শ্বেত সিংহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় চিড়িয়াখানা এবং অ্যাকুরিয়ামে একটি শ্বেত সিংহ
সার্বিয়ার বেলগ্রেড চিড়িয়াখানায়

শ্বেত সিংহ সিংহের, বিশেষত দক্ষিণ আফ্রিকান সিংহের একটি বিরল রঙের পরিব্যক্তি[১] ধারণা করা হয়, দক্ষিণ আফ্রিকার টিম্বাভাটি অঞ্চলে আদিবাসী শ্বেত সিংহরা কয়েক শতাব্দী ধরে বসবাস করছে। যদিও এই অঞ্চলে সর্বপ্রথম শ্বেত সিংহ দেখতে পাওয়ার রেকর্ড পাওয়া যায় ১৯৩৮ সালে। স্থানীয়দের মধ্যে এদেরকে ঐশ্বরিক হিসাবে গণ্য করা হয়। ১৯৭০-এর দশকে ক্রিস ম্যাকব্রাইডের হোয়াইট লায়ন্স অব টিম্বাভাটি বইয়ের মাধ্যমে শ্বেত সিংহ প্রথম জনসাধারণের মনোযোগ আকর্ষণ করে।[২]

পরিচ্ছেদসমূহ

বর্ণনা[সম্পাদনা]

শ্বেত সিংহরা অ্যালবিনো নয়। তাদের সাদা বর্ণ তৈরি হয় এক ধরনের অ্যালবিনিজম সৃষ্টিকারী প্রচ্ছন্ন জিনের কম তীব্র পরিব্যক্তির ফলে, যা সাদা বাঘের বর্ণসৃষ্টিকারী জিনের থেকে আলাদা। শ্বেত সিংহের বর্ণ সোনালী থেকে প্রায় সাদা হতে পারে। এই রঙের পরিবর্তন তাদের টিকে থাকার কোন অসুবিধা সৃষ্টি করে বলে মনে হয় না। গ্লোবাল হোয়াইট লায়ন প্রোটেকশন ট্রাস্ট (জিডব্লিউএলপিটি) তাদের সাদা সিংহগুলোকে তাদের প্রাকৃতিক আবাসস্থলে ফিরিয়ে এনেছে এবং তারা মানুষের হস্তক্ষেপ ছাড়াই সফলভাবে শিকার এবং প্রজননে সক্ষম হয়েছে।

প্রজনন এবং জেনেটিক্স[সম্পাদনা]

দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রোমড্রাইয়ে একটি শাবক
ক্রোমড্রাইয়ের রাইনো অ্যান্ড লায়ন ন্যাচারাল রিজার্ভে

