সিরিল সিকদার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

এডভোকেট সিরিল সিকদার (Advocate Cyril Sikder) নেপালে রাষ্টদূত ছিলেন। আওয়ামী লীগ সরকার ২০০১ সালে তাকে এই দায়িত্ব আসিন করেছিলেন। তিনি একজন কাথলিক খ্রীস্টান। উল্লেখ করার মত বিষয় হলো: তিনিই সংখ্যালঘু খ্রীস্টানদের মধ্যে প্রথম কোন ব্যক্তি যিনি এজন রাষ্টদূত এর মত গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পেয়েছিলেন।[১]

তিনি বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন অনেক দিন।[২] তিনি অসুস্থ্য থাকা অবস্থায় ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ সালে ঢাকায় নিজ বাসায় মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। তিনি অনেক স্পষ্টবাদী ব্যক্তি ছিলেন।

ব্যক্তি জীবন[সম্পাদনা]

১৯৩৮ সালের ৪ সেপ্টেম্বর বরিশালের বাবুগঞ্জের উত্তর দেহেরগতি গ্রামে সিকদার পরিবারে তার জন্ম হয়। তার পিতা ললিত ফ্রান্সিস সিকদার স্থানীয় সেন্ট আলফ্রেড উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন। মাতা তেরেজা সুধীরাবালা সিকদার। পাঁচ ভাই-বোনের মধ্য তিনি ছিলেন তৃতীয়।তার স্ত্রীর নাম মাগারেট সিকদার। তাদের ৪ মেয়ে ও ১ ছেলে।

শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

বরিশালের সেন্ট আলফ্রেড উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পাস করে ঢাকায় আসেন। ঢাকায় উচ্চ মাধ্যমিক ও এলএলবি পাস করে ঢাকায় ও চট্টগ্রামে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করেন।১৯৭২ সাল থেকে তিনি আইন পেশার সাথে জড়িত হন।

পেশাজীবন[সম্পাদনা]

এডভোকেট সিরিল সিকদার ১৯৮৮ সালে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে তিনি অত্যন্ত গুরুত্বপূণ দায়িত্ব পালন করেছেন। এই সংগঠনের ৬ জন আহ্বায়কের মধ্যে তিনি ছিলেন অন্যতম। তিনি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের হয়েও বৃহত্তর মুসলিম সমাজে ব্যপক সুপরিচিত ছিলেন। তিনি সুপ্রিম কোট এর আইন জীবী ছিলেন।এছাড়া তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর উপদেষ্টাও ছিলেন। তিনি খ্রীস্টানদের ধমীয় প্রতিষ্ঠানের আইনী পরামশ দিতেন। তিনি সব চেয়ে বেশি সুপরিচিত ছিলেন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের হয়ে সংখ্যালঘুদের পক্ষে কাজ করে। রাজনীতি করার জন্য তিনি ১৯৯৬ সালে মাসাধিককাল কারান্তরালেও কাটিয়েছেন। ৯০-এর দশকে তিনি বাংলাদেশ খ্রীষ্টান এসোসিয়েশনের সভাপতিও ছিলেন।[৩]

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. "বাসস"। ২০১৫-০৭-০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৩-১৭ 
  2. অবসার্ভার
  3. মানবজমীন