মারসেলো রেবেলো দ্যা সুজা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
His Excellency
Marcelo Rebelo de Sousa
ComSE GCIH
Marcelo Rebelo de Sousa em fevereiro de 2018.jpg
20th President of Portugal
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
9 March 2016
প্রধানমন্ত্রীAntónio Costa
পূর্বসূরীAníbal Cavaco Silva
President of the Social Democratic Party
কাজের মেয়াদ
29 March 1996 – 1 May 1999
পূর্বসূরীFernando Nogueira
উত্তরসূরীJosé Manuel Barroso
Leader of the Opposition
কাজের মেয়াদ
29 March 1996 – 1 May 1999
প্রধানমন্ত্রীAntónio Guterres
পূর্বসূরীFernando Nogueira
উত্তরসূরীJosé Manuel Barroso
Minister of Parliamentary Affairs
কাজের মেয়াদ
12 June 1982 – 9 June 1983
প্রধানমন্ত্রীFrancisco Pinto Balsemão
পূর্বসূরীFernando Amaral
উত্তরসূরীAntónio de Almeida Santos
Secretary of State for the Premiership
কাজের মেয়াদ
4 September 1981 – 13 June 1982
প্রধানমন্ত্রীFrancisco Pinto Balsemão
পূর্বসূরীJosé Luís da Cruz Vilaça
উত্তরসূরীLeonor Beleza
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মMarcelo Nuno Duarte Rebelo de Sousa
(1948-12-12) ১২ ডিসেম্বর ১৯৪৮ (বয়স ৭০)
Lisbon, Portugal
রাজনৈতিক দলIndependent (2015–present)
Social Democratic Party (1975–2015)
দাম্পত্য সঙ্গীAna Cristina Motta Veiga (বি. ১৯৭২; sep. ১৯৮০)
ঘরোয়া সঙ্গীRita Amaral Cabral (1980–present)
সন্তান2
আত্মীয়স্বজনBaltasar Rebelo de Sousa (Father)
বাসস্থানBelém Palace (official)
Cascais (private)
প্রাক্তন শিক্ষার্থীUniversity of Lisbon
স্বাক্ষর

মারসেলো নুনো দুয়ার্তে রেবেলো দ্যা সুজা (পর্তুগিজ উচ্চারণ: [mɐɾˈsɛlu ˈnunu ˈdwaɾtɨ ʁɨˈbelu dɨ ˈsozɐ]), কমসে, জিসিআইএইচ (জন্ম ১২ ডিসেম্বর ১৯৪৮) হচ্ছেন একজন পর্তুগিজ একাডেমিক, সাংবাদিক, এবং রাজনীতিবিদ, যিনি বর্তমানে ৯ মার্চ ২০১৬ থেকে ২০তম পর্তুগালের রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।[১] সোশাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (পিডিপি) এর সদস্য, রেবেলো দ্যা সুজা সরকারের মন্ত্রী, পর্তুগিজ প্রজাতন্ত্রের সংসদ সদস্য, আইনি পণ্ডিত, সাংবাদিক, রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও পন্ডিত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন, তার নির্বাচনের আগে অর্জন করেন দেশব্যাপী স্বীকৃতি।

প্রারম্ভের জীবন[সম্পাদনা]

তিনি লিসবনে জন্মগ্রহন করেন, তিনি পিতা বাল্টাসার রেবেলো দ্যা সুজা (১৯২১–২০০১) এবং মা মারিয়া দাস নেভেস ফার্নান্দস ডুয়ার্তের (১৯২১–২০০৩) জ্যেষ্ঠ পুত্র। তার নামটি তার ধর্মপিতা এস্তাদো নভো সরকারের সর্বশেষ প্রধানমন্ত্রী মার্সেলো ক্যাটানো এর নামানুসারে রাখা হয়েছে।

রেবেলো দ্যা সুজা একজন অধ্যাপক ও বিশেষত সাংবিধানিক আইন এবং প্রশাসনিক আইনের বিধিব্যবস্থালেখক, লিসবন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট ডিগ্রী অর্জন করেন, সেখানে তিনি আইন বিষয়ে শিক্ষকতা করেছেন।[২]

দলের রাজনীতি এবং মিডিয়া কর্মজীবন[সম্পাদনা]

