রামপুর রাজ্য

স্থানাঙ্ক: ২৮°৪৮′ উত্তর ৭৯°০০′ পূর্ব / ২৮.৮° উত্তর ৭৯.০° পূর্ব / 28.8; 79.0
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে


রামপুর রাজ্য

দারুল ইনসান'
1774–1947
রামপুরের জাতীয় পতাকা
পতাকা
রামপুরের জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
জাতীয় মর্যাদাবাহী নকশা
নীতিবাক্য: "আল হুকুমু লিল্লাহ ওয়াল মুলকু লিল্লাহ"
(শাসন ও সার্বভৌমত্বের অধিকার শুধু আল্লাহর]]

লা ফাতাহ ইল্লাহ আলী; লা সাঈফ ইল্লাহ জুলফিকার.
'
(আলীর মতো বিজয়ী কেউ নেই, আর জুলফিকারের মতো কোন তরবারী নেই)
রামপুর রাজ্য (হলুদ অংশ)
রামপুর রাজ্য (হলুদ অংশ)
রাজধানীরামপুর
প্রচলিত ভাষাউর্দু, ইংরেজি
সরকাররাজতন্ত্র
Nawab of Rampur 
• 1754-1794
ফয়জুল্লাহ খান (প্রথম)
• 1794
মুহাম্মদ আলি খান
• 1794
গোলাম মুহাম্মদ খান
• 1794-1840
আহমদ আলি খান
• 1930-1966
রাজা আলি খান (শেষ)
ইতিহাস 
• প্রথম রোহিলা যুদ্ধ
৭ অক্টোবর 1774
১৫ আগস্ট 1947
আয়তন
1941২,৩১০ বর্গকিলোমিটার (৮৯০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা
• 1941
477,042
পূর্বসূরী
উত্তরসূরী
Fictional flag of the Mughal Empire.svg Mughal Empire
India
রামপুরের নবাব কালব আলী খান বাহাদুর, রাজত্ব ১৮৬৫-৮৭
ইমামবাড়া, উত্তর প্রদেশের রামপুরের দুর্গ, আনুমানিক ১৯১১
স্যার কালব আলী খান, রামপুরের নবাব (১৮৩২-১৮৮৭)

রামপুর রাজ্য ছিল ব্রিটিশ ভারতের ১৫ তোপ সেলামী দেশীয় রাজ্যঅউধের সাথে একটি চুক্তির ফলে ১৭৭৪ সালের ৭ অক্টোবর অস্তিত্ব লাভ করে। ১৯৪৭ সালে স্বাধীনতার পর রামপুর রাজ্য এবং আশেপাশের অন্যান্য দেশীয় রাজ্যগুলির যেমন , বেনারস এবং তেহরী-ঘারওয়াল মিলে তৈরি করা হয়েছিল যুক্ত প্রদেশ। রামপুর রাজ্যের রাজধানী ছিল রামপুর শহর এবং এর মোট আয়তন ছিল ৯৪৫ বর্গমাইল। [১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৭৭৪–৭৫ এর রোহিলা যুদ্ধ শুরু হয়েছিল যখন রোহিলারা আওধের নবাবের কাছে মারাঠা সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে ১৭৭২ সালে সামরিক সহায়তার জন্য তাদের নেওয়া ঋণ ফিরিয়ে দিতে যায়। । রোহিলারা পরাজিত হয় এবং অযোধ্যার নবাব ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির ওয়ারেন হেস্টিংসের সৈন্যর সহায়তায় তাদেরে তাদের সাবেক রাজধানী বেরেলী থেকে বহিষ্কৃত করে। রামপুরের রোহিলা রাজ্যটি নবাব ফয়জুল্লাহ খান দ্বারা ১ অক্টোবর ১৭৭৪ সালে ব্রিটিশ কমান্ডার কর্নেল চ্যাম্পিয়ন এর উপস্থিতিতে প্রতিষ্ঠিত হয় এবং এরপরে ব্রিটিশ সুরক্ষায় একটি নমনীয় রাষ্ট্র হিসাবে বিদ্যমান থাকে।

