সম্প্রদান কারক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

যাকে স্বত্ব ত্যাগ করে দান, অর্চনা, সাহায্য ইত্যাদি করা হয়, তাকে সংস্কৃত ব্যাকরণ অনুযায়ী সম্প্রদান কারক বলে। এখানে লক্ষণীয় যে, বস্তু নয়, ব্যক্তিই সম্প্রদান কারক।[১]

অনেক বৈয়াকরণ বাংলা ব্যাকরণে সম্প্রদান কারক স্বীকার করেন না। কারণ, কর্ম কারক দ্বারাই সম্প্রদান কারকের কাজ সুন্দরভাবে সম্পাদন করা যায়। সম্প্রদান কারক ও কর্ম কারকের বিভক্তি চিহ্ন এক। কেবল স্বত্বত্যাগ করে দানের ক্ষেত্রে সম্প্রদান কারক হয়।[২]

সম্প্রদান কারকে বিভিন্ন বিভক্তির ব্যবহার[সম্পাদনা]

প্রথমা বা ০ বিভক্তি[সম্পাদনা]

গুরু দক্ষিণা দাও। দিব তোমা শ্রদ্ধা ভক্তি। ভিক্ষা দাও দেখিলে ভিক্ষুক

চতুর্থী বা কে বিভক্তি[সম্পাদনা]

দরিদ্রকে দান করো। ভিখারিকে ভিক্ষা দাও। দরিদ্রকে ধন দাও। (স্বত্বত্যাগ করে না দিলে কর্ম কারক হবে। যেমন- ধোপাকে কাপড় দাও)।

ষষ্ঠী বা র বিভক্তি[সম্পাদনা]

ভিক্ষুকদের ভিক্ষা দাও। দেশের জন্য প্রাণ দাও।

সপ্তমী বা এ বিভক্তি[সম্পাদনা]

সৎপাত্রে কন্যা দাও। সমিতিতে চাঁদা দাও। 'অন্ধজনে দেহ আলো।' দীনে দয়া করো। অন্নহীনে অন্ন দাও। সর্বভূতে দান করো। গৃহহীনে গৃহ দাও। জীবে দয়া করে সাধুজন। বস্ত্রহীনে বস্ত্র দাও।

জ্ঞাতব্য[সম্পাদনা]

নিমিত্তার্থে 'কে' বিভক্তি যুক্ত হলে সেখানে চতুর্থী বিভক্তি হয়। যেমন- 'বেলা যে পড়ে এল, জলকে চল।' (রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর)।
তিনি হজে গেছেন। (নিমিত্তার্থে সপ্তমী বিভক্তি)

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলা ভাষার ব্যাকরণ, নবম-দশম শ্রেণি, শিক্ষাবর্ষ ২০১৬, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, ঢাকা, বাংলাদেশ
  2. বাংলা ব্যাকরণ ও নির্মিতি, সপ্তম শ্রেণি, শিক্ষাবর্ষ ২০১৬, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড, ঢাকা, বাংলাদেশ