সন্তোষ সহুখালা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সন্তোষ সহুখালা
Santosh Sahukhala.jpg
নিজের দোকান কেএল টাওয়ারের সামনে সন্তোষ সহুখালা
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম সন্তোষ সহুখালা
জন্ম (1988-06-06) ৬ জুন ১৯৮৮ (বয়স ৩১)
জন্ম স্থান কাঠমান্ডু, নেপাল
উচ্চতা ১.৬৯ মিটার (৫ ফুট   ইঞ্চি)
মাঠে অবস্থান স্ট্রাইকার
যুব পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন
১৯৯৭-২০০৩ মধ্যপুর ইয়ুথ অ্যাসোসিয়েশন
জ্যেষ্ঠ পর্যায়ের খেলোয়াড়ী জীবন*
বছর দল উপস্থিতি (গোল)
২০০৩-২০০৭ থ্রি স্টার ক্লাব
এপিএফ ক্লাব
২০০৭-২০১০ চট্টগ্রাম আবাহনী
২০১০-২০১১ থ্রি স্টার ক্লাব ২২ (১৯)
২০১১-২০১২ মানাং মার্শিয়াদী ক্লাব ১৭ (১৬)
২০১২ থ্রি স্টার ক্লাব ১১ (৮)
জাতীয় দল
২০০৭-২০১৫ নেপাল ২৯ (৪)
  • পেশাদারী ক্লাবের উপস্থিতি ও গোলসংখ্যা শুধুমাত্র ঘরোয়া লিগের জন্য গণনা করা হয়েছে।
† উপস্থিতি(গোল সংখ্যা)।

সন্তোষ সহুখালা (নেপালি: सन्तोष साहुखल) (জন্ম ১০ জানুয়ারী ১৯৮৮) নেপাল এর একজন আন্তর্জাতিক ফুটবল খেলোয়াড়। তার জন্ম নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুতে

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

সন্তোষের পরিবারের সদস্যরা ফুটবল খেলা পছন্দ করতেন। তাই ছোটবেলায় সন্তোষ যখন অন্যান্য খেলা বাদ দিয়ে ফুটবলে আগ্রহী হন, পরিবারের কেউ তাতে বাধা প্রদান করেন নি। এছাড়াও তার বড় ভাই বাল গোপাল সহুখালাও একজন পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড় ছিলেন। তাই ফুটবলকে পেশা হিসেবে বেছে নেয়ার সময় তিনি তেমন কোন বাধা পান নি।

তিনি ৮ বছর বয়সেই ফুটবল খেলা শুরু করেন। সেই সময় তিনি, নিজের বিদ্যালয়ের হয়ে অনেক বিদ্যালয় পর্যায়ের টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করেন। পরবর্তীতে তিনি তার বাড়ির কাছেই অবস্থিত মধ্যপুর ফুটবল ক্লাবে যোগ দেন। ফলে তিনি সহজেই ক্লাবে গিয়ে অনুশীলন করতে পারতেন। তিনি যখন ফুটবল খেলা শুরু করেছিলেন তখন তিনি একজন রক্ষণভাগের খেলোয়াড় ছিলেন। কিন্তু পরে, মধ্যপুর ফুটবল ক্লাবের কোচ সন্তোষের জায়গা বদল করে, তাকে আক্রমণভাগে নিয়ে যান এবং তখন থেকেই সন্তোষ একজন আক্রমণভাগের খেলোয়াড় হিসেবে খেলেন।

ক্লাব ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

থ্রি স্টার ক্লাব[সম্পাদনা]

মধ্যপুর ফুটবল ক্লাবে ২০০২ সাল পর্যন্ত থেকে, সন্তোষ সিনিয়র পর্যায়ে এসে ২০০৩ সালে থ্রি স্টার ক্লাব এর সাথে চুক্তি করেন। তিনি এই ক্লাবের হয়ে ৪ বছর খেলেন এবং ২০০৭ সালে ক্লাব ছাড়েন।

আর্মড পুলিশ ফোর্স ক্লাব (এপিএফ ক্লাব)[সম্পাদনা]

