সাইয়্যাদা নাফিসাহ বিনত আল-হাসান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সাইয়্যাদা নাফিসাহ বিনত আল-হাসান হলেন একজন প্রখ্যাত মুসলিম বিদূষী নারী যিনি ইমাম শাফির শিক্ষক হিসাবে সমধিক পরিচিত।[১][২] তিনি মিশরের কায়রোতে বসবাস করতেন।[৩]

নাফিসাহ বিনত আল-হাসান
نَفِيْسَة بِنْت ٱلْحَسَن
Masjid having Nafisa Mausoleum side by,Cairo .jpg
মিশরের কায়রোতে নাফিসাহ'র মাজার নিয়ে আল-সায়্যিদা নাফিসাহ মসজিদ
উপাধিআস-সায়্যিদা (ٱلسَّيِّدَة)
আত-তাহিরা (ٱلطَّاهِرَة)
ব্যক্তিগত
জন্ম
নাফিসাহ

৭৬২ সাল, ১৪৫ হিজরী
মৃত্যু৮২৪ সাল, ২০৮ হিজরী
কায়রো, মিশর
সমাধিস্থলকায়রো
ধর্মইসলাম
দাম্পত্য সঙ্গীইসহাক আল-মু'তামিম
সন্তানকাসিম (ছেলে)
উম্মে কুলসুম (কন্যা)
পিতামাতা
জাতিসত্তাআরব
যুগআব্বাসীয় যুগ
অঞ্চলমিশর, উত্তর আফ্রিকা
কাজইসলামী পণ্ডিত
মুসলিম নেতা

জন্ম ও পারিবারিক পরিচিতি[সম্পাদনা]

নাফিসাহ হিজরি ১৪৫ সনের ১১ রবিউল আউয়াল তারিখ মক্কায় জন্মগ্রহণ করেন।[১] তার পিতার নাম আল-হাসান আল-আনওয়ার, যিনি মদীনার গভর্নর ছিলেন।[১] তিনি ছিলেন ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক ও শেষনবী মুহাম্মদের কন্যা ফাতেমার বংশধর।[২][৪]

ধর্মীয় ক্ষেত্রে অবদান[সম্পাদনা]

সাইয়্যাদা নাফিসাহ তার অর্থ-বিত্ত ধর্মীয় শিক্ষা ও সমাজের কল্যাণে ব্যয় করতেন; এমনকি তিনি ইমাম শাফিকেও শিক্ষার্জনের জন্য অর্থ সহায়তা করেছিলেন।[২]

জীবনের সংযমী পথ ও অলৌকিক ঘটনা[সম্পাদনা]

বর্ণিত আছে যে, সাইয়্যেদা নাফিসা সংযমী জীবনযাপন করতেন। তার ভাগ্নী জয়নাব সাক্ষী ছিল যে, তার খালা তিন দিন অন্তর একবার খেতেন এবং তার কাছে একটি খালি ঝুড়ি রেখেছিল, প্রতিবার যখন তিনি ছোট কিছু খেতে চাইতেন, তখন তিনি তার হাত ঝুড়ির ভিতরে ঢুকান এবং আল্লাহর কাছ থেকে প্রেরিত কিছু পাওয়া যেত। একবার জয়নাব তার খালাকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন: "আপনার নিজের যত্ন নেওয়া উচিত"। এর জবাবে তিনি জবাব দিয়েছিলেন "আমার পালনকর্তার কাছে পৌঁছানোর আগে আমি কীভাবে নিজের যত্ন নেব? আমার সামনে এমন অনেক বাধা রয়েছে যা সফলদের ব্যতীত আর কেউ পার করতে পারে না (আল-ফিজান, ْلْفَائِزُوْن)।" [১]

১৫০ এরও অধিক অলৌকিক ঘটনা (কারামাত) সাইয়্যেদা নাফিসার সারা জীবনে এবং মৃত্যুর পরেও প্রকাশিত হয়েছে। কায়রোতে বসতি স্থাপনের পরে, তার প্রতিবেশী অমুসলিম পরিবারের পক্ষাঘাতগ্রস্ত কন্যাকে নিরাময় করার এক অলৌকিক ঘটনা ঘটল। একদিন মহিলাটি তার কন্যাকে সাইয়্যেদা নাফিসার কাছে রেখে বাজারে যায়। যখন সাইয়্যেদা নাফিসা নামাযের আগে ওযূ করলেন, তখন কয়েক ফোঁটা পানি মেয়েটিকে স্পর্শ করল এবং সে চলতে শুরু করল। সাইয়্যেদা নাফিসা যখন নামাজ আদায় করছিলেন, তখন কন্যাটি উঠে দাঁড়ালেন এবং আসন্ন মায়ের কাছে ছুটে গেলেন, তিনি তখন কাঁপছিলেন এবং একই মুহূর্তে আনন্দিত হয়েছিলেন। এই অলৌকিক ঘটনাটির পরে, পুরো পরিবার এবং অন্যান্য প্রতিবেশীরা ইসলাম গ্রহণ করেছিল। [৫]

তার মৃত্যুর পরে একটি দুর্ঘটনা ঘটেছিল। কিছু চোর তার মাজার মসজিদে প্রবেশ করে ষোলটি রূপোর বাতি নিল। তারা অবিলম্বে পালাতে চেয়েছিল, কিন্তু দরজা খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়েছিল। তারা আটকা পড়ল যেন তারা খাঁচায় ছিল। পরের দিন সকালে, তাদের পাওয়া গিয়েছিল এবং কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছিল।[৫]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

হিজরি ২০৮ সনের ১৫ রমজান তিনি কোরআন পাঠরত অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।[৬]

স্মারক[সম্পাদনা]

তার নামে মিশরে একটি সমাধি এলাকার নামকরণ করা হয়েছে 'এল সায়িদা নাফিসা কবরস্থান' নামে।[৭]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ash-Sha`rawi, Imam Metawalli। "Nafisa at-Tahira"Sunnah.Org। ২৬ জুন ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  2. Aliyah, Zainab। "Great Women in Islamic History: A Forgotten Legacy"Young Muslim Digest। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
  3. "ফেরাউনের দেশে ইসলাম"দৈনিক নয়াদিগন্ত অনলাইন। ৯ মার্চ ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  4. "আল বিদায়া ওয়ান্নিহায়া - খন্ড ১০"habibur.com। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  5. Fa
  6. "Sayyida Nafisah bint al-Hasan al-Anwar"Mazaratmisr.Org। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  7. "ওমর শরিফের দাফন"দৈনিক প্রথম আলো অনলাইন। ১৩ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১১ ডিসেম্বর ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]