সারে জহাঁ সে অচ্ছা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সারে জহাঁ সে অচ্ছা
سارے جہاں سے اچھا

 ভারত-এর সঙ্গীত
কথাআল্লামা ইকবাল, ১৯০৪
সঙ্গীতের নমুনা

সারে জহাঁ সে অচ্ছা (উর্দু: سارے جہاں سے اچھا‎‎; হিন্দি: सारे जहां से अच्छा); বা তরাণা-এ-হিন্দী উর্দু: ترانۂ ہندی‎‎হিন্দি: तराना ए हिंदी) আল্লামা ইকবাল রচিত একটি দেশাত্মবোধক উর্দু কবিতা।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯০৪ খ্রিষ্টাব্দের ১৬ই আগস্ট সাপ্তাহিক পত্রিকা ইত্তেহাদে আল্লামা ইকবাল দ্বারা শিশুদের জন্য রচিত এই কবিতাটি প্রথম প্রকাশিত হয়।[১] পরের বছর লাহোরের গভর্ণমেন্ট কলেজের ছাত্র লালা হর দয়াল ঐ কলেজের শিক্ষক ইকবালকে একটি অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানালে সভাপতিত্বের ভাষণের পরিবর্তে তিনি এই কবিতা গেয়ে শোনান। ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দে বাং-এ-দরা (উর্দু: بان٘گِ دَرا‎‎) নামক গ্রন্থে তরাণা-এ-হিন্দী নামে এই কবিতাটি প্রকাশিত হয়।

কথা[সম্পাদনা]

উর্দু
দেবনাগরী
বাংলা প্রতিলিপিকরণ

سارے جہاں سے اچھا ہندوستاں ہمارا
ہم بلبلیں ہیں اس کی، یہ گلستاں ہمارا

غربت میں ہوں اگر ہم، رہتا ہے دل وطن میں
سمجھو وہیں ہمیں بھی دل ہو جہاں ہمارا

پربت وہ سب سے اونچا، ہمسایہ آسماں کا
وہ سنتری ہمارا، وہ پاسباں ہمارا

گودی میں کھیلتی ہیں اس کی ہزاروں ندیاں
گلشن ہے جن کے دم سے رشکِ جناں ہمارا

اے آبِ رودِ گنگا! وہ دن ہیں یاد تجھ کو؟
اترا ترے کنارے جب کارواں ہمارا

مذہب نہیں سکھاتا آپس میں بیر رکھنا
ہندی ہیں ہم، وطن ہے ہندوستاں ہمارا

یونان و مصر و روما سب مٹ گئے جہاں سے
اب تک مگر ہے باقی نام و نشاں ہمارا

کچھ بات ہے کہ ہستی مٹتی نہیں ہماری
صدیوں رہا ہے دشمن دورِ زماں ہمارا

اقبال! کوئی محرم اپنا نہيں جہاں میں
معلوم کیا کسی کو دردِ نہاں ہمارا!‏

सारे जहाँ से अच्छा हिन्दोसिताँ हमारा
हम बुलबुलें हैं इसकी यह गुलसिताँ हमारा

ग़ुर्बत में हों अगर हम, रहता है दिल वतन में
समझो वहीं हमें भी दिल हो जहाँ हमारा

परबत वह सबसे ऊँचा, हम्साया आसमाँ का
वह संतरी हमारा, वह पासबाँ हमारा

गोदी में खेलती हैं इसकी हज़ारों नदियाँ
गुल्शन है जिनके दम से रश्क-ए-जनाँ हमारा

ऐ आब-ए-रूद-ए-गंगा! वह दिन हैं याद तुझको?
उतरा तिरे किनारे जब कारवाँ हमारा

मज़्हब नहीं सिखाता आपस में बैर रखना
हिन्दी हैं हम, वतन है हिन्दोसिताँ हमारा

यूनान-व-मिस्र-व-रूमा सब मिट गए जहाँ से
अब तक मगर है बाक़ी नाम-व-निशाँ हमारा

कुछ बात है कि हस्ती मिटती नहीं हमारी
सदियों रहा है दुश्मन दौर-ए-ज़माँ हमारा

इक़्बाल! कोई महरम अपना नहीं जहाँ में
मालूम क्या किसी को दर्द-ए-निहाँ हमारा!

সারে জহাঁ সে অচ্ছা হিন্দোসিতাঁ হমারা
হম বুলবুলেঁ হ্যাঁয় ইসকী ইয়ে গুলসিতাঁ হমারা

গুর্বত মেঁ হোঁ অগর হম, রহতা হ্যাঁয় দিল বতন মেঁ
সমঝো ওয়াহীঁ হমেঁ ভী দিল হো জহাঁ হমারা

পর্বত ওয়াহ সবসে উঁচা, হম্সায়া আসমাঁ কা
ওয়াহ সঁতরী হমারা, ওয়াহ পাসঁওয়া হমারা

গোদী মেঁ খেলতী হ্যাঁয় ইসকী হজারোঁ নদিয়াঁ
গুলশন হ্যাঁয় জিনকে দম সে রশ্ক-এ-জনা হমারা

অ্যায় আব-এ-রুদ-এ-গঙ্গা! ওয়াহ দিন হ্যাঁয় য়াদ তুঝকো?
উতরা তিরে কিনারে জব কারওয়াঁ হমারা

মজহব নহীঁ সিখাতা আপস মেঁ বৈর রখনা
হিন্দী হ্যায়ঁ হম, বতন হ্যাঁয় হিন্দোসিতাঁ হমারা

য়ুনান-ওয়া-মিস্র-ওয়া-রুমা সব মিট গয়ে জহাঁ সে
অব তক মগর হ্যাঁয় বাকী নাম-ওয়া-নিশাঁ হমারা

কুছ বাত হ্যায় কি হস্তী মিটতী নহীঁ হমারী
সদিয়োঁ রহা হ্যায় দুশ্মন দৌর-এ-জমাঁ হমারা

ইকবাল! কোই মহরম অপনা নহীঁ জহাঁ মেঁ
মালুম ক্যা কিসী কো দর্দ-এ-নিহাঁ হমারা!

ভারতে জনপ্রিয়তা[সম্পাদনা]

সারে জহাঁ সে অচ্ছা গানটি একশত বছরেরও বেশি সময় ধরে সারা ভারতে সমান ভাবে জনপ্রিয়। ১৯৩০-এর দশকে মহাত্মা গান্ধী পুণে শহরের ইয়েরাওয়াড়া কারাগারে বন্দী থাকার সময় এই সঙ্গীতটি একশত বারের বেশি গেয়েছিলেন বলে কথিত আছে।[২] ১৯৫০-এর দশকে সেতারবাদক রবি শঙ্কর এবং কন্ঠশিল্পী লতা মঙ্গেশকরের নৈপুণ্যে এই গানটি অন্য মাত্রা লাভ করে। দ্রুত এই গানটি ভারতীয় সেনাবাহিনীর কুচকাওয়াজ সঙ্গীতে পরিণত হয়।[৩] ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দে ভারতের প্রথম মহাকাশচারী রাকেশ শর্মাকে যখন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী মহাকাশ থেকে ভারতকে কেমন দেখতে লাগে তা প্রশ্ন করেন, তখন রাকেশ শর্মা এই গানের প্রথম লাইনটি আবৃত্তি করে তাঁর উত্তর দেন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:আল্লামা ইকবাল