একটি প্রচ্ছন্ন জিনের কারণে শ্বেত সিংহ তাদের অসাধারণ বর্ণ লাভ করে। অনুরূপ একটি জিনই সাদা বাঘ তৈরি করে। অতএব, চিড়িয়াখানা, পশু প্রদর্শনী এবং বন্যপ্রাণী উদ্যানের জন্য কৃত্রিম নির্বাচনের মাধ্যমে শ্বেত সিংহ তৈরি করা যেতে পারে। এই ধরনের প্রজনন আন্তর্জননের (নিকট আত্মীয়তাসূত্রে আবদ্ধ প্রাণীদের মধ্যে সন্তান উৎপাদন) সাথে সম্পর্কিত এবং ফলে আন্তর্জনন বিষণ্নতা (জিনগত ত্রুটি, উর্বরতা হ্রাস, এবং শারীরিক ত্রুটি) ঘটতে পারে। যদিও এটিকে এখনো পিছনের পায়ের পক্ষাঘাত বা গুরুতর হৃৎপিণ্ডের ত্রুতির কারণ হিসেবে পাওয়া যায় নি, যা একটি তীব্র স্তরের আন্তর্জননকে নির্দেশ করবে। কেউ কেউ মনে করেন অন্যান্য সিংহের সাথে মিলিত হলে সাদা সিংহের অ্যালিলের বিলুপ্তির সম্ভাবনা থাকে। তবে, এ ধারণা সঠিক নয় কারণ, সাদা সিংহ অন্যান্য সাধারণ বর্ণের সিংহের সাথে মিলিত হলে উৎপন্ন বংশধরের সাদা বর্ণ উৎপন্নকারী জিন প্রচ্ছন্ন অবস্থায় থাকবে যার ফলে পরবর্তীতে পুনরায় এদের থেকে সাদা বংশধর সৃষ্টি হবে ও এইভাবে অ্যালিল আরো বিস্তৃতভাবে ছড়িয়ে দেয়া যাবে। কিছু সমালোচক মনে করেন যে, চিড়িয়াখানা ও প্রজনন ক্যাম্পে সাদা সিংহের আন্তর্জনন ঘটায় এদের বন্য পরিবেশে প্রবেশ করতে দেয়া উচিত নয়। তবে, গ্লোবাল হোয়াইট লায়ন প্রোটেকশন ট্রাস্টের মত এথিক্যাল পুনঃপ্রবর্তন প্রোগ্রামে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি ব্যবহার করে নিশ্চিত করা হয়েছে যে তাদের প্রোগ্রামে সিংহদের আন্তর্জনন ঘটানো হয় না।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

অজানা বংশধারাবিশিষ্ট শ্বেত সিংহ[সম্পাদনা]

লরি উদ্যান চিড়িয়াখানা[সম্পাদনা]

লরি উদ্যান চিড়িয়াখানায় বর্তমানে দুটি প্রাপ্তবয়স্ক শ্বেত সিংহ (ড্যানিয়েল এবং হেইডি) রয়েছে, যাদের আটটি শাবক জন্মগ্রহণ করেছে। ২০১২ সালে একাসাথে তিনটি শাবক জন্মগ্রহণ করে এবং তিনটিকেই মানুষের দ্বারা লালন-পালন করা হয়। ২০১৫ সালে পাঁচটি বাচ্চা জন্মগ্রহণ করে; যার মধ্যে তিনটিকে তাদের কল্যাণের জন্য সরিয়ে নেয়া হয় আর বাকি দুইটিকে (একজন পুরুষ, গ্যাব্রিয়েল এবং একজন মহিলা, গাজেল) তাদের মা-বাবার সাথে রাখা হয়। এই দুটি শাবক এখনো মা-বাবার সঙ্গেই রয়েছে এবং তাদেরকে মানুষের দ্বারা লালন-পালন করা হয় না। ২০১৩ সালের আগস্ট মাসে একটি পুরুষ শাবককে অন্য প্রাণীর বিনিময়ে বিক্রি করা হয়। সেটি এখন চেক প্রজাতন্ত্রের হোডোনিন চিড়িয়াখানায় বাস করছে।[৬]

ক্রুগার ও উমফোলজি[সম্পাদনা]

১৯৭৯ সালে, ক্রুগার জাতীয় উদ্যানে তিনটি সাদা সিংহ প্রসবিত হয়। মার্চ মাসে, শোকওয়ানের কাছে তিনটি সাদা শাবক সহ একটি সিংহীকে দেখা গিয়েছিল। সেপ্টেম্বরে, দুটি ভিন্ন সিংহী থেকে তিনটি শ্বেত সিংহ শাবক দেখা যায়। মহিলা শাবকদের আরেকটি দলকে ক্রুগার জাতীয় উদ্যান থেকে বন্দি করা হয় এবং এদের সারকোপটিক মাঞ্জ চর্মরোগের জন্য চিকিৎসা দেয়া হয়। জুলুল্যান্ডের হলুলুয়ে-উমফোলজি গেম রিজার্ভেও একটি শ্বেত সিংহ দেখা গিয়েছিল।

রাস্তেনবার্গ বন্যপ্রাণী পুনর্বাসন কেন্দ্র[সম্পাদনা]