ফয়জুল্লাহ খান পশতুনদের মধ্যে একজন নেতা ছিলেন। তাঁর পরিবার মুঘল সাম্রাজ্যের সময় হিন্দুস্তানে (বর্তমান ভারত) চলে এসে বসতি স্থাপন করেছিল। পাঠানরা মোগল সাম্রাজ্যের উচ্চপদস্থ সৈন্য এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তা ছিল। রোহিলাদের জন্য রামপুর রাজ্য ছিল হিন্দুস্তানের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য।

রামপুরে নতুন দুর্গের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন এবং রামপুর শহরটি নবাব ফয়জুল্লাহ খান ১৭৭৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেন। মূলত এটি ক্যাথার নামে চারটি গ্রামের একটি গ্রুপ ছিল, যা ছিল রাজা রাম সিংহের নাম। প্রথম নবাব এই শহরের নাম 'ফয়েজাবাদ' রাখার প্রস্তাব করেছিলেন। তবে অন্যান্য অনেক জায়গা ফয়জাবাদ নামে পরিচিত ছিল তাই এর নাম পরিবর্তন করে মুস্তাফাবাদ ওরফে রামপুর করা হয়েছিল। নবাব ফয়জুল্লাহ খান ২০ বছর শাসন করেছিলেন। তিনি পণ্ডিতের এক মহান পৃষ্ঠপোষক ছিলেন এবং আরবী, ফারসি, তুর্কি এবং উর্দু পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ শুরু করেন যা এখনও রামপুর রাজা গ্রন্থাগারের বেশিরভাগ অংশ এই বইগুলো নিয়ে গড়ে তোলা। তাঁর মৃত্যুর পরে তাঁর পুত্র মুহাম্মদ আলী খান দায়িত্ব গ্রহণ করেন। চব্বিশ দিন পরে তাকে রোহিলা নেতারা হত্যা করে এবং নিহতের ভাই গোলাম মুহাম্মদ খানকে নবাব ঘোষণা করা হয়। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এই সুযোগ গ্রহণ করে এবং মাত্র ৩ মাস ২২ দিনের রাজত্বের পরে গোলাম মুহাম্মদ খান তাদের বাহিনী দ্বারা পরাজিত হয় এবং গভর্নর জেনারেল আহমদ আলী খান, প্রয়াত মুহাম্মদ আলী খানের পুত্রকে নতুন নবাব বানান। তিনি ৪৪ বছর শাসন করেন। তাঁর কোনও পুত্রসন্তান হয়নি, তাই গোলাম মুহাম্মদ খানের পুত্র মুহাম্মদ সাঈদ খান নতুন নবাবের পদ গ্রহণ করেন। তিনি নিয়মিত সেনাবাহিনী গড়ে তোলেন, আদালত প্রতিষ্ঠা করেন এবং কৃষকদের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতির জন্য অনেক কাজ করেছন। তাঁর পুত্র মুহাম্মদ ইউসুফ আলী খান তাঁর মৃত্যুর পরে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তাঁর পুত্র কালব আলী খান ১৮৬৫ সালে তাঁর মৃত্যুর পরে নতুন নবাব হন।

