মেগিদ্দোর যুদ্ধ (খ্রিস্টপূর্ব ১৫শ শতাব্দী)

স্থানাঙ্ক: ৩২°৩৪′৫৯.৩৮″ উত্তর ৩৫°১০′৫৫.৫১″ পূর্ব / ৩২.৫৮৩১৬১১° উত্তর ৩৫.১৮২০৮৬১° পূর্ব / 32.5831611; 35.1820861
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মেগিদ্দোর যুদ্ধ (খ্রিস্টপূর্ব ১৫শ শতাব্দী)
תל מגידו.JPG
পাখির চোখে তেল মেগিদ্দো
তারিখএপ্রিল ১৬, ১৪৫৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ
অবস্থান
মেগিদ্দো, কানান
ফলাফল

মিশরীয়দের বিজয়

  • মিশরীয় সাম্রাজ্যের আঞ্চলিক বিবর্ধন
বিবাদমান পক্ষ
মিশরীয় সাম্রাজ্য

কানানীয় গোষ্ঠী

  • কাদেশ (সিরিয়া)
  • মেগিদ্দো
  • মিতান্নি
সেনাধিপতি ও নেতৃত্ব প্রদানকারী
তৃতীয় তুতমোজ কাদেশের রাজা
মেগিদ্দোর রাজপুত্র
শক্তি
১০,০০০–২০,০০০ ১০,০০০–১৫,০০০
হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতি
৪,০০০ নিহত, ১,০০০ আহত ৮,৩০০ নিহত,[১]
৩,৪০০ ধৃত

মেগিদ্দোর যুদ্ধ হচ্ছে খ্রিস্টপূর্ব ১৫শ শতাব্দীতে ফারাও থুতমোস তৃতীয়ের নেতৃত্বে মিশরীয় বাহিনী এবং কাদেশ রাজার নেতৃত্বে কানানীয় সামন্ত রাজ্যের একটি বৃহৎ বিদ্রোহী জোটের মধ্যে সংঘটিত যুদ্ধ।[২] এটি প্রথম যুদ্ধ যা তুলনামূলকভাবে নির্ভরযোগ্য বিবরণ হিসাবে গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়াও মেগিদ্দো যুদ্ধে প্রথম যৌগিক ধনুক ব্যবহার করার এবং প্রথম দেহ গণনার তথ্য পাওয়া যায়।[৩] যুদ্ধের সমস্ত বিবরণ মিশরীয় সূত্র থেকে প্রাপ্ত - প্রাথমিকভাবে কারনাক, থিবেসের আমুন-রে মন্দিরের বর্ষপঞ্জীশালার সামরিক লেখক তাজানির হাইরোগ্লিফিক থেকে।

প্রাচীন মিশরীয় হিসাব অনুসারে যুদ্ধের তারিখটি ছিল, তৃতীয় থুতমোসের রাজত্বের ২৩ তম বছরের তৃতীয় মৌসুমের প্রথম মাসের ২১তম দিনে। মধ্য কালপঞ্জী (ইংরেজি: মিডল ক্রোনোলজি) অনুসারে দাবি করা হয় যে, এটি ছিল এপ্রিল ১৬, ১৪৫৭ খ্রিস্টপূর্বাব্দ। যদিও অন্যান্য প্রকাশনা অনুসারে যুদ্ধটি হয়েছিল ১৪৮২ খ্রিস্টপূর্বাব্দ বা ১৪৭৯ খ্রিস্টপূর্বাব্দে। মিশরীয়রা কানানীয় বাহিনীকে পরাজিত করার পরে তারা মেগিদ্দো শহরে নিরাপদ স্থানে পালিয়ে যায়। তাদের এই পদক্ষেপের ফলে মেগিদ্দো শহরে দীর্ঘ অবরোধের সৃষ্টি হয়।

লেভান্তে মিশরীয় আধিপত্য পুনঃপ্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তৃতীয় থুতমোজ একটি রাজত্ব শুরু করেন যেখানে মিশরীয় সাম্রাজ্য তার সর্বোচ্চ প্রসার লাভ করে।

তৃতীয় থুতমোসের বর্ষপঞ্জী[সম্পাদনা]

