মেমান্দ, কের্মন

স্থানাঙ্ক: ৩০°১৩′৪৬″ উত্তর ৫৫°২২′৩২″ পূর্ব / ৩০.২২৯৪৪° উত্তর ৫৫.৩৭৫৫৬° পূর্ব / 30.22944; 55.37556
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মেমান্দ
ميمند
গ্রাম
মেমান্দ গ্রামের দৃশ্য
মেমান্দ গ্রামের দৃশ্য
মেমান্দ ইরান-এ অবস্থিত
মেমান্দ
মেমান্দ
স্থানাঙ্ক: ৩০°১৩′৪৬″ উত্তর ৫৫°২২′৩২″ পূর্ব / ৩০.২২৯৪৪° উত্তর ৫৫.৩৭৫৫৬° পূর্ব / 30.22944; 55.37556
দেশ Iran
প্রদেশকের্মন
কাউন্টিশাহর-ই বাবাক
বখশকেন্দ্রীয়
পল্লী জেলামেমান্দ
জনসংখ্যা (২০০৬)
 • মোট৬৭৩
সময় অঞ্চলআইআরএসটি (ইউটিসি+৩:৩০)
 • গ্রীষ্মকালীন (দিসস)আইআরডিটি (ইউটিসি+৪:৩০)
প্রাতিষ্ঠানিক নামমেমান্দের সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য
মানদণ্ডসাংস্কৃতিক: (v)
সূত্র1423rev
তালিকাভুক্তকরণ২০১৫ (৩৯তম সভা)
আয়তন৪,৯৫৩.৮৫ হেক্টর (১২,২৪১.২ একর)
নিরাপদ অঞ্চল৭,০২৪.৬৫ হেক্টর (১৭,৩৫৮.৩ একর)

মেমান্দ (ফার্সি: ميمند‎‎),[১] হল ইরানের কের্মন প্রদেশের শাহর-ই বাবাক কাউন্টির কেন্দ্রীয় জেলার মেমান্দ গ্রামীণ জেলার একটি গ্রাম। ২০০৬ সালের আদমশুমারি আনুযায়ী, এখানে ১৮১টি পরিবারে প্রায় ৬৭৩ জন লোকের বাস ছিল।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মেমান্দ একটি প্রাচীন গ্রাম যা ইরানের কেরমান প্রদেশের শাহর-ই বাবাক শহরের কাছে অবস্থিত। ১২,০০০ বছর আগে ইরানি মালভূমিতে মেমান্দ একটি প্রাথমিক মানব বাসস্থান বলে মনে করা হয়। অনেক বাসিন্দা পাথরের মধ্যে ৩৫০টি হাতে খোঁড়া বাড়িতে বাস করতো, যার মধ্যে কিছু বসতি প্রায় ৩,০০০ বছরের ইতিহাস ধারণ করে। গ্রামের আশেপাশে প্রায় ১০,০০০ বছরের পুরনো পাথরের খোদাই পাওয়া যায় এবং প্রায় ৬,০০০ বছরের পুরনো মৃৎপাত্রের আমানতগুলি এই স্থানের বসতি স্থাপনের দীর্ঘ ইতিহাসের প্রমাণ দেয়।

এই কাঠামোর উৎপত্তি সম্পর্কে, দুটি তত্ত্বের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে:[৩] প্রথম তত্ত্ব অনুসারে, গ্রামটি আর্য উপজাতির একটি দল প্রায় ৮০০ থেকে ৭০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে তৈরি হয়েছিল, যার মধ্যে কিছু মধ্যযুগের নির্মাণ। এটা সম্ভব যে মেমান্দের পাহাড়ের কাঠামো ধর্মীয় উদ্দেশ্যে নির্মিত হয়েছিল। মিথ্রাসের উপাসকরা বিশ্বাস করেন যে সূর্য অজেয় এবং এটি তাদের পাহাড়কে পবিত্র হিসাবে বিবেচনা করতে পরিচালিত করেছিল। তাই মেমান্দের পাথর কাটার কারিগর এবং স্থপতিরা তাদের বাসস্থান নির্মাণে তাদের বিশ্বাস স্থাপন করেছেন। দ্বিতীয় তত্ত্বের ভিত্তিতে গ্রামটি খ্রিস্টীয় দ্বিতীয় বা তৃতীয় শতাব্দীর। আরসাসিড যুগে, দক্ষিণ কেরমানের বিভিন্ন উপজাতি বিভিন্ন দিকে স্থানান্তরিত হয়। এই উপজাতিরা বসবাসের জন্য উপযুক্ত জায়গা খুঁজে পেয়েছিল এবং তাদের আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করে সেইসব এলাকায় বসতি স্থাপন করেছিল যা সময়ের সাথে সাথে বিদ্যমান বাড়িগুলিতে পরিণত হয়েছিল। গ্রামের কাছাকাছি মেমান্দের দুর্গ নামে পরিচিত একটি জায়গার অস্তিত্ব পাওয়া যায়, যেখানে সাসানিদের আমলের ১৫০টিরও অধিক অস্থিপত্র (হাড়-আধার) পাওয়া গেছে, যা এই তত্ত্বকে আরো শক্তিশালী করে।

জমির শুষ্কতা ও গ্রীষ্মকালে উচ্চ এবং শীতকালে নিম্ন তাপমাত্রার কারণে মেমান্দে বসবাসের অবস্থা কঠিন। স্থানীয় ভাষায় প্রাচীন সাসানি এবং পাহলভি ভাষার অনেক শব্দ রয়েছে।[৪]

২০০৫ সালে, মেমান্দকে সাংস্কৃতিক ভূদৃশ্য সুরক্ষা ও ব্যবস্থাপনার জন্য ইউনেস্কো-গ্রীস মেলিনা মারকোরি আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রদান করা হয়।[৫]

২০১৫ সালের ৪ জুলাই, গ্রামটি ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থানের তালিকায় যুক্ত হয়।[৬]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Meymand can be found at GEOnet Names Server, at this link, by opening the Advanced Search box, entering "-3074825" in the "Unique Feature Id" form, and clicking on "Search Database".
  2. "Census of the Islamic Republic of Iran, 1385 (2006)"Islamic Republic of Iran। ২০১১-১১-১১ তারিখে মূল (Excel) থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. হাশেমি, সিয়ামক (২০১৩)। The Magnificence of Civilization in Depths of Ground - A Review of Underground Structures in Iran - Post to Presentতেহরান: শাদ্রং প্রিন্টিং অ্যান্ড পাবলিশিং কো। 
  4. http://www.keacheh.blogfa.com/cat-8.aspx ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৪ এপ্রিল ২০১৮ তারিখেمیمنـــد
  5. "2005 Melina Mercouri International Prize"whc.unesco.org (ইংরেজি ভাষায়)। unesco। ৭ সেপ্টেম্বর ২০০৫। ১২ নভেম্বর ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ নভেম্বর ২০২২ 
  6. "Sites in China, Iran, Mongolia and Singapore inscribed on UNESCO's World Heritage List"whc.unesco.org (ইংরেজি ভাষায়)। unesco। ৪ জুলাই ২০১৫। ৫ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ নভেম্বর ২০২২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]