সরিষাবাড়ী কলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

জামালপুর জেলার দ্বিতীয় বৃহত্তম কলেজ সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ। জামালপুর জেলার গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা সরিষাবাড়ী। শিল্প শহর হিসেবেও সরিষাবাড়ী অন্যতম। কেননা এ উপজেলায় এশিয়ার বৃহত্তম ইউরিয়া উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান যমুনা সারকারখানা ছাড়াও ৪টি জুট মিল্স যেখানে ৫/৭শত কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ প্রায় ৭/৮ হাজার অল্প আয়ের শ্রমিক-কর্মচারী কর্মরত রয়েছে ।

সরিষাবাড়ী কলেজ

এ উপজেলায় ৫ লক্ষাধিক জনসংখ্যা অধ্যুসিত একটি পৌরসভা ও ৮ টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে। সরিষাবাড়ীর উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন পৌরসভার প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত সরিষাবাড়ী অনার্স কলেজ। অত্যন্ত মনোরম পরিবশে কলেজটি অবস্থিত।

Sarishabari College.jpg

১৯৬৭ সালের ১লা জুলাই প্রায় ১১ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত কলেজের পরিপূর্ণ অবকাঠামো রয়েছে। সরিষাবাড়ী কলেজে ১৯৬৮-৬৯ শিক্ষাবর্ষ থেকেই ডিগ্রী পর্যায়ের কোর্স চালু রয়েছে। এ কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক বিএম, স্নাতক,স্নাতক সন্মানসহ ৪৫টি বিষয়ে পাঠদান করা হয়ে থাকে। এছাড়া কলেজে বর্তমানে বাংলা, সমাজ বিজ্ঞান ও ব্যবসা ব্যবস্থাপনা বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু রয়েছে এবং  রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে অনার্স কোর্স চালুর অনুমোদন লাভ করেছে। বর্তমানে এ কলেজে সব মিলে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার ছাত্র-ছাত্রী পড়াশোনা করছে। কলেজে বর্তমানে ৮৭ জন সুদক্ষ শিক্ষক-কর্মচারীও রয়েছে। এ কলেজে ৩টি দ্বিতল ভবন, ২টি হাফ বিল্ডিং, ১টি অধ্যক্ষের অত্যাধুনিক বাসভবন, ১টি চার‘শ ফুট লম্বা (হাফ বিল্ডিং) ছাত্রাবাস, বিশাল গ্রন্থাগার, মসজিদ এবং পাশেই রয়েছে বিশাল খেলার মাঠ। এদিকে কলেজ ক্যাম্পাসে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ২ হাজার বিশাল বৃক্ষের সমাহার। যার ফলশ্রুতিতে সরিষাবাড়ী কলেজ বৃক্ষরোপণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীরূ পদক লাভ করেছে। অপরদিকে ১টি ঘাট বাধাঁনো বিরাট পুকুরসহ ২টি পুকুর এবং পাশেই শহীদ মিনার কলেজ ক্যাম্পাসকে আরও মনোরম করে তুলেছে। এছাড়াও রয়েছে কলেজের রোভার স্কাউট, বিএনসিসি ও ক্রীড়ায় জাতীয় পর্যায়ে সাফল্যের স্বাক্ষর। কলেজ জাতীয়করণের যাবতীয় শর্ত যথাযথ থাকা সত্ত্বেও এলাকাবাসীর অন্যতম দাবী আজও বাস্তবায়ন হচ্ছেনা।

সরিষাবাড়ী কলেজ

গত ২৬/১২/২০০৮ ইং তারিখে জাতীয় সংসদ নির্বাচনপূর্ব আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা কলেজ মাঠে বিশাল এক টেলিকনফারেন্সে সরিষাবাড়ী কলেজকে জাতীয়করনের প্রতিশ্রুতি দেন। টেলিকনফারেন্সে তিনি এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেন, আমি সরকার গঠন করলে সরিষাবাড়ী কলেজটি জাতীয়করণের ব্যবস্থা নেব ইনশাআল্লাহ। তিনি আরও বলেছেন, গোপালগঞ্জ যেমন আমার নির্বাচনী এলাকা, ঠিক তেমনই সরিষাবাড়ীও আমার নির্বাচনী এলাকা এবং আজ (২৬ ডিসেম্বর ২০০৮ ইং) থেকে সরিষাবাড়ীর দায়িত্ব আমার। এ ছাড়াও গত ৩০/০৬/২০১২ইং তারিখে সরিষাবাড়ী গণময়দানে উপজেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এলাকার সকল দাবী বান্তবায়নের প্রতিশ্রুতি পূনর্ব্যক্ত করেন। সে সময়ও এলাকাবাসীর বিভিন্ন দাবীর মধ্যে সরিষাবাড়ী কলেজ সরকারীকরণের দাবী ছিল অন্যতম। 

সরিষাবাড়ী কলেজ কর্তৃপক্ষ জানান, কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক ও ডিগ্রী পর্যায়ের পরীক্ষার ফলাফল খুবই ভাল। ২০১১ সালে ডিগ্রী পরীক্ষায় ছাত্র-ছাত্রীদের পাশের হার শতকরা ৭৬ ভাগ এবং ২০১২ সালে পাশের হার ছিল শতকরা ৯৭ ভাগ। ২০১৩ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় পাশের হার শতকরা ৮৬ ভাগ। ২০১৪ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় পাশের হার ছিল শতকরা ৮৩ ভাগ। এছাড়াও ২০১৪ সালে এইচএসসি বিএম শাখার ছাত্র-ছাত্রী শত ভাগ পাশ করেছে। ২০১৫সালে এইচএসসি পরিক্ষায় পাশের হার শতকরা ৮১ভাগ ।