সফিপুর ইউনিয়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সফিপুর
ইউনিয়ন
Government Seal of Bangladesh.svg ৩নং সফিপুর ইউনিয়ন পরিষদ
সফিপুর বরিশাল বিভাগ-এ অবস্থিত
সফিপুর
সফিপুর
সফিপুর বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
সফিপুর
সফিপুর
বাংলাদেশে সফিপুর ইউনিয়নের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°১′৩১.০০১″ উত্তর ৯০°২২′৫২.০০০″ পূর্ব / ২৩.০২৫২৭৮০৬° উত্তর ৯০.৩৮১১১১১১° পূর্ব / 23.02527806; 90.38111111স্থানাঙ্ক: ২৩°১′৩১.০০১″ উত্তর ৯০°২২′৫২.০০০″ পূর্ব / ২৩.০২৫২৭৮০৬° উত্তর ৯০.৩৮১১১১১১° পূর্ব / 23.02527806; 90.38111111 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগবরিশাল বিভাগ
জেলাবরিশাল জেলা
উপজেলামুলাদী উপজেলা উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
আয়তন
 • মোট৪,৩০৯ হেক্টর (১০,৬৪৮ একর)
জনসংখ্যা
 • মোট৩৩,৭২৫
 • জনঘনত্ব৭৮০/বর্গকিমি (২,০০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
১০ ০৬ ৬৯ ৮৩
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
মানচিত্র

সফিপুর বাংলাদেশের বরিশাল জেলার অন্তর্গত মুলাদী উপজেলার একটি ইউনিয়ন

পটভূমি[সম্পাদনা]

ঐতিহাসিকদের মতে, ১৬১৫ খ্রিস্টাব্দে মুঘলদের কাছে পরাজয়ের পর, ঈসা খাঁর নেতৃত্বাধীন বারো ভুইঞাদের একজন ফজলউদদ্বীন মুহাম্মদ গাজী (ফজল গাজী) ও তার ছেলে সানাওয়ারুদ্দীন মুহাম্মদ গাজী (সোনা গাজী) এই অঞ্চলে নির্বাসিত হন। জনমুখে বলা হয়, এই অঞ্চলের নাম একজন ইসলাম ধর্ম প্রচারক শাহ মোহাম্মাদ সফিউদ্দিন গাজীর নামে নামকরণ হয়। এই ইউনিয়ন সফিপুর, চরমালিয়া, নমরহাট, কাজীবাড়ী, মুন্সিরহাট, মৃধারহাট গ্রাম নিয়ে গঠিত। ১৯৫০ সালে সফিপুরকে ইউনিয়ন করা হয়। এটি মুলাদী উপজেলার সবচেয়ে বড় ইউনিয়ন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

আয়তন[সম্পাদনা]

সফিপুর ইউনিয়নের আয়তন ১০,৬৪৮ একর।[১]

প্রশাসনিক কাঠামো[সম্পাদনা]

সফিপুর ইউনিয়ন মুলাদী উপজেলার আওতাধীন ৩নং ইউনিয়ন পরিষদ। এ ইউনিয়নের প্রশাসনিক কার্যক্রম মুলাদী থানার আওতাধীন। এটি জাতীয় সংসদের ১২১নং নির্বাচনী এলাকা বরিশাল-৩ এর অংশ।

জনসংখ্যার উপাত্ত[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী সফিপুর ইউনিয়নের মোট জনসংখ্যা ৩৩,৭২৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১৫,৫২৪ জন এবং মহিলা ১৮,২০১ জন। মোট পরিবার ৭,১৩০টি।[১]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী সফিপুর ইউনিয়নের সাক্ষরতার হার ৫০.৯%।[১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ইউনিয়ন পরিসংখ্যান সংক্রান্ত জাতীয় তথ্য" (PDF)web.archive.org। Wayback Machine। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]