মাউন্টেইনিয়ার (ট্রেন)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মাউন্টেইনিয়ার
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
পরিষেবা ধরনআন্তঃনগর রেল
অবস্থাবন্ধ
স্থানওয়েস্ট ভার্জিনিয়া
পূর্বসূরীপোকাহন্তাস
প্রথম পরিষেবা২৪ মার্চ, ১৯৭৫
শেষ পরিষেবা৩১ মে, ১৯৭৭
উত্তরসূরীহিলটপার
সাবেক পরিচালকআমট্রাক
যাত্রী৫৩,৪০০ (১৯৭৭)
যাত্রাপথ
শুরুনরফোক, ভার্জিনিয়া
থামে১৮
শেষশিকাগো, ইলিনয়
দূরত্ব ভ্রমণ৯৬৮ মাইল (১,৫৫৮ কিমি)
যাত্রার গড় সময়২৪ ঘণ্টা ৪০ মিনিট
পরিষেবার হারদৈনিক
রেল সংখ্যা৫৪, ৫৫
যাত্রাপথের সেবা
শ্রেণী
  • কোচ
  • স্লিপার
ঘুমানোর ব্যবস্থারুমেট এবং বেডরুম
খাদ্য সুবিধাগ্রিল ডাইনার
পর্যবেক্ষণ সুবিধাডোম কোচ
মালপত্রের সুবিধাআছে
কারিগরি
ট্র্যাক গেজ৪ ফিট সাড়ে আট ইঞ্চি (১,৪৩৫ মিমি.)
ট্র্যাকের মালিকএন অ্যান্ড ডব্লিউ

মাউন্টেইনিয়ার হচ্ছে আমট্রাক পরিচালিত একটি প্যাসেঞ্জার ট্রেনের নাম, যেটি নরফোক, ভার্জিনিয়া, শিকাগো এবং ইলিনয় রাজ্যের মাঝে সিনসিনাটি ও ওহিও হয়ে চলাচল করত। এটি ১৯৭১ সালে আমট্রাক চালু হওয়ার পর প্রথম ট্রেন, যেটি নরফোক এবং ওয়েস্টার্ন রেলওয়ে পথ ব্যবহার করে।[১]:২৪৮ এটি এন অ্যান্ড ডব্লিউ এর শেষ ট্রেন পোকাহন্তাস এর রুট অনুসরণ করে। এটি ১৯৭৫ সালে চালু হয়, বন্ধ হয় ১৯৭৭ সালে।  হিলটপার নামে আরেকটি ট্রেন মাউন্টেইনিয়ার এর রুট অনুসরণ করলেও ১৯৭৯ সালে সেটিও বন্ধ হয়ে যায়।[২]:৭২-৭৪

ইতিহাস[সম্পাদনা]

নরফোক এবং ওয়েস্টার্ন রেলওয়ে হচ্ছে ১৯৭১ সালে আমট্রাকের সাথে যোগ দেয়া বিশটি রেলপথের একটি, কিন্তু প্রথম বছরগুলোতে এগুলোতে কোন যাত্রী পরিবহন হয়নি। এর প্রধান পথ ছিল ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার মাঝ দিয়ে। মাউন্টেইনিয়ার ট্রেন চালুর পিছনে প্রধান ভূমিকা পালন করেন আমেরিকান সিনেটর রবার্ট বয়েড (ডি-ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া)। তিনি যোগাযোগ বিভাগের উপর চাপ প্রয়োগ করে এই রুটটি চালু করেন।[২]:৭১[৩]

মাউন্টেইনিয়ার ট্রেনটি শিকাগো-ওয়াশিংটন/নিউপোর্ট রুটে জেমস হুইটকম্ব রাইলির সাথে শিকাগো এবং সিনসিনাটি রুটে চলাচল করত। সিনসিনাটির পর কেন্টাকির অ্যাশল্যান্ড এ চেসাপিক এবং ওহিও রেলওয়ে ইয়ার্ডে দু'টি ট্রেনকে আলাদা করে ক্যাটলসবার্গ, কেন্টাকি এবং পয়েন্টস ইস্টে পাঠিয়ে দেয়া হত। মাউন্টেইনিয়ার ট্রেনটি রাইলির পঁচিশ মিনিট পিছনে থাকত। পশ্চিম দিকে এই পদ্ধতিটি উলটে দেয়া হত।[২]:৭১[৪]

প্রথম ট্রেনদুটি যাত্রা শুরু করে ২৪ মার্চ ১৯৭৫ সালে। এর মাধ্যমে নরফোক এবং ওয়েস্টার্নে পুনরায় যাত্রী পরিবহন শুরু হয়।[২]:৭১[৫] আমট্রাক দুই বছর এই সেবা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়, তবে বলে দেয় যে এতে আর্থিক ক্ষতি হবে। আমট্রাকের প্রেসিডেন্ট পল রিসট্রাপ বলেন যে প্রতি বছরে ৪.৫ মিলিয়ন ডলার খরচ হবে, এবং প্রথম বছরে লাভ হবে ৯০০,০০০ ডলার। এই অর্থ তুলে আনার জন্য মাউন্টেইনিয়ারের প্রতিদিন ১৫০-৩০০ যাত্রী নরফোক থেকে সিনসিনাটি পরিবহন করার প্রয়োজন হত।[৬]

