সঙ্কেত (যোগাযোগ ব্যবস্থা)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সাধারণ অর্থে যা কিছু কোনও প্রেরক থেকে কোনও প্রাপকের কাছে এক স্থান থেকে অন্য একটি স্থানে কাঙ্খিত ও প্রাসঙ্গিক কোনও তথ্য বা উপাত্ত বহন করে, তাকে সঙ্কেত (ইংরেজি পরিভাষায় সিগন্যাল Signal) বলে।[১]

যোগাযোগ প্রযুক্তির দৃষ্টিকোণ থেকে প্রেরক কর্তৃক প্রাপকের কাছে সঙ্কেত প্রেরণ করার প্রক্রিয়াটিকে সম্প্রচার বলে। সিগন্যাল তথা সঙ্কেতকে তাই তথ্য-উপাত্তের সম্প্রচারিত রূপ হিসেবে গণ্য করা যায়। যা কিছুর মধ্য দিয়ে কোনও সঙ্কেত প্রেরক থেকে প্রাপকের কাছে পৌঁছায়, তাকে সম্প্রচার মাধ্যম বলে। একজন প্রেরক যে সরঞ্জাম বা উপকরণের সাহায্যে সঙ্কেত প্রেরণ করে, তাকে সম্প্রচারক বলে। অপর প্রান্তে প্রাপক যে সরঞ্জাম বা উপকরণের সাহায্যে সঙ্কেত গ্রহণ করে, তাকে গ্রাহক বা সংবেদক বলে। প্রাপক যখন প্রেরকের পাঠানো সঙ্কেত গ্রহণ করে, তখন বলা হয় ঐ দুই পক্ষের মধ্যে যোগাযোগ স্থাপিত হয়েছে।

আবার গাণিতিক দৃষ্টিকোণ থেকে সঙ্কেত হল কোনও স্বাধীন চলরাশির সাপেক্ষে পরিবর্তনশীল এমন আরেকটি গাণিতিক রাশি বা অপেক্ষক (ফাংশন), যার মান পরিমাপ করা যায় এবং যা কোনও বিশ্লেষণযোগ্য তথ্য বা উপাত্ত বহন করে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সময়কে স্বাধীন চলরাশি হিসেবে গণ্য করা হয়, কেননা সময় অন্য কোনও কিছুর সাপেক্ষে পরিবর্তনশীল নয়। যেমন কোনও বস্তুর তাপমাত্রার মানকে ঐ বস্তু কর্তৃক প্রেরিত একটি সঙ্কেত হিসেবে গণ্য করা যায়। বস্তুর তাপমাত্রার মান সময়ের সাথে সাথে পরিবর্তিত হয়; অন্য ভাষায়, তাপমাত্রা সময়ের একটি ফাংশন। এটিকে তাপমানযন্ত্রের সাহায্যে পরিমাপ করা যায় এবং এটি আমাদেরকে (আমরা হলাম প্রাপক) উষ্ণতা সম্পর্কিত কাঙ্খিত, প্রাসঙ্গিক তথ্য দেয়, যে তথ্য বিশ্লেষণ বা প্রক্রিয়াকরণ করে আমরা কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারি। সুতরাং এটি একটি সঙ্কেত।[১]

সঙ্কেতের উদাহরণ[সম্পাদনা]

মানবনির্মিত কৃত্রিম সঙ্কেত[সম্পাদনা]

আধুনিক বিশ্বের যোগাযোগ ব্যবস্থাগুলিতে মানুষ বিভিন্ন ধরনের তথ্য দ্রুত আদান-প্রদানের জন্য কৃত্রিম মানবনির্মিত সঙ্কেতের আশ্রয় নিয়ে থাকে।

তারের টেলিফোন ব্যবস্থাতে স্থানীয় টেলিফোন কার্যালয় থেকে গ্রাহকের বাসস্থানে প্রেরিত এবং তামার তারের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত সময়ের সাপেক্ষে বৈদ্যুতিক বিভবের ভিন্ন ভিন্ন মান প্রবাহিত হয়, যা একটি বৈদ্যুতিক সঙ্কেত। এই বৈদ্যুতিক সঙ্কেতটি শাব্দিক তথ্য বহন করে।