নবাব কালব আলী খান আরবী ও ফারসি ভাষাতে শিক্ষিত ছিলেন। তাঁর শাসনামলে রাজ্যে শিক্ষার মান উন্নয়নে অনেক কাজ করেন। ভাইসরয় লর্ড জন লরেন্সের সময় তিনি কাউন্সিলের সদস্যও ছিলেন। তিনি রামপুরে জামে মসজিদটি ৩০০,০০০ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করেছিলেন। আগ্রাতে তিনি প্রিন্স অফ ওয়েলস দ্বারা নাইট ভূষিত হন। তিনি ২২ বছর ৭ মাস রাজত্ব করেছিলেন। তাঁর মৃত্যুর পরে তার ছেলে মোশতাক আলী খান দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি ডব্লিউসি রাইটকে এস্টেটের প্রধান প্রকৌশলী নিযুক্ত করেন। তিনি অনেক নতুন ভবন এবং খাল নির্মাণ করেছিলেন। নবাব হামিদ আলী ১৪ বছর বয়সে ১৮৮৯ সালে নতুন শাসক হন। তাঁর রাজত্বকালে অনেকগুলি নতুন স্কুল খোলা হয়েছিল এবং আশেপাশের কলেজগুলিতে প্রচুর অনুদানের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। তিনি অনুদানের হিসাবে লখনউ মেডিকেল কলেজকে ৫০,০০০ - টাকা দিয়েছিলেন। ১৯০৫ সালে তিনি দুর্গের মধ্যে একটি দুর্দান্ত দরবার হল নির্মাণ করেছিলেন যা এখন রামপুর রাজা গ্রন্থাগারের অধীনে প্রাচ্য পুঁথির সংগ্রহালা হিসাবে রয়েছে। তাঁর ছেলে রাজা আলী খান ১৯৩০ সালে সর্বশেষ শাসক নবাব হন। নবাব রাজা আলী খান ছিলেন একজন অত্যন্ত প্রগতিশীল শাসক, যিনি হিন্দুদের অন্তর্ভুক্তিতে বিশ্বাসী ছিলেন এবং তাই লে। হরিলাল ভার্মাকে তাঁর প্রধানমন্ত্রী হিসাবে নিয়োগ করেন। ১৯৪৯ সালের ১ জুলাই রামপুর রাজ্যটি ভারতের প্রজাতন্ত্রের সাথে একীভূত হয়। রামপুর আজ কিছুটা ক্ষয়িষ্ণু ভাবে রয়েছে: নবাবদের প্রাসাদগুলি ও দুর্গের দরজা এবং দেয়ালগুলো ভেঙে পড়েছে। যাইহোক, গ্রন্থাগারটি বিশ্বজুড়ে পণ্ডিতদের কাছে অপরিসীম মূল্যবান একটি বিকাশকারী প্রতিষ্ঠান হিসাবে রয়েছে।

১৮৫৭ সালের ভারতীয় বিদ্রোহের সময়ে রামপুরের নবাবরা ব্রিটিশদের পক্ষে ছিলেন [২] এবং এটি তাদের উত্তর ভারতের সাধারণভাবে এবং বিশেষত সংযুক্ত প্রদেশের মুসলমানদের সামাজিক, রাজনৈতিক এবং সাংস্কৃতিক জীবনে অবদান রাখতে সক্ষম করেছিল। তারা বাহাদুর শাহ জাফরের দরবার থেকে কিছু সাহিত্যিককে আশ্রয় দিয়েছিল।

সঙ্গীত[সম্পাদনা]

রামপুরের নবাবরা তাঁদের দরবারে ঐতিহ্যবাহী সংগীতকে পৃষ্ঠপোষকতা করতেন। মেহবুব খান রামপুর রাজ্যের রাজদরবারের প্রধান খেয়াল সংগীতশিল্পী ছিলেন, তাঁর ঐতিহ্য তাঁর পুত্র ইনায়েত হুসেন খান (১৮৯৯-১৯১৯) অনুসরণ করেন এবং পরিবর্তে ইনায়াতের শ্যালক হায়দার খান (১৮৫৭–১৯২৭) এবং মোশতাক হুসেন খান ( মৃত্যু: ১৯৬৪ ), হিন্দুস্তানী ধ্রুপদী সংগীতের রামপুর-সহসওয়ান ঘরানার জন্ম দেয়,তাদের পূর্বপুরুষ সাহসওয়ান বর্তমান বদনউন জেলাতে অবস্থিত।

স্বাধীনতা পরবর্তী[সম্পাদনা]

নবাবদের গুরুত্বপূর্ণ বংশধররা হলেন রামপুরের মুর্তজা আলী খান বাহাদুরের প্রথম সন্তান মুরাদ মিয়াণ।

