শেরশাবাদিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

শেরশাবাদিয়া হল বাঙালি মুসলিমদের একটি সম্প্রদায়, যারা ভারতের পশ্চিমবঙ্গবিহার এবং বাংলাদেশের রাজশাহী বিভাগে বসবাস করে।[১]

উৎপত্তি ও ইতিহাস[সম্পাদনা]

শেরশাবাদিয়া শব্দের (ফারসি ভাষায়: شیرشاه‌آبادیہ) আক্ষরিক অর্থ হল শেরশাবাদ সংক্রান্ত (ভাষা বা জাতি হিসেবে)। এ সম্প্রদায়টির উৎপত্তি উত্তর মুর্শিদাবাদ ও দক্ষিণ মালদা জুড়ে বিস্তৃত পূর্বতন শেরশাবাদ পরগনা থেকে হয়।

ব্রিটিশ আমলে শেরশাবাদিয়া সম্প্রদায়ের লোকজন ওয়াহাবী আন্দোলন নামে পরিচিত ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে জড়িত ছিল। তাই ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ এদের অপরাধপ্রবণ গোত্র হিসেবে তালিকাভুক্ত ছিল, যদিও পরে তালিকা থেকে মুছে ফেলা হয়েছিল।[২]

ভৌগোলিক বিস্তার[সম্পাদনা]

শেরশাবাদিয়া সম্প্রদায়ের মানুষ মূলত পশ্চিমবঙ্গ এবং বিহারের সীমান্তবর্তী জেলাগুলিতে বসবাস করে। এই জেলাগুলি হল পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মালদা, মুর্শিদাবাদ, উত্তরদক্ষিণ দিনাজপুর এবং বিহার রাজ্যের পূর্ণিয়া, কাটিহারকিসানগঞ্জ। এছাড়া ঝাড়খণ্ড রাজ্যের পাকুড়সাহেবগঞ্জ জেলাতেও এরা বাস করে।[৩]

বর্তমান স্থিতি[সম্পাদনা]

তারা স্থানীয় বাদিয়া বা শেরশাবাদিয়া উপভাষায় কথা বলে, এটি বরেন্দ্রী-বাংলা ভাষার একটি ধরন। তারা প্রচলিত মুসলিম মাযহাবগুলি অনুসরণ করে না এবং তারা পীর-দরবেশের (সাধু) অনুসরণ করে না।[৩]

বিবাহের সময় তারা 'হলদি-মাখা', 'বায়না-করা', 'গীদ-গাহা' (মহিলা গান), 'থুবরা-খাওয়া' ইত্যাদি অনুষ্ঠান করে। নতুন জন্মগ্রহণকারী শিশুর জন্য তারা ছ্যালা দেখা, কামানী, আকিকা প্রভৃতি আচার অনুষ্ঠান পালন করে।

তাদের ঐতিহ্যবাহী খাবারগুলি হল কালায়ের উটি (বা রুটি) (কলাই ডাল এবং চালের গুঁড়ো দিয়ে তৈরি এক ধরনের রুটি), আইখ্যার ক্ষীর, আন্ধাসা (বা আনাসা) (চালের গুঁড়ো এবং গুড় দিয়ে তৈরি কেক), পান্তা (বিশেষ পদ্ধতিতে তৈরি বাসি ভাত) এবং চিত্যাই (চালের গুঁড়া দিয়ে তৈরি এক ধরনের রুটি) ইত্যাদি।[৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ""West Bengal Commission for Backward Classes Report on Shershabadia"" (PDF)www.wbcdc.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ১৯ শে মে ২০২১  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. People of India Bihar Volume XVI Part Two edited by S Gopal & Hetukar Jha। Seagull Books। পৃষ্ঠা pages 876 to 877। 
  3. ""West Bengal Commission for Backward Classes Report on Shershabadia"" (PDF)www.wbcdc.gov.in। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০২১