২০১৮ সালে, মুফাসা নামের একটি তিন বছর বয়সী শাবককে অবৈধভাবে পোষা প্রাণী হিসাবে ধরে রাখার পর, দক্ষিণ আফ্রিকায় বিক্রি করার প্রক্রিয়া চলছিল। একজন বেনামী ক্রেতা মুফাসা ও সোরায়া নামের আরেকটি মেয়ে শাবককে কিনে নিয়ে রক্ষা করতে চেয়েছিলেন। ২৮০,০০০-এরও বেশি মানুষ মুফাসার নিলাম বন্ধ করার জন্য একটি পিটিশনে স্বাক্ষর করে। কারণ তাদের আশঙ্কা ছিল এই যে সিংহটিকে সম্ভবত শিকার করার জন্য কেনা হতে পারে।[৭]

ইউরেশিয়া[সম্পাদনা]

ওয়েস্ট মিডল্যান্ড সাফারি পার্ক[সম্পাদনা]

২০০৪ সালে, চারটি শ্বেত সিংহ ওয়েস্ট মিডল্যান্ড সাফারি পার্কে আনা হয়, যেগুলি ছিল যুক্তরাজ্যের একমাত্র শ্বেত সিংহ। একটি সিংহ (রোল্যান্ড) এবং তিনটি সিংহী (মারিন, নাতাশা ও জোঅ্যান) পার্কের শ্বেত সিংহ প্রদর্শনীর রাজ্যে বসতি স্থাপন করেছিল। ২০০৮ সালে একটি সিংহী নয় ঘণ্টার মধ্যে চারটি বাচ্চা প্রসব করে, যার ফলে ইংল্যান্ডের মোট শ্বেত সিংহের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে আটটিতে পরিণত হয়। ওরচেস্টারশায়ারের উদ্যানের সিংহের দলটি যুক্তরাজ্যে শ্বেত সিংহের একমাত্র পাল।

সংবাদপত্র ও ব্লগাররা প্রতিবেদন করেছেন যে ২০০৮ সালে ওয়েস্ট মিডল্যান্ড সাফারি পার্কে জন্মগ্রহণ নেয়া চারটি শাবক (ক্যাস্পার, কিয়ারা, লারা ও টোটো) একটি জাপানি সার্কাসের কাছে বিক্রি করে দেয়া হয়েছে।[৮][৯][১০][১১] অভিযোগ করা হয় যে, সিংহগুলোকে ব্রিটিশ ব্যবসায়ী জিম ক্লাবকে দেওয়া হয়েছে, যিনি "অ্যামেজিং অ্যানিম্যালস" সার্কাস চালান, যা অক্সফোর্ডশায়ারের চিপিং নর্টনে হেথ্রপ জুওলোজিক্যাল গার্ডেন নামেও পরিচিত। পশু অধিকার সংগঠন লায়ন এইড লিমিটেড জনাব ক্লাবকে উদ্ধৃত করে প্রথমে বলে, "কোনো মন্তব্য নেই", এরপর বলে "আমি জানি না যে ওয়েস্ট মিডল্যান্ড সাফারি পার্ক জানত কী না যে এগুলিকে সার্কাসে নেয়া হচ্ছিল, এটি তাদের ব্যাপার।"[৯] ওয়েস্টার্ন মিডল্যান্ড সাফারি পার্কের প্রধান কিপার বব লরেন্স, যাকে প্রায়ই শাবকগুলির যত্ন নেয়া অবস্থায় ইউটিউব ভিডিওতে দেখা যায়, তিনি ভেরেস্টার নিউজ নামে একটি স্থানীয় সংবাদপত্রকে বলেন যে, যদি তিনি জানতেন যে চারটি শ্বেত সিংহ শাবককে শেষ পর্যন্ত একটি জাপানি সার্কাসে খেলা দেখাতে হবে, তবে তিনি কখনোই তাদের দেখাশোনা করতেন না।[১১]