প্রাক্তন নবাবের বিধবা বেগম নূর বানো, রামপুরের জুলফিকিয়ার আলী খান রাজনীতিবিদ হয়েছিলেন এবং ১৯৯৯ সালে রামপুর সংসদীয় আসন থেকে নির্বাচনে জয়ী হন। তিনি ২০০৪ এবং ২০০৯ সালের নির্বাচনে হেরেছিলেন। মুর্তজা আলী খান এবং জুলফিকিউর আলী খান (ওরফে মিক্কিয়া মিয়া), যিনি স্বাধীনতা ও রাজকীয়তা বিলোপের পরেও নবাবের উপাধি টোকেন হিসাবে অব্যাহত রেখেছিলেন কিন্তু রামপুরকে কখনও শাসন করেননি, তারা এখন মারা গেছেন। মুর্তজা আলী ১৯ 197২ সালে তাঁর মা রাফাত জামানী বেগমের বিপরীতে রামপুর থেকে একটি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন এবং জিতেছিলেন। যদিও দুই ভাই সর্বদাই রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন, তারা নির্বাচনে কখনও একে অপরের মুখোমুখি হয়নি। পরবর্তীকালে, পরিবারটি পাকিস্তান থেকে পাচার সংক্রান্ত স্ক্যান্ডালে জড়িত ছিল, যেখানে মুর্তজা আলী বিয়ে করেছিলেন রাজা ইন্টার কলেজ, হামিদ ইন্টার কলেজ ও মুর্তজা ইন্টার কলেজ তিনটি নবাবের নামে তিনটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়।

রামপুরের শাসকগণ[সম্পাদনা]

রামপুরের নবাব নয়, নবাব মুহাম্মদ খান বাঙ্গসের একটি প্রতিকৃতি, ফারুকাবাদের নবাব, সিএ 1730, বাইবিলিথিক ন্যাশনালে দে ফ্রান্স, প্যারিস
নাম রাজত্ব শুরু রাজত্ব শেষ
1 ফয়জুল্লাহ খান ১৫ সেপ্টেম্বর ১৭৪৮ ২৪ জুলাই ১৭৯৩
হাফিজ রহমত খান - রিজেন্ট ১৫ সেপ্টেম্বর ১৭৪৮ ২৩ এপ্রিল ১৭৭৪
2 মুহাম্মদ আলী খান বাহাদুর ২৪ জুলাই ১৭৯৩ ১১ আগস্ট ১৭৯৩
3 গোলাম মুহাম্মদ খান বাহাদুর ১১ আগস্ট ১৭৯৩ ২৪ অক্টোবর ১৭৯৪
4 আহমদ আলী খান বাহাদুর ২৪ অক্টোবর ১৭৯৪ ৫ জুলাই ১৮৪০
নসরুল্লাহ খান - রিজেন্ট ২৪ অক্টোবর ১৭৯৪ ১৮১১
5 মুহাম্মদ সাইদ খান বাহাদুর ৫ জুলাই ১৮৪০ ১ এপ্রিল ১৮৫৫
6 ইউসুফ আলী খান বাহাদুর ১ এপ্রিল ১৮৫৫ ২১ এপ্রিল ১৮৬৫
7 কালব আলী খান বাহাদুর ২১ এপ্রিল ১৮৬৫ 23 মার্চ 1887
8 মুহাম্মদ মোশতাক আলী খান বাহাদুর ২৩ মার্চ ১৮৮৭ ২৫ ফেব্রুয়ারি ১৮৮৯
9 হামিদ আলী খান বাহাদুর ২৫ ফেব্রুয়ারি ১৮৮৯ ২০ জুন ১৯৩০
রিজেন্সি ২৫ ফেব্রুয়ারি ১৮৮৯ ৪ এপ্রিল ১৮৯৪
10 রাজা আলী খান বাহাদুর ২০ জুন ১৯৩০ ৬ মার্চ ১৯৬৬
11 মুর্তজা আলী খান বাহাদুর - একাত্তরে নবাবাত বিলুপ্ত হয় ৬ মার্চ ১৯৬৬ ৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৮২
12 মুরাদ আলী খান বাহাদুর - ১৯৭১ নবাবি বিলুপ্ত হয় ৮ ফেব্রুয়ারি ১৯৮২ তারিখ পর্যন্ত

উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

কুকুর শাবক[সম্পাদনা]