রেবেলো দ্যা সুজা এস্তাদো নভোর সময়ে একজন আইনজীবি হিসাবে, এবং পরে একজন সাংবাদিক হিসাবে তার কর্মজীবন শুরু করেন। তিনি পপুলার ডেমোক্রেটিক পার্টিতে যোগ দেন এবং প্রজাতন্ত্র পরিষদে ডেপুটি হন। সেই সময়, তিনি ১৯৭৬ সালে পর্তুগালের সংবিধান প্রণয়নে সহায়তা করেছিলেন।[৩] পরে তিনি প্রধানমন্ত্রী ফ্রান্সিসকো পিন্টো বেলসেমোর এডজয়েন্ট মন্ত্রী পদে উন্নীত হন। ফ্রান্সিসকো পিন্টো বেলসেমোর মালিকানাধীন এক্সপ্রেসো সংবাদ পত্রের তিনি একটি সহ-প্রতিষ্ঠাতা, পরিচালক, প্রশাসক। তিনি সেডাস এর প্রতিষ্ঠাতা এবং অন্য সংবাদপত্র সেমানারিও এর প্রতিষ্ঠাতা ও প্রশাসন পরিষদের সভাপতি ছিলেন। তিনি টিএসএফ রেডিওয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও পন্ডিত হিসেবে কাজ শুরু করেন, যেখানে ততিনি প্রধান রাজনৈতিক খেলোয়াড়দের নম্বর (০ থেকে ২০) দিতেন।

১৯৮৯ সালে তিনি লিসবন মিউনিসিপ্যাল ​​চেম্বারের মেয়র (লিসবনের মেয়র) পদে দৌড়েছিলেন কিন্তু জর্জ স্যাম্পাইও এর কাছে হেরেছিলেন, যদিও তিনি সিটি কাউন্সিলর (ভেরেডোর) হিসাবে একটি আসন জিতেছিলেন। এই অভিযানে তিনি টাগুস নদীর জলের মধ্যে ঝাঁপ দেন এটি প্রমান করতে যে বিপরীত দলের করা নদী দূষনের অভিযোগের সত্যতা নেই।

পিএসডির নেতা, ১৯৯৬–১৯৯৯[সম্পাদনা]

৩১শে মার্চ, ১৯৯৬ থেকে ২৮ মে, ১৯৯৯ পর্যন্ত রেবেলো দ্যা সুজা সোশাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির নেতা ছিলেন (দলের নেতা হিসাবে তার নির্বাচনের কয়েক সপ্তাহ আগে, তিনি ঘোষণা করেন যে তিনি নেতৃত্বের প্রার্থী হবেন না, এমনকি যীশু পৃথিবীতে নেমে আসলেও নাহ")। ১৯৯৮ সালে তিনি পিপলস পার্টির সাথে একটি কেন্দ্রীয়-ডান জোট, গণতান্ত্রিক জোট গঠন করেন। তবে তিনি ইউরোপীয় ডেমোক্রেটদের ইউরোপিয়ান পিপলস পার্টির সহ-সভাপতি হয়ে ওঠেন। পিপলস পার্টির নেতা, পাওলো পোর্টাসের ভূমিকার কারণে জোটটি নিজের দলের বৃহৎ অংশকে সন্তুষ্ট করতে পারেনি, সাপ্তাহিক পত্রিকা ও ইন্ডিপেন্টেডেন্তে এর পরিচালক থাকাকালীন অ্যানিবাল কভাকো সিলভার সরকারের চাপের মধ্যে ছিলেন।

একটি টিভি সাক্ষাৎকারে পোর্টাসের পর রেবেলো দ্যা সুজা পদত্যাগ করেছিলেন, এই বিষয়ে তাদের একটি ব্যক্তিগত বক্তব্য বর্ণনা করেছিলেন। পোর্টাস রেবেলো দ্যা সুজাকে "ও ইন্ডিপেন্টেডেন্তে" এর জন্য একটি বেনামী উৎস হিসাবে দাবি করেছেন, এ বিষয়ে একটি নৈশভোজে তিনি এর বিস্তারিত বর্ণনা করেন (যেখানে ছিল ভিসিসোয়াইজ, একপ্রকার ঠান্ডা স্যুপ) যেখানে তিনি উপস্থিত ছিলেন না; সেই সময়ে পাওলো পোর্টাস পরে তাদের দলগুলোর মধ্যে প্রতিষ্ঠিত জোটের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করেছিলেন — যা নৈশভোজের আগে তৈরি হয়েছিল — "ভিসিসোয়াইজ" শব্দটি "ঠান্ডা পরিবেশিত প্রতিশোধ" এর একটি রেফারেন্স হয়ে ওঠে। এই এবং অন্যান্য অসঙ্গতির জন্য, ম্যানুয়েল মারিয়া ক্যারিলহো তাকে রাজনৈতিক সিরিশ-আঠা বলে উল্লেখ করে। A speech, in which he condemned the Portuguese habit of expecting a Messiah and a Dom Sebastião, was not well taken. জোটের ব্যর্থতার কারণে তিনি জনসাধারণ ও টেলিভিশন থেকে সরে যান।