লেভান্তে তৃতীয় থুতমোসের প্রথম অভিযানের সময় তার ব্যক্তিগত লেখক তাজানি চামড়ার উপর একটি দিনপঞ্জী লেখেন। লেভান্তে তার অভিযান শেষ হওয়ার প্রায় ৪২তম বছরে, তৃতীয় থুতমোস তার কলাকুশলীদের কারনাকের আমুন-রে মন্দিরের দেওয়ালে তার সামরিক শোষণ কাল লিপিবদ্ধ করার নির্দেশ দেন। এই বার্ষিকীতে লেভান্টে তৃতীয় থুতমোসের নেতৃত্বে ১৪টি অভিযানের বিস্তারিত বর্ণনা প্রদান করা হয়েছে। তার এসব অভিযানের মাধ্যমে লাভ করা বুটি, বিজয়ী অঞ্চল থেকে পাওয়া শ্রদ্ধাঞ্জলি এবং সবশেষে, আমুন-রে-কে উৎসর্গ করা হয়েছে। বর্ণনার ক্রম যুদ্ধের সাথে দেবতাদের মিথস্ক্রিয়ার উপর নতুন রাজত্বের বিশ্বাস নির্দেশ করে: যুদ্ধে তাদের ঐশ্বরিক সাহায্যের বিনিময়ে দেবতাদের প্রশংসা এবং উৎসর্গ করা হয়েছে।[৪][৫]

উপরন্তু, বার্ষিকীটিতে মেগিদ্দোর যুদ্ধের দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব তৈরি করে। মেগিদ্দোতে তৃতীয় থুতমোসের বিজয় এবং পরবর্তী ২০ বছরে লেভান্তে তার সফল অভিযানের পর, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ে মিশরের উত্থান এবং একটি সাম্রাজ্যে তার বিবর্তন স্পষ্ট। এই সময়ের মধ্যে বাবিল, হিটি সাম্রাজ্য এবং অন্যান্য বিশিষ্ট ও শক্তিশালী অঞ্চলকে উপহার প্রদানের মাধ্যমে তারা আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে অবস্থান গ্রহণ করে।[৪][৫]

কানান রাজত্বের বিরুদ্ধে অভিযান[সম্পাদনা]

তৃতীয় ফারাও থুতমোস এমন একটি শাসনকাল শুরু করেন যেখানে মিশরীয় সাম্রাজ্য লেভান্তের দীর্ঘদিনের মিশরীয় উপস্থিতিকে শক্তিশালী করে তার সর্বোচ্চ প্রসার লাভ করে। মিশরীয় ফারাও হাতশেপসুত কর্তৃক তার রাজপদ শেষ হওয়ার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করার পর, তিনি অবিলম্বে আধুনিক সিরিয়ার আশেপাশে কাদেশের কাছাকাছি স্থানীয় শাসকদের বিদ্রোহে সাড়া দেন। মিশরীয় বাফার প্রদেশগুলো হিট্টীয়দের সাথে সীমান্তবরাবর আমুরুর দেশে অবস্থিত হওয়ায় তৃতীয় থুতমোস ব্যক্তিগতভাবে এই হুমকির মোকাবেলা করেন। মনে করা হয় কানানীয়রা ওরোন্তেস এবং জর্ডান নদীর উৎসস্থল অঞ্চলে মিতানি এবং আমুরুর সাথে মিত্রতা করেছে। এই বিদ্রোহের পিছনে চালিকাশক্তি ছিল কাদেশ রাজা। কাদেশের শক্তিশালী দুর্গ তাকে এবং শহরকে রক্ষা করেছিল। মেগিদ্দোর রাজা, একটি সমান শক্তিশালী দুর্গ নিয়ে এই জোটে যোগ দেন। মেগিদ্দোর গুরুত্ব ছিল কারমেল রিজ এবং ভূমধ্যসাগরের ঠিক বাইরে জেজরিল উপত্যকার দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্ত বরাবর এর ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে। এই অবস্থান থেকে মেগিদ্দো মিশর ও মেসোপটেমিয়ার মধ্যে প্রধান বাণিজ্য পথ ভায়া মারিস নিয়ন্ত্রণ করতেন।