১৯১৫ সালে রামপুর হাউন্ডসহ একটি প্রাসাদের পরিচারক

রামপুরের নবাব আহমদ আলী খান রামপুর হাউন্ড নামে পরিচিত কুকুরের বংশ বৃদ্ধি করার কাজ শুরু করেন। রামপুর হাউন্ড তার প্রত্যাশাকে ছাড়িয়ে গিয়েছিল। তিনি আজ্ঞাবহ কিন্তু স্থানীয় আবহাওয়ার তুলনায় কম প্রতিরোধী ইংরেজ গ্রেহাউন্ডের কুকুরের সাথে আফগান তাজি হিংস্র কুকুরের সংমিশ্রণে এই কুকুরদের বংশবৃদ্ধির চেষ্টা করেছিলেন। তিনি যে কুকুর প্রজনন করেছিলেন তার নাম দিয়েছেন 'রামপুর হাউন্ড'।

রন্ধনপ্রণালী[সম্পাদনা]

বছরের পর বছর ধরে রাজদরবারের রান্নাগুলি নবাবদের শেফদের দ্বারা বিকশিত রামপুরী খাবারের উত্সাহ দেয়। ১৮৫৭ ভারতীয় বিদ্রোহের পরে, মুঘল রাজকীয় আদালত থেকে খানসামগুলি (শেফ) রামপুরে স্থানান্তরিত হয় এবং তারা তাদের সাথে মোগল খাবারের ঐতিহ্য নিয়ে আসে।[৩] আস্তে আস্তে অন্যান্য স্থানের লোকেরাও এখানে একটি আশ্রয়স্থল খুঁজে পেল এবং আধি, হায়দরাবাদ এবং কাশ্মীরি রান্নার প্রভাব যুক্ত করে [৪] রামপুরী মাছ, রামপুরী কোরমা, রামপুরী মাটন কাবাব, দুধিয়া বিরিয়ানি এবং আদ্রাক কা হালওয়ার মতো রান্নাঘর থেকে রান্না করা রেসিপিগুলির সাথে স্বাদ এবং খাবারের জন্যও রামপুর পরিচিত ছিল। [৫][৬][৭]

সংগীত[সম্পাদনা]

মেহবুব খান রামপুর রাজ্যের রাজদরবারের প্রধান খেয়াল সংগীতশিল্পী ছিলেন, তাঁর ঐতিহ্য তাঁর পুত্র ইনায়েত হুসেন খান (১৮৯৯-১৯১৯) অনুসরণ করেছিলেন এবং পরিবর্তে ইনায়াতের শ্যালক হায়দার খান (১৮৫৭-১৯২৭) , এবং  মোশতাক হুসেন খান (মৃত্যু: ১৯৬৪), হিন্দুস্তানী ধ্রুপদী সংগীতের রামপুর-সহসওয়ান ঘরানার জন্ম দেয়, সাহসওয়ান বর্তমান বদায়ু জেলায় অবস্থিত।[৮]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hunter, William Wilson (১৮৮১)। The imperial gazetteer of India। Trübner & Company। পৃষ্ঠা 544–546। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  2.  চিসাম, হিউ, সম্পাদক (১৯১১)। ব্রিটিশ বিশ্বকোষ (১১তম সংস্করণ)। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। [[বিষয়শ্রেণী:নিবন্ধ পরামিতি ছাড়া ১৯১১ সালের এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা থেকে উইকিপিডিয়া নিবন্ধসমূহে উদ্ধৃতি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে]]
  3. "Kebabs, kings and other Rampuri tales"। MiD DAY। ২৬ মার্চ ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০১৩ 
  4. "The Rampuri flavour: The Rampuri food festival at Mascot Hotel takes you on a voyage of discovery"The Hindu। ৩০ আগস্ট ২০০৪। ২২ ডিসেম্বর ২০০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মে ২০১৩ 
  5. "The culinary cartographer"Mint। ২২ জানুয়ারি ২০১০। 
  6. "Sharp cuts from the Rampuri !"Business Standard। ৭ জানুয়ারি ২০০৭। 
  7. "Mutton Korma in Rampur"Indian Express। ২৮ আগস্ট ২০০৫। 
  8. Wade. p. 136

গ্রন্থপুঞ্জী[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]