লিওনেল বার্কেট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লিওনেল বার্কেট
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামলিওনেল সিডনি বার্কেট
জন্ম(১৯০৫-০৪-১৪)১৪ এপ্রিল ১৯০৫
সেন্ট মাইকেল, বার্বাডোস
মৃত্যু১৬ জানুয়ারি ১৯৯৮(1998-01-16) (বয়স ৯২)
সেন্ট জেমস, বার্বাডোস
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক১২ ডিসেম্বর ১৯৩০ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ টেস্ট১৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৩১ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২৬
রানের সংখ্যা ১৩৬ ১২৯৫
ব্যাটিং গড় ১৭.০০ ৩৩.২০
১০০/৫০ -/১ ৩/৩
সর্বোচ্চ রান ৬৪ ২৫৩
বল করেছে ১২৬ -
উইকেট
বোলিং গড় ৭১.০০ ৫৬.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট - -
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ১/১৬ ২/৬
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৪/- ২২/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৮ মে ২০১৯

লিওনেল সিডনি বার্কেট (ইংরেজি: Lionel Birkett; জন্ম: ১৪ এপ্রিল, ১৯০৫ - মৃত্যু: ১৬ জানুয়ারি, ১৯৯৮) বার্বাডোসের সেন্ট মাইকেল এলাকার স্ট্রাথক্লাইডে জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১][২][৩] ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৩০ থেকে ১৯৩১ সময়কালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন।[৪] ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটে বার্বাডোস, গায়ানা, ত্রিনিদাদ ও টোবাগো দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, দলের প্রয়োজনে ডানহাতে মিডিয়াম বোলিং করতেন লিওনেল বার্কেট

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯২৪-২৫ মৌসুম থেকে ১৯৪৪-৪৫ মৌসুম পর্যন্ত লিওনেল বার্কেটের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ১৯৩০ সালে ব্রিটিশ গায়ানার বিপক্ষে ত্রিনিদাদের সদস্যরূপে ২৫৩ রান তুলে সকলের মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে উপনীত হন। হ্যারিসন কলেজে থাকা অবস্থায় বেশ ভালো খেলতেন। ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি চিনির ব্যবসার সাথেও জড়িত ছিলেন তিনি। ২০ বছরের অধিক সময় বার্বাডোস, ত্রিনিদাদ ও ব্রিটিশ গায়ানার সাথে খেলার পাশাপাশি ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে মোটে ২৬টি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিতে পেরেছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে চারটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পেয়েছিলেন তিনি। ১২ ডিসেম্বর, ১৯৩০ তারিখে অ্যাডিলেডে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তাঁর। একই দলের বিপক্ষে মেলবোর্নে ১৩ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩১ তারিখে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন।

১৯৩০-৩১ মৌসুমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের সহঃ অধিনায়ক হিসেবে দলকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়া গমন করেন। অভিষেক টেস্টে ব্যাটিং উদ্বোধনে নেমে ৬৪ রান তুলেছিলেন। কিন্তু এরপর তিনি তাঁর খেলার ছন্দ ফিরে পাননি। সিরিজের শেষ টেস্টে দল থেকে বাদ পড়েন। বিস্ময়করভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল স্বাগতিক দলের বিপক্ষে জয় তুলে নেয়। অস্ট্রেলিয়া সফরের পর ১৯৩৭ সাল পর্যন্ত আর কোন খেলায় অংশ নেননি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৬ জানুয়ারি, ১৯৯৮ তারিখে ৯২ বছর বয়সে বার্বাডোসের সেন্ট জেমস এলাকায় লিওনেল বার্কেটের দেহাবসান ঘটে। মৃত্যুকালীন তিনি বয়োঃজ্যেষ্ঠ জীবিত টেস্ট ক্রিকেটারের সম্মাননা পেয়েছিলেন। তাঁর মৃত্যুর পর ইংল্যান্ডের আল্ফ গোভার এ সম্মাননায় ভূষিত হন। তাঁর অপর ভ্রাতা থিওডর বার্কেট বার্বাডোসের পক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of West Indies Test Cricketers
  2. "West Indies – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৬ 
  3. "West Indies – Test Bowling Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৬ 
  4. ইএসপিএনক্রিকইনফোতে লিওনেল বার্কেট (ইংরেজি)

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]


পূর্বসূরী
জ্যাক নিউম্যান
বয়োঃজ্যেষ্ঠ জীবিত টেস্ট ক্রিকেটার
২৩ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৬ - ১৬ জানুয়ারি, ১৯৯৮
উত্তরসূরী
আল্ফ গোভার