পোস্ট-নেতৃত্ব[সম্পাদনা]

অন্যান্য স্থানীয় নির্বাচনে, তিনি ক্যাসসাইস পৌর পরিষদের সভাপতি এবং সেলেরিকো ডি বস্টোর পৌর পরিষদের সভাপতি হন। তার প্রতি রবিবার রাজনৈতিক বিশ্লেষণ নিয়ে পাবলিক টিভি স্টেশন "আরটিপি"তে একটি সাপ্তাহিক অনুষ্ঠান ছিলো, যেখানে তিনি "বর্তমান সময়ের সবচেয়ে বিজ্ঞ এবং সবচেয়ে স্বচ্ছদৃষ্টিসম্পন্নতা রাজনৈতিক বিশ্লেষক" হিসাবে পরিচিত ছিলেন। তাঁর মন্তব্যে রাজনীতি থেকে খেলাধুলা সবকিছু আচ্ছাদিত ছিল, নতুন প্রকাশিত বইগুলিতে তার বিখ্যাত উপস্থাপনা এবং মন্তব্য থাকতো, এবং সেগুলো কখনও কখনও বিতর্কিত ছিল, কিছু মন্তব্য ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক আক্রমণ হিসাবে দেখা হতো।

টিভিআই-এ তার বিশ্লেষনে, তিনি প্রায়ই পেদ্রো সান্তানা লোপসকে আক্রমণ করতেন, এবং প্রায়ই "নিষ্ঠুর, একজন কাডগেলার ও বিদ্বেষপূর্ণ", এবং "প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি হওয়ার অযোগ্য" বলে দোষারোপ করতেন। সান্তানা লোপসের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর পর্যন্ত এই দ্বন্দ্ব চলতে থাকে, তিনি তার কাজ সম্পর্কিত একটি বিশেষ ভাষ্য দিয়েছিলেন যে, তিনি "সবচেয়ে খারাপ গুতেরেসের চেয়েও খারাপ" ছিলেন এবং তিনি "গুতেরেসের চেহারা ভাল করেছেন এবং তাদের বেলেমে ঠেলে দিয়েছেন", সান্টানা লোপেসের সরকারের স্পিকার রুই গোমেস দা সিলভার প্রতিক্রিয়ায় তিনি এ জবাব দেন, যেখানে রুই গোমেস দা সিলভা তাকে "অনৈচ্ছিক ষড়যন্ত্রকারী" বলে অভিযুক্ত করেছিলেন। নেটওয়ার্কের সভাপতি মিগুয়েল পাইস অমরকে একটি ব্যক্তিগত নৈশভোজে ডেকে এনে বলা হয়েছিল রেবেলো দ্যা সুজার আক্রমন আরো সংযত হওয়া উচি, সুজা এমন কিছু যা সেন্সরশিপের রূপ ধারণ করেছিল, যা প্রোগ্রাম এবং চ্যানেল থেকে তার প্রস্থানে ভূমিকা রাখে। এই পর্বের পর আরটিপি তাকে ভাড়া করেছিল।

আংশিকভাবে এই ঘটনাগুলির ফলস্বরূপ, রাষ্ট্রপতি জর্জ স্যাম্পাইও প্রজাতন্ত্রের সংসদ ভেঙ্গে দিয়েছিলেন, এটি এমন একটি পদক্ষেপ যার অর্থ একটি স্থিতিশীল জোটের সংখ্যাগরিষ্ঠতায় সরকারকে বরখাস্ত করা এবং প্রত্যাশিত নির্বাচনের আহ্বান জানায়, যার ফলে সান্তানা লোপেসের পরাজয় ঘটেছিল এবং জোসে সক্রেটসের অধীনে সমাজতন্ত্রীদের নির্বাচন হয়।

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিজয়ী মার্সেলো দ্যা সুজা ২৪ জানুয়ারী ২০১৬ নির্বাচনের রাতে বিজয়ী বক্তৃতা দেন

