মাঙ্কিপক্স ভাইরাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Monkeypox virus
Electron micrograph of "Moneypox virus"
মাঙ্কিপক্স ভাইরাসের ইলেক্ট্রন মাইক্রোগ্রাফ
ভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস e
অপরিচিত শ্রেণী (ঠিক করুন): Orthopoxvirus
প্রজাতি: Monkeypox virus

মাঙ্কিপক্স ভাইরাস বা বাঁদরবসন্ত ভাইরাস (MPV বা MPXV) হল একটি ডাবল-স্ট্র্যান্ডেড ডিএনএ জুনোটিক ভাইরাস যা মানুষ এবং অন্যান্য প্রাণীদের মধ্যে মাঙ্কিপক্স সৃষ্টি করে। এটি পক্সভাইরাডে পরিবারের অরথোপক্সভাইরাস গণের অন্তর্গত। এটি মানুষের অরথপক্স ভাইরাসগুলির মধ্যে একটি যার মধ্যে ভ্যারিওলা (VARV), কাউপক্স (CPX) এবং ভ্যাক্সিনিয়া (VACV) ভাইরাস রয়েছে। এটি ভ্যারিওলা ভাইরাসের সরাসরি পূর্বপুরুষ নয় বা এর সরাসরি বংশধর নয়, যা স্মলপক্স সৃষ্টি করে। মাঙ্কিপক্স রোগটি গুটিবসন্তের মতো, তবে হালকা ফুসকুড়ি এবং কম মৃত্যুহার সহ।[১][২][৩]

জলাধার[সম্পাদনা]

মাঙ্কিপক্স প্রাইমেট সহ প্রাণীদের দ্বারা বাহিত হয়। ১৯৫৮ সালে ডেনমার্কের কোপেনহেগেনে প্রেবেন ভন ম্যাগনাস দ্বারা এটি প্রথম শনাক্ত করা হয়েছিল, যা পরীক্ষাগারের প্রাণী হিসেবে ব্যবহার করা কাঁকড়া খাওয়া ম্যাকাক বানর (ম্যাকাকা ফ্যাসিকুলারিস)। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ২০০৩ এর প্রাদুর্ভাব একটি আমদানি করা গাম্বিয়ান পাউচড ইঁদুর থেকে সংক্রামিত প্রেইরি কুকুরের জন্য সনাক্ত করা হয়েছিল। মাঙ্কিপক্স ভাইরাস প্রাইমেট এবং অন্যান্য প্রাণী উভয়ের মধ্যেই এই রোগের কারণ হয়ে থাকে। ভাইরাসটি প্রধানত মধ্য ও পশ্চিম আফ্রিকার গ্রীষ্মমন্ডলীয় রেইনফরেস্ট অঞ্চলে পাওয়া যায়।[৪]

সংক্রমণ[সম্পাদনা]

ভাইরাসটি প্রাণী থেকে মানুষ এবং মানুষ থেকে মানুষ উভয়ই ছড়াতে পারে। প্রাণী থেকে মানুষে সংক্রমণ পশুর কামড়ের মাধ্যমে বা সংক্রামিত প্রাণীর শারীরিক তরলের সাথে সরাসরি যোগাযোগের মাধ্যমে ঘটতে পারে। সংক্রামিত ব্যক্তির শারীরিক তরল থেকে ফোমাইটস (স্পর্শযোগ্য পৃষ্ঠ) এর সংস্পর্শে ফোঁটা শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে ভাইরাসটি মানুষ থেকে মানুষে ছড়াতে পারে।মাঙ্কিপক্সের প্রাথমিক লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে জ্বর, মাথাব্যথা, ঘেমে যাওয়া, পিঠে ব্যথা, মাংসপেশির টান ও অবসাদ। জ্বর কমলে শরীরে দেখা দেয় ফুসকুড়ি। অধিকাংশ ঘটনায় শুরুতে মুখে ফুসকুড়ি দেখা দেয়। পরে অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়ে; বিশেষ করে হাতের তালু ও পায়ের তলায়।

যেভাবে সংক্রমিত হয়[সম্পাদনা]

কোনো সংক্রমিত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে এলে মাঙ্কিপক্স ছড়াতে পারে। ভাইরাসটি শরীরে প্রবেশ করে ভঙ্গুর ত্বক, শ্বাসনালি, চোখ, নাক বা মুখের মাধ্যমে।

যৌন সম্পর্কের মাধ্যমে এ রোগ ছড়াতে পারে—আগে এমনটা বলা না হলেও এখন ধারণা করা হচ্ছে, যৌন মিলনের সময় সরাসরি সংস্পর্শে এ ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটতে পারে।

সংক্রমিত বানর, ইঁদুর ও কাঠবিড়াল এবং ভাইরাসযুক্ত বস্তু যেমন বিছানাপত্র ও জামাকাপড়ের সংস্পর্শে এলেও ছড়াতে পারে ভাইরাসটি।[৫]

এপিডেমিওলজি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Breman JG, Kalisa R, Steniowski MV, Zanotto E, Gromyko AI, Arita I (১৯৮০)। "Human moneypox, 1970-79"Bull World Health Organ58 (2): 165–182। পিএমআইডি 6249508পিএমসি 2395797অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  2. Alkhalil Abdulnaser; Hammamieh Rasha; Hardick Justin; Ichou Mohamed A; Jett Marti; Ibrahim Sofi (২০১০)। "Gene expression profiling of monkeypox virus-infected cells reveals novel interfaces for host-virus interactions"Virology Journal7: 173। ডিওআই:10.1186/1743-422X-7-173পিএমআইডি 20667104পিএমসি 2920256অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  3. Shchelkunov SN, Totmenin AV, Safronov PF, Mikheev MV, Gutorov VV, Ryazankina OI, Petrov NA, Babkin IV, Uvarova EA, Sandakhchiev LS, ও অন্যান্য (২০০২)। "Analysis of the monkeypox virus genome"। Virology297 (2): 172–194। ডিওআই:10.1006/viro.2002.1446অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 12083817 
  4. Reed Business Information (৩০ নভেম্বর ১৯৭৮)। New Scientist80। Reed Business Information। পৃষ্ঠা 682–। আইএসএসএন 0262-4079 
  5. "CDC | Questions and Answers About Monkeypox"। Cdc.gov। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৬-১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Viral cutaneous conditions