মানব (রাজা)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গৌড়ের শেষ সম্রাট

মানবদেব
৬০৬–৬৪০
মানবের শাসনের প্রারম্ভকালে দক্ষিণ এশিয়ার প্রধান রাজ্যগুলোর মানচিত্রে পীতাভ-সবুজ বর্ণে গৌড় রাজ্যের ভৌগোলিক ব্যপ্তি, আনুমানিক ৬২৫ খ্রি.
মানবের শাসনের প্রারম্ভকালে দক্ষিণ এশিয়ার প্রধান রাজ্যগুলোর মানচিত্রে পীতাভ-সবুজ বর্ণে গৌড় রাজ্যের ভৌগোলিক ব্যপ্তি, আনুমানিক ৬২৫ খ্রি.
রাজধানীকর্ণসুবর্ণ
প্রচলিত ভাষাবাংলা, মাগধী প্রাকৃত
ধর্ম
হিন্দু, বৌদ্ধ
সরকাররাজতন্ত্র
রাজা 
• ৬০৬ - ৬৩৮
শশাঙ্ক
• ৬৩৮ - ৬৪০
মানব
ইতিহাস 
• প্রতিষ্ঠা
৬০৬
• বিলুপ্ত
৬৪০

মানব বা মানবদেব ছিলেন গৌড়ের রাজা শশাঙ্কের এর ছোট ভাইয়ের ছেলে ও উত্তরাধিকারী। তিনি ছিলেন এ রাজবংশের শেষ নথিভুক্ত রাজা ও তাকে সম্ভবত উত্তর ভারতের রাজা হর্ষবর্ধন অথবা কামরূপের রাজা ভাস্করবর্মণ ক্ষমতাচ্যুত করেন। একাধিক সূত্রমতে রাজা হিসেবে তিনি ৮ মাস গৌড় শাসন করেন।[১] বৌদ্ধ শাস্ত্রগ্রন্থ আর্য-মঞ্জুশ্রী-মূল-কল্পে উল্লেখ করা হয় যে রাজা মানব আট মাস সাড়ে পাঁচ দিন রাজত্ব করেছিলেন।[২] ১৯৫৪ সালে শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় রচিত ঐতিহাসিক উপন্যাস গৌড়মল্লার অনুসারে, হর্ষবর্ধনের সাথে যুদ্ধের পর মানব যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পলায়ন করে গৌড় রাজ্যের একটি গ্রাম বেতসগ্রামে যান। সেখানে তার সাথে রঙ্গিনী নামক এক নারীর পরিচয় হয়, যিনি মানবের প্রাণ রক্ষা করেন। পরবর্তিতে তিনি রঙ্গিনীকে বিয়ে করেন ও রাজধানী উদ্ধারের উদ্দেশ্যে কর্ণসুবর্ণে যান কিন্তু তিনি ভাস্করবর্মণের গৌড় দখল করা প্রতিহত করতে ব্যর্থ হন। পরবর্তীতে মানবের এক পুত্রসন্তান হয়, যার নাম বজ্রদেব বা বজ্র। বজ্র মাত্র এক দিনের জন্য গৌড়ের রাজা ছিলেন।[৩] তবে বজ্রদেবের ঐতিহাসিকতা নিয়ে ইতিহাসবেত্তাদের মাঝে দ্বিমত রয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Prasad Sinha, Bindeshwari (১৯৭৭)। Dynastic History of Magadha। New Delhi: Abhinav Publications। পৃষ্ঠা ১৩৩। 
  2. Jayaswal, Kashi Prasad (১৯৩৪)। An Imperial History Of India. (c.700 BC - c.770 AD).। Lahore: Motilal Banarsi Dass। পৃষ্ঠা ৫০–৫১। 
  3. বন্দ্যোপাধ্যায়, শরদিন্দু (১৯৫৪)। গৌড়মল্লার