সিনোফোন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মানচিত্র Sinophone বিশ্ব
   চীনা ভাষাভাষী সংখ্যাগরিষ্ঠ সহ দেশসমূহ
  ৫০,০০,০০০ এরও বেশি চীনা ভাষাভাষী মানুষযুক্ত দেশসমূহ
  ১০,০০,০০০ এরও বেশি চীনা ভাষাভাষী মানুষযুক্ত দেশসমূহ
  ৫,০০,০০০ এরও বেশি চীনা ভাষাভাষী মানুষযুক্ত দেশসমূহ
  ১,০০,০০০ এরও বেশি চীনা ভাষাভাষী মানুষযুক্ত দেশসমূহ
  প্রধান চীনা ভাষাভাষী বসতিগুলি
সিনোফোন
ঐতিহ্যবাহী চীনা 漢語圈
সরলীকৃত চীনা 汉语圈
আক্ষরিক অর্থহান ভাষা বৃত্ত
ঐতিহ্যবাহী চীনা 操漢語者
সরলীকৃত চীনা 操汉语者
আক্ষরিক অর্থহান ভাষাভাষী ব্যক্তি (গুলি)

চীনা ভাষী বিশ্ব বা সিনোফোন একটি নূতন শব্দ যা মৌলিকভাবে ''চীনাভাষী"কে বোঝায়, সাধারণভাবে  একজন ব্যক্তি যিনি কমপক্ষে এক প্রকারের চীনা ভাষা বলতে পারেন সেই ব্যক্তি। একাডেমিক লেখকগণ সিনোফোন "চীনা-ভাষী অঞ্চল" দ্ব্যর্থক অর্থে ব্যবহার করেন : হয় বিশেষভাবে "চীনতাইওয়ান ব্যতীত চীনা-ভাষী অঞ্চল যেখানে এটি একটি সংখ্যালঘু ভাষা " অথবা যেখানে এটি একটি সরকারী ভাষা সেই অঞ্চলসহ, সাধারণভাবে "চীনা-ভাষী এলাকা "।   অনেক লেখক সিনোফোন বিশ্ব শব্দবিন্যাসটি   বৃহত্তর চীনের বাইরে প্রবাসী চীনা অঞ্চল বোঝাতে ব্যবহার করেন এবং কিছুজন, সমগ্র চীনা ভাষী বিশ্বের জন্য ব্যবহার করেন।  ম্যান্ডারিন চীনা আজ সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত কথ্য ভাষা  যা প্রায় এক বিলিয়ন মানুষ অর্থাৎ বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় ২০% এই ভাষায় কথা বলেন।

শব্দের উৎপত্তি[সম্পাদনা]

সিনোফনের ব্যুৎপত্তি , চীন- "China; চীনা" (cf. সিনোলজী) ও -ফোন "একটি নির্দিষ্ট ভাষাভাষী" (cf. Arabophone).

এডওয়ার্ড ম্যাকডোনাল্ড (২০১১) দাবি করেন সিনোফোন শব্দটি , ২০০৫ সালে গ্যারেমি বারেমে (অস্ট্রেলিয়া ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি) এবং শু-মে শিহ (ইউসিএলএ) দ্বারা "মনে হয় প্রশান্ত মহাসাগরের উভয় পাশে আলাদাভাবে এবং একযোগে উদ্ভাবন হয়েছে।"  বারেমে (২০০৮) , "সিনোফোন বিশ্ব"  ""ব্যক্তিসমূহ  বা সম্প্রদায় দ্বারা গঠিত যারা এক বা অন্য - বা প্রকৃতপক্ষে, একাধিক চীনা ভাষা এবং উপভাষাসমূহকে মানে বার করার জন্য অথবা পৃথিবীর জন্য ব্যবহার করে এবং পড়া, লেখা বা বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মাধ্যমের সাথে একটি সংযুক্তি দিয়ে ব্যবহার করে" হিসাবে ব্যাখ্যা করেন।  শিহ(২০০৪:২৯) বলেন," "সিনোফোন" সাহিত্যের দ্বারা আমি মনে করি, চীনের বাইরে পৃথিবীর বিভিন্ন অংশে চীনের ভাষাতত্ত্বকারী দ্বারা চীনা ভাষায় লিখিত সাহিত্য, চীন থেকে "চীনা সাহিত্য" -ধর্মীয়তা থেকে আলাদা।"

