ঈদে মিলাদুন্নবী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(মিলাদ থেকে পুনর্নির্দেশিত)
ঈদে মিলাদুন্নবী
Maulidur Rasul (8413657269).jpg
২০১৩ সালে মালয়েশিয়ার রাজধানী পুত্রজায়ায় ঈদে মিলাদুন্নবীর একটি র‌্যালি
অন্য নামমাওলিদ আন-নাবী (المولد النبوي), মাওয়ালিদ, হ্যাভলিয়ে, দনবা, গনি[১]
পালনকারীমূলধারার সুন্নি ইসলাম, শিয়া ইসলাম এবং ইসলামের অন্যান্য শাখার অনুসারীগণ। আফগানিস্তান, আলজেরিয়া, বাহরাইন, বাংলাদেশ, বেনিন, ব্রুনাই, বুরকিনা ফাসো, চাদ, মিশর, গাম্বিয়া, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, ইরাক, জর্দান, কুয়েত, লেবানন, লিবিয়া, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মালি, মৌরিতানিয়া, মরক্কো, নাইজার, নাইজেরিয়া, ওমান, পাকিস্তান, সেনেগাল, সোমালিয়া, সুদান, তিউনিসিয়া এবং ইয়েমেনে সরকারি ছুটির দিন হিসেবে উৎযাপিত হয়।
ধরনইসলামী
তাৎপর্যইসলামের নবি মুহাম্মাদের জন্মদিন
পালনহামদ্, তাসবিহ, রোযা, র‌্যালি, নাত, পারিবারিক ও সামাজিক সম্মেলন, সড়ক ও ভবনে সাজ-সজ্জা
তারিখ১২ রবিউল আউয়াল
সংঘটনপ্রতি হিজরি বছরে একদিন

ঈদ-এ-মিলাদুন্নবী (আরবি: مَوْلِدُ النَبِيِّ‎‎ মাওলিদু এন-নাবীয়ী, আরবি: مولد النبي মাওলিদ আন-নাবী, কখনো কখনো সহজভাবে বলা হয় مولد মাওলিদ, মেভলিদ, মেভলিট, মুলুদ আরো অসংখ্য উচ্চারণ; কখনো কখনো: ميلاد মিলাদ) হচ্ছে শেষ নবীর জন্মদিন হিসেবে মুসলমানদের মাঝে পালিত একটি উৎসব। মুসলিমদের মাঝে এ দিনটি বেশ উৎসবের সাথে পালন হতে দেখা যায়। তবে উৎসব নিয়ে ইসলামি পণ্ডিতদের মাঝে অনেক বিতর্ক রয়েছে। হিজরি বর্ষের তৃতীয় মাস রবিউল আউয়াল-এর বারো তারিখে এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।[২] বাংলাদেশি মুসলমানরা এই দিনকে ঈদ-এ-মিলাদুন্নবী বলে অভিহিত করেন। অপরদিকে পশ্চিমবঙ্গের মুসলমানদের কাছে এই দিন নবী দিবস নামে পরিচিত।

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

মাওলিদ আরবি মূল শব্দ ولد থেকে উদ্ভূত, যার অর্থজন্ম দেওয়া, সন্তান ধারণ করা, বংশধর[৩] সমসাময়িক ব্যবহারে, মওলিদ বলতে মুহাম্মদের জন্মদিন পালনকে বোঝায়।[৪]

মুহাম্মদের জন্ম উদযাপন হিসাবে উল্লেখ করার পাশাপাশি, মওলিদ শব্দটি "মুহাম্মদের জন্ম উদযাপনের জন্য বিশেষভাবে রচিত এবং আবৃত্তি করা পাঠ্য" বা "সেই দিনে আবৃত্তি করা বা গাওয়া একটি পাঠ্য"-কে বোঝায়।[৫]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মিশরের কায়রোতে ১৯০৪ সালে বোলাক এভিনিউতে মিলাদুন্নবীর শোভাযাত্রা।
ইন্দোনেশিয়ার জাভা দ্বীপের যোগিয়াকার্তায় মিলাদুন্নবী উদযাপনে গারেবেগ উৎসব।

ইসলামের প্রাথমিক দিনে মুহাম্মদের জন্মকে একটি পবিত্র দিন হিসাবে পালন করা সাধারণত ব্যক্তিগতভাবে পালন করা হতো এবং পরবর্তীতে এই উদযাপনের জন্য বিশেষভাবে সারাদিনের জন্য উন্মুক্ত মওলিদ বাড়িতে দর্শনার্থীদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়।[৬]

