যিহূদীয়-খ্রীষ্টীয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

যিহূদীয়-খ্রীষ্টীয়[১] (হিব্রু ভাষায়: המסורת היהודית-נוצרית‎; আরবি: التراث اليهودي المسيحي‎‎; ইংরেজি: Judeo-Christian) পরিভাষাটি খ্রিস্টধর্মইহুদিধর্মকে একত্রে শ্রেণিবদ্ধ করতে ব্যবহৃত হয়, হয় ইহুদিধর্ম থেকে খ্রিস্টধর্মের উৎপত্তি প্রসঙ্গে, উভয় ধর্মের বাইবেলের সাধারণ ব্যবহার অথবা উভয় ধর্মের মধ্যে উপলব্ধ সমান্তরালতা বা অভিন্নতা ও শেয়ারকৃত মূল্যবোধের কারণে।[ক][৩]

“যিহূদীয়-খ্রীষ্টীয়” শব্দটি প্রথম ১৯শ শতকে ইহুদিদের খ্রিস্টধর্মে ধর্মান্তরিত করার শব্দ হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল। জার্মান Judenchristlich (যিহূদী খ্রীষ্টান) শব্দটি ফ্রিডরিখ নিৎশে ইহুদি ও খ্রিস্টান বিশ্বের দৃষ্টিভঙ্গির মধ্যে ধারাবাহিকতা বর্ণনা করতে ব্যবহার করেছিলেন।[৪][৫]

স্নায়ুযুদ্ধের সময় এই শব্দটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কমিউনিজমের বিপরীতে অবিচ্ছিন্ন আমেরিকান পরিচয়ের ইঙ্গিত দেওয়ার জন্য ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়েছিল। ধর্মতত্ত্ববিদ ও লেখক আর্থার এ. কোহেন তার ‘দ্য মিথ অব দ্য জুডেও-ক্রিশ্চিয়ান ট্র‍্যাডিশন’ গ্রন্থে যিহূদীয়-খ্রীষ্টীয় ধারণাটির ধর্মতাত্ত্বিক বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, তিনি দাবি করেছেন যে এটি মূলত আমেরিকান রাজনীতির একটি আবিষ্কার ছিল।[৬]

এর সাথে সম্পর্কিত পরিভাষা “অব্রাহামীয় ধর্মের” মধ্যে ইহুদিধর্ম ও খ্রিস্টধর্ম ছাড়াও ইসলাম, দ্রুজ, বাহাই ধর্ম ও অন্যান্য ধর্ম অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।[৭][৮]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আন্তঃগোষ্ঠী সম্পর্ক[সম্পাদনা]

যিহূদী প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. "From all I can see there is but one way to bring about the object of the Society, that is by erecting a Judæo Christian community, a city of refuge, where all who wish to be baptized could be supplied with the means of earning their bread."[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. এই নামটির বাংলা প্রতিবর্ণীকরণে উইকিপিডিয়া:বাংলা ভাষায় বাইবেলীয় শব্দের প্রতিবর্ণীকরণে ব্যাখ্যাকৃত নীতিমালা অনুসরণ করা হয়েছে।
  2. M'Caul, Alexander (১৮২০–১৮২১)। "Extract of a Letter From Mr. M'Caul"The Jewish Expositor, and Friend of IsraelV: 478। 
  3. Judæo-, Judeo- in the Oxford English Dictionary, Second Edition. Accessed online 2008-07-21
  4. Wolff, Joseph (১৮২৯)। Missionary Journal of the Rev. Joseph Wolff, Missionary to the JewsIII। London: James Duncan। পৃষ্ঠা 314। 
  5. Silk, Mark (১৫ এপ্রিল ২০১৯)। "Mark Silk on the history of the term 'Judeo-Christian'"National Catholic Reporter। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০২০ 
  6. Orwell, George (২০১৭-০২-০৪)। George Orwell: An age like this, 1920-1940 (ইংরেজি ভাষায়)। David R. Godine Publisher। পৃষ্ঠা 401। আইএসবিএন 9781567921335 
  7. Aaron W. Hughes (২০১২)। Abrahamic Religions: On the Uses and Abuses of History। Oxford University Press। পৃষ্ঠা 71–75। আইএসবিএন 9780199934645 
  8. Loeffler, James (আগস্ট ১, ২০২০)। "The Problem With the 'Judeo-Christian Tradition'"The Atlantic। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৫, ২০২০ 

অধিকতর পাঠ[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Christianity and Judaism