সরলা দেবী চৌধুরানী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরলা দেবী চৌধুরানী

সারলা চৌধুরী (৯ সেপ্টেম্বর, ১৮৭২- ১৮ আগস্ট, ১৯৪৫) (যিনি সরলা ঘোষাল নামেও পরিচিত) হলেন ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষার্ধ এবং বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধের বিশিষ্ট বাঙালি বুদ্ধিজীবী। ইনি ১৯১০ সালে এলাহাবাদে ভারতের প্রথম মহিলা সংগঠন ভারত স্ত্রী মহামণ্ডল প্রতিষ্ঠা করেন। ভারতীয় নারীদের উন্নয়নের স্বার্থে স্ত্রীশিক্ষা সহ অন্যান্য বিবিধ কর্মসূচি গ্রহণ করে এই সংগঠন ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে শাখা বিস্তার করে। তিনি প্রতাপাদিত্ত উৎসব শুরু করেন। লক্ষীর ভান্ডার তিনিই প্রতিষ্ঠা করেন।

জীবন সাল[সম্পাদনা]

 জন্ম :- ৯ সেপ্টেম্বর ১৮৭২
 মৃত্যু :- ১৮ আগস্ট ১৯৪৫

জন্ম ও শৈশব[সম্পাদনা]

১৮৭২ খ্রিষ্টাব্দে কলকাতায় বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ জানকীনাথ ঘোষাল এবং বাংলার প্রথম মহিলা ঔপন্যাসিক ও রবীন্দ্রনাথের অগ্রজা স্বর্ণকুমারী দেবীর সন্তান হিসেবে জন্মগ্রহণ করেন সরলা দেবী। পিতার বিলাত প্রবাসকালে জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়িতে তার শৈশব কাটে। বেথুন স্কুলে ভর্তি হয়ে কবি কামিনী রায়, লেডি অবলা বসু প্রমূখের সাথী হন। ১৮৮৬ সালে এন্ট্রান্স ও ১৮৯০ সালে ইংরেজিতে অনার্সসহ বিএ পরীক্ষায় মেয়েদের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে 'পদ্মাবতী স্বর্ণপদক' লাভ করেন।[১]

প্রকাশিত গ্রন্থ[সম্পাদনা]

তার রচিত গ্রন্থগুলো হচ্ছে,

  • নববর্ষের স্বপ্ন
  • জীবনের ঝরাপাতা
  • শিবরাত্রি পূজা প্রভৃতি।[১]
  • তিনি ছিলেন দীর্ঘদিন ঠাকুরবাড়ি থেকে প্রকাশিত 'ভারতী' পত্রিকার সম্পাদিকা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সুবোধ সেনগুপ্ত ও অঞ্জলি বসু সম্পাদিত, সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, প্রথম খণ্ড, সাহিত্য সংসদ, কলকাতা, নভেম্বর ২০১৩, পৃষ্ঠা ৭৬৮