তারহীন ভ্রাম্যমান টেলিফোন তথা মোবাইল টেলিফোন ব্যবস্থার বুরূজ বা টাওয়ার থেকে সেবাগ্রহীতার মোবাইল ফোনে প্রেরিত ও শূন্যস্থানের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত তড়িৎ-চুম্বকীয় তরঙ্গের বিস্তারের ভিন্নতা (মডুলেশন) এক ধরনের তড়িৎ-চুম্বকীয় সঙ্কেত। এই তড়িৎ-চুম্বকীয় সঙ্কেত শাব্দিক তথ্য ও পাঠ্যতথ্য বহন করে। আধুনিক নতুন প্রজন্মের ভ্রাম্যমান তথা মোবাইল টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থায় তথাকথিত "বুদ্ধিমান ফোন" তথা স্মার্টফোনে ছবি, ভিডিও, কম্পিউটার প্রোগ্রাম বা অ্যাপ, ইত্যাদিও তড়িৎ-চুম্বকীয় সঙ্কেত দিয়ে প্রেরণ করা হয়।

ইন্টারনেট সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রাহকের কাছে প্রেরিত এবং আলোকীয় তন্তুর তারের (ফাইবার অপটিক কেবল) মধ্য দিয়ে প্রবাহিত আলোর স্পন্দনের ধারা এক ধরনের আলোকীয় সঙ্কেত। এই আলোকীয় সঙ্কেত কম্পিউটারে প্রক্রিয়াকরণযোগ্য বিভিন্ন ধরনের তথ্য (পাঠ্যবস্তু তথা টেক্সট, শব্দ, ছবি, চলছবি তথা ভিডিও) বহন করে।

মাত্রা অনুযায়ী সঙ্কেতের প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

স্বাধীন চলরাশি সময়ের সাপেক্ষে যদি একটিমাত্র রাশি পরিবর্তিত হয়, তাহলে তাকে একমাত্রিক সঙ্কেত বলে। যেমন শব্দ এক ধরনের একমাত্রিক সঙ্কেত, কেননা সময়ের সাথে সাথে বাতাসের চাপের মানের পরিবর্তনই হল শব্দ। শব্দ যখন মানুষের কানের পর্দায় এসে পৌঁছায়, তখন বাতাসের চাপ কানের পর্দাকে একই অক্ষের উপরে সামনে-পেছনে নাড়ায়; তাই শব্দ-সঙ্কেত একমাত্রিক। অন্যদিকে সময়ের সাপেক্ষে যদি দুইটি রাশি পরিবর্তিত হয়, তাহলে তাকে দ্বি-মাত্রিক সঙ্কেত বলে। যেমন ছবি বা চিত্র হল এক ধরনের দ্বিমাত্রিক সঙ্কেত।

দৃশ্যমান গাণিতিক-জ্যামিতিক উপস্থাপন অনুযায়ী সঙ্কেতের প্রকারভেদ[সম্পাদনা]

একমাত্রিক সঙ্কেতকে জ্যামিতিকভাবে একটি তরঙ্গ-সদৃশ দ্বিমাত্রিক লেখচিত্র আকারে প্রকাশ করা যায়, যেখানে আনুভূমিক অক্ষটি সময় নির্দেশ করে এবং উল্লম্ব অক্ষটি পরিবর্তনশীল মানবিশিষ্ট ভৌত রাশি নির্দেশ করে। সময়ের প্রতি এককের জন্য ভৌত রাশির নির্দিষ্ট মানকে ঐ সঙ্কেতের বিস্তার (Amplitude) বলে।[২]

