ম্যাথিয়াস জ্যাকব শ্লেইডেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ম্যাথিয়াস জ্যাকব শ্লেইডেন
PSM V22 D156 Matthias Jacob Schleiden.jpg
ম্যাথিয়াস জ্যাকব
জন্ম(১৮০৪-০৪-০৫)৫ এপ্রিল ১৮০৪
হামবুর্গ, পবিত্র রোম সাম্রাজ্য
মৃত্যু২৩ জুন ১৮৮১(1881-06-23) (বয়স ৭৭)
ফ্রাঙ্কফুর্ট, জার্মান সাম্রাজ্য
জাতীয়তাজার্মান
প্রাক্তন ছাত্রহাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়
পরিচিতির কারণকোষ তত্ত্ব
'সাইটোব্লাস্ট' শব্দ প্রবর্তন
লেখক সংক্ষেপণ (উদ্ভিদবিদ্যা)Schleid.

ম্যাথিয়াস জ্যাকব শ্লেইডেন (জার্মান: [maˈtiːas ˈjaːkɔp ˈʃlaɪ̯dn̩] ;[১][২] ১৮০৪–১৮৮১) ছিলেন একজন জার্মান উদ্ভিদবিদ এবং থিয়োডর শোয়ান এবং রুডল্ফ ভার্চোর সাথে কোষ তত্ত্বের সহ-প্রতিষ্ঠাতা।

ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

শ্লেইডেনের জন্ম পবিত্র রোমান সাম্রাজ্যের হামবার্গ শহরে, ১৮ এপ্রিল ১৮০৪ সালে। তাঁর বাবা হামবার্গের পৌর চিকিৎসক ছিলেন। শ্লেইডেন ১৮২৭ সালে আইন শিক্ষায় স্নাতক পাশ করেন। এরপর তিনি আইনজীবী হিসাবে প্রতিষ্ঠা পাবার চেষ্টা করেছিলেন এবং একটা সময় হতাশার কারনে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করার পরে তিনি পেশা পরিবর্তন করেন।

তিনি জার্মানির গ্যাটিনজেনের গ্যাটিনজেন ইউনিভার্সিটিতে প্রাকৃতিক বিজ্ঞান নিয়ে পড়া শুরু করেছিলেন, তবে উদ্ভিদবিদ্যা অধ্যয়নের জন্য ১৮৩৫ সালে বার্লিন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থানান্তরিত হন। স্লেইডেনের চাচা জোহান হর্কেল তাকে উদ্ভিদের ভ্রূণবিদ্যা অধ্যয়ন করতে উৎসাহিত করেছিলেন। [৩]

তিনি শীঘ্রই উদ্ভিদবিদ্যার প্রতি তার ভালবাসাকে একটি পূর্ণকালীন সাধনায় পরিণত করেছিলেন। শ্লেইডেন মাইক্রোস্কোপের অধীনে উদ্ভিদ কাঠামো অধ্যয়ন করতে পছন্দ করেতেন। জেনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞানের অধ্যাপক হিসাবে, তিনি কনট্রিবিউশন টু আওয়ার নলেজ অব ফাইটোজেনেসিস (১৮৩৮) লিখেছিলেন, যাতে তিনি বলেছিলেন যে সমস্ত গাছপালা কোষ দ্বারা গঠিত। এইভাবে, শ্লেইডেন এবং শোয়ান প্রথম রচনা করেছিলেন যেটি তখন রসায়নের পারমাণবিক তত্ত্বের সমান গুরুত্বের সাথে জীববিজ্ঞানের নীতি হিসাবে একটি অনানুষ্ঠানিক বিশ্বাস ছিল। তিনি কোষ নিউক্লিয়াসের গুরুত্বকে স্বীকৃত দিয়েছিলেন, যা স্কটল্যান্ডীয় উদ্ভিদবিজ্ঞানী রবার্ট ব্রাউন দ্বারা ১৮৩১ সালে আবিষ্কৃত হয়েছিল,[৪] এবং কোষ বিভাজনের সাথে এর সংযোগ অনুভব করেছিলেন।

১৮৬৩ সালে তিনি ডরপাট বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিজ্ঞানের অধ্যাপক হন। তিনি এই উপসংহারে পৌঁছেছিলেন যে উদ্ভিদের সকল অংশ কোষ দ্বারা গঠিত এবং একটি কোষ থেকে ভ্রূণ উদ্ভিদ উত্থিত হয়।

২৩ জুন ১৮৮১ সালে তিনি ফ্রাঙ্কফুর্টে মারা যান। [৫]

বিবর্তন[সম্পাদনা]

শ্লেইডেন ছিলেন বিবর্তনের প্রথম দিকের উকিল। তাঁর বই দ্য প্ল্যান্ট: এ বায়োগ্রাফি (১৮৮৪) বইয়ে প্রকাশিত "উদ্ভিদ বিশ্বের ইতিহাস" সম্পর্কিত একটি বক্তৃতায় একটি প্যাসেজ ছিল যা প্রজাতির বিবর্তনকে সমর্থণ করেছিল। [৬] তিনি চার্লস ডারউইনের বিবর্তন তত্ত্বকে মেনে নেয়া প্রথম জার্মান জীববিজ্ঞানী। তাকে জার্মানিতে ডারউইনবাদের প্রধান প্রবক্তা হিসাবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। [৭]

নির্বাচিত প্রকাশনা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. leid
  2. ". I
  3. "Matthias Jacob Schleiden (1804–1881) | The Embryo Project Encyclopedia"embryo.asu.edu (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১০-১৬ 
  4. Trisha Creekmore। "The Science Channel :: 100 Greatest Discoveries: Biology"Discovery Communications। ২০০৬-১০-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৬-১০-১৭ 
  5. Mathias Jacob Schleiden, Encyclopædia Britannica
  6. "Matthias Jakob Schleiden (1804-1881)". The Arnold Arboretum of Harvard University.
  7. Glick, Thomas F. (1988). The Comparative Reception of Darwinism. University of Chicago Press. p. 83. আইএসবিএন ০-২২৬-২৯৯৭৭-৫

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]