জারকিস চিড়িয়াখানা[সম্পাদনা]

জারকিস চিড়িয়াখানায় শ্বেত সিংহ

মে ২০০৭ সালের মে মাসে ফ্রান্সের জ্যুর্ক চিড়িয়াখানায় চারটি শ্বেত সিংহ শাবক জন্মগ্রহণ করে। শাবকদের মধ্যে একটি পুরুষ ও তিনটি মহিলা শাবক ছিল। প্রতিটি শাবক জন্মের সময় প্রায় ১.৫ কেজি (৩.৩ পাউন্ড) ওজনের ছিল, এবং চারটি শাবকই ভাল স্বাস্থ্যের অধিকারী ছিল। তবে তাদেরকে হাতে করে খাওয়ানোর প্রয়োজন হচ্ছিল কারণ তাদের মা তাদের যথাযথ যত্ন নিচ্ছিল না।

ম্যাগান চিড়িয়াখানা, অ্যাবনি[সম্পাদনা]

হাঙ্গেরির অ্যাবনিতে একটি ব্যক্তিগত চিড়িয়াখানা সম্প্রতি দুটি শ্বেত সিংহ, একটি পুরুষ ও একটি মহিলা সিংহ গ্রহণ করেছে।

বেলগ্রেড চিড়িয়াখানা[সম্পাদনা]

সার্বিয়ার বেলগ্রেড চিড়িয়াখানায় ১২টি শ্বেত সিংহ রয়েছে। ২০১০ সালে চারটি মহিলা সিংহ জন্ম নিয়েছিল, যাদের প্রতিটির ওজন ছিল ১.৫ কিলোগ্রাম (৩.৩ পা)।[১২] চারটি অতিরিক্ত শ্বেত সিংহ এপ্রিল ২০১১ সালের এপ্রিল মাসে জন্মগ্রহণ করে।[১৩] ২০১৩ সালের অক্টোবরে আরেকটি শাবক জন্মগ্রহণ করে,[১৪] তবে সেটি জন্মের পরপরই মারা যায়।[১৫]

পাফোস চিড়িয়াখানা[সম্পাদনা]

২০১১ সালে সাইপ্রাসের পাফোস চিড়িয়াখানা নামের একটি প্রাণী ও পাখি বন্যপ্রাণী পার্কে, দুটি সাত মাস বয়সী শ্বেত সিংহ শাবক গ্রহণ করা হয়।

তিবলিসি চিড়িয়াখানা[সম্পাদনা]

২০১৩ সালের ডিসেম্বরে, জর্জিয়ার তিবলিসি চিড়িয়াখানায় চারটি শ্বেত সিংহ শাবক জন্মগ্রহণ করে। শাবকগুলোকে হাতে করে খাওয়ানোর দরকার হচ্ছিল কারণ তাদের মা তাদের সঠিক যত্ন নিচ্ছিল না। ২০১৪ সালের মে মাসে আরও তিনটি শাবক জন্মগ্রহণ করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

করাচি চিড়িয়াখানা[সম্পাদনা]

২০১২ সালে পাকিস্তানের করাচি চিড়িয়াখানা, একটি কিশোর পুরুষ সিংহ এবং একটি কিশোরী সাদা সিংহ কিনেছিল। তাদের ২টি শাবক রয়েছে।

বুকিত গাম্বাং সাফারি পার্ক, মালয়েশিয়া[সম্পাদনা]

২০১৩ সালের মার্চে মালয়েশিয়ায় প্রথম শ্বেত সিংহ আসে, যখন পাহাং এর বুকিত গাম্বাং রিসোর্ট সিটির সাফারি পার্কটি জনসাধারনের জন্য খুলে দেয়া হয়। ২টি পুরুষ এবং ৩টি নারী সিংহ থাকাকালীন, মে ২০১৪ সালের মে মাসে সেখানে প্রথম শ্বেত সিংহ জন্মগ্রহণ করে। তার নাম রাখা হয় রাজা।[১৬]

