সরদার (উসমানীয় পদবি)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সেরদার (উসমানীয় তুর্কি: سردار), সর্দার বা সরদার ছিলো একটি উপাধি যা উসমানীয় সাম্রাজ্যে একটি সামরিক পদবি এবং মন্টিনিগ্রোসার্বিয়ায় অভিজাত পদবি হিসেবে ব্যবহৃত হতো। সেরদার হলো সরদার-এর তুর্কি ভাষায় একটি বৈকল্পিক বানান। সেরদারগণ বিশেষত উসমানীয় সাম্রাজ্যের সীমান্ত প্রতিরক্ষার কাজে নিয়োজিত ছিলেন। তারা তাদের ভূখন্ডের নিরাপত্তার জন্য দায়ী ছিলেন। উদাহরণস্বরূপ, ইয়েনিস হতে আগত বারবারোসের পিতা ইয়াকুপ আগামন্টিনিগ্রো রাজ্য এবং সার্বিয়া রাজ্যে ভোজভোডার অধস্তন সম্মানসূচক অভিজাত পদবি হিসেবে সর্দার (সেরদার) উপাধিটি ব্যবহার হতো(ঊদাহরণস্বরূপ, জানকো ভুকোতিজ নামক মন্টিনিগ্রোর একজন সামরিক নেতা এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী সেরদার উপাধিটি বহন করতেন।

ব্যবহার[সম্পাদনা]

উসমানীয় তুর্কি বা আধুনিক তুর্কি ভাষায় সরদার শব্দটি সেরদার হিসেবে ব্যবহৃত হয়। যেমন:

  • সেরদার তুরস্কে জনপ্রিয় একটি পুরুষবাচক নাম।
  • সেরদার তুর্কমেনিস্তানে জনপ্রিয় একটি পুরুষবাচক নাম।
  • সেরদার-ই একরেম (সরদার-ই একরাম) বা সেরদার-ই আজম (সরদার-ই আজম) মানে হলো সর্বোচ্চ পদমর্যাদা সম্পন্ন সেনাপ্রধান বা প্রধান নেতা বা কমান্ডার-ইন-চিফ এবং এ কারণে এটি দ্বারা উসমানীয় সাম্রাজ্যের উজিরে আজমকেও বুঝানো হয়ে থাকে।
  • তুর্কি ভাষায় প্রকৃত অর্থ সাপেক্ষে সেরদার একটি বিশেষ্য হিসেবেও ব্যবহৃত হয়ে থাকে (বিশেষত স্মৃতিবেদনাতুর অনুভূতি দেয়ার জন্যে)। ঊদাহরণ স্বরূপ, তুর্কি ভাষায় Ordunun serdarı yiğit savaşçılarına saldırı emrini verdi"-এই বাক্যটির অর্থ হলো সেনাবাহিনীর সরদার (বা সেনাপ্রধান) সাহসী যোদ্ধাদের আক্রমণ করার নির্দেশ দিয়েছিলেন
  • সেরদার শব্দটির আরো কয়েকটি রূপভেদ রয়েছে যেমন: সরদার, সর্দার বা সিরদার, যেগুলোর প্রত্যেকটিরই অর্থ হলো দলপ্রধান, দলনেতা বা প্রধান নেতা। বাংলা ভাষায় সরদার বা সর্দার রূপভেদদ্বয় ব্যবহৃত হয়।
  • সরদার কিংবা সিরদার এর রূপভেদ সেরদার যা পশ্চিমা ও দক্ষিণ এশিয়ার একটি দীর্ঘস্থায়ী পদমর্যাদা হিসেবে ছিলো। সেরদার উপাধিটিকে ১৯শ শতকের শেষের দিকে এবং ২০শ শতকের প্রথম দিকে ব্রিটিশ নিয়ন্ত্রিত মিশরীয় সেনাবাহিনীর ব্রিটিশ কমান্ডার-ইন-চীফ অর্থাৎ সেনাপ্রধানকে দেওয়া হয়েছিল। সিরদারগণ জামালেক-এ সিরদারিয়া নামক তিন সারি লম্বা সম্পত্তির উপর বসবাস করতো যা যা মিশরে ব্রিটিশ সামরিক গোয়েন্দার আবাসস্থল ছিল।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]