২০১০ সালে, তিনি আরটিপি ছেড়ে চলে যান এবং টিভিআই তে ফিরে আসেন, যা তিনি আগে থেকেই করেছিলেন।

রাষ্ট্রপতি কাভাকো সিলভা কর্তৃক তাঁকে কাউন্সিল অব স্টেটের সদস্য করা হয় এবং ৬ এপ্রিল ২০০৬-এ শপথ গ্রহণ করেন।[৪]

২০০৭ সালের গর্ভপাত বিষয়ে গণভোটের পক্ষে ছিলেন তিনা। তিনি এমনকি "আসিম নাও" (এর মতো নয়) নামে একটি ওয়েবসাইট প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, যা একটি বিখ্যাত পরিচায়ক ভিডিও দিয়ে প্রকাশ করা হয়েছিল।[৫] এটি এত সুপরিচিত হয়ে উঠেছিল যে এটি বিখ্যাত হাস্যরস গ্রুপ গেটো ফেডেরেন্তো কর্তৃক স্যাটারডে নাইট লাইভ-ফ্যাশনে রচিত হয়েছিল।[৬]

পর্তুগালের রাষ্ট্রপতি, ২০১৬-বর্তমান[সম্পাদনা]

২৪ জানুয়ারী ২০১৬ ভোটের প্রথম রাউন্ডে পর্তুগালের রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন রেবেলো দ্যা সুজা। তিনি একজন স্বাধীন প্রার্থী হিসাবে দাঁড়িয়েছিলেন, সংযম ও ক্রস পার্টির ঐক্যমত্যের জন্য আবেদন করেছিলেন।[৭] তার নির্বাচনী প্রচারণার সময়, তিনি রাজনৈতিক বিভাগগুলি এবং ২০১৬-১৪ সালের পর্তুগালের বেলআউটের মেরামত করার প্রতিশ্রুতি দেন। তার পূর্ববর্তী এনিভাল ক্যাভাকো সিলভা থেকে ভিন্ন, তিনি আগে কখনো শীর্ষস্থানীয় রাষ্ট্রীয় পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন না।[৮]

২০১৫ সালে পর্তুগাল প্রজাতন্ত্রের সাথে ঐতিহাসিক চুক্তির পরে, মাননীয় চতুর্থ আগা খান আনুষ্ঠানিকভাবে লিসবনের রুয়া মার্কুইস ডি ফ্রন্টেরিয়া প্রাঙ্গনে অবস্থিত হেনরিক ডি মেন্ডনকা প্রাসাদকে ১১ জুলাই, ২০১৮ এ ইসমাঈলি ইমামতের আসন হিসাবে মনোনীত করেন, এবং ঘোষণা করেন যে এটি "ইসমাঈলি ইমামতের দীওয়ান" হিসাবে পরিচিত হবে। মার্সেলো রেবেলো দ্যা সুজা আগা খানকে পর্তুগিজ জাতীয়তাও দিয়েছেন।

রাষ্ট্র সফর[সম্পাদনা]

পর্তুগালের রাষ্ট্রপতি হিসেবে প্রথম রাষ্ট্র সফর (ভ্যাটিকান, মার্চ ২০১৬)
২৭ জুন ২০১৮-এ ওয়াশিংটনের হোয়াইট হাউসে মার্সেলো রেবেলো দ্যা সুজা ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্প

পর্তুগালের রাষ্ট্রপতি মার্সেলো রেবেলো দ্যা সুজা, ভ্যাটিকান, স্পেন, মোজাম্বিক, মরক্কো, ব্রাজিল, সুইজারল্যান্ড, কিউবা, যুক্তরাজ্য, গ্রীস এবং অ্যাঙ্গোলা সফর করেছেন। প্রথম সফরটি ছিল পোপ ফ্রান্সিস এবং কার্ডিনাল সেক্রেটারি অফ স্টেট পিয়েত্রো প্যারালিনের সাথে দেখা করার জন্য ভ্যাটিক্যান সিটিতে।[৯][১০][১১][১২][১৩][১৪][১৫]

স্বাস্থ্য সমস্যা[সম্পাদনা]

