মীর মশাররফ হোসেনের বসতভিটা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মীর মশাররফ হোসেনের বসতভিটা
ধরনসাহিত্যিকের বাড়ি
অবস্থানলাহিনীপাড়া, কুমারখালী উপজেলা, কুষ্টিয়া
নিকটবর্তী শহরকুষ্টিয়া জেলা
প্রতিষ্ঠাতাবাংলাদেশ সরকার
মৌলিক ব্যবহারজিয়ারতের জন্য
পুনরুদ্ধার১৯৭২
বর্তমান ব্যবহারশিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও পাঠাগার
পরিচালকবর্গব্যক্তির বংশধর
মালিকবাংলাদেশ সরকার

মীর মশাররফ হোসেনের বসতভিটা কুষ্টিয়া জেলার অন্যতম একটি দর্শনীয় স্থান, যা কুষ্টিয়া জেলার বিখ্যাত কবি মীর মশাররফ হোসেনের নিজের বসতবাড়িকে নির্দেশ করে। এই বাড়িটি কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার লাহিনীপাড়ায় অবস্থিত। বর্তমানে এই বসতভিটা সরকারি অধিদপ্তরের আওতাধীন প্রতিস্থান। ২০০৮ সালে স্থানীয় সরকার বিভাগের অর্থায়নে ৫৪ লক্ষ টাকা ব্যয়ে একটি লাইব্রেরী ও অডিটরিয়াম নির্মাণ করা হয়েছে।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মীর মশাররফ হোসেনের বসতভিটাটি বহু আগে থেকে বেদখল অবস্থায় ছিলো। ১৯৭২ সালে স্থানীয়রা মূল বাড়ির জায়গাটির কিছু অংশ উদ্ধার করে সেখানে স্থাপন করেছে মীর মশাররফ হোসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এছাড়া ১৯৯৫ সালে বিদ্যালয়টির মাঠের এক কোণে স্থাপন করা হয় মীর মশাররফ হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়[২] ১৯৯২ সালে সরকারি তত্ত্বাবধানে মীর মশাররফ হোসেন পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০১০ সালে মাঠটির একই কমপ্লেক্সে পাঠাগার কাম অডিটোরিয়াম স্থাপন করা হয়েছে। ২০১২ সালে স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার’র গভর্নর অরুন্ধতী ভট্টাচার্য সপরিবারে বেড়াতে এসেছিলেন এই বাড়িতে। তিনি লক্ষাধিক টাকার বই দান করেছিলেন এই পাঠাগারে।

বাড়ির বর্ণনা[সম্পাদনা]

একটি স্তম্ভে লেখা বাণী
স্বাধীনতার সূর্য একবার
অস্তমিত হইলে পুণরুদয়
হওয়া বড়ই ভাগ্যের কথা -- বিষাদসিন্ধু

মীর মশাররফের মূল বসতবাড়িটি ছিলো ৩২ বিঘা জমির ছিলো, কিন্তু এখন মাত্র তিন বিঘা জমির উপরে রয়েছে, বাকিগুলো বেদখল রয়েছে। বাড়ির মাঠের একপাশে উচ্চ বিদ্যালয়, এক পাশে পাঠাগার ও পাশে প্রাথমিক বিদ্যালয় অবস্থিত। বাড়ির মূল ফটকের বাইরে রয়েছে তিনটি চায়ের দোকান ও বেশ কয়েকটি ত্রিকোণাকৃতি স্তম্ভ রয়েছে। স্তম্ভগুলোতে মার্বেল পাথরে খোদাই রয়েছে মীর মশাররফ হোসেনের বিভিন্ন বইয়ের বিখ্যাত উক্তি লেখা আছে, তবে এগুলো অবিকৃত নেই।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "মীর মশাররফ হোসেনের বাস্তুভিটা- কুমারখালী উপজেলা"kumarkhali.kushtia.gov.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-১৮ 
  2. "মীর মশাররফের বাস্তুভিটায় উথলে ওঠে বিষাদসিন্ধু"banglanews24.com। ২০১৪-০২-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-১৮