মোঃ শামসুল হক (রাজনীতিবিদ)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মোঃ শামসুল হক
ময়মনসিংহ-১৫ আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
৭ মার্চ ১৯৭৩ – ৬ নভেম্বর ১৯৭৬
পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য
কাজের মেয়াদ
১৯৭০ – ১৯৭১
ময়মনসিংহ-২ আসনের সংসদ সদস্য
কাজের মেয়াদ
৭ মে ১৯৮৬ – ৩ মার্চ ১৯৮৮
কাজের মেয়াদ
২৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৯১ – ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৬
কাজের মেয়াদ
১২ জুন ১৯৯৬ – ১ আক্টোবর ২০০১
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম২৯শে জানুয়ারী, ১৯৩০
তারাকান্দা, ময়মনসিংহ
মৃত্যু২৭শে মে, ২০০৪
জাতীয়তাব্রিটিশ ভারত (১৯৪৭ সাল পর্যন্ত)
পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
বাংলাদেশ
রাজনৈতিক দলবাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
সম্পর্কশরীফ আহমেদ (ছেলে)
বাসস্থান৭/ক, পন্ডিতপাড়া, ময়মনসিংহ
প্রাক্তন শিক্ষার্থীআনন্দ মোহন কলেজ, ময়মনসিংহ

মোঃ শামসুল হক বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার রাজনীতিবিদ ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক যিনি তৎকালীন পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য ও তৎকালীন ময়মনসিংহ-১৫ময়মনসিংহ-২ আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন।[১]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

মোঃ শামসুল হক ১৯৩০ সালের ২৯শে জানুয়ারী তারাকান্দা উপজেলার কামারিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।[২] তার পুত্র শরীফ আহমেদ বর্তমানে এই আসনটির সংসদ সদস্য হিসাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

ভাষা আন্দোলন[সম্পাদনা]

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের সময় তিনি ছিলেন আনন্দ মোহন কলেজ, ময়মনসিংহ এর উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্র। আন্দোলনে যোগ দেওয়ায় তাকে ময়মনসিংহ শহরের স্টেশন রোড থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তিনি এসময় ৬ মাস কারাগারে কাটান।[২][৩] ময়মনসিংহ শহরে প্রথম শহীদ মিনার নির্মাণের সাথে তিনি যুক্ত ছিলেন।[৪]

স্বাধীনতা যুদ্ধে বিজয়লাভের পর এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শামসুল হক এম পি(বাম থেকে দ্বিতীয়), সাথে রফিক উদ্দীন ভূঁইয়া (ডান থেকে দ্বিতীয়) এবং বিগ্রেডিয়ার সনত সিং (ডান থেকে প্রথম)

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

শামসুল হক ৬ দফা আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণসহ তৎকালীন সকল রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। তিনি ১৯৭০ সালের তৎকালীন পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭৩ সালের প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে তৎকালীন ময়মনসিংহ-১৫ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[১]

তিনি ১৯৮৬ সালের তৃতীয়, ১৯৯১ সালের পঞ্চম ও ১২ জুন ১৯৯৬ সালের পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ময়মনসিংহ-২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।[৫][৬][৭]

১৯৮৮ সালে ফুলপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসাবে নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৯৬ সালে পাট মন্ত্রনালয়ে সংসদীয় কমিটির সভাপতি ছিলেন।[২]

পরিবার[সম্পাদনা]

তার মৃত্যুর পর তার পুত্র শরীফ আহমেদ ময়মনসিংহ-২ আসন থেকে দশম ও একাদশ সংসদ নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। ২০১৮ সালের মন্ত্রীসভায় শরীফ আহমেদ সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় এর প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান। বর্তমানে তিনি গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এর প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

স্থাপনা[সম্পাদনা]

তার কীর্তিকে স্মরণ করে ময়মনসিংহ শহরের টাউন হল সংলগ্ন ভাষা সৈনিক শামসুল হক মঞ্চ করা হয়েছে।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "১ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "ভাষা সৈনিক শামসুল হকের ১২তম মৃত্যুবার্ষিকীতে তার রাজনৈতিক কর্মস্থল ময়মনসিংহে কোন কর্মসুচী পালন হয়নি"alokitomymensingh24.com। আলোকিত ময়মনসিংহ ২৪। মে ২৮, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ 
  3. "ময়মনসিংহে ভাষা সৈনিক শামসুল হক মঞ্চের উদ্বোধন"banglanews24.com। বাংলা নিউজ ২৪। ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ 
  4. "ময়মনসিংহে নির্মিত হলো স্মৃতি অম্লান"mzamin.com। দৈনিক মানবজমিন। ফেব্রুয়ারি ২১, ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জানুয়ারি ২০১৯ 
  5. "৩য় জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  6. "৫ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  7. "৭ম জাতীয় সংসদে নির্বাচিত মাননীয় সংসদ-সদস্যদের নামের তালিকা" (PDF)জাতীয় সংসদবাংলাদেশ সরকার। ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা।