রকেট প্রোপেল্যান্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
উৎক্ষেপণের মুহূর্তে একটি Delta IV Heavy. রকেটটি সম্পূর্ণরূপে তরল হাইড্রোজেন এবং তরল অক্সিজেন ক্রায়োজেনিক জ্বালানীপূর্ণ।

রকেটের প্রোপেল্যান্ট হলো রকেটের প্রতিক্রিয়া ভর। ধাক্কা উৎপাদনের জন্য এই প্রতিক্রিয়া ভরকে রকেট ইঞ্জিন থেকে সর্বোচ্চ অর্জনযোগ্য বেগে নির্গমন করা হয়। প্রয়োজনীয় শক্তি হয় রাসায়নিক রকেটের মতো প্রোপেল্যান্ট থেকে, বা আয়ন ইঞ্জিনের মতো কোনও বাহ্যিক উৎস থেকে আসতে পারে।

ভূমিকা[সম্পাদনা]

রকেট পিছন থেকে উচ্চ গতিতে ভর নির্গমনের মাধ্যমে ধাক্কা তৈরি করে। প্রপেলেন্টগুলির ভর প্রবাহ হারকে রকেটের সাপেক্ষে তাদের নির্গমন বেগ দ্বারা গুণ করে উৎপাদিত ধাক্কা গণনা করা যেতে পারে। রকেটের ত্বরণের কারণ হিসেবে দহনকক্ষ এবং অগ্রভাগের বিরুদ্ধে জ্বলন্ত গ্যাসের চাপকে ধরে নেয়া যেতে পারে, রকেটের পিছন বা নীচ থেকে বাতাসের বিরুদ্ধে "ঠেলাকে" নয়। ইঞ্জিনের বাইরের অংশে বায়ুচাপ না থাকার কারণে রকেট ইঞ্জিনগুলি মহাশূন্যে সবচেয়ে বেশি কার্যকর হয়। মহাশূন্যে প্রবাহ বিচ্ছিন্নতায় না ভুগে দীর্ঘতর নজল ফিট করা সম্ভব।

বেশিরভাগ রাসায়নিক প্রোপেল্যান্টগুলি জারণ বিজারণ বিশেষত দহনের মাধ্যমে শক্তি নির্গত করে। যেমন, একটি জারক এবং একটি বিজারক (জ্বালানী) উভয়ই মিশ্রণে উপস্থিত থাকতে হবে। মনোপ্রোপেল্যান্ট রকেটগুলিতে অত্যন্ত অস্থিতিশীল পারক্সাইড বন্ধনগুলিও শক্তির উৎস হতে পারে।

বাইপ্রোপেল্যান্ট তরল রকেটের ক্ষেত্রে সাধারণত চাপ কাটিয়ে ওঠার জন্য টার্বোপাম্প ব্যবহার করে বিজারক জ্বালানী এবং জারকের মিশ্রণটি দহনকক্ষে মিলিত করা হয়। দহনের সাথে সাথে তরল প্রোপেল্যান্ট ভর উচ্চ তাপমাত্রা এবং চাপের গ্যাসে রূপান্তরিত হয়। এই নিষ্কাশন প্রবাহ উচ্চ গতিতে ইঞ্জিনের অগ্রভাগ থেকে বের হয়ে আসে এবং একটি বিরোধী শক্তি তৈরি করে যা রকেটকে নিউটনের গতির সূত্রানুসারে সমুখে চালিত করে।

পারমাণবিক প্লাজমা[সম্পাদনা]

ওরিয়ন প্রকল্প এবং অন্যান্য পারমাণবিক পালস প্রোপালশন প্রস্তাবগুলিতে প্রোপেল্যান্ট হলো একাধিক পরমাণু বিস্ফোরণ থেকে সৃষ্ট প্লাজমা ধ্বংসাবশেষ।[১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. G.R. Schmidt; J.A. Bunornetti; P.J. Morton। Nuclear Pulse Propulsion – Orion and Beyond (PDF)। 36th AIAA / ASME / SAE / ASEE Joint Propulsion Conference & Exhibit, Huntsville, Alabama, 16–19 July 2000। AlAA 2000-3856।