লিওন গারিক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লিওন গারিক
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামলিওন ভিভিয়ান গারিক
জন্ম (1976-11-11) ১১ নভেম্বর ১৯৭৬ (বয়স ৪২)
সেন্ট অ্যান, জ্যামাইকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম পেস
ভূমিকাব্যাটসম্যান, মাঝে-মধ্যে উইকেট-রক্ষক
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ২৪০)
১৯ এপ্রিল ২০০১ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১০৬)
২৮ এপ্রিল ২০০১ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
শেষ ওডিআই১৯ আগস্ট ২০০১ বনাম কেনিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৯৬ - ২০০৩জ্যামাইকা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৫৭ ৩০
রানের সংখ্যা ২৭ ৯৯ ৩,১২১ ৬৬৩
ব্যাটিং গড় ১৩.৫০ ৩৩.০০ ৩২.১৭ ২৫.৫০
১০০/৫০ ০/০ ০/১ ৬/১৪ ০/৪
সর্বোচ্চ রান ২৭ ৭৬ ২০০* ৭৬
বল করেছে ১৪
উইকেট
বোলিং গড় ৪.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ১/৪ ০/৬
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/– ০/– ৫৯/– ৭/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

লিওন ভিভিয়ান গারিক (ইংরেজি: Leon Garrick; জন্ম: ১১ নভেম্বর, ১৯৭৬) জ্যামাইকার সেন্ট অ্যান এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ও সাবেক ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার।[১][২] ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ২০০১ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটে জ্যামাইকা দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, দলের প্রয়োজনে মাঝে-মধ্যে উইকেট-রক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হতেন লিওন গারিক

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৯৬-৯৭ মৌসুম থেকে ২০০২-০৩ মৌসুম পর্যন্ত লিওন গারিকের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল।

খেলোয়াড়ী জীবনের শুরুতে জ্যামাইকার তরুণদের দলে খেলেন। এরপর ১৯৯৭ সালে দলটির পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। উপর্যুপরী সেঞ্চুরি করেন তিনি। জ্যামাইকার গার্ভে ম্যাসিও হাই স্কুলে অধ্যয়ন করেছেন। সেখানে ডেরিক আজানের তত্ত্বাবধানে ক্রিকেটে হাতে খড়ি ঘটে তার। ঐ প্রতিষ্ঠান থেকেই লরি উইলিয়ামস, কিথ হিবার্ট ও অডলি স্যানসনের ন্যায় ক্রিকেটারের উদ্ভব ঘটেছিল।

জ্যামাইকা কাউন্টি প্রতিযোগিতায় মিডলসেক্স ও কাইসার স্পোর্টস ক্লাবের পক্ষে খেলছেন। চমৎকার ব্যাটসম্যান হিসেবে যে-কোন ধরনের বোলিং আক্রমণ মোকাবেলায় সক্ষম তিনি। এছাড়াও, দলের প্রয়োজনে মাঝেমধ্যে উইকেট-রক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে থাকেন। জ্যামাইকার পক্ষে উদ্বোধনী জুটিতে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহের সাথে স্বীয় নামকে জড়িয়ে রেখেছেন। ফেব্রুয়ারি, ২০০১ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো চার শতাধিক রানের জুটি গড়েন। ক্রিস গেইলের সাথে ৪২৫ রানের জুটি গড়ে অপরাজিত অবস্থায় মাঠ ছাড়েন তিনি।[৩]

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন লিওন গারিক। ১৯ এপ্রিল, ২০০১ তারিখে কিংস্টনে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। ১৮ এপ্রিল, ২০০১ তারিখে ওয়েস্ট ইন্ডিজ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার সিরিজের পঞ্চম টেস্ট শুরু হবার শেষ মুহুর্তে লিওন গারিককে দলে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। অতঃপর, ১৯ এপ্রিল, ২০০১ তারিখে কিংস্টনের সাবিনা পার্কে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সদস্যরূপে টেস্টে অভিষেক ঘটে তার।

সিরিজের পঞ্চম টেস্টে অভিষেক পর্বটি মোটেই সুখকর হয়নি তার। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসের দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে প্রথম বলেই শূন্য রানে ফেরৎ যান তিনি। অ্যালান ডোনাল্ডের বলে শন পোলকের কটে পরিণত হন। এরপূর্বে নভেম্বর, ১৯৯২ সালে অভিষেকে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে প্রথম বলেই শূন্য রানে ফেরৎ যান জিমি কুক[৪] সফরকারী ভারতের বিপক্ষে কপিল দেবের উদ্বোধনী বল মোকাবেলা করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of West Indies Test Cricketers
  2. "West Indies – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  3. "Garrick & Gayle's 425-run stand"। ESPNCricinfo। ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০০১। সংগ্রহের তারিখ ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 
  4. Frindall, Bill (২০০৯)। Ask BeardersBBC Books। পৃষ্ঠা 200–201। আইএসবিএন 978-1-84607-880-4 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]