মানসিক আঘাতগ্রস্থ পুনর্বাসন কেন্দ্র বাংলাদেশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মানসিক আঘাতগ্রস্থ পুনর্বাসন কেন্দ্র বাংলাদেশ
বিআরসিটি লোগো.jpg
গঠিত১৯৯২
অবস্থান
দাপ্তরিক ভাষা
English
নেতাআকরাম এইচ. চৌধুরী
ওয়েবসাইটbrct.org

মানসিক আঘাতগ্রস্থ পুনর্বাসন কেন্দ্র বাংলাদেশ (বাংলা: বিআরসিটি ) একটি বাংলাদেশী বেসরকারি সংস্থা যা মানসিক আঘাতপ্রাপ্তদের পুনর্বাসনের ক্ষেত্রে কাজ করে। এটি ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বিআরসিটি বিদেশী চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের সহযোগিতায় ১৯৯২ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারী [১][২][৩][৪] মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থদের চিকিৎসা, আইনী সহায়তা এবং পুনর্বাসনের উদ্দেশ্য নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল।

প্রতিষ্ঠাতা[সম্পাদনা]

মানবাধিকারকর্মী এবং নবম সংসদ সদস্য (এমপি) [৫] আকরাম এইচ. চৌধুরী বিআরসিটি-র প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি ঢাকার বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব হিউম্যান রাইটস (বিআইএইচআর) এর সেক্রেটারি জেনারেল ছিলেন।[৬]

কার্যক্রম[সম্পাদনা]

বিআরসিটির ক্রিয়াকলাপের দুটি প্রধান ক্ষেত্র রয়েছে - নিরাময়মূলক এবং প্রতিরোধমূলক।। বিশেষজ্ঞদের তত্ত্বাবধানে সমাজে পুনর্বাসনের জন্য এবং শারীরিক ও মানসিক কাঠামোর উন্নতি করতে নির্যাতন থেকে বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের জন্য বিআরসিটি এককভাবে ঢাকায় একটি অত্যন্ত যুগোপযোগী চিকিৎসা পরিচালনা করছে। মেডিকেয়ার ছাড়াও,[৭] ফিজিওথেরাপি এবং সাইকোথেরাপি, আইনী সহায়তা সহ নির্যাতন থেকে বেঁচে যাওয়াদের শারীরিক পুনর্বাসন এবং আর্থিক পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করে সংস্থাটি।

প্রতিরোধমূলক[সম্পাদনা]

  • ক্ষতিগ্রস্তদের সমিতি (ভিএ)
  • নির্যাতনের বিরুদ্ধে ডোর টু ডোর ক্যাম্পেইন (ডিডিসিএটি)
  • নির্যাতনের বিরুদ্ধে টাস্কফোর্স (টিএফটি)
  • বাড়িঘর পরিদর্শন
  • গবেষণা এবং ডকুমেন্টেশন
  • পরিবর্তন এবং প্রসারণের সচেতনতার জন্য তদবির

নিরাময়মূলক[সম্পাদনা]

  • সমন্বিত পুনর্বাসন অভিগমন (আইআরএ)
  • কমিউনিটি ব্যাডস পুনর্বাসন (সিবিআর)
  • কমিউনিটি হেলথ সহযোগী কার্যক্রম (সিএইচএ)

সমন্বিত পুনর্বাসন অভিগমন[সম্পাদনা]

ক্ষতিগ্রস্থদের সমিতি[সম্পাদনা]

নির্যাতনের বিরুদ্ধে টাস্কফোর্স[সম্পাদনা]