যেসব সঙ্কেতে সময়কে অবিচ্ছিন্ন চলরাশি (অর্থাৎ অসীম সংখ্যক বাস্তব সংখ্যার মান ধারণ করতে পারে এমন রাশি) হিসেবে গণনা করা হয় এবং সময়ের সাপেক্ষে অন্য একটি অধীন রাশি বা ফাংশনের মানকেও (অর্থাৎ সঙ্কেতের বিস্তারকেও) অবিচ্ছিন্ন চলরাশি হিসেবে গণনা করা হয়, সেগুলিকে অবিচ্ছিন্ন-সময় অবিচ্ছিন্ন-বিস্তার সঙ্কেত (Continuous-Time Continuous-Amplitude signal সংক্ষেপে CTCA Signal)।[২] এই ধরনের সঙ্কেত ভৌত, বাস্তব বিশ্বের কোনও বস্তু, প্রক্রিয়া বা ব্যবস্থার কোনও পরিবর্তনশীল ভৌত বৈশিষ্ট্যকে প্রতিনিধিত্বকারী চলরাশির অনুরূপ বা সদৃশ একটি গাণিতিক চলরাশি হয় বলে একে "অনুরূপ সঙ্কেত" (অ্যানালগ সিগন্যাল Analog signal) নামে ডাকা হয়। যেমন একটি বৈদ্যুতিক অনুরূপ শব্দ সঙ্কেত (Electrical Analog Audio signal) ভৌত শব্দতরঙ্গের কারণে বাতাসের চাপের হ্রাস-বৃদ্ধিকে তাৎক্ষণিকভাবে বৈদ্যুতিক বিভব বা ভোল্টেজের ওঠা-নামার মাধ্যমে একটি অবিচ্ছিন্ন চলরাশি হিসেবে প্রতিনিধিত্ব করতে পারে, যার কারণে বৈদ্যুতিক ভোল্টেজ-ভিত্তিক এই সঙ্কেতটি মূল ভৌত ঘটনার (শব্দতরঙ্গের) খুবই কাছাকাছি বা "অনুরূপ" একটি প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করে; তাই এ ধরনের সঙ্কেতকে "অনুরূপ সঙ্কেত" বলা হয়।

যেসব সঙ্কেতে সময়কে বিচ্ছিন্ন চলরাশি (অর্থাৎ কেবল সসীম সংখ্যক পূর্ণসংখ্যার মান ধারণ করতে পারে এমন রাশি) হিসেবে গণ্য করা হয়, কিন্তু সময়ের সাপেক্ষে অন্য একটি অধীন রাশি বা ফাংশনের মানকে (অর্থাৎ সঙ্কেতের বিস্তারকে) অবিচ্ছিন্ন চলরাশি (অর্থাৎ অসীম সংখ্যক বাস্তব সংখ্যার মান ধারণ করতে পারে এমন রাশি) হিসেবে গণ্য করা হয়, সেগুলিকে বিচ্ছিন্ন-সময় অবিচ্ছিন্ন-বিস্তার সঙ্কেত (Discrete-Time Continuous-Amplitude signal সংক্ষেপে DTCA Signal) বলে।[২]

যেসব সঙ্কেতে সময়কে বিচ্ছিন্ন চলরাশি (অর্থাৎ কেবল সসীম সংখ্যক পূর্ণসংখ্যার মান ধারণ করতে পারে এমন রাশি) হিসেবে গণ্য করা হয়, এবং সময়ের সাপেক্ষে অন্য একটি অধীন রাশি বা ফাংশনের মানকেও বিচ্ছিন্ন চলরাশি হিসেবে গণ্য করা হয় সেগুলিকে বিচ্ছিন্ন-সময় বিচ্ছিন্ন-বিস্তার সঙ্কেত (Discrete-Time Discrete-Amplitude signal সংক্ষেপে DTDA Signal) বা সংক্ষেপে ডিজিটাল সঙ্কেত (Digital signal) বলে।[২] উল্লেখ্য যে, ইলেকট্রনিক্‌স বিদ্যাতে ডিজিটাল সঙ্কেত বলতে সাধারণত বাইনারি (বা দুই-ভিত্তিক) যৌক্তিক সঙ্কেত (Logical signal) বোঝায়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mark Owen (২০০৭), Practical Signal Processing, Cambridge University Press, পৃষ্ঠা 3 
  2. Shaila Dinkar Apte (২০১৬), Signals and Systems, Cambridge University Press, পৃষ্ঠা 1-2