মারুফুল হক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মারুফুল হক
Maruful Haque in 2021.jpg
২০২১ সালে হয়ে মারুফুল
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম একেএম মারুফুল হক
জন্ম (1969-09-19) ১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৬৯ (বয়স ৫২)
জন্ম স্থান ময়মনসিংহ, বাংলাদেশ
উচ্চতা ১.৭৩ মিটার (৫ ফুট ৮ ইঞ্চি)
মাঠে অবস্থান মধ্যমাঠের খেলোয়াড়
ক্লাবের তথ্য
বর্তমান দল
চট্টগ্রাম আবাহনী (প্রধান কোচ)
পরিচালিত দল
বছর দল
২০০৮–২০১০ ঢাকা মোহামেডান
২০১০–২০১১ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ
২০১১–২০১৪ শেখ রাসেল
২০১৪–২০১৫ শেখ জামাল
২০১৫ শেখ রাসেল
২০১৫–২০১৬ বাংলাদেশ
২০১৭–২০১৯ আরামবাগ
২০১৯– চট্টগ্রাম আবাহনী
২০২১ বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ (অন্তর্বর্তীকালীন)

একেএম মারুফুল হক (১৯ সেপ্টেম্বর ১৯৬৯; মারুফুল হক নামে সুপরিচিত) হলেন একজন বাংলাদেশী সাবেক পেশাদার ফুটবল খেলোয়াড় এবং ম্যানেজার। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশের পেশাদার ফুটবল লিগের শীর্ষ স্তর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব চট্টগ্রাম আবাহনীতে ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন।[১] তিনি তার খেলোয়াড়ি জীবনে রক্ষণাত্মক মধ্যমাঠের খেলোয়াড় হিসেবে খেলেছেন। ২০১৫ সালে, তিনি প্রথম দক্ষিণ এশীয় হিসেবে উয়েফার এ অনুমতিপত্র অর্জন করেছেন।[২][৩]

২০০৮ সালে, মারুফুল বাংলাদেশী ফুটবল ক্লাব ঢাকা মোহামেডানের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করার মাধ্যমে ম্যানেজার হিসেবে ফুটবল জগতে অভিষেক করেন। ঢাকা মোহামেডানের হয়ে দুই মৌসুম ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করার পর তিনি মুক্তিযোদ্ধা সংসদে ম্যানেজার হিসেবে যোগদান করেন। ২০১১–১২ মৌসুমে, তিনি শেখ রাসেলের ম্যানেজারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। অতঃপর তিনি শেখ জামালের ম্যানেজারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন; শেখ জামালের হয়ে ম্যানেজার হিসেবে তিনি অন্যতম সেরা সময় অতিবাহিত করেছেন, যেখানে তিনি প্রায় ৭৭ শতাংশ ম্যাচ জয়লাভ করেছেন। ২০১৫ সালে বাংলাদেশ জাতীয় দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে তিনি আরামবাগের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করেছেন; যেখানে তিনি ম্যানেজার হিসেবে দীর্ঘ সময় (প্রায় ৩ মৌসুম) অতিবাহিত করেছেন। সম্প্রতি ২০১৯ সালের ১৯শে নভেম্বর তারিখে জুলফিকার মাহমুদ মিন্টু বরখাস্ত হওয়ার পর, তিনি চট্টগ্রাম আবাহনীর ম্যানেজারের পদে নিযুক্ত হয়েছেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

