সাংহাই পরিবহন ব্যবস্থা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সাংহাই হল চীনের বানিজ্যিক রাজধানী। এই শহরটি পরিবহন ব্যবস্থায় খুবই উন্নত। এই শহরে রয়েছে সড়কপথে বাস, ট্যাক্সি ও ব্যক্তিগত গাড়ি, রয়েছে উচ্চগতির রেল। শহরটিতে মেট্রোরেল জালের মত ছড়িয়ে রয়েছে। এই শহরের রয়েছে চম্বুক শক্তিতে চলাচলকারী রেল যা সাংহাই ম্যাগলেভ লাইন নামে পরিচিত। এই শহরের রয়েছে চীনের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিমান বন্দর যা সাংহাই পুডং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হিসাবে পরিচিত। শহরটিতে রয়েছে উন্নত জাহাজ বন্দর। শহরটি থেকে বেইজিং, গুয়াংজু, কুনমিং, সিনজিং যুক্ত রয়েছে উচ্চগতির রেলপথ ও মহাসড়ক বা এক্সপ্রেসওয়ে দ্বারা।

সড়ক যোগাযোগ[সম্পাদনা]

শহরটিতে প্রশস্ত দ্বি-মুখী মহাসড়কের দ্বারা ঘিরে ফেলা হয়েছে। এছাড়া শহরের কেন্দ্র থেকে উপকন্ঠ বা পার্শ্ববর্তী এলাকা যুক্ত রয়েছে এক্সপ্রেসওয়ের দ্বারা। সড়কপথে পরিবহনের জন্য রয়েছে দ্রুতগতির বাস পরিবহন বা বাস র‍্যাপিড সিস্টেম।

রেল[সম্পাদনা]

উচ্চগতির রেল[সম্পাদনা]

সাংহাই শহরটি উচ্চগতির রেল দ্বারা চীনের প্রধান শহরগুলি যেমন- বেইজিং, গুয়াংজুকুনমিং এর সঙ্গে যুক্ত। এই শহরটি বেইজিং-এর সঙ্গে প্রায় ১৪০০ কিলোমিটার দীর্ঘ বেইজিং-সাংহাই উচ্চগতির রেল দ্বারা যুক্ত। এই পথে গড়ে ৩০০ কিলোমিটার গতিতে রেল চলাচল করে।

মেট্রো[সম্পাদনা]

সাংহাই মেট্রো রেল হল চীনের দ্বিতীয় বৃহত্তম মেট্রো রেল। এটি যাত্রী পরিবহনের হিসাবে বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম মেট্রো রেল ব্যবস্থা। এই মেট্রো মোট ৪০০ কিলোমিটাার এর মত রেল পথ নিয়ে গঠিত। এটি সাংহাই শহরের গনপরিবহনের এক বলিষ্ঠ পদক্ষেপ।

ম্যাগলেভ লাইন[সম্পাদনা]

সাংহাই ম্যাগলেভ রেল

সাংহাই ম্যাগলেভ রেল লাইন হচ্ছে একটি চৌম্বকক্ষেত্রের সাহায্যে ভাসমান ট্রেন অথবা ম্যাগলেভ লাইন যা চীনের সাংহাই শহরে আছে। এই লাইন বাণিজ্যিকভাবে পরিচালিত বিশ্বের প্রথম উচ্চ গতির লাইন যা চৌম্বক ক্ষেত্রের সাহায্যে ট্রেন ভাসিয়ে নিয়ে যায়। ২০০১ সালের পহেলা মার্চ এর নির্মাণকাজ শুরু হয়[১] এবং জনগণের জন্য বাণিজ্যিক সেবা চালু হয় ২০০৪ সালের পহেলা জানুয়ারি থেকে। এই ট্রেনের সর্বোচ্চ বাণিজ্যিক গতি ৪৩১ কিমি/ঘ (২৬৮ মা/ঘ) যা ২০০৪ সালের এপ্রিল থেকে নিয়মিত সেবা চালুর পর এটিকে পৃথিবীর সবচেয়ে দ্রুতগামী নিয়মিত বাণিজ্যিক সেবার ট্রেনে পরিণত করেছে। ২০০৩ সালের ১২ নভেম্বর একটি অবাণিজ্যিক পরীক্ষায় একটি ম্যাগলেভ ট্রেন চীনে রেকর্ড পরিমাণ ৫০১ কিমি/ঘ (৩১১ মা/ঘ)গতি অর্জন করে।[২] সাংহাই ম্যাগলেভ ট্রেনের দৈর্ঘ্য ১৫৩ মিটার, প্রস্থ ৩.৭ মিটার উচ্চতা ৪.২ মিটার এবং তিন ক্লাসে ৫৭৪ যাত্রীর ব্যবস্থা রয়েছে।[৩]

