সিরুশো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
সিরুশো
Sirusho pic.jpg
২০১২ সালে সিরুশো
প্রাথমিক তথ্য
স্থানীয় নাম Սիրանուշ Հարությունյան
জন্ম নাম সিরানুশ হারুত্যুনয়ান
জন্ম (১৯৮৭-০১-০৭) ৭ জানুয়ারি ১৯৮৭ (বয়স ৩১)
ইয়েরেভান, আর্মেনিয়া সোভিয়েত সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র, সোভিয়েত ইউনিয়ন
ধরন
পেশা
  • গায়িকা
  • সঙ্গীত পরিচালক
  • গীতিকার
  • জুয়েলারী ডিজাইনার
বাদ্যযন্ত্রসমূহ
কার্যকাল ১৯৯৫–বর্তমান
ওয়েবসাইট অফিসিয়াল ওয়েবসাইট

সিরানুশ হারুত্যুনয়ান (আর্মেনীয়: Սիրանուշ Հարությունյան; জন্ম: ৭ জানুয়ারি ১৯৮৭), পেশাগতভাবে সিরুশো (আর্মেনীয়: Սիրուշո), নামেও পরিচিত, হচ্ছেন একজন আর্মেনিয়ীয় গায়িকা, যিনি সঙ্গীত জগতে প্রায় ২০ বছর ধরে সক্রিয় রয়েছেন। তার বাদ্যযন্ত্র শৈলীর আধুনিক ঐতিহ্যগত শব্দগুলো আধুনিক বিশ্ব সঙ্গীতের সঙ্গে মিশ্রিত ধরনের প্রতিফলন করে। সিরুশো তার গান "লুসাব্যাটস"-এর জন্য মাত্র ৯ বছর বয়সে তার প্রথম পুরস্কার জয়লাভ করেন। ২০০২ সালে সিরুশোর প্রথম স্টুডিও অ্যালবাম, "সিরুশো" মুক্তি পায়। তার দ্বিতীয় অ্যালবাম "শেরাম" ২০০৫ সালে মুক্তি পায়। একই বছরে, আর্মেনীয় সঙ্গীতের সেরা অ্যালবাম এবং প্রথম আর্মেনীয় জাতীয় সঙ্গীত পুরস্কার জয়লাভ করেন। একই সাথে তাকে "সেরা নারী পারফরমার" পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।[১]

২০০৮ সালে, বিবিসি তাকে তার সাফল্যের জন্য আর্মেনিয়ার একটি "জাতীয় ধন" হিসাবে বর্ণনা করেছে।[২] তিনি ২০০৭ সালের ইউরোভিশন সঙ্গীত প্রতিযোগিতার জন্য আর্মেনিয়ান প্রতিনিধি হয়ে উপস্থিত হওয়ার পর অধিক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন,[৩] এবং বেলগ্রেডে অনুষ্ঠিত ২০০৮ সালের ইউরোভিশন সঙ্গীত প্রতিযোগিতায় আর্মেনিয়ার প্রতিনিধিত্ব করে সিরুশো আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করেন।[৪] সিরুশো আর্মেনিয়াকে "কেলে, কেলে" গানের মাধ্যমে প্রতিনিধিত্ব করেন, যা তিনি আর্মেনিয়ার প্রযোজক এইচ.এ. ডার-হভাগিমিয়ানর সাথে মিলে লিখেছেন। "কেলে, কেলে" গানটি সমস্ত বিশ্বজুড়ে ভক্তরা অনুসরণ করে, বিশেষত গ্রিক ভাষার অঞ্চলে। এই গানটি ইউরোভিশনের জন্য জনপ্রিয় গানে পরিণত হয়। যুক্তরাজ্যের লন্ডনের গ্রিক রেডিওতে গ্রীক ক্লাবগুলোর জন্য তিনি নিয়মিতভাবে গান পরিবেশন করেছেন এবং সাইপ্রাসের এক্স ফ্যাক্টর নামক টেলিভিশন সিরিজের একটি পর্ব "কেলে, কেলে" গানের "ইয়ার্হেন রিমিক্স" সংস্করণটি পরিবেশন করেন।[৫]

২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসে সিরুশোর একক "প্রোগোমেশ" মুক্তি পায়, যার পরে তিনি তাঁর একক গান প্রাগোমেশের নামে নতুন হস্তনির্মিত রৌপ্য গহনাও চালু করেন, যা আধুনিক ফ্যাশনের প্রবণতা অনুসরণ করে আর্মেনিয়ার সংস্কৃতি ও কারুকার্যের প্রতিনিধিত্ব করে এবং তা সংরক্ষণ করে।[৬]

সিরুশো ওয়ার্ল্ড মিউজিক অ্যাওয়ার্ডসে প্রথমবারের মতো প্রথম আর্মেনিয় শিল্পী হিসেবে প্রগোমেশের গানের মাধ্যমে ২ টি পুরস্কারে জন্য মনোনীত হন।[৭]

অক্টোবর ২০১৩ সালে, ডাব্লিউ ম্যাগাজিনে সিরুশোকে "৬ অ-আমেরিকান মূর্তি" হিসেবে অভিহিত করে। ব্রাজিলের বিয়ন্সে, সার্বিয়ালেডি গাগা"কেও উক্ত তালিকাতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। তালিকাটির লেখক, কেভিন ম্যাকগারি বলেন, "সম্ভবত সিরুশোকে বিশ্বের কাছে একটি শব্দ এবং ভাষা বলে মনে হবে যা পশ্চিমের বেশির ভাগ এলাকায় এখনো সকলের কাছে অপরিচিত।"[৮][৯] ২০১৭ সালে সিরুশোকে "আর্মেনিয়ার সম্মানিত শিল্পী" হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়, যেটি তাকে রাষ্ট্রপতি সেরহ্ সার্জসন নিজে প্রদান করেছেন।[১০]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Bio"। Sirusho's Official Website। ৩১ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  2. "Eurovision 2008 – Armenia"। BBC। ১৪ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  3. "Top 10: Most memorable spokespersons in ESC history | ESC Views"। escviews.wordpress.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  4. Eurovision Song Contest – Armenia Archived নভেম্বর ১৮, ২০০৭, at the Wayback Machine.
  5. "X Factor Greece-Cyprus Clip", Youtube Archived অক্টোবর ২৪, ২০০৮, at the Wayback Machine.
  6. "Handmade sterling silver ethnic jewelry PreGomesh by Sirusho – Pregomesh"। pregomesh.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  7. "Sirusho represented in 3 nominations at World Music Awards | ARMENPRESS Armenian News Agency"। armenpress.am। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  8. "The door is still open for Sirusho: W Magazine | ARMENPRESS Armenian News Agency"। armenpress.am। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  9. "International Pop Stars: The Beyoncé of Brazil, the Gaga of Serbia | W Magazine"। wmagazine.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  10. http://life.tert.am/am/news/2017/09/21/sirusho/45030

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পুরস্কার ও স্বীকৃতি
পূর্বসূরী
হাইকো
এনিটাইম ইউ নিড এর সাথে
আর্মেনিয়ায় ইউরোভিশন সঙ্গীত প্রতিযোগিতা
২০০৮
উত্তরসূরী
ইঙ্গা এন্ড আনুশ
জান জান এর সাথে