কারনাক মন্দিরে অভিযানের মিশরীয় শিলালিপিগুলো অভিযান চলাকালীন সময়ে লেখক তাজানি রচিত একটি দিনপঞ্জী থেকে এসেছে। মিশরীয় বর্ণনায় তৃতীয় থুতমোস রথারোহী ও পদাতিক বাহিনীর দশ থেকে বিশ হাজার লোকের একটি সৈন্যদল জড়ো করে।[২] মিশরীয়রা যখন তাদের সৈন্যদল একত্রিত করল তখন কাদেশ রাজা সিরিয়া, আরাম ও কানান থেকে আনুমানিক দশ থেকে পনের হাজার আদিবাসী সর্দারকে জড়ো করলেন।[২] মেগিদোতে ঢুকে এই সৈন্যদল তানাচের জলে স্থাপন করলেন। তিনি আশা করেছিলেন যে তার শত্রু দোথাইম - তানাচের পথে আসবে। এ পথ ভূমধ্যসাগরীয় নিম্নভূমি থেকে কিশন উপত্যকা এবং মিশর থেকে মেসোপটেমিয়া পর্যন্ত বিস্তৃত।[৬] মিশরীয় সেনাবাহিনী সীমান্ত দুর্গ তাজুরুতে (গ্রিক ভাষায় সিল নামে পরিচিত) একত্রিত হয় এবং দশ দিন পরে গাজার বিশ্বস্ত শহরে পৌছায়। একদিন বিশ্রামের পর তারা ইয়েহেম শহরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়, এবনহ ১১ দিন পরে তায়া পৌঁছে যায়। এখানে, থুতমোজ স্কাউটদের পাঠিয়েছিল। উত্তর দিকে যেতে হলে তাদের কারমেল মাউন্টেন রিজ অতিক্রম করতে হবে। এর পিছনে ছিল মেগিদোর শহর ও দুর্গ, যেখানে বিদ্রোহী বাহিনী জড়ো হয়েছিল। ইয়েহেম থেকে মেগিদ্দো পর্যন্ত তিনটি সম্ভাব্য রুট ছিল। উত্তর রুট, জেফতি এবং তেল ইয়োকেনম, এবং দক্ষিণ রুট তানাচের মাধ্যমে জেজরিল উপত্যকায় নিরাপদ প্রবেশাধিকার প্রদান করে। অরুণার (আধুনিক ওয়াদি আরা) মধ্যবর্তী পথ আরো সরাসরি কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ ছিল; এটি একটি সংকীর্ণ খাঁড়ি অনুসরণ করে, এবং সৈন্যরা শুধুমাত্র একক সারিতে অতিক্রম করতে পারে। যদি শত্রুরা খাদের শেষে অপেক্ষা করে, তাহলে মিশরীয়দের টুকরো টুকরো হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি নিতে হবে। সেনা নেতারা তাকে অনুরোধ করেন কঠিন রাস্তা না নিতে কিন্তু দুটি সহজ রাস্তার যে কোন একটি নিতে। পরিবর্তে, স্কাউটদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের মাধ্যমে, তৃতীয় থুতমোস সরাসরি মেগিদ্দো রওনা হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি বিশ্বাস করতেন যে যদি তার সেনাপতিরা তাকে সহজ পথ অবলম্বন করার পরামর্শ দেন, তাহলে তার শত্রুরা ধরে নেবে যে সে তা করবে, তাই সে অপ্রত্যাশিত ভাবে তা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।[৭]

কাদেশ রাজা আরো দুটি সম্ভাব্য পথ পাহারায় বৃহৎ পদাতিক বাহিনী রেখে গিয়েছিলেন, এবং কার্যত দক্ষিণ থেকে আসা সংকীর্ণ গিরিপথ অরুণাকে উপেক্ষা করেছিলেন। পাহাড়ে তার সৈন্য ছড়িয়ে পড়ার বিপদ উপেক্ষা করে যেখানে নেতৃস্থানীয় উপাদানগুলো সংকীর্ণ পাহাড়ের পাশ দিয়ে শত্রুদের আক্রমণের শিকার হতে পারে। তার প্রধান বাহিনী তখনো অরুণা থেকে অনেক পিছিয়ে ছিলো। তারা তাদের সাহায্যের জন্য আসতে অক্ষম। থুতমোস সরাসরি ওয়াদি আরার সরাসরি পথ গ্রহণ করে। ঝুঁকি কমানোর জন্য থুতমোস নিজেই অরুণার মধ্য দিয়ে তার সৈন্যদের নেতৃত্ব দিলেন। তার পদাতিক বাহিনী এবং অশ্বারোহী বাহিনী, হাইব্রু (অশ্বারোহী নামে পরিচিত) যে কোন স্কাউট কে বের করে আনতে এবং রথের প্রধান শক্তির দিকে রওনা দিতে তিনি দ্রুত এগিয়ে যান। শহর দুর্বল ভাবে শত্রু দ্বারা সুরক্ষিত ছিল। থুতমোস একটি দ্রুত আক্রমণের নেতৃত্ব দিয়ে বিদ্রোহীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় এবং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় উপত্যকায় প্রবেশ করে। এখন, মিশরীয় সেনাবাহিনীর মেগিদ্দোর দিকে একটি পরিষ্কার পথ ছিল, যেখানে বিদ্রোহী সেনাবাহিনীর একটা বড় অংশ উত্তর ও দক্ষিণে অনেক দূরে ছিল।[৬]

যুদ্ধ ও অবরোধ[সম্পাদনা]

