যোসেফ ম্যাকমাস্টার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
যোসেফ ম্যাকমাস্টার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামযোসেফ এমিলি প্যাট্রিক ম্যাকমাস্টার
জন্ম(১৮৬১-০৩-১৬)১৬ মার্চ ১৮৬১
গিলফোর্ড, কাউন্টি ডাউন, আয়ারল্যান্ড
মৃত্যু৭ জুন ১৯২৯(1929-06-07) (বয়স ৬৮)
লন্ডন, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
সম্পর্কমাইকেল ম্যাকমাস্টার (পুত্র)
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
একমাত্র টেস্ট
(ক্যাপ ৬৭)
২৫ মার্চ ১৮৮৯ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা
ব্যাটিং গড় ০.০০ ০.০০
১০০/৫০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান
বল করেছে
উইকেট
বোলিং গড় - -
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং - -
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/০ ০/০
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২০ জুলাই ২০১৯

যোসেফ এমিলি প্যাট্রিক ম্যাকমাস্টার (ইংরেজি: Joseph McMaster; জন্ম: ১৬ মার্চ, ১৮৬১ - মৃত্যু: ৭ জুন, ১৯২৯) কাউন্টি ডাউনের গিলফোর্ড এলাকায় জন্মগ্রহণকারী আইরিশ বংশোদ্ভূত প্রথিতযশা ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ও আম্পায়ার ছিলেন। ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন এমিলি ম্যাকমাস্টার নামে পরিচিত যোসেফ ম্যাকমাস্টার। ১৮৮৯ সালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন।

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৮৮৮-৮৯ মৌসুমে যোসেফ ম্যাকমাস্টারের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। তার সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবন একটিমাত্র টেস্ট ও প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট নিয়ে গড়া ছিল।[১] ক্রিকেটের ইতিহাসে একটিমাত্র প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে খেলায় অংশগ্রহণের ন্যায় অনবদ্য ঘটনায় নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন। এ খেলাটিই পরবর্তীকালে টেস্ট খেলায় মর্যাদা লাভ করেছিল। এভাবেই তার প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন মাত্র দুইদিনেই শেষ হয়ে যায়।

হ্যারো স্কুলে অধ্যয়ন করেন তিনি। বেশ কয়েকজন ক্লাব ক্রিকেটারের অন্যতম হিসেবে ১৮৮৮-৮৯ মৌসুমে ইংরেজ দলের সদস্যরূপে দক্ষিণ আফ্রিকা গমন করেছিলেন। অধিকাংশ প্রাদেশিক দলের বিপক্ষে ব্যাটসম্যান হিসেবে অংশ নিয়েছিলেন। তবে, কোনটিই প্রথম-শ্রেণীর মর্যাদাপ্রাপ্ত ছিল না। সাউথ ওয়েস্টার্ন ডিস্ট্রিক্টসের বিপক্ষে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ অপরাজিত ৩৪ রান তুলেন।[২]

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে একটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন। ২৫ মার্চ, ১৮৮৯ তারিখে কেপটাউনে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এটিই তার একমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ ছিল। সর্বাপেক্ষা বাজে টেস্ট খেলোয়াড়ী জীবন অতিবাহিত করেছেন তিনি। তার পরের স্থানেই অবস্থান করছেন রেজিনাল্ড উড

২৫ মার্চ, ১৮৮৯ তারিখে কেপটাউনে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট খেলার জন্যে তাকে মনোনীত করা হয়েছিল। ইংল্যান্ড প্রথমে ব্যাটিং করে ২৯২ রান তুলে। নয় নম্বরে ব্যাটিংয়ে নামেন। প্রথম বলেই শূন্য রানে বিদেয় নেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ইনিংস ৪৭ ও ৪৩ রানে গুটিয়ে যায়। ইংরেজ তারকা ক্রিকেটার জনি ব্রিগসের ২৮ রান খরচায় ১৫ উইকেট লাভ খেলার উল্লেখযোগ্য ঘটনা ছিল। খেলাটি মাত্র দুইদিনেই শেষ হয়ে গিয়েছিল।[৩]

অবসর[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের দুই মৌসুম পর দক্ষিণ আফ্রিকায় তিনটি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় আম্পায়ারিত্ব করেন।[৪] ৭ জুন, ১৯২৯ তারিখে ৬৮ বছর বয়সে লন্ডনে যোসেফ ম্যাকমাস্টারের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Herschelle the bully"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২১ মার্চ ২০১৮ 
  2. South Western Districts v R.G. Warton's XI 1888-89
  3. South Africa v England, Cape Town 1888-89
  4. Emile McMaster as umpire

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]