স্থানীয় ডাক্তার, আইনজীবী, সাংবাদিক, শিক্ষক এবং সমাজকর্মীদের সমন্বয়ে বিভিন্ন জেলা পর্যায়ে গঠিত প্রতিরোধমূলক অংশে বিআরসিটি একটি নির্যাতনবিরোধী টাস্কফোর্স(টিএফটি) নামে একটি অনন্য কর্মসূচি শুরু করে। যারা নির্যাতনের বিরুদ্ধে সুরক্ষার জন্য উদ্যোগ নেবে । টিএফটি সদস্যরা স্থানীয়ভাবে নির্যাতনের শিকার ব্যক্তিদের চিকিৎসা সহজতর করবেন, নির্যাতন ও মানবাধিকার লঙ্ঘন সম্পর্কে সাধারণ সচেতনতার জন্য সেমিনার, ধর্মীয় প্রার্থনা ও আলোচনা সভার আয়োজন করবেন এবং নির্যাতনের যে কোনও ঘটনা বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবেন।

নির্যাতনের বিরুদ্ধে ডোর টু ডোর ক্যাম্পেইন[সম্পাদনা]

চিকিৎসা এবং পুনর্বাসন[সম্পাদনা]

নিরাময়মূলক ক্রিয়াকলাপের অধীনে বিআরসিটি আন্তরিকভাবে উপলব্ধ সংস্থানগুলির সাথে প্রায় সমস্ত সমস্যার সমাধান করে। বিআরসিটির চিকিৎসা কেন্দ্র নির্যাতনের শিকার ব্যক্তিদের চিকিৎসার সাথে সম্পর্কিত এবং সমন্বিত পুনর্বাসন অভিগমন (আইআরএ) হিসাবে পরিচিত একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পরিসেবা সরবরাহ করে। এটি একটি বহু-বিভাগীয় পন্থা, যাতে শারীরিক, মানসিক পাশাপাশি অর্থনৈতিক পুনর্বাসনের ব্যবস্থাও অন্তর্ভুক্ত। শুরু থেকেই বিআরসিটি ঢাকা ভিত্তিক চিকিৎসা কেন্দ্রটি পরিচালনা করছে যা ক্ষতিগ্রস্থদের বহিবিভাগের পরিসেবা প্রদান করে। বিআরসিটি তখনই কোনও ব্যক্তিকে নির্যাতন থেকে বেঁচে যাওয়া হিসাবে বিবেচনা করে যখন কেবল বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলি এবং সুরক্ষা বাহিনীর সদস্যরা দ্বারা নির্যাতন করা হয়। নির্যাতন থেকে বেঁচে যাওয়া বেশিরভাগ লোকেরা মানসিক, অর্থনৈতিক এবং আইনী সহায়তা পেতে তীব্র শারীরিক জটিলতায় কেন্দ্রটি পরিদর্শন করেন।

শূন্য ব্যথা আন্দোলন[সম্পাদনা]

বিআরসিটি ২০০৬ সালের ৩০ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে শূন্য ব্যথা আন্দোলন শুরু করে। মৌলিক ফিজিওথেরাপিউটিক নীতিগুলি এবং জনগণের মধ্যে সচেতনতা রোধ করার জন্য এটি একটি বিপ্লবী সামাজিক আন্দোলন।।শূন্য ব্যথা আন্দোলনের সাথে, আইপিআরআর ( ইনস্টিটিউট অফ ফিজিওথেরাপি রিহ্যাবিলিটেশন অ্যান্ড রিসার্চ ) এর সাথে একত্রে বিআরসিটি ফিজিওথেরাপিকে সাধারণ মানুষের ব্যথা এবং যন্ত্রণা হ্রাস করার মূল সরঞ্জাম হিসাবে ব্যবহার করবে, বিশেষত যারা দৈনিক শারীরিক শ্রমে জড়িত যেখানে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা দেখা দেয়। [৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. BRCT ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৬ জুলাই ২০০৭ তারিখে
  2. "Institution" 
  3. BRCT ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২২ নভেম্বর ২০০৬ তারিখে
  4. BRCT ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩১ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে
  5. Member of Parliament
  6. "The IRCT Council: 2003–2006"International Rehabilitation Council for Torture Victims। ১১ জুলাই ২০০৩। 
  7. "BANGLADESH: A man tortured by the Gournadi police in Barisal"Asian Human Rights Commission (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৬-০৪ 
  8. Zero Pain Movement[অকার্যকর সংযোগ]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]