ট্রেন লাইনটি তৈরি করা হয়েছিল সাংহাই পুডং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সাথে পাডং শহরের শেষ সীমানা পর্যন্ত যুক্ত করার জন্য যেখান থেকে যাত্রীগণ সাংহাই মেট্রোতে উঠে সিটি সেন্টারের পথে তাদের যাত্রা অব্যাহত রাখতে পারে। এই রেল ব্যবস্থা সাংহাই পরিবহন ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন ঘটায়। এটি তৈরি করতে ১.২ বিলিয়ন ডলার ব্যয় হয়।[৪] ট্রেনের বগি সিমেন্স এবং থাইসসেনক্রুপ্প এর যৌথ উদ্যোগে ক্যাসসেলে নির্মিত হয়। কয়েকটি স্থানীয় চীনা কোম্পানি যাত্রাপথ নির্মাণ করে যারা পাডং এলাকার মাটির পাললিক বৈশিষ্ট্যের কারণে প্রতি ৫০ মিটারে একটি সাহায্যকারী কলামের পরিবর্তে ২৫ মিটারে একটি সাহায্যকারী কলাম তৈরির সিদ্ধান্ত নেয় যাতে যাত্রাপথ স্থায়ী ও নিরাপদ হয়। প্রতিটি কলামের ভিত্তি তৈরি জন্য হাজার হাজার কংক্রিটের স্তুপ দিয়ে ৭০ মিটার গভীর পর্যন্ত ভরাট করা হয়ে থাকে। যাত্রাপথের ব্যবস্থাপনায় লাইনের চারপাশে এক মাইল দীর্ঘ আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা তৈরি করা হয়েছে। ট্রেন এর যাবতীয় তড়িৎ সংযোগ প্রদান করে ভাহলি, আইএনসি।[৫] দুইটি বাণিজ্যিক ম্যাগলেভ ব্যবস্থা সাংহাই সিস্টেমের আগে ছিল: যুক্তরাজ্যের বার্মিংহামম্যাগলেভ এবং বার্লিনের এম-বাহন। উভয়েই নিম্ন গতির ছিল এবং সাংহাই ম্যাগলেভ ট্রেন চালু হওয়ার পূর্বেই বন্ধ হয়ে যায়।

২০০২ সালে জার্মান চ্যান্সেলর, গেরহার্ড শ্রোয়েডার এবং চীনের প্রিমিয়ার ঝু রংজি এটি উদ্বোধন করেন।[৬] লাইনটি সাংহাই মেট্রো নেটওয়ার্কের অংশ নয় যেটি সেন্ট্রাল সাংহাই এবং লংইয়াং রোড স্টেশন থেকে পাডং বিমানবন্দরে নিজস্ব আলাদা সেবা দেয়।

বিমান পরিবহন[সম্পাদনা]

শহরটির প্রধান বিমানবন্দর হলো সাংহাই পোডং আন্তর্জাতিক বিমানবন্দন। এই বিমানবন্দর দ্বারা দেশের সমস্ত বড় ও ছোট বিমানবন্দরের সঙ্গে সাংহাই যুক্ত রয়েছে। বিমানবন্দরটি থেকে সবচেয়ে বেশি বিমান চলাচল করে বেইজিং এর মধ্যে। বেইজিং-সাংহাই রুট হল দেশের ব্যস্ততম বিমানপথ।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Chronicle of Events ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৯ আগস্ট ২০১২ তারিখে, Shanhai Maglev Transportation Development Co., Ltd.
  2. Shanghai Maglev Train
  3. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ৮ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১৬ 
  4. Kevin, Coates (নভেম্বর ২০০৪)। "Fast Tracks: Building The Shanghai Maglev"Civil Engineering। U.S.। ২৪ জুন ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  5. "VAHLE Chronicle" (PDF)Vahle Konkret Special: Chronicle of a Century। Paul Vahle GmbH & Co.। মে ২০১২। পৃষ্ঠা 9। ২৬ মে ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১২ 
  6. "China claims train blue riband"। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ডিসেম্বর ২০১৪