রঙ (বর্ণ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রঙ পেন্সিল

রঙ বা বর্ণ (ইংরেজি: coloure) হল মানুষের দৃষ্টি-সংক্রান্ত একটি চিরন্তন ধর্ম। আলোর বর্ণালি থেকে রঙ উৎপত্তি লাভ করে। বিভিন্ন কারণে মানুষের কাছে রঙ এর পার্থক্য হয়ে থাকে। সাধারনত বলা হয়ে থাকে মৌলিক রঙ তিনটি, যথা-লাল, সবুজ ও নীল। তবে এর মাঝে কিছু পার্থক্যও আছে, কারণ কোন কিছু প্রিন্ট করার ক্ষেত্রে মৌলিক রঙ হিসেবে লাল, হলুদ ও নীল রঙ-কে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

রঙের বিজ্ঞান[সম্পাদনা]

দৃশ্যমান আলোর নানা রঙ[১]
রঙ তরঙ্গদৈর্ঘ্য (ন্যানোমিটার) কম্পাঙ্ক (টেরাহার্জ)
লাল ~ ৭০০–৬৩৫  ~ ৪৩০–৪৮০ 
কমলা ~ ৬৩৫–৫৯০  ~ ৪৮০–৫১০ 
হলুদ ~ ৫৯০–৫৬০  ~ ৫১০–৫৪০ 
সবুজ ~ ৫৬০–৪৯০  ~ ৫৪০–৬১০ 
নীল ~ ৪৯০–৪৫০  ~ ৬১০–৬৭০ 
বেগুনী ~ ৪৫০–৪০০  ~ ৬৭০–৭৫০ 

বিদ্যুত চুম্বকীয় বিকিরণের সাধারণ ধৰ্মসমূহ হচ্ছে তরঙ্গদৈৰ্ঘ্য , কম্পনাংক ও এর দ্বীপন প্ৰাবল্য। যত বিকিরণ তরঙ্গ‌দৈৰ্ঘ্য দৃশ্যমান বৰ্ণালীর সীমার ভিতরে থাকে ততটুকু মানব চক্ষুতে বিভিন্ন রঙ হিসেবে দেখা যায়। দৃশ্যমান বৰ্ণালীর সীমা প্ৰায় ৩৯০ ন্য়া‌নোমিটার থেকে ৭০০ ন্য়া‌নোমিটার। একে দৃশ্যমান আলো বলা হয়।

সব আলোর উৎস‍ই সাধারণত একসঙ্গে বিভিন্ন তরঙ্গ‌দৈৰ্ঘ্যের আলো নিৰ্গত করে কোনো একটা উৎসের বৰ্ণালীতে এর পরে নিৰ্গত বিভিন্ন তরঙ্গদৈৰ্ঘ্যের আলোর প্ৰাবল্যের তথ্য দিয়ে।

বৰ্ণালীর রঙ[সম্পাদনা]

স্পেকট্রামে রামধনুর পরিচিত রঙগুলি আইজ্যাক নিউটন ১৬৭১ সালে ল্যাটিন শব্দটির উপস্থিতি বা সংশ্লেষের জন্য ব্যবহার করেছেন যা সেই সমস্ত রঙের অন্তর্ভুক্ত যা কেবলমাত্র একক তরঙ্গ দৈর্ঘ্যের দৃশ্যমান আলো দ্বারা উত্পাদিত হতে পারে( খাঁটি বর্ণালী বা একরঙা বর্ণগুলি)। ডানদিকে টেবিলটি বিভিন্ন খাঁটি বর্ণালী বর্ণের জন্য আনুমানিক ফ্রিকোয়েন্সি (টেরেহার্টজে) এবং তরঙ্গদৈর্ঘ্য (ন্যানোমিটারগুলিতে) দেখায়। তালিকাভুক্ত তরঙ্গদৈর্ঘ্যগুলি বায়ু বা ভ্যাকুয়াম হিসাবে পরিমাপ করা হয় (রিফ্রেসিভ সূচক দেখুন)। রঙ টেবিলটিকে একটি নির্দিষ্ট তালিকা হিসাবে ব্যাখ্যা করা উচিত নয় — খাঁটি বর্ণালী বর্ণগুলি একটি ধারাবাহিক বর্ণালী গঠন করে এবং ভাষাগতভাবে এটি কীভাবে পৃথক বর্ণগুলিতে বিভক্ত করা হয় তা সংস্কৃতি এবং ঐতিহাসিক আক্রমণের বিষয় (যদিও সর্বত্র লোকেরা বর্ণগুলি বর্ণ হিসাবে দেখানো হয়েছে) একইভাবে )। একটি সাধারণ তালিকা ছয়টি প্রধান ব্যান্ড সনাক্ত করে: লাল, কমলা, হলুদ, সবুজ, নীল এবং বেগুনি। নিউটনের ধারণায় নীল এবং বেগুনি রঙের মধ্যে একটি সপ্তম রঙ, নীল অন্তর্ভুক্ত ছিল। এটা সম্ভব যে নিউটন যা নীল হিসাবে উল্লেখ করেছেন তা আজ সায়ান হিসাবে পরিচিত, এবং সেই নীলটি কেবল সেই সময় নীল রঙের আমদানি করা নীল রঙের নীল ছিল। বর্ণালী বর্ণের তীব্রতা, এটি যে প্রসঙ্গে দেখা হয়েছে তার সাথে তুলনামূলকভাবে তার উপলব্ধিটি যথেষ্ট পরিবর্তন করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, কম-তীব্রতার কমলা-হলুদ হল বাদামী এবং কম-তীব্রতার হলুদ-সবুজ হল জলপাই সবুজ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]