রবার্ট ল্যাংডন (কাল্পনিক চরিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রবার্ট ল্যাংডন বুক সিরিজ
লেখকড্যান ব্রাউন
দেশযুক্তরাষ্ট্র

রবার্ট ল্যাংডন ড্যান ব্রাউন লিখিত বই সিরিজ এর একজন চরিত্র ও নায়ক । তিনি কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় এর একজন সিম্বল বিশেষজ্ঞ এবং একজন তুখোড় কোড ব্রেকার । এ সিরিজ এর প্রতিটি বই এ তিনি কোড ব্রেকিং এর মাধ্যমে রহস্যের কিনারা করেছেন । [১]

বই সমূহ[সম্পাদনা]

দ্য ডা ভিঞ্চি কোড[সম্পাদনা]

প্রকাশিত ২০০৩ সালে

ল্যুভ্র জাদুঘরের কিউরেটর জ্যাক সনিয়ে এক রাতে জাদুঘরের মধ্যেই গুলিবিদ্ধ হন। তাকে গুলি করে সাইলাস নামের একজন ক্যাথলিক সন্ন্যাসী যে কিনা টিচার নামের এক গুপ্ত পরিচয়ের লোকের জন্য কাজ করে। টিচারের নির্দেশ মোতাবেক সে জ্যাক সনিয়ের কাছ থেকে কি স্টোন এর অবস্থান জানতে চায়। আর এই কি স্টোনই হল হলি গ্রেইল খুঁজে পাওয়ার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ সূত্র। জ্যাক সনিয়ে মারা যাওয়ার আগে তিনি তার নিজের শরীরকে ভিটরুভিয়ান ম্যানের মত আকৃতি করে রাখেন এবং কিছু গুপ্ত সংকেত এঁকে যান। পুলিশ এসে মৃত দেহ উদ্ধার করে এবং রবার্ট ল্যাংডনকে ডেকে পাঠায়। ঘটনাক্রমে রবার্ট ল্যাংডন তার লেকচার দেওয়ার জন্য প্যারিসেই ছিলেন । পুলিশের ক্যাপ্টেন বেজু ফশে রবার্ট ল্যাংডনকে জ্যাক সনিয়ের রেখে যাওয়া গুপ্ত সংকেত উদ্ধারের জন্য তার সাহায্য চান। এই গুপ্ত সংকেতের একটি লাইনে ফিবোনাচ্চি অনুক্রম এলোমেলো ভাবে লেখা ছিল। ল্যাংডন ফশেকে জানান যে জ্যাক সনিয়ের প্রাচীন দেবীদের উপর শিল্পকর্ম বিষয়ে অগাধ পাণ্ডিত্য ছিল। আর জ্যাক সনিয়ের নিজের দেহের উপর এঁকে যাওয়া পেন্টাকল দেবীদের প্রতীকেরই প্রতিনিধিত্ব করে যদিও ফশে মনে করেন সেটা শয়তান পূজার সাথে সম্পর্কিত।

এদিকে ফশেকে কৌশলে অন্যদিকে সরিয়ে দিয়ে পুলিশের ক্রিপ্টোগ্রাফার সোফি নেভু ল্যাংডনকে জানান যে সে সনিয়ে তার দাদু হন। যদিও তারা অনেক বছর ধরে কথা বলেন না বা যোগাযোগ করেন না। সোফির মনে তার দাদুকে নিয়ে একটি বাজে স্মৃতি প্রায়ই তাড়া করে বেড়ায়। সোফি ল্যাংডনকে আরো জানান যে ফশে তাকেই সনিয়ে হত্যার খুনী হিসেবে মনে করে। ফশের এমন মনে হওয়ার কারণ প্রসঙ্গে সোফি ল্যাংডনকে জানান যে সনিয়ে যে গুপ্ত সংকেত লিখে গিয়েছিলেন তার একটি লাইনে লেখা ছিল "পি. এস. রবার্ট ল্যাংডনকে খুঁজে বের কর"। আর ল্যাংডন আসার আগেই ফশে তা মুছে দিয়েছে যেন সে তা দেখতে না পায়। কিন্তু সোফি ঠিকই বুঝতে পারে যে তার দাদু চাইছিলেন যে ল্যাংডন তার গুপ্ত সংকেতের অর্থ উদ্ঘাটন করুক। তাই সোফি তার কাছে ছুটে এসেছে। এর মধ্যেই তারা বের করতে পারে যে সত্য উদ্ঘাটনের জন্য তাদেরকে জুরিখ ডেপোজিটরি ব্যাংক, প্যারিস শাখায় যেতে হবে। তারা কোন মতে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে সেখানে পৌঁছায়। সেখানে তারা খুঁজে পায় একটি অদ্ভুত বাক্স। বাক্স খুলে দেখে সেখানে কি স্টোন রাখা। আর এই কি স্টোনটা হল একটা ক্রিপটেক্স। ক্রিপটেক্স অনেকটা পাথরের চোঙা জাতীয় জিনিস। এটি কাজ করে অনেকটা বাইসাইকেল কম্বিনেশন লকের মতো। ক্রিপটেক্সটার পাঁচটা ডায়াল আছে। যদি সঠিক পাসওয়ার্ড দিয়ে ঠিক মতো মেলানো যায়, তবেই চোঙাটা খুলবে এবং এর মধ্যে প্যাপিরাস কাগজে লিখিত একটি বার্তা পাওয়া যাবে। কিন্তু কেউ যদি জোর ক'রে খুলতে যায়, তবে এর মধ্যে রক্ষিত কাচের টিউবটি ভেঙে যাবে, আর কাচের টিউবের ভিতরে থাকা ভিনেগার সঙ্গে সঙ্গেই প্যাপিরাসকে ভিজিয়ে দেবে। সুতরাং গোপন বার্তাটা কেউ পড়তে চাইলে, সেটা একটা অর্থহীন মণ্ড ছাড়া আর কিছুই পাবে না।

ল্যাংডন সোফিকে নিয়ে কি স্টোন সহ তার বন্ধু স্যার লেই টিবিং-এর বাড়িতে যান। টিবিংকে হলি গ্রেইল এর উপর একজন বিশেষজ্ঞ বলা যায়। সেখানে টিবিং ব্যাখ্যা করে বুঝিয়ে দেন যে গ্রেইল কোন একটি সাধারণ পেয়ালা নয় বরং তা হল একটি সমাধি যাতে ম্যারি ম্যাগদালিনের হাড়গোড় রাখা আছে। তারপরে তারা তিনজন টিবিং-এর ব্যক্তিগত বিমানে ফ্রান্স থেকে পালিয়ে যান। বিমানের মধ্যে তারা বের করে যে ক্রিপটেক্সটার পাসওয়ার্ড হল সোফি নেভুর নামের প্রথম অংশ "SOFIA"। তারা সেটিকে খুলে ফেলে। কিন্তু তাদের হতাশ করে সেই ক্রিপটেক্সটার ভেতরে ছোট আরও একটা ক্রিপটেক্স, আরও একটা ধাঁধাঁ। তারা বুঝতে পারে যে এই ধাঁধাঁর সমাধানের জন্য তাদেরকে শেষপর্যন্ত ওয়েস্টমিনিস্টার অ্যাবিতে স্যার আইজাক নিউটনের সমাধিতে যেতে হবে।

তার কাল্পনিক বই সমূহ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ইংলিশ উইকিপিডিয়া ও বাতিঘর প্রকাশনী এর মোহাম্মদ নাজিমউদ্দীন অনুবাদিত ইনফার্নো