শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা
স্থানীয় সরকার
ইতিহাস
শুরু১৯৯৮[১]
নেতৃত্ব
মেয়রআবদুস ছালেক মিয়া[২][৩]
নির্বাচন
ভোটদান ব্যবস্থাএফপিটিপি
সভাস্থল
শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা কার্যালয়
ওয়েবসাইট
শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা

শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভা বাংলাদেশের হবিগঞ্জ জেলার একটি স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা সংগঠন। এই পৌরসভাটি বাংলাদেশের একটি ‘‘ক’’ শ্রেনীভূক্ত পৌরসভা।[১]

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভাটি সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার অন্তর্ভুক্ত।[৪] এই পৌর এলাকাটির আয়তন ১০.৪০ বর্গ কিলোমিটার।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভাটি ১৯৯৮ সালে গঠিত হয় এবং ২০১৩ সাল থেকে 'প্রথমশ্রেণির পৌরসভা' হিসাবে পরিগণিত হয়।[১]

ভৌগোলিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

শিল্প ও সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

প্রশাসনিক উপাত্ত[সম্পাদনা]

নির্বাচিত জন-প্রতিনিধি[সম্পাদনা]

বিগত ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর তারিখে অনুষ্ঠিত পৌরসভা নির্বাচনে[৫][৬] আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আবদুস ছালেক মিয়া মেয়র পদে নির্বাচিত হয়েছেন।[২][৩]

জনসংখ্যা উপাত্ত[সম্পাদনা]

শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার মোট আয়তন ১০.৪০ বর্গকিলোমিটার

ওয়ার্ড সংখ্যা - ০৯টি

মোট ভোটার -১৬৭১৩ জন

পুরুষ-৮৩৩৫ জন , মহিলা-৮৩৭৮ জন[৭]

১নং ওয়ার্ড- শ্যামপুর-২৫৩জন,পশ্চিমবড়চর-৩৫৩জন,নূরপুরআংশিক-২২৮জন,তাপাসী-৪৩৭জন,কুতুবেরচক-৪৫০জন,মোট-১৭২১জন।

২নংওয়ার্ড- স্টেশনরোড-৩৭১জন,হাসপাতালসড়ক-৮৮জন,মহলুলসুনাম-৯৮৭জন,দক্ষিণবড়চর-৭৪২জন,দাউদনগরবাজারদক্ষিণ-১০৮জন,মোট-২২৯৬জন।

৩/নংওয়ার্ড- রেলওয়েকলোনী-৪৬৮জন, বিনন্দপুর-১১৬জন,দাউদনগরবাজারপশ্চিম-৩২জন, চরনূরআহম্মদ(নিজগাঁও)-১০৭৯জন,মোট-২০২৬জন।

৪/নংওয়ার্ড- চরনূরআহম্মদপূর্বঅংশ-১৫৫৮জন, চরনূরআহম্মদপশ্চিমঅংশ(দাউদনগরবাজারএরিয়া)-১৩৯জন,মোট- ১৬৯৭জন।

৫/ নংওয়ার্ড- আলাপুরআংশিক-৫০জন, চরনূরআহম্মদপূর্বঅংশ-১৭৫জন,পূর্ববাগুনীপাড়া-৪৯৬জন,সুদিয়াখলা-১০২৭জন,মোট-১৭৪৮জন।

৬/নংওয়ার্ড- লেঞ্জাপাড়াপূর্ব-পশ্চিম,মোট-১৫৫৮জন।

৭/নংওয়ার্ড- উবাহাটাআংশিক-১৪০৪জন,কুটিরগাঁওআংশিক-৩১১জন,পুরানবাজার(বাজারেরভোট, শায়েস্তাগঞ্জউপজেলাহবারপূর্বেশায়েস্তাগঞ্জহাইস্কুলেভোটকেন্দ্র(০৬নংওয়ার্ডে) ছিল)-১০৪জন,মোট- ১৮১৯জন।

৮/নংওয়ার্ড- সাবাসপুর-৩৭৫জন,লেঞ্জাপাড়াদক্ষিণ-১৪৯৯জন,দাউদপুর-১১২জন,মোট-১৯৮৬জন।

৯/নংওয়ার্ড- খলাপাড়াআংশিক-৫৪জন, জগন্নাথপুর-৭৩২জন,বিরামচর-১০৭৬জন,মোট-১৮৬২জন

স্বাস্থ্যসেবা[সম্পাদনা]

শিক্ষা ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

নাগরিক সুযোগ-সুবিধা[সম্পাদনা]

কৃষি ও অর্থনীতি[সম্পাদনা]

যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

কৃতি ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

দর্শনীয় ও বৈশিষ্ট্যপূর্ণ স্থান এবং স্থাপনা[সম্পাদনা]

বিবিধ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "পৌরসভায় ইউনিয়নের সেবাও মেলে না!"দৈনিক প্রথমআলো। ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  2. "শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার ফল স্থগিত করেনি হাইকোর্ট"দৈনিক ইত্তেফাক। ৫ জানুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  3. "হবিগঞ্জে বিএনপি ৩, আ.লীগ ২"দৈনিক মানবকন্ঠ। ৩০ ডিসেম্বর ২০১৫। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  4. "হবিগঞ্জ সদর উপজেলা সম্পর্কিত তথ্য"বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। জুন, ২০১৪। ৩ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ= (সাহায্য)
  5. "আজ মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে পৌর নির্বাচনের প্রচারণা"www.bbc.com/bengali/news। ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন। ২৮ ডিসেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  6. "যে ২৩৪ পৌরসভায় নির্বাচন হচ্ছে"দৈনিক ইত্তেফাক। ২৫ নভেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  7. ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত পৌর নির্বাচন

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]