একেএম মারুফুল হক ১৯৬৯ সালের ১৯শে সেপ্টেম্বর তারিখে বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁওয়ে জন্মগ্রহণ করেছেন এবং সেখানেই তার শৈশব অতিবাহিত করেছেন। মারুফুল হকের জন্ম ময়মনসিংহের গফরগাঁও এ।তিনি তার যুব পর্যায়ে প্রায় সব ধরনের খেলা খেলেছেন। তিনি শৈশবে প্রায় সকল ধরনের খেলায় অংশগ্রহণ করেছেন। জুরিন জনতা ক্লাবের হয়ে প্রথম বিভাগের কাবাডি খেলেছেন। অতঃপর তিনি প্রথম বিভাগের বাস্কেটবল দল ঢাকা প্যান্থার্সের কাছ থেকে দলটির হয়ে খেলার প্রস্তাব পেয়েছিলেন। সোনালী ব্যাংক তাদের হকি দলে তাকে অন্তর্ভুক্ত করতে চেয়েছিল এবং বিজেএমসি দল তাকে ৪০০ মিটার দৌড় ও বর্শা নিক্ষেপের জন্য দলটির হয়ে খেলা প্রস্তাব দিয়েছিল। তবে তিনি পেশাদার ফুটবলকে বেছে নিয়েছিলেন। ১৯৯২–১৯৯৪ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ বয়েজ ক্লাবের হয়ে ঢাকা লিগে খেলেছেন। তিনি নিয়মিত জেলা দলে ফুটবল খেলার জন্য ডাক পেতেন। এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে খেলার সুযোগ পেয়েছিলেন।

তিনি ময়মনসিংহের আনন্দ মোহন কলেজ থেকে ডিগ্রি সম্পন্ন করেছেন এবং ১৯৯৩ সালে বাংলাদেশ শারীরিক শিক্ষা কলেজ থেকে বিপিইডি অর্জন করেছেন। অতঃপর তিনি বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেছিলেন।[৪]

ম্যানেজার[সম্পাদনা]

তিনি ময়মনসিংহ মোহামেডান দলের খেলোয়াড় হিসেবে খেলার পাশাপাশি দলটির প্রধান কোচের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে ম্যানেজার হিসেবে ফুটবল জগতে পদার্পণ করেছেন। তিনি ফিফা কর্তৃক আয়োজিত পাঁচ দিনের প্রশিক্ষণ কোর্সে অংশগ্রহণ করেছিলেন; যেখানে জার্মান ম্যানেজার ভাল্টার ফিজি তাকে উচ্চতর প্রশিক্ষণ অনুমতিপত্র গ্রহণ করতে বলেছিলেন। ২০০১ সালে তিনি বাড্ডা জাগরণী সংসদের সহকারী ম্যানেজার হয়েছিলেন।

২০০৮ সালে তিনি বাংলাদেশী ক্লাব ঢাকা মোহামেডানের দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। তার ক্লাব ২০০৯ বাংলাদেশ সুপার কাপ জয়লাভ করার পাশাপাশি টানা দুইটি মৌসুম বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে রানার-আপ হয়েছিল। ২০১১ সালে তিনি শেখ রাসেলের দায়িত্ব গ্রহণ করার পর দলটি লিগে পঞ্চম স্থান অধিকার করার পাশাপাশি বাংলাদেশ ফেডারেশন কাপের সেমি-ফাইনালে বাদ পরেছিল। তবে তার পরবর্তী মৌসুমে তিনি দলটির ট্রেবল জয়ে ভূমিকা রেখেছিলেন। ২০১৪ সালে, তিনি শেখ জামালের প্রযুক্তিগত পরিচালক হিসেবে যোগদান করেছিলেন। একই বছরে তিনি শেখ জামালকে ভুটানের কিংস কাপ জয়লাভ করতে সাহায্য করেছিলেন।

২০১৫ সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে তিনি বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন, যেখানে বাংলাদেশ গ্রুপ পর্বে মাত্র একটি ম্যাচ জয়লাভ করতে সক্ষম হয়েছিল।

অর্জন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ভাড়াটে থেকে চট্টগ্রামে স্থায়ী হচ্ছেন মারুফুলProthom Alo। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০২০ 
  2. "Bangladesh - M. Haque - Profile with news, career statistics and history - Soccerway"int.soccerway.com 
  3. "Maruf earns UEFA A-licence certificate"New Age। ২৯ অক্টোবর ২০১৫। 
  4. "From Physical Instructor In BUET To Completing UEFA A In England- An Inspiring Journey…"goalbangladesh.com। ২২ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা।