যোসেফ উইলোবি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
যোসেফ উইলোবি
JT Willoughby of SA.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামযোসেফ থমাস উইলোবি
জন্ম৭ নভেম্বর, ১৮৭৪
অল্ডারশট, হ্যাম্পশায়ার, ইংল্যান্ড
মৃত্যু১১ মার্চ, ১৯৫২
প্লামস্টিড, কেপটাউন, দক্ষিণ আফ্রিকা
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৩০)
১৩ ফেব্রুয়ারি ১৮৯৬ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট২১ মার্চ ১৮৯৬ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা
ব্যাটিং গড় ২.০০ ২.০০
১০০/৫০ ০/০ ০/০
সর্বোচ্চ রান
বল করেছে ২৭৫ ২৭৫
উইকেট
বোলিং গড় ২৬.৫০ ২৬.৫০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ২/৩৭ ২/৩৭
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ০/- ০/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৭ মার্চ ২০১৯

যোসেফ থমাস উইলোবি (ইংরেজি: Joseph Willoughby; জন্ম: ৭ নভেম্বর, ১৮৭৪ - মৃত্যু: ১১ মার্চ, ১৯৫২) হ্যাম্পশায়ারের অল্ডারশট এলাকায় জন্মগ্রহণকারী ইংরেজ বংশোদ্ভূত দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন।[১][২][৩]

দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৮৯৬ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও নিচেরসারিতে ডানহাতে ব্যাটিংয়ে পারদর্শী ছিলেন যোসেফ উইলোবি

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে দুইটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ পেয়েছিলেন যোসেফ উইলোবি। এ দুটি খেলাই তার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অংশগ্রহণ ছিল। ১৮৯৫-৯৬ মৌসুমে স্যার টিম ও’ব্রায়ানের নেতৃত্বে ইংরেজ দল তিন টেস্ট নিয়ে গড়া সিরিজ খেলার উদ্দেশ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা গমন করে। ১৩ ফেব্রুয়ারি, ১৮৯৬ তারিখে পোর্ট এলিজাবেথের ক্রুসেডার্স গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠিত ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টে অভিষেক ঘটে তার। ঐ টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে - এফ.জে. কুক, আর.এ. গ্লিসন, সি.এফ.ডব্লিউ. হাইম, জে. মিডলটন, আর.এম. পুর, জে.এইচ. সিনক্লেয়ার, জে.টি. উইলোবি এবং ইংল্যান্ডের পক্ষে - এইচ.আর. ব্রোমলি-ডেভেনপোর্ট, এইচ.আর. বাট, সি.বি. ফ্রাই, দ্য সেভেন্থ লর্ড হক, টি.ডব্লিউ. হেওয়ার্ড, এ.জে.এল. হিল, এ.এম. মিলার, সি.ডব্লিউ. রাইট, এস.এম.জে. উডসের একযোগে অভিষেক পর্ব সম্পন্ন হয়েছিল। জর্জ লোহম্যানকে উভয় ইনিংসেই শূন্য রানে বিদেয় করেন তিনি। অপরদিকে, জর্জ লোহম্যানও তাকে উভয় ইনিংসে শূন্য রানে প্যাভিলিয়নে ফেরৎ পাঠিয়েছিলেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার এ. বি. ট্যানক্রেড, ইন্স, রিচার্ডসরো - সম্পূর্ণরূপেই ব্যর্থ হয়েছিলেন। জর্জ লোহম্যান দ্বিতীয় ইনিংসে অসাধারণ বোলিংশৈলী উপহার দেন। হ্যাট্রিকসহ ৮/৭ করে নতুন টেস্ট রেকর্ড গড়েন ও স্বাগতিকদেরকে মাত্র ৩০ রানে গুটিয়ে দেন। দক্ষিণ আফ্রিকার ঐ ইনিংসটি ১৯৫৪-৫৫ মৌসুমে নিউজিল্যান্ডের ২৬ রান করা পর্যন্ত সর্বনিম্ন দলীয় ইনিংসরূপে স্বীকৃতি পায়। খেলায় তার দল ২৮৮ রানে সফরকারীদের কাছে পর্যদুস্ত হয়। খেলায় উইলোবি মোট চার উইকেট পান।

দ্বিতীয় টেস্টে তাকে দলের বাইরে রাখা হয়। কেপটাউনের নিউল্যান্ডসের তৃতীয় টেস্টে অংশ নেন। খেলায় তার দল ইনিংস ও ৩৩ রানে পরাজিত হয়। এরপর আর তাকে টেস্ট ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১১ মার্চ, ১৯৫২ তারিখে কেপটাউনের প্লামস্টিডে ৭৮ বছর বয়সে যোসেফ উইলোবি’র দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "South Africa – Players by Test cap"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০১৬ 
  2. "South Africa – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৬ 
  3. "South Africa – Test Bowling Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৬ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]