যাই হোক এর আগেও দুবার সিনোফোনের উল্লেখ ছিল।

১। রুথ কিন (১৯৮৮: ২৩১) চীনা সাহিত্যে "প্রধানভূমি, তাইওয়ান, হংকং, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র " "সিনোফোন সম্প্রদায়"   হিসাবে উল্লেখ করেছেন।

২। রবার্টস (২০০১:১২) ফরাসি ছাত্রের তুলনা করেন ক) অ্যাংলোফোন " ইংরেজি তাদের মাতৃভাষা"। খ) অ্যালোফোন ( ক্যুবেক ইংরেজি অর্থে) "ইংরেজি ছাড়া বা ফরাসি  তাদের মাতৃভাষা। গ) সিনোফোন হিসাবে সংজ্ঞায়িত করেন "ক্যানটোনীজ/ম্যান্ডারিন ভাষী।"

যদিও অক্সফোর্ড ইংরেজি অভিধান  এখনো সিনোফোন শব্দটিকে অন্তর্ভুক্ত করেননি, কিন্তু ১৯০০সালে সর্বপ্রথম ব্যবহৃত ফরাসি থেকে ধার করা ইংরাজি শব্দ ফ্রাঙ্কোফোন "ফরাসীভাষী" এবং  অ্যাংলোফোন  "ইংরাজিভাষী" শব্দ দুটি নথিভুক্ত করে।   ১৯৮৩ সালে এই ফরাসি ভাষা যা প্রথম সিনোফোন "চীনাভাষী" ব্যবহার করেছিল (CNRTL ২০১২) আলাদা করে ফ্রাঙ্কোফোন , যার অর্থ , ফরাসিভাষী, বিশেষত এমন একটি অঞ্চলে যেখানে দুই বা ততোধিক ভাষায় কথা বলা হয় " এবং ফ্রাঙ্কোফোনি ,  "ফ্রেঞ্চভাষী, সমষ্টিগতভাবে, ফরাসি-ভাষী বিশ্বের" (সাধারণভাবে  ইন্টারন্যাশনাল ডি লা ফ্রাঙ্কোফোনিক সংগঠনকে সংক্ষেপ করে)।