সানওয়ে লেগুনের বন্যপ্রাণী পার্ক, মালয়েশিয়া[সম্পাদনা]

জোলা ও জুরি নামে দুইটি শ্বেত সিংহ ২০১৫ সালের এপ্রিল মাস থেকে সানওয়ে লেগুনের বন্যপ্রাণী পার্কে বসবাস করছে।[১৭]

সিঙ্গাপুর নাইট সাফারি[সম্পাদনা]

সিঙ্গাপুর নাইট সাফারি, যা সিঙ্গাপুরের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণাগারের একটি সহায়ক, সম্প্রতি একটি পুরুষ ও একটি মহিলা শ্বেত সিংহ গ্রহণ করেছে।

আমেরিকা অঞ্চল[সম্পাদনা]

টরেন্টো চিড়িয়াখানা[সম্পাদনা]

২০১২ সালে, কানাডার টরোন্টো চিড়িয়াখানা তাদের আফ্রিকান জোনে তিনটি শ্বেত সিংহ পেয়েছিল।[১৮] এগুলো চিড়িয়াখানায় ১৯৯৬ সাল থেকে বাস করা একমাত্র শ্বেত সিংহীটির স্থলে আনা হয়।[১৯] ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে, চিড়িয়াখানায় চারটি শ্বেত সিংহ শাবক জন্মগ্রহণ করে।[২০]

রেইনো প্রাণী[সম্পাদনা]

দুটি শ্বেত সিংহ একসাথে খেলা করছে; ওটুম্বা, মেক্সিকো

মেক্সিকোর ওটুম্বা রাজ্যের শহরের রেইনো অ্যানিম্যাল চিড়িয়াখানায় কয়েকটি শ্বেত সিংহ রয়েছে যা "সাফারি লিওনেস"-এ (সিংহের অভিযান) দেখা যেতে পারে।[২১]

ওশেনিয়া[সম্পাদনা]

কিংডম অব জিয়ন[সম্পাদনা]

নিউজিল্যান্ডের কিংডম অব জিয়ন সিংহ সুরক্ষা ও সংরক্ষণ অভয়ারণ্যে ছয়টি পুরুষ শ্বেত সিংহ এবং চারটি মহিলা শ্বেত সিংহ রয়েছে।

জিনতত্ত্ব[সম্পাদনা]

জিনগতভাবে, শ্বেত সিংহ ও সাধারণ পিঙ্গল বর্ণের দক্ষিণ আফ্রিকান সিংহ (Panthera leo melanochaita) একই উপপ্রজাতির অন্তর্গত, যা দক্ষিণ আফ্রিকার কিছু বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ এবং সারা বিশ্বের বিভিন্ন জুলজিকাল পার্কে পাওয়া যায়। শ্বেত সিংহ অ্যালবিনো হয় না, তবে লিউকিস্টিক হয়ে থাকে। এদের চোখে, পায়ের নিচের নরম প্যাডে এবং ঠোঁটে দৃশ্যমান রঞ্জক পদার্থ রয়েছে (যা সাধারণত হেজেল বা সোনালী, নীলাভ ধূসর, বা সবুজাভ ধূসর রঙের হয়)। নীল চোখবিশিষ্ট শ্বেত সিংহ রয়েছে এবং এদেরকে কৃত্রিম নির্বাচনের দ্বারা তৈরি করা যায়। এদের লিউকিস্টিক বৈশিষ্ট্যের কারণ হচ্ছে টাইরোসিনেজ (TYR) নামক এক ধরনের এনজাইম উৎপন্নকারী জিনের প্রচ্ছন্নতা। এই এনজাইমটি মেলানিন উৎপাদনের জন্য দায়ী।[২২] এই জিনের আরো তীব্র মিউটেশনের ফলে অনেক প্রজাতির মধ্যে অ্যালবিনিজম সৃষ্টি হয় এবং কম তীব্র মিউটেশনের ফলে বেশ কয়েকটি স্তন্যপায়ী প্রজাতিতে ফ্যাকাশে রঙের প্রবণতা দেখা যায়। মেলানিন রঞ্জক পদার্থের উৎপাদন কমে যাওয়ায় চুলের গায়ে রঞ্জক পদার্থের পরিমাণ হ্রাস পায়, যা চুলের আগায় পৌছাতে পারে না। চুলের গায়ে যত কম রঞ্জক পদার্থ থাকবে, সিংহটি তত বেশি ফ্যাকাসে হবে। এর ফলে, "শ্বেত" সিংহের গায়ের রঙ সোনালী থেকে প্রায় সাদা হতে পারে। পুরুষ শ্বেত সিংহের কেশর ও লেজের অগ্রভাগের রঙ স্বাভাবিক গাঢ় পিঙ্গল বা কালোর পরিবর্তে ফ্যাকাশে হয়ে থাকে।