২০১৭ সালের ২৮ ডিসেম্বর, মার্সেলো রেবেলো দ্যা সুজা লিসবনের কারি ক্যাব্রাল হাসপাতালে ভর্তি হন, যেখানে তাঁকে একটি কেন্দ্রী অন্ত্রবৃদ্ধি চিকিৎসার জন্য অস্ত্রোপচার করা হয়।[১৬] এডুয়ার্ডো ব্যারোসো, প্রবীণ সার্জন, যিনি শৈশব থেকেই রাষ্ট্রপতির ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলেন, তিনি এই অস্ত্রোপচারটি করেছিলেন।[১৭] অস্ত্রোপচারের পর ব্যারোসো সংবাদপত্রকে জানান যে সব ভাল ভাবে হয়েছে এবং মার্সেলো ছয় বছর ধরে এই সমস্যায় ভুগছিলেন এবং ৪ জানুয়ারী ২০১৮-এ সার্জারি শুরু হয়েছিল। যাহোক, ২৮ ডিসেম্বর সকালে রাষ্ট্রপতি পেটে ব্যথা অনুভব করেন এবং তাঁর সরকারী চিকিৎসক ড্যানিয়েল মাতোসের একটি পরীক্ষায় জানা যায় যে, হারনিয়া সাময়িক বন্ধ করা হয়েছে এবং তার তাৎক্ষণিক অস্ত্রোপচার প্রয়োজন। ২৯ ডিসেম্বর, রাষ্ট্রপতির অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে একটি ক্লিনিকাল রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়, যা জানায় যে মার্সেলো আনন্দিত এবং ভালভাবে পুনরুদ্ধার হয়েছেন।[১৮] মার্সেলো রেবেলো দ্যা সুজা ৩১ ডিসেম্বরে ১২:৪৫ মিনিটে হাসপাতাল ছাড়েন এবং নিজের পায়ে হেটে প্রাঙ্গন ত্যাগ কনেন, কিছু হাসপাতালের কর্মচারী ও অন্যান্য রোগীদের অভিবাদন ও প্রশংসা জানান। তিনি পর্তুগিজ জাতীয় স্বাস্থ্যসেবার প্রশংসা করেন, এটি গণতন্ত্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিজয় হিসাবে বিবেচিত।[১৯]

২০১৩ সালের ২৩ জুন, মার্সেলো রেবেলো দ্যা সুজা ব্রাগায় অবস্থিত বম জীসাস ডো মন্তে পবিত্র স্থানে ভ্রমণের পর খারাপ বোধ করেন এবং ভেঙে পড়েন, যেদিন তাপমাত্রা ছিল ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়, যেখানে বেশ কয়েকটি পরীক্ষার পর, এটি প্রকাশিত হয়েছিল যে এই ঘটনাটি গুরুতর গ্যাস্ট্রোএন্টারাটাইটিসের পাশাপাশি রক্তচাপের হঠাৎ হ্রাসের কারণে ঘটেছিল।[২০] তাকে একই দিন হাসপাতালে থেকে ছাড়া হয়েছিল এবং কিছুদিন বিশ্রাম নেওয়ার জন্য বলা হয়েছিল।[২১]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

২৭ জুলাই ১৯৭২-এ সাও ববেন্তো ডু মাতোর একটি প্যারিশে মার্সেলো রেবেলো দ্যা সুজা married আনা ক্রিস্টিনা দা গামা কাইরো দা মোতাকে বিয়ে করেন, যিনি ৪ জুন ১৯৫০-এ লিসবনের সান্তোস-ও-ভেলহো প্যারিশে জন্মগ্রহন করে, আন্তোনিও দা মোতা ভেইগা এবং মারিয়া এমিলিয়া দা গামা কাইরোর মেয়ে এবং জর্জ ম্যানুয়েল ভাসালো সোর্স লাগ্রিফার (৭ মে ১৯৪৮ – ২ ফেব্রুয়ারি ২০০৫) বর্তমান বিধবা স্ত্রী, ম্যানুয়েল আন্তোনিও ভাসালো ই সিলভা মাতৃ সম্পর্কে নাতি, যযার সাথে তার দুই সন্তান ছিল:

  • নুনো দা মোতা ভেইগা রেবেলো দ্যা সুজা (জন্ম. [[সাও সেবাস্তিয়ো দা পেড্রেইরা, লিসবন, ৮ আগস্ট ১৯৭৩)
  • সোফিয়া দা মোতা ভেইগা রেবেলো দ্যা সুজা (জন্ম. সাও সেবাস্তিয়ো দা পেড্রেইরা, লিসবন, ২৭সেপ্টেম্বর ১৯৭৬)

