লোকেন্দ্র বাহাদুর চন্দ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লোকেন্দ্র বাহাদুর চন্দ
लोकेन्द्र बहादुर चन्द
নেপালের ২৭তম প্রধানমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১১ অক্টোবর ২০০২ – ৫ জুন ২০০৩
পূর্বসূরীশের বাহাদুর দেউবা
উত্তরসূরীসূর্য বাহাদুর থাপা
কাজের মেয়াদ
১২ মার্চ ১৯৯৭ – ৭ অক্টোবর ১৯৯৭
পূর্বসূরীশের বাহাদুর দেউবা
উত্তরসূরীসূর্য বাহাদুর থাপা
কাজের মেয়াদ
৬ এপ্রিল ১৯৯০ – ১৯ এপ্রিল ১৯৯০
পূর্বসূরীমরিচ মান সিং শ্রেষ্ঠ
উত্তরসূরীকৃষ্ণ প্রসাদ ভট্টরাই
কাজের মেয়াদ
১২ জুলাই ১৯৮৩ – ২১ মার্চ ১৯৮৬
পূর্বসূরীসূর্য বাহাদুর থাপা
উত্তরসূরীনগেন্দ্র প্রসাদ রিজল
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1940-02-15) ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৪০ (বয়স ৮২)
কুরকুটিয়া গ্রাম, বৈতডী জেলা, নেপাল
রাজনৈতিক দলরাষ্ট্রীয় প্রজাতন্ত্র পার্টি

লোকেন্দ্র বাহাদুর চন্দ (জন্ম: ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৪০) ছিলেন নেপালের ২৭ তম প্রধানমন্ত্রী। তিনি সর্বমোট চারবার প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর মেয়াদকালগুলো হলো যথাক্রমে- ১৯৮৩ থেকে ১৯৮৬, অস্থায়ীভাবে এপ্রিল ১৯৯০, ১৯৯৭ এবং অক্টোবর ২০০২ থেকে জুন ২০০৩ পর্যন্ত। নেপালি বর্ষ ২০৫৪ সালে তিনি তাঁর "বিসর্জন" বইয়ের জন্য "মদন পুরস্কার" লাভ করেন।

রাজনৈতিক কর্মজীবন[সম্পাদনা]

লোকেন্দ্র বাহাদুর চন্দ নেপালের রাজতন্ত্রের একজন প্রধান সমর্থক। এছাড়াও তিনি তাঁর কর্মজীবনে রাষ্ট্রীয় পঞ্চায়েতের স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাঁর প্রথম দুই মেয়াদে তিনি কোন রাজনৈতিক দলের অন্তর্গত ছিলেন না। ১৯৯৭ সালে তিনি তাঁর বর্তমান রাজনৈতিক দল রাষ্ট্রীয় প্রজাতন্ত্র পার্টির সদস্যপদ লাভ করেন। ২০০২ সালে শের বাহাদুর দেউবার নেপালি কংগ্রেস সরকারের বিরুদ্ধে নেপালের রাজা অভ্যুত্থান ঘোষণা করার এক সপ্তাহ পর, ১১ অক্টোবর লোকেন্দ্র বাহাদুর চন্দ নেপালের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। ২০০২ সালে বাহাদুর চন্দ ছিলেন মন্ত্রিসভার প্রধান। ব্যাপক প্রতিবাদ এবং মাওবাদী বিদ্রোহীদের সঙ্গে গৃহযুদ্ধের তীব্রতার কারণে, ২০০৩ সালে লোকেন্দ্র বাহাদুর চন্দ ক্ষমতা থেকে পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। কিন্তু ২০০৮ সালের গণপরিষদ নির্বাচনের আগেও, লোকেন্দ্র বাহাদুর চন্দ ছিলেন রাষ্ট্রীয় প্রজাতন্ত্র পার্টির একজন শীর্ষ প্রার্থী।[১]

জন্ম ও পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

লোকেন্দ্র বাহাদুর চন্দ ১৯৪০ সালে নেপালের বৈতডী জেলার কুরকুটিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বাহাদুর চন্দ চার ছেলের পিতা। ছেলেদের নাম হচ্ছে জয়ন্ত চন্দ, অরুণ চন্দ, বিনোদ চন্দ ও ভূপেন চন্দ। বড় ছেলে জয়ন্ত চন্দ একই দলের হয়ে সক্রিয় রাজনীতিতে জড়িত আছেন এবং দুইবার নেপালের মন্ত্রীও হয়েছেন। দ্বিতীয় ছেলে অরুণ চন্দ নেপালের একজন স্বনামধন্য ব্যবসায়ী। তৃতীয় ছেলে বিনোদ চন্দ হচ্ছেন একজন একজন কম্পিউটার প্রকৌশলী। আর সর্বকনিষ্ঠ ভূপেন চন্দ হচ্ছেন একজন অভিনেতা ও সমাজসেবী, বর্তমানে তিনি এখন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Ca Election report"web.archive.org। ২০১৬-০৩-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১০-০৫ 
  2. Worldmark Encyclopedia of the Nations (ইংরেজি ভাষায়)। Gale Research। ২০০৩। আইএসবিএন 978-0-7876-7331-4