বন্য পরিবেশে, এদের প্রাকৃতিক স্থানীয় পরিসীমার মধ্যে[সম্পাদনা]

১৯৭০-এর দশকের পর থেকে, শ্বেত সিংহ এবং শ্বেত বর্ণের জিন বহনকারী অনেক 'স্বাভাবিক' (পিঙ্গল) রঙের সিংহদের এদের বিরলতার জন্য বন্য পরিবেশ থেকে সরিয়ে প্রজনন কেন্দ্র, হান্টিং প্রোগ্রাম এবং বিশ্ব জুড়ে বিভিন্ন চিড়িয়াখানা ও সার্কাসে পাঠিয়ে দেয়া হয়। ১৯৯৪ সালের পর আর কোন প্রাপ্তবয়স্ক শ্বেত সিংহকে বন্য পরিবেশে, তাদের প্রাকৃতিক আবাসস্থলে দেখা যায় নি। এর ফলে ২০০৪ সালে গ্লোবাল হোয়াইট লায়ন প্রোটেকশন ট্রাস্ট, কিছু সফল পুনঃপ্রবর্তন কৌশলের ভিত্তিতে, সর্বপ্রথম শ্বেত সিংহদের প্রাকৃতিক আবাসস্থলে পুনর্বাসন কার্যক্রম শুরু করে। পুনর্বাসিত শ্বেত সিংহগুলোর বন্য বংশধরদেরকে ধীরে ধীরে বন্য পিঙ্গল বর্ণের সিংহদের সাথে একত্রিত করা হয়। উচ্চ জিনগত বিশুদ্ধতাসম্পন্ন শ্বেত সিংহদের তিনটি দলকে পিঙ্গল বর্ণের সিংহদের সাথে সফলভাবে পুনর্বাসিত করা হয়েছে এবং এরা এদের প্রাকৃতিক আবাসস্থলে নিজে নিজেই পিঙ্গল সিংহগুলোর মত শিকার করতে পারছে।[২৩][২৪] সাদা রঙ নির্ধারণকারী জিনগত নির্দেশকটি ২০১৩ সালের অক্টোবরে ৫টি দেশের সমন্বিত গবেষণায় সনাক্ত করা হয়েছিল।[২২] এটি জিনগত বিশুদ্ধতা নিশ্চিত করা এবং বন্য পরিবেশে এই জিনের পুনরাবৃত্তির হার নির্ধারণের জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে।