তিনি ১৯৮০ সালের পরে পৃথক হন, কিন্তু তার ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে তালাকপ্রাপ্ত হননি। তিনি তার প্রাক্তন শিক্ষার্থীর সঙ্গে ১৯৮০ এর দশকে ডেটিং শুরু করেছিলেন, তখন তিনি লিসবন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদে তার সহকারী প্রভাষক ছিলেন। তারা এখনও ডেটিং করছেন, কিন্তু আলাদাভাবে বসবাস করেন।[২২]

‌তিনি দৈনিক মাত্র ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা ঘুমান বলে দাবি করেন। তিনি এক দিনে ২টি বই পড়েন এবং পর্তুগিজ রিভিয়ারার ক্যাসকাইসের গুইঞ্চো সৈকতের একজন উৎসুক সার্ফার বলে দাবি করেন। তিনি নিজেকে শাস্ত্রীয় সঙ্গীত, বিশেষত জিউসেপ ভের্দির একজন ফ্যান বলে বিবৃতি দিয়েছেন।

  1. "President says Portugal must respect EU, avoid return to crisis"। ৯ মার্চ ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮ – www.reuters.com-এর মাধ্যমে। 
  2. "Teaching staff, Faculty of Law, University of Lisbon" (PDF)। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ জুলাই ২০১৯ 
  3. Vince Chadwick (January 24, 2016), Portugal elects Rebelo de Sousa as president Politico Europe.
  4. "Presidente deu posse a novos membros do Conselho de Estado"Presidência da República Portuguesa। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-০৩ 
  5. Vídeos Perdidos। "As razões do Assim Não (Marcelo Rebelo de Sousa)"। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮ – YouTube-এর মাধ্যমে। 
  6. RTP। "Assim Não (Marcelo Rebelo de Sousa)"। সংগ্রহের তারিখ ২৫ ডিসেম্বর ২০১৮ – YouTube-এর মাধ্যমে। 
  7. Paul Ames (January 24, 2016), 5 takeaways from Portugal’s presidential election Politico Europe.
  8. Axel Bugge (March 9, 2016), "President says Portugal must respect EU, avoid return to crisis" Reuters.
  9. "Vaticano: Marcelo Rebelo de Sousa em audiência com o Papa Francisco"Agência Ecclesia (পর্তুগিজ ভাষায়)। ১৭ মার্চ ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১৬ 
  10. Ribeiro, Nuno (১৬ মার্চ ২০১৬)। "Marcelo inicia hoje visita oficial ao Vaticano e Espanha"Público (পর্তুগিজ ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১৬ 
  11. "Marcelo chegou a Moçambique"TVI (পর্তুগিজ ভাষায়)। ৩ মে ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১৬ 
  12. "Em Marrocos, a falar de energia, 'Brexit', Espanha e sanções"Público (পর্তুগিজ ভাষায়)। Lusa। ২৮ জুন ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ২৯ জুন ২০১৬ 
  13. "Marcelo Rebelo de Sousa em visita oficial ao Brasil"Rádio e Televisão de Portugal (পর্তুগিজ ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-২০ 
  14. Lusa, Agência। "Em visita oficial a Londres, Marcelo Rebelo de Sousa encontra-se com financeiros e primeira-ministra"Observador (পর্তুগিজ ভাষায়)। ২০১৮-১১-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-২০ 
  15. "Portugal's President Marcelo Rebelo de Sousa visits Greece | The Greek Observer"The Greek Observer (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৩-১৩। ২০১৮-১১-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-২০ 
  16. "Marcelo Rebelo de Sousa internado em Lisboa para ser operado de urgência"www.dn.pt (পর্তুগিজ ভাষায়)। Diário de Notícias। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  17. "Marcelo operado por Eduardo Barroso"www.sabado.pt (পর্তুগিজ ভাষায়)। SÁBADO। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  18. "Boletim Clínico do estado de saúde do Presidente da República"www.presidencia.pt (পর্তুগিজ ভাষায়)। Presidência da República। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০১৭ 
  19. "Marcelo Rebelo de Sousa já teve alta e foi aplaudido à saída"www.dn.pt (পর্তুগিজ ভাষায়)। Diário de Notícias। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৮ 
  20. "Marcelo sofre quebra de tensão e desmaia durante visita em Braga"www.jn.pt (পর্তুগিজ ভাষায়)। Jornal de Notícias। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০১৮ 
  21. "Nota da Presidência da República"www.presidencia.pt (পর্তুগিজ ভাষায়)। Presidência da República। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০১৮ 
  22. "Quem é a Mulher Que não quer ser primeira-dama?"www.sabado.pt। Revista Sábado। সংগ্রহের তারিখ ১২ মার্চ ২০১৬