১৯৭৬ সালে আমট্রাক কিছু পরিবর্তনের কথা জানায়, যার মাঝে ছিল ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার মাঝ দিয়ে একটি রুট এবং রাইলি ও ওয়াশিংটন-ডেনভার রুটে চলাচলকারী অন্য একটি ট্রেন (যা পরবর্তীতে কখনওই চালু হয়নি) এর সাথে যৌথ চলাচল। এই পরিকল্পনার আওতায় মাউন্টেইনিয়ারের সাথে নতুন আমফ্লিট যন্ত্রপাতি যোগ করা এবং স্লিপিং কারগুলো খুলে ফেলার কথা ছিল। এই পরিবর্তন কখনই বাস্তবায়িত হয়নি, তবে এক ভয়ানক শীতের মৌসুমে বাষ্পচালিত লোকোমোটীভ ইঞ্জিন এবং হিটিং ব্যবস্থা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার পর আমট্রাক মাউন্টেইনিয়ার ট্রেনে কিছু পরিবর্তন আনতে বাধ্য হয়। ১৯৭৭ সালে বন্ধ হয়ে যাওয়া আটটি রুটের মধ্যে একটি ছিল মাউন্টেইনিয়ার ট্রেন। পরবর্তীতে স্লিপিং কার বাদ দিয়ে এটিকে আবার ফিরিয়ে আনা হয়।[৭]

দুই বছরের চলাচলে মাউন্টেইনিয়ারের যাত্রী সংখ্যা ছিল অসন্তোষজনক; ১৯৭৫ সালে ৫৮,৯৯১ এবং ১৯৭৬ সালে ৫৩,৪০০ জন। বছরে গড়ে ৩৬৫ দিন ধরা হলে ১৯৭৫ সালে দৈনিক যাত্রীর সংখ্যা ছিল ১৬১ এবং ১৯৭৬ সালে ১৪৬ জন। ১৯৭৭ সালে দৈনিক যাত্রীর সংখ্যা ৩৫ এ নেমে আসে। আর্থিক ক্ষতি অনেক বেশি হয়, ১৯৭৫ অর্থবছরে ৫.৭ মিলিয়ন এবং ১৯৭৬ অর্থবছরে ১৪.৯ মিলিয়ন ডলার। কিছুদিন থেমে থাকার পর ৩১ মে, ১৯৭৭ তারিখে আমট্রাক স্থায়ী ভাবে মাউন্টেইনিয়ার ট্রেনটি বন্ধ করে দেয়। এই একই রুটে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত হিলটপার নামে আরেকটি ট্রেন চলাচল করে।[২]:৭২-৭৪

স্টেশনসমূহ[সম্পাদনা]

সিনসিনাটির পুবে চোদ্দটি স্টেশনের কোনটিতেই এর আগে আমট্রাক কাজ করেনি। 'ট্রাই-স্টেট স্টেশন" নামে পরিচিত ক্যাটলসবার্গ স্টেশন (কেন্টাকি, ওহিও এবং ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া রাজ্যের কারণে) চালু হওয়ার কারণে অ্যাশল্যান্ড, কেন্টাকিতে ট্রেন থামা বন্ধ হয়ে যায়। রোয়ানোক এবং ব্লুফিল্ডে নতুন স্টেশন চালু করে আমট্রাক। নরফোক এবং ওয়েস্টার্ন স্টেশনের বিভিন্ন জায়গায় অন্যান্য বিরতির জায়গাগুলো নির্ধারিত করা হয়। পিটার্সবার্গ এবং লিঞ্চবার্গ, ভার্জিনিয়ায় আরও কিছু রেল সার্ভিস ছিল। আমট্রাকের ফ্লোরিডা গামী ট্রেনগুলো এক্স-আটলান্টিক কোস্ট রেলরোড এর পিটার্সবার্গ স্টেশনটি ব্যবহার করত, এবং বাকি ট্রেনগুলো ব্যবহার করত লিঞ্চবার্গের কেম্পার স্ট্রিট স্টেশন।[৫]

যন্ত্রপাতি এবং অনুষঙ্গ[সম্পাদনা]

প্রথমে মাউন্টেইনিয়ারে ছিল পাঁচটি কারঃ একটি ব্যাগেজ ডরমিটরি, দু'টো কোচ, একটি গ্রিল ডাইনার এবং একটি ১০-৬ স্লিপিং কার। প্রয়োজন হলে কোচগুলোর একটিকে ডোম কার হিসেবে ব্যবহার করা হত। ১৯৭৭ এর জানুয়ারিতে আমট্রাক তিনটি নতুন আমফ্লিট কার যুক্ত করে, যেগুলোর দু'টো কোচ এবং একটি ক্যাফে হিসেবে ব্যবহৃত হত।[২]:৭৪

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. টেমপ্লেট:Cox-Dixie
  2. টেমপ্লেট:Sanders-Heartland
  3. "Sen. Byrd will speak at Amtrak ceremony here"Williamson Daily News। মার্চ ২১, ১৯৭৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১৫ 
  4. Amtrak (মে ১৫, ১৯৭৫)। "Eastern Amtrak Schedules"All-America Schedules। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১৫ 
  5. "Amtrak's 'Mountaineer' makes first run today"Williamson Daily News। মার্চ ২৪, ১৯৭৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১৫ 
  6. "Amtrak president says 'ridership' key to making local route permanent"Williamson Daily News। মার্চ ২৫, ১৯৭৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১৫ 
  7. "Amtrak officials seek changes starting in October"Williamson Daily News। এপ্রিল ২৮, ১৯৭৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১২-১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]