থ্রি স্টার ক্লাব ছেড়ে এসে সন্তোষ ২০০৭ সালে এপিএফ ক্লাবে যোগ দেন। কিন্তু দ্রুতই তিনি ক্লাব ছেড়ে যান।

চট্টগ্রাম আবাহনী[সম্পাদনা]

নেপালের দল এপিএফ ছেড়ে, সন্তোষ প্রথমবারের মত দেশের বাইরের কোন দলের সাথে চুক্তি করেন। ২০০৭ সালেই বাংলাদেশের পেশাদার লীগের দল চট্টগ্রাম আবাহনীর সাথে তিনি চুক্তি করেন। দলটির হয়ে ২০০৯ সাল পর্যন্ত ৩ বছর খেলে ২০১০ সালে তিনি ক্লাব ছাড়েন। এই সময় তিনি কোন উল্লেখযোগ্য দলীয় সাফল্য লাভ করতে পারেন নি।[১]

থ্রি স্টার ক্লাবে পুনরাগমন[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের চট্টগ্রাম আবাহনী দলের হয়ে ৩ বছর খেলে ২০১০ সালে তিনি আবার তার পুরনো ক্লাব থ্রি স্টার ক্লাবে ফিরে আসেন। দলের হয়ে ২০১০ মার্টায়ারস মেমোরিয়াল এ-ডিভিশন লীগে তিনি ১৯ গোল করেন, এবং সেই লীগের সর্বোচ্চ গোলদাতা হন। এই এক মৌসুম খেলেই তিনি আবার ক্লাব ছাড়েন।

মানাং মার্শিয়াদী ক্লাব[সম্পাদনা]

তিনি ২০১১ সালে তখনকার দলবদলের রেকর্ড গরে থ্রি স্টার ক্লাব থেকে মানাং মার্শিয়াদী ক্লাব-এ যোগ দেন। এই দলবদলের মাধ্যমে তিনি সেই সময়ের সর্বোচ্চ বেতনধারী নেপালি খেলোয়াড় হন। ২০১২ সালে, তিনি মানাং মার্শিয়াদী ক্লাবেও ১ বছর থেকে আবার নিজের পুরনো ক্লাব, থ্রি স্টার ক্লাবে ফেরত যান।[২]

ইন্দোনেশিয়ায় ট্রায়াল[সম্পাদনা]

২০১১ সালে সন্তোষ ইন্দোনেশিয়া এর ক্লাব শ্রীবিজয়া এফসি এর ট্রায়ালে অংশ নিতে যান। যদিও তিনি ট্রায়ালে সফল হতে পারেন নি।[৩]

জাপানে ট্রায়াল[সম্পাদনা]

২০১৪ সালে, সন্তোষ জাপান এর তৃতীয় বিভাগের ক্লাব গেইনারে তোত্তোরি এর ট্রায়ালে অংশ নিতে যান।[৪]

আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

তিনি ছিলেন নেপালের আক্রমণভাগের প্রধান খেলোয়াড়। ২০০৭ সালে নেপাল নেপাল জাতীয় দলের হয়ে, আন্তর্জাতিক ফুটবলে তার অভিষেক হয়। এরপর ২০১৫ সালে অবসরে যাওয়ার পূর্বে তিনি নেপালের হয়ে ২৯ ম্যাচ খেলেন। এর মধ্যে সবকটিতেই তিনি আক্রমণভাগকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি নেপালের হয়ে ৪ গোল করেছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Maldivesoccer.com :- Maldives' first soccer website"। মালদ্বীপস্কোরার.নেট। ২ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১৫ 
  2. "MMC sign stars on hefty sums - Detail News : Nepal News Portal"। দ্যা হিমালয়ান টাইমস। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৪-০১ 
  3. "Nepal International Santosh Sahukhala Off To Indonesia For Trial"ক্রিকেটফুটবল.কম। ২৪ মে ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জানুয়ারি ২০১৫ 
  4. "Santosh Sahukhala On Trial With Japanese Third Division Club - GoalNepal Exclusive"গোল নেপাল। ২৩ অক্টোবর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২৩ অক্টোবর ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]