থুতমোস সুযোগটা গ্রহণ করেছিলেন। তিনি দিনের বেলা ছাউনিতে অবস্থান করলেন, কিন্তু রাতের বেলা শত্রুর কাছাকাছি তাঁর সৈন্যদল কে টেনে নিয়ে গেলেন; পরের দিন সকালে তারা আক্রমণ করল। এটা প্রতিষ্ঠিত হতে পারে না যদি কাদেশের বিস্মিত রাজা যুদ্ধের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত হতে সক্ষম হন। এমনকি যদি সে তা করেও, তারপরও তিনি খুব একটা ভালো করতে পারবেন না। দুর্গসংলগ্ন উঁচু ভূমিতে তার বাহিনী থাকলেও মিশরীয় লাইনটি খিলানাকৃতিতে সাজানো হয়, যার তিনটি শাখা ছিল। মিশরীয় এবং কনানিয়দের প্রায় ১,০০০ রথ এবং ১০,০০০ পদাতিক ছিল বলে অনুমান করা হয়। ফরৌণ মাঝখান থেকে আক্রমণের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। অবস্থান এবং সংখ্যার সমন্বয়ে তাদের বাম শাখার উচ্চতর কৌশল এবং একটি প্রারম্ভিক সাহসী আক্রমণের ফলে শত্রুরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। তাদের লাইন তৎক্ষণাৎ ভেঙ্গে পরে। তারা কাছাকাছি শহরে পালিয়ে গিয়ে শহরের দরজা বন্ধ করে দেয়।

মিশরীয় সৈন্যরা শত্রু ছাউনি লুট করতে শুরু করে। লুটপাটের সময় তারা ৯২৪টি রথ এবং ২০০ টি বর্ম দখল করে নেয়। মিশরীয়দের জন্য দুর্ভাগ্য, এই বিভ্রান্তির সময় কাদেশ এবং মেগিদোর রাজাসহ বিক্ষিপ্ত কানানীয় বাহিনী শহরের অভ্যন্তরে আত্মরক্ষাকারীদের সাথে পুনরায় যোগ দিতে সক্ষম হয়। ভেতরে যারা ছিল তারা পুরুষদের রথের সাথে বাঁধা কাপড় নামিয়ে দেয়ালের উপর টেনে নিয়ে গেল। এইভাবে, যুদ্ধের পর শহর দ্রুত দখল করার সুযোগ হারিয়ে যায়।

সাত মাস ধরে শহর অবরুদ্ধ ছিল। এরপর কাদেশ রাজা পালিয়ে যান।[৮] থুতমোস একটি খাঁচা এবং একটি কাঠের প্যালিসাড নির্মাণ করে। অবশেষে তার বাসিন্দাদের আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য করে। কর্ণকে রেকর্ড করা হয়েছে যে, বিজয়ী সেনাবাহিনী ৩৪০ জন বন্দী, ২,০৪১ মারিস, ১৯১ টি ছাগল, ৬টি স্ট্যালিয়ন, ৯২৪ টি রথ, ২০০ টি স্যুট, ৫০২ ধনুক, ১,৯২৯টি গবাদি পশু, ২২,৫০০ ভেড়া এবং রাজকীয় বর্ম, রথ ও তাঁবুর খুঁটি নিয়ে গেছে।[৯] শহর এবং নাগরিকদের ছেড়ে দেওয়া হয়। জেজ্রাইল উপত্যকার আরও বেশ কয়েকটি শহর জয় করা হয় এবং এলাকায় মিশরীয় কর্তৃত্ব পুনরুদ্ধার করা হয়।[৯]

কারনাক মন্দিরের রিলিফে দেখা যাচ্ছে থুতমোস তৃতীয় খ্রিস্টপূর্ব ১৫শ শতাব্দীর মেগিদ্দোর যুদ্ধে কানানিতে বন্দীদের হত্যা করছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Nelson, Harold Hayden (1913), The Battle of Megiddo, University of Chicago Press, p. 53; see also Keegan, John (1993), The History of Warfare. Key Porter Books. আইএসবিএন ১-৫৫০১৩-২৮৯-X.
  2. Cline 2000 p. 16-17
  3. Trevor N. Dupuy, Evolution of Weapons and Warfare.
  4. Annals of Thutmosis III from the Louvre web site. Retrieved December 8, 2017.
  5. Thutmose III in Encyclopedia Britannica online. Retrieved December 8, 2017.
  6. Tomac Petar, Vojna Istorija, 1959. p.21
  7. Cline 2000 p. 18
  8. Cline 2000 p. 21
  9. Cline 2000 p. 22

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]