গ্লোবাল হোয়াইট লায়ন প্রোটেকশন ট্রাস্টের প্রাথমিক লক্ষ্য হচ্ছে স্থানীয় আদিবাসী সম্প্রদায়গুলোর মধ্যে শ্বেত সিংহের সাংস্কৃতিক গুরুত্বকে কাজে লাগিয়ে,[২৫] ক্রুগার থেকে ক্যানিয়নের (কেটুসি) জীবমণ্ডল এবং এই অঞ্চলের সিংহের বৃহত্তর জনসংখ্যাকে রক্ষা করতে সহায়তা করা। এই পদ্ধতিটি ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার কারমোড ভাল্লুকের (Ursus americanus kermodei) আন্তর্জাতিক উদাহরনের ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে। এটি হচ্ছে আমেরিকান কালো ভালুকের (Ursus americanus) একটি বিরল ও সাদা সংস্করণ। এদের সংরক্ষণ ও সাংস্কৃতিক মূল্যের জন্য এদেরকে একটি মহাবিপন্ন প্রজাতি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। যেমন, একটি ৪০,০০,০০০ হেক্টর (৯৯,০০,০০০ একর) বুনো এলাকা রক্ষার জন্য কারমোড ভাল্লুককে প্রধান রক্ষাকারী প্রজাতি হিসাবে ব্যবহার করা হচ্ছে।[২৬] কারমোড ভাল্লুকের মতো, সাদা সিংহকে রক্ষা করার মধ্যমে, এদের স্থানীয় অঞ্চলের সমগ্র জনসংখ্যাকে সুরক্ষিত করা যাবে।

পরবর্তীতে, টিম্বাভাটি বেসরকারি প্রাকৃতিক সংরক্ষণাগারে ২০০৬, ২০০৮, ২০০৯, ২০১১, ২০১২ ও ২০১৩ সালে এবং ক্রুগার জাতীর উদ্যানের নওয়েনেটসি এলাকায় ২০১৪ ও ২০১৫ সালে সাদা সিংহ শাবক জন্মগ্রহণ করে। ফলে নিশ্চিত হয় যে শ্বেত সিংহ প্রাকৃতিকভাবে জন্ম নিতে পারে এবং এদের প্রচ্ছন্ন জিন এখনও বুনো পরিবেশে বিদ্যমান।

সিআইটিইএস ২০১৬-এ দক্ষিণ আফ্রিকার পরিবেশ বিষয়ক অধিদপ্তর (ডিইএ) সম্প্রতি নিয়ন্ত্রিত পরিবেশে জন্মানো সিংহ শিকার ("ক্যানড হান্টিং") এবং এদের হাড় বিক্রি চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছে। এ সিদ্ধান্তের আলোকে গ্লোবাল হোয়াইট লায়ন প্রটেকশন ট্রাস্ট (জিডব্লিউএলপিটি) জানিয়েছে যে এই সিদ্ধান্তের ফলে গ্রেটার ক্রুগার পার্ক অঞ্চলের সিংহদের জীবন হুমকির সম্মুখীন হতে পারে এবং এই অঞ্চলের সমস্ত সিংহদেরকে আরো ভালভাবে রক্ষা করার জন্য শ্বেত সিংহ একটি আদর্শ ঢাল হয়ে উঠতে পারে।

দক্ষিণ আফ্রিকার সিংহ ব্যবস্থাপনার প্রস্তাবিত নীতি অনুসারে,[২৭] জিডব্লিউএলপিটি বলেছে যে সিংহের হাড়ের বাণিজ্যের বৈধকরণ এর সরবরাহ বৃদ্ধি করবে এবং এর ফলে বন্য সিংহের বিভিন্ন স্মৃতিচিহ্ন বিশেষ করে সিংহের হাড়ের চাহিদা বাড়বে। এতে সিংহ পাচার এবং অবৈধ শিকারের পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে, যা দক্ষিণ আফ্রিকার বন্য সিংহের ভবিষ্যতের জন্য হুমকিস্বরূপ।[২৮]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