প্রারম্ভিক উদযাপনে সুফি প্রভাবের উপাদান অন্তর্ভুক্ত ছিল, যার মধ্যে রয়েছে পশু জবাই এবং মশাল মিছিলসহ গণ ধর্মীয় সভা ও ভোজ।[৭][৮] আধুনিক দিনের উদযাপনের বিপরীতে দিনের বেলায় উদযাপন সংঘটিত হয়, শাসকরা অনুষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।[৯] কুরআন তিলাওয়াত ও খুতবা বা বক্তব্যের মাধ্যমে আহলে বায়তকে নিয়ে আলোচনা করা হয়।[১০]

মওলিদ গ্রন্থ[সম্পাদনা]

মুহাম্মদের জন্ম উদযাপন হিসাবে উল্লেখ করার পাশাপাশি, মওলিদ শব্দটি "মুহাম্মদের জন্ম উদযাপনের জন্য বিশেষভাবে রচিত এবং আবৃত্তি করা পাঠ" বা "সেই দিনে আবৃত্তি করা বা গাওয়া একটি পাঠ"-কেও বোঝায়। [৫] এ ধরনের কবিতা আরবি, কুর্দি ও তুর্কিসহ অনেক ভাষায় লেখা হয়েছে।[১১] এইসব গ্রন্থে মুহাম্মদের জীবনের গল্প রয়েছে, বা তাঁর জীবনের অন্তত কিছু অধ্যায় রয়েছে, যা নীচে সংক্ষিপ্তভাবে দেওয়া হয়েছে:[৫]

  1. মুহাম্মদের পূর্বপুরুষ
  2. মুহাম্মদের ধারণা
  3. মুহাম্মদের জন্ম
  4. হালিমার পরিচয়
  5. মুহাম্মদের এতিমত্ব
  6. আবু তালিবের ভাতিজার প্রথম কাফেলা সফর
  7. মুহাম্মদ ও খাদিজার মধ্যে বিবাহের ব্যবস্থা
  8. আল-ইসরা'
  9. আল-মিরাজ বা স্বর্গে আরোহণ
  10. আল-হিরা, প্রথম প্রত্যাদেশ
  11. প্রথম ইসলাম গ্রহণ করে
  12. হিজরত
  13. মুহাম্মদের মৃত্যু

এই পাঠ্যগুলি আনুষ্ঠানিকতার অংশ মাত্র। তারা কোথা থেকে এসেছে তার উপর নির্ভর করে লোকেরা মওলিদ উদযাপন করে এমন অনেকগুলি উপায় রয়েছে। মওলিদ উদযাপনের একটি অংশ কি ধরনের উত্সব তার উপর একটি সাংস্কৃতিক প্রভাব রয়েছে বলে মনে হয়। ইন্দোনেশিয়ায়, বিশেষ করে আরব ইন্দোনেশিয়ানদের মধ্যে ধর্মীয় সভায় সিমথুদ দুরার পাঠ করা সাধারণ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Mawlid in Africa"Muhammad (pbuh) – Prophet of Islam। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  2. "Definition of mawlid | Dictionary.com"www.dictionary.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-১৫ 
  3. قاموس المنجد – Moungued Dictionary (paper), or online: Webster's Arabic English Dictionary ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১২ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে
  4. Mawlid.
  5. Knappert, J (১৯৮৮)। "The Mawlid": 209–215। 
  6. Fuchs, H.; Knappert J. (২০০৭)। "Mawlid (a.), or Mawlud"। P. Bearman; T. Bianquis; C. E. Bosworth। Encyclopedia of Islam। Brill। আইএসএসএন 1573-3912 
  7. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Schussman নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  8. "Mawlid"Encyclopædia Britannica। Encyclopædia Britannica, Inc। ২০০৭। 
  9. Kaptein (1993), পৃ. 30
  10. Zulkifli (২০১৩), "The Madhhab", The Struggle of the Shi‘is in Indonesia, ANU Press, পৃষ্ঠা 79–112, আইএসবিএন 978-1-925021-29-5, জেস্টোর j.ctt5hgz34.11, সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১০-২৮ 
  11. Kenan Aksu Turkey: A Regional Power in the Making Cambridge Scholars Publishing, 18.07.2014 আইএসবিএন ৯৭৮১৪৪৩৮৬৪৫৩৪ p. 231