দু দেবতা ভৈরবের সাথে বাদশার সামঞ্জস্য লক্ষণীয়।

কালাচাঁদ

এই দেবতা ধানক্ষেত, পশু, ফল বাগান ইত্যাদির রক্ষাকর্তা। তাঁর কোনও মূর্তি নেই এবং খুব কম ক্ষেত্রেই তাঁর মন্দির প্রতিষ্ঠা করা হয়। সাধারণত কোনও গাছের নিচে “কালাচাঁদের থানে” একটি পাথর কে প্রতিভূ করে ব্রাহ্মণ পুরোহিত বিনা তাঁর পূজা করা হয়। কাঁচা গোদুগ্ধ, ফল ইত্যাদি নৈবদ্য হিসেবে প্রদান করা হয়। মনে করা হয় কালাচাঁদ হলেন প্রাচীন অনার্য শিবের কোন পরিবর্তিত রূপ।

সন্ন্যাসি বাবা

গ্রাম রক্ষাকারি দেবতা (গ্রাম্য দেবতা)বিশেষ যাকে গ্রামের ভেতরেই কোন সুপ্রাচীন বনস্পতির নিচে অবস্থিত পীঠে (বাবার থান) কাঁচা গোদুগ্ধ, ফল ইত্যাদি নৈবদ্য প্রদান করে পূজা করা হয়। পূজার সময় হরিনাম কীর্তন করা হয়। ব্রাহ্মণ পুরোহিত বিনাই তার পূজা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। সন্ন্যাসি বাবাও মনে হয় শিবের কোন পরিবর্তিত রূপ।

রাখাল

বাদশার মত রাখালদেবেরও সংযোগ বন, জঙ্গল, টিলা-পাহাড়, জলাভূমি ইত্যাদির সাথে। তাঁর কোনও রূপ নেই এবং সুবিশাল প্রাচীন বনস্পতির তলাতেই তাঁর পীঠ(থান) স্থাপিত করে পূজা নিস্পন্ন করা হয়। ভেজানো বীরন চাল, কাঁচা গো-দুগ্ধ, কাঁচা পেঁয়াজ দিয়ে নৈবদ্য প্রদত্ত হয়। জেলে সম্প্রদায় মাছ ধরবার মরশুমের প্রারম্ভেই তাঁর পূজার আয়োজন করে থাকেন। হিন্দু-মুসলমান উভয় সম্প্রদায়ের কাছেই অত্যন্ত সন্মানের এই দেবতার কৃপা হলে অমিত শক্তি এবং সম্পদের অধিকারী হওয়া সম্ভব এই বিশ্বাস বিদ্যমান।

ডরাই বিষহরী/ডহর বিষহরী

এই দেবী সাধারণত জেলে সম্প্রদায়ের আরাধ্য। চতুর্ভুজা নগ্না কাঁচা হলুদ বর্ণের এই দেবী নাগের তৈরি বাজুবন্ধ, কঙ্কন, মল ইত্যাদির দ্বারা আভুষিত এবং নটরাজ ভঙ্গিমায় কচ্ছপের ওপরে দণ্ডায়মান। অনেক ক্ষেত্রে একজন গুরমির (এক রকম নপুংসক নর্তক)পৌরোহিত্বে তাঁর পূজা করা হয় গুপ্তভাবে। মাছধরার সময় ডহর এবং ঘূর্ণি জলস্রোত থেকে নৌকা এবং নৌকার সাওয়ারিদের প্রানরক্ষা, অধিক মৎস শিকার ইত্যাদির কামনা করে এই দেবীর পূজা করা হয়। কথিত যে সন্তানলাভের জন্য, সন্তানের প্রানরক্ষা এবং সন্তানকে বিভিন্য ভয়ভীতি থেকে রক্ষা করবার জন্য তাঁর পূজা করলে মনস্কামনা সিদ্ধ হয়। মনে হয় যে সর্প দেবী শ্রীমনসার কোনও প্রাচীন অথবা বিবর্তিত রূপ হলেন ডরাই বিষহরী।

কুলা দেবী/কুলা মা

কোনও বিবাদিত প্রশ্নের উত্তর পাবার জন্য কুলা দেবীর আরাধনা করা হয়। একজন ব্যক্তি একটি নতুন বাঁশের কুলায় সিঁদুরের ফোঁটা দিয়ে কুলাটিকে কোনও সূচাগ্র লোহার ছুরির সাহাজ্যে শূন্যে ঝুলিয়ে রাখেন এবং পান, সুপারী ও বাতাশা দিয়ে কুলা দেবীকে আহ্বান করে বিবাদিত প্রশ্নটি করেন। যেই পক্ষের দিকে কুলা ঘুরে যাবে, ধরে নেওয়া হয় যে সেই পক্ষ জয়ী হয়েছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সেন, অনিরুদ্ধ। "বরাক উপ্যতকার বঙ্গীয় সমাজের লৌকিক দেবতা ও ব্রত পার্বণ"। করিমগঞ্জ কলেজ পত্রিকা ২০১৩-২০১৪ (করিমগঞ্জ কলেজ ছাত্র সংসদ মুখপত্র), ২৩-২৯, ২০১৪।