  1. হায়দার (আরবি: حَـيـدر‎‎) শব্দের অর্থ 'সিংহ'।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Schofield, Andrew (২০১৩)। White Lion: Back to the Wild (Paperback)। White Lion। আইএসবিএন 9780620514781। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৯ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. Limpopo celebrates white lion News24, 24 September 2009
  3. Pajhwok 2017. Bid to smuggle 6 white lions to Pakistan frustrated. Pajwhwok Afghan News
  4. Nasr, Seyyed Hossein"Ali"Encyclopædia Britannica Online। Encyclopædia Britannica, Inc.। ১৮ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ অক্টোবর ২০০৭ 
  5. Tolonews 2017. Border Police Seize Six Lions At Spin Boldak Crossing Tolonews
  6. "Zoo acquires rare white lion"Prague Monitor। ১০ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. Thom, Liezl (২১ নভেম্বর ২০১৮)। "Rare white lion in South Africa named Mufasa may be saved by 'mystery donor'"ABC News। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ 
  8. "Exposed: UK Zoo is Source of Inbred Lions used in Japanese Circus"। ২৩ নভেম্বর ২০১২। জানুয়ারি ৬, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৩ 
  9. "West Midland Safari Park and the Japanese Kinoshita Circus - strange bedfellows?"। LionAid.org। ২৭ নভেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৩ 
  10. Edwards, Anna (২৭ নভেম্বর ২০১২)। "Fury as Rare White Lion Cubs Born in UK Safari Park are Sent to a Japanese Circus"Mail Online। England: Daily Mail and General Trust। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৩ 
  11. Kat, Pieter (২ ডিসেম্বর ২০১২)। "White lions, West Midland Safari Park and the Kinoshita Circus in Japan"। LionAid.org। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৩ 
  12. Принове у београдском Зоо врту PTC, 14 August 2010
  13. Bela lavica Maša omacila četiri prinove Blic Online, 21 April 2011
  14. Hear this adorable white lion cub test her voice Today, 5 October 2013
  15. InSerbia Team। "White lion cub born in Belgrade Zoo died"InSerbia News 
  16. "Park offers prizes for guessing birthday of cub"The Star Online। ৪ ডিসেম্বর ২০১৪। 
  17. "Theme park introduces white lions to its Wildlife Park"The Star Online। ২ এপ্রিল ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  18. "Toronto Zoo - Toronto Zoo - White Lions - New for 2012" 
  19. Vidya Kauri (৪ মে ২০১২)। "Toronto Zoo white lions go on display"National Post 
  20. "Move over panda cubs, we're cute, too, say Toronto Zoo white lion cubs" 
  21. Reino Animal. Safari Leones ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৯ জুলাই ২০১৫ তারিখে. Retrieved on 10 August 2015
  22. Yun Sung Cho et al. (2013). "The tiger genome and comparative analysis with lion and snow leopard genomes", Nature Communications 4: 2433, ডিওআই:10.1038/ncomms3433
  23. Turner, J. A., Vasicek, C. A., & Somers, M. J. (2015). Effects of a colour variant on hunting ability: the white lion in South Africa. Open Science Repository Biology, Online(open-access), e45011830. doi:10.7392/openaccess.45011830
  24. Valeix, M. (2015). Review of "Effects of a colour variant on hunting ability - the white lions in South Africa": http://www.open-science-repository.com/review-of-the-article-effects-of-a-colour-variant-on-hunting-ability-the-white-lion-in-south-africa.html
  25. Tucker, Linda "Mystery of the White Lions - Children of the Sun God" 2003 Npenvu Press. আইএসবিএন ০-৬২০-৩১৪০৯-৫
  26. Marshall, H. D. & K. Ritland. (2002). Genetic diversity and differentiation of Kermode bear populations. Molecular Ecology, 11: 685-697
  27. Funston, P.J., M. Levendal, & Department of Environmental Affairs. (2014). Draft Biodiversity Management Plan for the lion (Panthera leo) in South Africa. https://www.environment.gov.za/sites/default/files/gazetted_notices/nemba_africanlion_managementplan_gn351g38706.pdf
  28. "SA Proposed Biodiversity Management Plan to put lions at greater risk"whitelions.org। ২২ মে ২০১৫। 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]