হুন সায়েইজি ইংরেজি শব্দভাণ্ডারে সিনোফোনি বা সিনোফোনিয়ার মতো এক সমন্বিত শব্দের অভাব বলে মনে করে,  এইভাবে সিনাফোন শব্দটি ব্যবহার করে "চীনাভাষী, বিশেষ করে একটি অঞ্চলে যেখানে এটি একটি সংখ্যালঘু ভাষা" এবং চীনাভাষী বিশ্বের "চীন ও তাইওয়ানসহ সব চীনা ভাষাভাষী এলাকা, " উভয়ই বোঝান।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • একাডেমিয়া Sinica (2012), [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] আন্তর্জাতিক সম্মেলন, "গ্লোবাল Sinophonia" "全球華語文化"國際研討會[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ].
  • Bachner, Andrea (জুলাই, 2011), http://mclc.osu.edu/rc/pubs/reviews/bachner2.htm পর্যালোচনা জিং সু এর "শব্দ এবং স্ক্রিপ্ট মধ্যে চীনা প্রবাসী", "আধুনিক চীনা সাহিত্য ও সংস্কৃতি".
  • Barmé, Geremie R. (2005), নতুন সিনোলজী: চীনা গবেষণা এসোসিয়েশন অফ অস্ট্রেলিয়া নিউজলেটার 3.
  • Cambria প্রেস (2012), Cambria Sinophone ওয়ার্ল্ড সিরিজ, পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়.
  • (CNRTL) Centre National de Ressources Textuelles et Lexicales (2012), sinophone, ইলেকট্রনিক Trésor de la langue française.
  • Coulombe, ডায়ান, এবং উইলিয়াম এল রবার্টস (2001), ফরাসি-হিসাবে একটি দ্বিতীয় ভাষা শেখার অভিজ্ঞতা ইংরেজিভাষী এবং allophone বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, গবেষণা, ইমিগ্রেশন এবং ইন্টিগ্রেশন মধ্যে মহানগরী ওয়ার্কিং পেপার সিরিজ 01-02, ভ্যাঙ্কুভার সেন্টার অব এক্সেলেন্স.
  • প্রখর Ruth (1988), "তথ্য যে সব বড়, মোট ছাত্র: একটি ভূমিকা, চীনা নারীদের লেখা, জার্মান অনুবাদ," আধুনিক চীনা সাহিত্যের 4.2:225-234.
  • লুইস, M. পল এড. (2009), টেক্সট প্রদান করা হয়নি: Languages of the World, 16 তম সংস্করণ, SIL International.
  • Mair, ভিক্টর (2012), Sinophone এবং Sinosphere, ভাষা লগ ইন করুন.
  • McDonald, এডওয়ার্ড (2011), '中国通' বা 'Sinophone'? প্রতি একটি রাজনৈতিক অর্থনীতি নিয়ে চীনা ভাষা শিক্ষা, চীন ঐতিহ্য ত্রৈমাসিক 25.
  • লু, শেলডন Hsiao-পেং (2007), পর্যালোচনা শিহ শু-mei এর Visuality এবং পরিচয়: Sinophone Articulations প্যাসিফিক জুড়ে, আধুনিক চীনা সাহিত্য এবং সংস্কৃতি.
  • Saussy, Haun (2012), ফোন, Printculture.
  • শিহ শু-মেই (2004), "গ্লোবাল সাহিত্য ও প্রযুক্তির স্বীকৃতি" PMLA 119.1, 16-30.
  • শিহ শু-মেই (2005), "Sinophone Articulations প্যাসিফিক জুড়ে" Ostasiatisches সেমিনার: চীনা Diasporic এবং প্রবাসে অভিজ্ঞতা Universität Zürich.
  • শিহ শু-মেই (2007), Visuality এবং পরিচয়: Sinophone Articulations প্যাসিফিক জুড়ে, University of California Press.
  • শিহ শু-মেই (2010), "তত্ত্ব, এশিয়া এবং Sinophone", ঔপনিবেশিক গবেষণা 13.4:465-484.
  • শিহ শু-মেই (2011), "ধারণা Sinophone," PMLA 126.3, 709-718.
  • শিহ শু-mei, চিয়েন-সিন সাই, এবং ব্রায়ান Bernards, eds. (2013), Sinophone গবেষণা: একটি সমালোচনামূলক পাঠক, কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটি প্রেস.
  • Thornber, কারেন (জুন 2012), পর্যালোচনা জিং সু এর "শব্দ এবং স্ক্রিপ্ট মধ্যে চীনা প্রবাসী", "হার্ভার্ড জার্নাল অব এশিয়াটিক স্টাডিজ", 72.1, 195-202.
  • সু জিং (2010), "শব্দ এবং স্ক্রিপ্ট মধ্যে চীনা প্রবাসী", হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস.
  • সু জিং (2011), "নতুন এলাকা, গবেষণা এবং ভাষার উপর সরানো", "PMLA" 126.3, 693-700.
  • সু জিং (2010), "পরিশেষ: Sinophone লেখা এবং চীনা প্রবাসী", স্টিফেন ওয়েন এবং কাং-আমি সূর্যের চ্যাং, eds., "কেমব্রিজ ইতিহাস, চীনা সাহিত্য" 704-712.
  • সু জিং (2010), "Sinophonics এবং জাতীয়করণের চীনা", জিং সু এবং ডেভিড Der-ওয়েই ওয়াং, eds., বিশ্বব্যাপী চীনা সাহিত্য: সমালোচনামূলক প্রবন্ধ, মাছবিশেষ.
  • সু জিং এবং ডেভিড Der-ওয়েই ওয়াং, eds. (2010), গ্লোবাল চীনা সাহিত্য: সমালোচনামূলক প্রবন্ধ, মাছবিশেষ.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]